মানচিত্র বর্ণন

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন

মানচিত্র বর্ণন (from χῶρος খিরোস, "স্থান" এবং γράφειν গ্রাফিন, "লেখা") হল কোনও অঞ্চল বা জেলা বর্ণনা বা মানচিত্র করণের শিল্প,[১] এবং প্রসারণের মাধ্যমে এ জাতীয় বর্ণনা বা মানচিত্র তৈরি।[২] এই শব্দটি প্রাচীন ভূগোলবিদদ্বয় পম্পনিয়াস মেলা এবং টলেমির লেখা থেকে উদ্ভূত হয়েছে, যেখানে এর অর্থ অঞ্চলগুলির ভৌগোলিক বিবরণ। তবে এর অর্থের অনুরণন বিভিন্ন সময়ে বিভিন্ন রকম হয়েছে। রিচার্ড হেলগারসন বলেছেন যে "মানচিত্র বর্ণন নিজেকে ক্রমানুসারে লিখিত বিবরণের (ক্রনিকল) বিরোধিতার দ্বারা সংজ্ঞায়িত করে। এটি জায়গার প্রতি উৎসর্গীকৃত একটি ধারা, এবং ক্রনিকল হ'ল সময়কে উৎসর্গ করা ধারা।[৩] ড্যারেল রোহল একটি বিস্তৃত সংজ্ঞা পছন্দ করেন, "প্রতিবেশ বা স্থানের উপস্থাপনা"।[৪]

১৬শ শতাব্দীর একজন শিল্পীর কল্পনায় টলেমি।

টলেমির সংজ্ঞা[সম্পাদনা]

টলেমি তাঁর লেখা জিওগ্রাফিয়াতে (দ্বিতীয় শতাব্দী), ভূগোল কে পুরো বিশ্বের অধ্যয়ন হিসাবে সংজ্ঞায়িত করেছেন, আর 'মানচিত্র বর্ণন' হল এর ছোট অংশগুলি — প্রদেশ, অঞ্চল, শহর বা বন্দরগুলির অধ্যয়ন। এর লক্ষ্যটি ছিল "একটি অংশের ছাপ, যেমন কেউ যখন কেবল একটি কান বা একটি চোখের চিত্র তৈরি করে"; এবং এটি "যে বস্তুকে স্থিত করে তার পরিমানের চেয়ে তার গুণাগুণের" সঙ্গে সংশ্লিষ্ট। টলেমি বুঝিয়েছিলেন যে এটি দৃশ্যাবলী তৈরি করার একটি রৈখিক প্রযুক্তি, (কেবল মানচিত্র নয়)। তিনি দাবি করেছিলেন যে এর জন্য একজন নকশাকার বা ভূদৃশ্য শিল্পীর দক্ষতাই প্রয়োজন, "আনুপাতিক স্থাপনা" নথিবদ্ধ করার আরও প্রযুক্তিগত দক্ষতা নয়। টলেমির অতি সাম্প্রতিক ইংরেজি অনুবাদকরা অবশ্য এই শব্দটিকে "আঞ্চলিক মানচিত্রনির্মানবিদ্যা" হিসাবে অনুবাদ করেছেন।[৫]

রেনেসাঁ পুনর্জীবন[সম্পাদনা]

পঞ্চদশ শতাব্দীর শুরুতে, টলেমির পাঠ্যটি পশ্চিমে আবার আবিষ্কার করা হয়েছিল, এবং "কোরোগ্রাফি" (মানচিত্র বর্ণন) শব্দটিকে মানবতাবাদী পণ্ডিতেরা পুনরুজ্জীবিত করে তুলেছিলেন।[৬] প্রথম দিকের উদাহরণটি হ'ল পনেরো শতকের প্রথম দিকের পাণ্ডুলিপিতে ব্রিটেনের একটি ছোট আকারের মানচিত্র, যেটি ট্যাবুলা কোরোগ্রাফিক আখ্যাযুক্ত।[৭] ১৫৭০ সালে, জন ডি এই অনুশীলনটিকে "নিম্নমর্যাদার এবং ভূগোল এর একটি শাখা" হিসাবে বিবেচনা করেছিলেন, যার দ্বারা কোনও নির্দিষ্ট জায়গার "নকশা" (পরিকল্পনা বা অঙ্কন) চোখে দেখা যাবে।[৮]

