মোহতারাম ইসকান্দারি

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
দেশপ্রেমিক মহিলাদের সমিতির বোর্ড অফ গভর্নরস [ জামিয়াত-ই নেসভান-ই ভাতানখাহ ], তেহরান, ১৯২২-১৯৩২।

মোহতারাম ইসকান্দারি ( ফার্সি: محترم اسکندری‎‎  ; ১৮৯৫ – জুলাই ২৭, ১৯২৪),[১] ছিলেন একজন ইরানি বুদ্ধিজীবী এবং ইরানি নারী আন্দোলনের পথিকৃৎ। তিনি পারস্যের প্রথম নারী অধিকার সমিতি জামিয়াত-ই-নেসভান-ই বতনখায়ের সহ-প্রতিষ্ঠাতা এবং প্রথম নেতা ছিলেন।[২][৩] নেসভান ওয়াতন খও সংবাদপত্রের প্রথম সভাপতি এবং প্রকাশক ছিলেন। ইসকান্দারি নারী শিক্ষা, পর্দা অপসারণসহ নারীর অধিকারের সমর্থনে বক্তৃতা প্রদান করেন। তিনি সমিতির সদস্যদের জন্যও মিছিলের পরিকল্পনা করেন।[৪]

প্রাথমিক জীবন[সম্পাদনা]

মোহতারাম তেহরানের এক উদার, বুদ্ধিবৃত্তিক প্রাণবন্ত এবং রাজনৈতিকভাবে সক্রিয় পরিবারে জন্মগ্রহণ করেন। তার পিতা, মোহাম্মদ আলী মির্জা এস্কান্দারি (আলী খানের রাজপুত্র), একজন সংবিধান বিশেষজ্ঞ এবং আদমিয়াত সোসাইটির প্রতিষ্ঠাতা ছিলেন এবং দার উল- ফুনুনে শিক্ষকতা করেন।[৫] তিনি প্রথমে তার বাবার সাথে বাড়িতে পড়াশোনা করেন এবং মির্জা মোহাম্মদ আলী খান মোহাক্কেকীর তত্ত্বাবধানে ফারসি এবং ফরাসি সাহিত্যে শিক্ষা লাভ করেন। এস্কান্দারি ও মহাক্কেকি পরে বিয়ে করেন।[৬][৭] প্রাপ্তবয়স্ক অবস্থায়, এসকান্দারি মেরুদণ্ডে আঘাত পেয়েছিলেন। তিনি কিছুদিন শিক্ষকতা করেন এবং মেয়েদের জন্য একটি রাষ্ট্রীয় বিদ্যালয়ের পরিচালক হিসেবে দায়িত্ব পালন করেছিলেন। সাংবিধানিক বিপ্লবের পর পারস্যে নারীদের অধিকারের অবস্থার প্রতি তার অসন্তোষ ছিল।, তাকে ১৯২২ সালে জমিয়ত-ই-নেসভান-ই ভাতানখাহ, "ইরানের দেশপ্রেমিক মহিলা লীগ" প্রতিষ্ঠা করতে পরিচালিত করে, যা অনন্যভাবে নারীবাদ এবং ইরানি জাতীয়তাবাদকে একত্রিত করেছিল। তিনি নারীদের জন্য সাংবিধানিক বিপ্লবের সাফল্যে হতাশ হয়েছিলেন।[৮] তেহরানে বেশ কয়েকজন নেতৃস্থানীয় মহিলার সাথে তিনি দেশপ্রেমিক মহিলা সমিতি প্রতিষ্ঠা করেন। তিনি বক্তৃতা দেন, অ্যাসোসিয়েশনের পত্রিকা পরিচালনা করেন এবং সম্প্রদায়ের মিছিলের পরিকল্পনা করেন। এক সমাবেশে তারা নারীদের বিরুদ্ধে লিফলেট পুড়িয়ে দেয়, যার ফলে সরকারি কর্মকর্তারা মোহতারামকে গ্রেফতার করে। কিন্তু এটি ইরানের জনগণের মধ্যে তার নাম সুপরিচিত করে তোলে। তিনি প্রাপ্তবয়স্ক মহিলাদের জন্য একটি স্কুলও প্রতিষ্ঠা করেছিলেন এবং জাতীয় পণ্য ব্যবহারের জন্য বিজ্ঞাপন দিয়েছিলেন।[৯] ১৯২৪-১৯২৫ সালের জুলাই মাসে তেহরানে ২৯ বছর বয়সে মোহতারাম এস্কান্দারি মারা যান।[৫]

