মুম্বই–চেন্নাই রেলপথ

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
মুম্বই–চেন্নাই রেলপথ
Guntakal Junction 4.JPG
গুনতাকাল; মুম্বই–চেন্নাই রেলপথে অন্ধ্রপ্রদেশে অবস্থিত একটি গুরুত্বপূর্ণ রেলওয়ে জংশন।
সংক্ষিপ্ত বিবরণ
অবস্থাপরিচালনাগত
অঞ্চলমহারাষ্ট্র, কর্ণাটক
অন্ধ্রপ্রদেশ, তামিলনাড়ু
বিরতিস্থলমুম্বই সিএসএমটি
এমজিআর চেন্নাই সেন্ট্রাল
ক্রিয়াকলাপ
উদ্বোধন১৮৭১
মালিকভারতীয় রেল
পরিচালকমধ্য রেল, দক্ষিণ মধ্য রেল, দক্ষিণ রেল
প্রযুক্তিগত
রেলপথের দৈর্ঘ্য১,২৮১ কিমি (৭৯৬ মা)
ট্র্যাক গেজ১,৬৭৬ মিমি (৫ ফুট ৬ ইঞ্চি) ব্রডগেজ
চালন গতি১৩০ কিমি / ঘণ্টা পর্যন্ত
সর্বোচ্চ টিলালোনাভেলা ৬২২ মিটার (২,০৪১ ফু)
বিদ্যুতায়নআংশিকভাবে বিদ্যুতায়িত, বাকি বিদ্যুতায়িত হচ্ছে
পথের মানচিত্র
মুম্বই-চেন্নাই রেলপথের মানচিত্র

মুম্বই–চেন্নাই রেলপথ চেন্নাই এবং মুম্বইকে সংযোগকারী রেলপথ, যা দাক্ষিণাত্য মালভূমির দক্ষিণ অংশ জুড়ে বিস্তৃত। এটি মহারাষ্ট্র, কর্ণাটক, তেলেঙ্গানা, অন্ধ্রপ্রদেশ এবং তামিলনাড়ু জুড়ে ১,২৮১ কিলোমিটার (৭৯৬ মাইল) বিস্তৃত।

বিভাগ[সম্পাদনা]

মুম্বই–চেন্নাইকে সংযোগকারী ১,২৮১ কিমি (৬৯৬ মাইল) দীর্ঘ এবং ব্যস্ত ট্রাঙ্ক রেলপথকে ছোট অংশে বা বিভাগে বিভক্ত করা হয়েছে:

১. সেন্ট্রাল লাইন (মুম্বই শহরতলি রেলপথ)
২. মুম্বই দাদার-সোলাপুর বিভাগ
৩. সোলাপুর-গুনতাকাল বিভাগ
৪. গুনতাকাল-চেন্নাই এগমোর বিভাগ

ইতিহাস[সম্পাদনা]

বৈদ্যুতীকরণ[সম্পাদনা]

কল্যাণ-পুনে বিভাগটি ১৯৩০ সালে ১.৫ কেভি ডিসি ওভারহেড ব্যবস্থার মাধ্যমে বিদ্যুতায়িত হয়[3] এবং ২০১০ সালে এসি ওভারহেড ব্যবস্থায় রূপান্তরিত হয়।

পুনে-সোলাপুর-ওয়াদি লাইনটি বিদ্যুতায়ন করা হচ্ছে এশীয় উন্নয়ন ব্যাংক থেকে ১,৫০০ কোটি টাকা ঋণের মাধ্যমে। কাজটি ২০১২ সালে শুরু হয়। [৪] [৫]

পুনে-ওয়াদি-গুনতাকাল বিভাগে বিদ্যুতায়নের কাজ চলছে। ১ এপ্রিল ২০১২ সাল পর্যন্ত ৬৪১ কিলোমিটারের পুরো রুটটি কাজ সম্পূর্ণ হিসাবে দেখানো হয়।

২০০৮ সালে ১৬৮ কোটি টাকা ব্যয়ে ৩০৮ কিলোমিটার দীর্ঘ রেনিগুন্টা-গুনতাকাল অংশটি বিদ্যুতায়নের ঘোষণা দেওয়া হয়। রেনিগুন্টা-নন্দলুর বিভাগে বিদ্যুতায়ন ২০০৬ সালে সম্পন্ন হয়। [৮] ননদালুর-গুনতাকাল বিভাগ ডিসেম্বর ২০১৩ সালের মধ্যে বিদ্যুতায়িত হয়।

চেন্নাই বিচ-তাম্বারাম বিভাগটি ১৯৩১ সালে ডিসি ওভারহেড লাইনের সাথে বিদ্যুতায়িত হয় এবং ১৯৬৭ সালে ২৫ কেভি এসি'তে রূপান্তরিত হয়। পুরতচি থালাইভার ডাঃ এম.জি. রামচন্দ্রন সেন্ট্রাল রেলওয়ে স্টেশন-তিরুবল্লুর বিভাগ পাশাপাশি বেসিন ব্রিজ-চেন্নাই বিচ বিভাগটি ১৯৭৯-৮০ সালে বিদ্যুতায়িত হয়।

গতি[সম্পাদনা]

যাত্রী চলাচল[সম্পাদনা]

পুনে, সোলাপুর ও পুরাচি থালাইভার ডাঃ এম.জি. এই লাইনে রামচন্দ্রন সেন্ট্রাল রেলওয়ে স্টেশনটি ভারতীয় রেলের শীর্ষ শতাধিক বুকিং স্টেশনগুলির মধ্যে রয়েছে।[১১] মুম্বই-চেন্নাই লাইন ডায়মন্ড চতুর্ভুজের একটি অংশ।

ছবি[সম্পাদনা]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]