উইলিয়াম ক্যামডেন

অবশ্য, শব্দটি ব্যবহার করা হয়েছিল অঞ্চলটির লিখিত বর্ণনার জন্য। এই অঞ্চলগুলি লেখক ব্যাপকভাবে পরিদর্শন করেছিলেন, তারপরে স্থানীয় স্থানবিবরণ একত্রিত করেছিলেন, এবং এরপর ঐতিহাসিক উৎস এবং স্থানীয় জ্ঞান ও গল্পগুলিকে সংক্ষিপ্তসার করে একটি পাঠ্যে পরিবর্তিত করেছিলেন। সবচেয়ে প্রভাবশালী উদাহরণ (কমপক্ষে ব্রিটেনে) সম্ভবত উইলিয়াম ক্যামডেন এর ব্রিটানিয়া (প্রথম সংস্করণ ১৫৮৬), এর শিরোনাম পৃষ্ঠায় একে কোরোগ্রাফিকা ডেসক্রিপটিও হিসাবে বর্ণনা করা হয়েছে। উইলিয়াম হ্যারিসন একইভাবে তাঁর নিজের "ব্রিটেনের বিবরণ"কে মানচিত্র বর্ণন অনুশীলন হিসাবে বর্ণনা করেছিলেন, এটিকে হোলিনশেডের ক্রনিকলস এর ঐতিহাসিক / কালানুক্রমিক পাঠ্য থেকে স্বতন্ত্র করা হয়েছিল (যেখানে একটি সূচনা বিভাগে ছিল "বিবরণ")।[৯] ১৬৫২ সালে পিটার হাইলিন মানচিত্র বর্ণনকে "কিছু সাম্রাজ্য, দেশ বা একই নির্দিষ্ট প্রদেশের সঠিক বর্ণনা" হিসাবে সংজ্ঞায়িত করেছিলেন, এবং উদাহরণ হিসাবে দিয়েছেন পসানিয়াসের গ্রীসের বর্ণনা (দ্বিতীয় শতাব্দী, খ্রিস্টাব্দ); ক্যামডেনের ব্রিটানিয়া (১৫৮৬); লোডোভিকো গুইসিয়ার্ডিনি এর ডেসক্রিটশন ডি টুটি আই পায়েসি বাসি (১৫৬৭) (নিম্ন জমির দেশসমূহ তে); এবং লায়ান্দ্রো আলবার্তির ডেসক্রিজিওন ডি'ইতালিয়া (১৫৫০)।[১০]

ক্যামডেনের ব্রিটানিয়া বইটি মূলত ব্রিটেনের ইতিহাস এবং প্রত্নতাত্ত্বিকতার সাথে জড়িত ছিল, এবং সম্ভবত ফলস্বরূপ, ইংরেজিতে কোরোগ্রাফি শব্দটি বিশেষত পুরাতাত্বিক গ্রন্থগুলির সাথে যুক্ত হয়ে গিয়েছিল। ভদ্রজনোচিত টোপোফিলিয়া (ভালবাসার জায়গা) থেকে উদ্ভূত এবং কারও কাউন্টি বা শহরে পরিষেবার অনুভূতি পেতে, এই শব্দটি উইলিয়াম লাম্বার্দে, জন স্টো, জন হুকার, মাইকেল ড্রেটন, ট্রিস্ট্রাম রিসডন, জন অব্রে এবং আরও অনেক অন্যরা এইভাবে ব্যবহার করেছিলেন। এটি অবশেষে কাউন্টি ইতিহাসের ধারাতেই বেশি প্রয়োগ হতে থাকল। পরের দিকের উদাহরণের মধ্যে আছে উইলিয়াম গ্রে-এর কোরোগ্রাফিয়া (১৬৪৯)। এটি নিউক্যাসল আপন টাইন শহরের পুরাকীর্তির একটি সমীক্ষা। ক্যামডেনের কাজ সামনে আসার আগেই, ১৫৭৪ সালে, অ্যান্ড্রু মেলভিলে কোরোগ্রাফি এবং কালনিরূপণবিদ্যাকে ইতিহাসের "ত্বা লাইটস" [দুটি আলোক] হিসাবে উল্লেখ করেছিলেন।[১১]