নেসভান ওয়াতন খও সংবাদপত্র[সম্পাদনা]

১৯২২ সালে মোহতারাম এস্কান্দারী, নুরোলহৌদা মঙ্গেনেহ, মাস্তুরে আফশার এবং ম্যাডাম ফখর আফাঘের সম্মানিত কাজের মাধ্যমে “দেশপ্রেমিক নারী সমিত “ প্রতিষ্ঠিত হয়। মহিলাদের শিক্ষার অধিকার এই সমিতির অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ লক্ষ্য ছিল। দশজন নির্বাচিত নারীদের নিয়ে “দেশপ্রেমিক নারী সমিতি” কর্তৃক পরিচালনা পর্ষদ গঠিত হয় এবং একই প্রতিনিধি দল ইস্কান্দারীকে সমিতির প্রথম প্রধান হিসেবে নির্বাচিত করে। নারী শিক্ষা ও শিক্ষার লক্ষ্যের পথে "দেশপ্রেমিক নারী সমিতি”, বয়স্ক মহিলাদের জন্য ক্লাস শুরুর প্রেক্ষিতে "উইমেনস উইজডম" পত্রিকা প্রকাশ করে। সংবাদপত্রটি সম্প্রদায়ের সরকারী অঙ্গ যা নারীর সমস্যা এবং নারীর অধিকারের উপর দৃষ্টি নিবদ্ধ করে। পত্রিকাটির মালিক ছিলেন ম্যাডাম মলুক এস্কান্দারি এবং তার প্রথম সম্মানিত পরিচালক ছিলেন মোহতারাম এস্কান্দারি। নাসভান ওয়াতান খও সংবাদপত্র তিন বছরে (১৯২৩-১৯২৬) এগারোটি সংখ্যা প্রকাশ করে এবং অনেক উদার নারীকে আকৃষ্ট করে।[১০]

নারীদের দুষ্টতার বিরুদ্ধে বিদ্রোহ[সম্পাদনা]

"দুষ্ট নারী" ( ফার্সি: مکر زنان‎‎ ), তেহরানে নারী শিক্ষা ও স্বাধীনতার বিরোধীদের একটি বইয়ের নাম। এই লিফলেট ছেলেরা শহরের প্রধান চত্বরে বিক্রি করত। নূর-ওল-হোদা মঙ্গনেহ তার স্মৃতিপত্রে লিখেন লিফলেটটি কতটা অপমানজনক ছিল এবং তার প্রমাণ হচ্ছে-এখানে ছলনাময়ী নারীদের নিয়ে প্রতিদিন অনেক বই প্রকাশ হত এবং অনেক হকার তা উৎসাহে বিক্রিও করত। তারপর একদিন মোহতারাম এস্কান্দারী সাতজন উদারপন্থী নারীকে নিয়ে তুপখনেহ স্কয়ারে গিয়ে সেখানকার শিশুদের হাত থেকে "দুষ্ট নারী" লিফলেটগুলো সরিয়ে দিলেন। তারা স্কোয়ারের মাঝখানে লিফলেটে আগুন ধরিয়ে দিলেন, ঠিক একই জায়গায় সংবিধান বিশেষজ্ঞদের একবার ফাঁসি দেওয়া হয়েছিল। যখন সেই বাচ্চারা লিফলেটগুলির জন্য টাকা চেয়েছিল, তখন মোহতারাম এবং অন্যান্য উদারপন্থী নারীরা তাদের বলেছিলেন যে তারা কোন টাকা পাবে না।[১১]