ক্রিস্টোফার স্যাক্সটন এর মানচিত্র অঙ্কন অনুশীলনের উদাহরণ

যাইহোক, বিশেষত উপ-জাতীয় বা কাউন্টি অঞ্চলগুলিতে শব্দটি মানচিত্র এবং মানচিত্র তৈরির জন্য ব্যবহার করা চলছিল। উইলিয়াম ক্যামডেন কাউন্টি মানচিত্রের দুই নির্মাতা ক্রিস্টোফার স্যাক্সটন এবং জন নর্ডন এর প্রশংসা করে বলেছিলেন "সবচেয়ে দক্ষ মানচিত্র বর্ণন" শিল্পী।[১২] ১৬৭৭ সালে, রবার্ট প্লট[১৩] এবং ১৭৪৩ সালে ক্রিস্টোফার প্যাক[১৪] উভয়ই তাঁদের কাউন্টি মানচিত্রকে মানচিত্র বর্ণন হিসাবে উল্লেখ করেছিলেন।

অষ্টাদশ শতাব্দীর শুরুতে, এই সমস্ত প্রসঙ্গে শব্দটি অধিকাংশ সময়েই আর ব্যবহার হতনা, বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই "স্থলাকৃতি" (টোপোগ্রাফি) বা "মানচিত্রাঙ্কনবিদ্যা" (কার্টোগ্রাফি) ব্যবহার করা হত। স্যামুয়েল জনসন তাঁর অভিধান (১৭৫৫) পুস্তকে ভূগোল, মানচিত্র বর্ণন এবং স্থলাকৃতির মধ্যে পার্থক্য দেখিয়ে ছিলেন, তিনি প্রতিপন্ন করেছিলেন ভূগোল বড় অঞ্চলের সাথে সংশ্লিষ্ট, স্থলাকৃতি ছোট অঞ্চলগুলির সাথে সংশ্লিষ্ট এবং এদের মাঝের অঞ্চলগুলির সাথে মানচিত্র বর্ণন সংশ্লিষ্ট, অর্থাৎ "ভূগোলের তুলনায় এর বস্তুভাগ কম এবং স্থলাকৃতির চেয়ে বেশি"।[১৫] বাস্তবে, আজকের দিনে ইংরেজিতে এই শব্দটির প্রয়োগ খুব কমই হয়।

ফার্দিনান্দ ভন রিথোফেন

আধুনিক ব্যবহার[সম্পাদনা]

আরও প্রযুক্তিগত ভৌগোলিক সাহিত্যে, নগরীর দৃষ্টিভঙ্গি এবং শহরের মানচিত্র আরও বেশি পরিশীলিত হওয়ার সাথে সাথে শব্দটি পরিত্যাগ করা হয়েছিল এবং সেই কাজে শুধু দক্ষ একজন নকশাবিদ হলেই চলবে তা নয়, বৈজ্ঞানিক জরিপের কিছু জ্ঞানও প্রয়োজন। তবে, উনবিংশ শতাব্দীর শেষের দিকে ভূগোলবিদ ফার্দিনান্দ ফন রিথোফেন এর ব্যবহারটি দ্বিতীয়বারের মতো পুনরুদ্ধার করেছিলেন। তিনি মানচিত্র বর্ণনকে ভূগোলের মধ্যে বিশেষ জ্ঞান হিসাবে বিবেচনা করেছিলেন, যেটি করতে প্রদত্ত অঞ্চলের নির্দিষ্ট বৈশিষ্ট্যের ক্ষেত্র পর্যবেক্ষণের মাধ্যমে বর্ণনার জ্ঞান প্রয়োজন।[১৬]