বিদ্রোহের জন্য গ্রেফতার[সম্পাদনা]

স্কোয়ারে বই পুড়ানোর পর এবং বাচ্চারা তাদের পোড়া বইয়ের জন্য উচ্চস্বরে কান্নাকাটি করার পর পুলিশ সেখানকার নারীদের গ্রেফতার করে কমিশনে নিয়ে যায় (থানা এবং অভিযুক্তদের প্রথম জিজ্ঞাসাবাদ এলাকা)। নারীদের বিভিন্ন কক্ষে নিয়ে আলাদাভাবে জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়। "সাংবিধানিকতা থেকে শ্বেত বিপ্লব পর্যন্ত ইরানি নারী" বইয়ে বদর আল-মলৌক লিখেছেন: মোহতারাম ইসকান্দারি সরকারি আদালতে বলেন, এ বইয়ে আমাদের মা ও বোন সম্পর্কে অনেক খারাপ কথা রয়েছে তাই পুড়িয়ে ফেলা হয়েছে। মোহতারাম ইস্কান্দারীর নাম প্রথম নারী হিসেবে লিপিবদ্ধ করা হয়েছিল যিনি সমসাময়িক ইতিহাসে ইরানে বিদ্রোহের জন্য গ্রেফতার হন।[১২]

অসুস্থতা এবং মৃত্যু[সম্পাদনা]

লিফলেট পোড়ানোর পর তাকে গ্রেপ্তার করা হয়, এরপর তার অসুস্থতার তীব্রতা বেড়ে যায় এবং মোহতারাম হাসপাতালে ভর্তি হন। চিকিৎসকরা বলেছিলেন যে কশেরুকা কলামে অস্ত্রোপচার করা উচিত। তিনি শৈশব থেকেই এই রোগে ভুগছিলেন এবং তার পিঠ সবসময় বাঁকা থাকায় তাকে নিয়ে মজা করা হতো, কিন্তু জীবনের শেষ মুহূর্ত পর্যন্ত তিনি নারীর সমতার জন্য তার প্রচেষ্টা অব্যাহত রেখেছিলেন এবং দেশপ্রেমিক নারী সমিতির নারীদের পরামর্শ দিয়েছিলেন। বলতেন, নারীদের জন্য তাদের কাজের একটি মুহূর্ত ছেড়ে দিন এবং নারীর অধিকার আদায়ের জন্য কাজ চালিয়ে যান। অবশেষে, মোহতারাম এস্কান্দারি ১৯২৪ সালের জুলাই মাসে মারা যান, তখন তার বয়স ছিল ২৯ বছর। সেদিকাহ দৌলতাবাদী মোহতারামের দলিলে লিখেছেন:

মোহতারাম এস্কান্দারিকে হারানোর ঘটনা, আমাকে এতটাই হতাশ করেছে যে, আমি তা ব্যাখ্যা করতে পারব না, কারণ আমি এই সাহসী ইরানী মেয়েটির মহান প্রচেষ্টা জানি এবং আমি তার ক্ষতিকে একটি বড় দুর্ভাগ্য হিসেবে ভাবি। হ্যাঁ, তার আত্মত্যাগ প্রশংসনীয় ছিল। আমি কখনই ভুলব না যে তারা বারবার সম্মেলনে তার নিন্দা করেছিল। কিন্তু তিনি সব শুনেছেন এবং নিজেকে বিরক্ত বা বিচলিত না করার চেষ্টা করেছেন। অবিচল পদক্ষেপ এবং দৃঢ়তার সাথে তিনি তার লক্ষ্য অব্যাহত রেখেছিলেন। আমার জীবনে তিনিই প্রথম ইরানি নারী যাকে আমি দেখেছি যে তার লক্ষ্যে পৌঁছানোর জন্য সর্বাত্মক চেষ্টা করে কখনো ক্লান্ত হন নি। আমি শুধু আশা করি আমার মাতৃভূমির সকল নারী এই সম্মানিত নারীর কাজকে নষ্ট হতে দেবেন না এবং তিনি যে ভিত্তি প্রতিষ্ঠা করেছিলেন তা ভেঙ্গে যাবে না।[১৩]

আরো দেখুন[সম্পাদনা]

সূত্র[সম্পাদনা]

  • সানাসারিয়ান, এলিজইরানে নারী অধিকার আন্দোলন, প্রিগার, নিউ ইয়র্ক: ১৯৮২,আইএসবিএন ০-০৩-০৫৯৬৩২-৭
  • নাহিদ, আব্দুল হোসেন, সাংবিধানিক আন্দোলনে ইরানি নারী, তাবরিজ, এহিয়া দ্বারা প্রকাশিত, ১৯৮১
  • পুরান ফারুকজাদ, ইরানি মহিলা কার্নিভালস (গতকাল থেকে আজ পর্যন্ত)। তেহরান, ঘাত্রেহ, ২০০২ দ্বারা প্রকাশিত।
  • ইয়ারভান্ড আব্রাহামিয়ান, ইরান দুই বিপ্লবের মধ্যে: সাংবিধানিকতা থেকে ইসলামী বিপ্লব পর্যন্ত। কাজেম ফিরুজমান্দ, হাসান শামসিয়াহী, শানাচির পরিচালক মোহসেনের অনুবাদ। দ্বিতীয় মুদ্রণ, মারকাজ, ১৯৯৯, পৃষ্ঠা ১৪৬ দ্বারা প্রকাশিত।

বাহ্যিক লিঙ্ক[সম্পাদনা]

  • Mehrangiz Dowlatshahi - ESKANDARĪ, MOḤTARAM এনসাইক্লোপিডিয়া ইরানিকা।

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "Archived copy" (PDF)। ২০২০-০৪-১৯ তারিখে মূল (PDF) থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০০৮-০৮-৩১ 
  2. Sanasarian, Eliz. The Women's Rights Movements in Iran, Praeger, New York: 1982, আইএসবিএন ০-০৩-০৫৯৬৩২-৭.
  3. Afary, Janet. The Iranian Constitutional Revolution, 1906 - 1911, Columbia University Press, 1996.
  4. Sanasarian, pages 63-64
  5. "ESKANDARĪ, MOḤTARAM"Encyclopaedia Iranica। জানুয়ারি ১৯, ২০১২। সংগ্রহের তারিখ মার্চ ১, ২০১৬  উদ্ধৃতি ত্রুটি: <ref> ট্যাগ বৈধ নয়; আলাদা বিষয়বস্তুর সঙ্গে ":0" নামটি একাধিক বার সংজ্ঞায়িত করা হয়েছে
  6. Pouran Farrokhzad, pages 90 and 91
  7. Iranian Women in the Constitutional Movement, pages 115-118
  8. Sanasarian, pages 63-64
  9. Pouran Farrokhzad, pages 90 and 91
  10. "The day in which women were known as wicked was burned into fire"। ২০১৯-০২-১২ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০১৯-০২-১০ 
  11. "The day in which women were known as wicked was burned into fire"। ২০১৯-০২-১২ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০১৯-০২-১০ 
  12. بی‌بی‌سی, نیکی محجوب। "۱۰۰ زن نخست ایران در حوزه‌های مختلف"BBC News فارسی (ফার্সি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০১৯-১০-২৪ 
  13. "زنان تاثیرگذار ایران: محترم اسکندری"IranWire | خانه (ফার্সি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০১৯-১০-২৪