এই শব্দটি বর্তমানে ঐতিহাসিক ও সাহিত্যের পণ্ডিতরা প্রারম্ভিক আধুনিক যুগে স্থলের আকৃতি এবং প্রত্নতাত্ত্বিক সাহিত্যের ধারাকে উল্লেখ করার জন্য ব্যাপকভাবে ব্যবহার করেন।।[১৭]

আরো দেখুন[সম্পাদনা]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1.  চিসাম, হিউ, সম্পাদক (১৯১১)। "Chorography"। ব্রিটিশ বিশ্বকোষ6 (১১তম সংস্করণ)। কেমব্রিজ ইউনিভার্সিটি প্রেস। পৃষ্ঠা 270। [[বিষয়শ্রেণী:উইকিসংকলনের তথ্যসূত্রসহ ১৯১১ সালের এনসাইক্লোপিডিয়া ব্রিটানিকা থেকে উইকিপিডিয়া নিবন্ধসমূহে একটি উদ্ধৃতি একত্রিত করা হয়েছে]]
  2. Merriam-Webster
  3. Helgerson 1992, p. 132.
  4. Rohl 2011, p. 1.
  5. J.L. Berggren and Alexander Jones (eds), Ptolemy's Geography (Princeton, 2000), pp. 57-9.
  6. See Lucia Nuti, 'Mapping Places: Chorography and Vision in the Renaissance', in Denis Cosgrove (ed.), Mappings (London, 1999), pp. 90-108.
  7. British Library Harleian MS 1808, fol. 9v; reproduced in Catherine Delano-Smith and R.J.P Kain, English Maps: a History (London, 1999), p. 21.
  8. John Dee, 'Mathematicall Praeface', in Euclid, The Elements of Geometrie, trans. H. Billingsley (London, 1570), sig. A4r.
  9. Harrison, William (১৫৮৭)। "An Historicall Description of the Iland of Britaine"। Holinshed, RaphaelThe First and Second Volumes of Chronicles (2nd সংস্করণ)। London। পৃষ্ঠা sig. [A2]v। 
  10. Heylyn, Peter (১৬৫২)। Cosmographie। London। পৃষ্ঠা 27। 
  11. Kinloch, G. R., সম্পাদক (১৮২৯)। The Diary of Mr James Melvill, 1556–1601। Edinburgh: Bannatyne Club। পৃষ্ঠা 38–9। 
  12. Camden, William (১৬১০)। "The Author to the Reader"। Britain, or a Chorographicall Description of the most flourishing Kingdomes, England, Scotland, and Ireland, and the Ilands adjoyning, out of the depth of AntiquitieHolland, Philemon কর্তৃক অনূদিত। London। পৃষ্ঠা sig. [*5]v। 
  13. Plot, Robert (১৬৭৭)। The Natural History of Oxford-shire। Oxford। পৃষ্ঠা 299 
  14. Packe, Christopher (১৭৪৩)। A New Philosophico-Chorographical Chart of East-Kent। [Canterbury]। 
  15. Johnson, Samuel (১৭৫৫)। "chorography"। A Dictionary of the English Language। London। পৃষ্ঠা 373। .
  16. GEO 466/566: The Profession of Geography ওয়েব্যাক মেশিনে আর্কাইভকৃত ২০১২-০২-১১ তারিখে.
  17. Particularly influential in reviving the term has been Helgerson 1992, esp. pp. 105-47.