মাইক (মস্তকহীন মোরগ)

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
মাইক
মস্তকহীন মাইক.webp
অন্যান্য উপনাম অলৌকিক মাইক
প্রজাতি মুরগি
বংশবৃদ্ধি উয়ানডট
লিঙ্গ পুরুষ
মালিক লয়েড অলসেন

মাইক (২০ এপ্রিল ১৯৪৫ – ১৭ মার্চ ১৯৪৭) হল উয়ানডট প্রজাতির এক মোরগ যেটির মাথা কেটে ফেলার পর তা ১৮ মাস বেঁচেছিল। মোরগটি "অলৌকিক মাইক" নামেও পরিচিত ছিল।[১] মস্তকহীনভাবে মোরগটির বেঁচে থাকার ঘটনা অনেকে গুজব বলে উড়িয়ে দিলেও মোরগটির মালিক সত্যটি উপস্থাপন করার জন্য উটাহর সল্টলেকে অবস্থিত উটাহ বিশ্ববিদ্যালয়ে মোরগটিকে এনে তার মস্তকহীন বেঁচে থাকার ঘটনা প্রমাণ করেছিলেন।[১][২]

মোরগের শিরশ্ছেদন[সম্পাদনা]

১৯৪৫ সালের ১০ সেপ্টেম্বর কলোরাডোর লয়েড অলসেন নামের এক খামারি তার শাশুড়ির সাথে রাতের খাবার খাওয়ার পরিকল্পনা করেন। তার স্ত্রী উঠানে তাকে একটি মুরগি আনতে পাঠালে তিনি সাড়ে পাঁচ মাস বয়সী উয়ানডট প্রজাতির মাইককে বাছাই করেন। মাইকের মাথা কুড়াল দ্বারা শরীর থেকে আলাদা করার চেষ্টা করা হলে এটি মাথার অধিকাংশ ভাগ আলাদা করতে সমর্থ হলেও কুড়ালটি জুগুলার শিরা, একটি কান ও মগজের অধিকাংশ অংশ শরীর থেকে আলাদা করতে ব্যর্থ হয়েছিল।[৩][৪]

মাইকের শিরশ্ছেদ করার ব্যর্থ প্রচেষ্টার পর এটি ভারসাম্য বজায় রেখে দাঁড়াতে ও আস্তে আস্তে চলতে পারত। এরপর সে খাবারে ঠোকর দিতে ও ডাকার চেষ্টা করেছিল। এতে কিছুটা সফলতা অর্জন করেছিল মাইক। তার ডাক ছিল গলা থেকে বের হওয়া "গড়গড়" শব্দের মত।[৩] মাইক মারা না গেলে অলসেন তার মোরগটিকে দেখাশোনা করার সিদ্ধান্ত নেন। তিনি একে চোখের ড্রপারের সাহায্যে দুধ ও পানির মিশ্রণ খাওয়ানো ছাড়াও একে ছোট শস্যদানা ও কীট খাওয়াতেন।[৩][৫]

খ্যাতি[সম্পাদনা]

মাইকের গল্প ছড়িয়ে পড়লে অলসেন একে বিভিন্ন প্রদর্শনীতে নিয়ে যেতেন। মাইকের ছবি টাইমলাইফ সাময়িকীতে প্রকাশিত হয়েছিল।[৩] ২৫ সেন্টের বিনিময়ে মাইককে দেখতে পেত দর্শনার্থীরা। সে সময়ে মাইকের মালিক প্রতি মাসে ৪,৫০০ ডলার উপার্জন করত যা বর্তমান সময়ের ৫০,৫০০ ডলারের সমান।[৬]

মৃত্যু[সম্পাদনা]

১৯৪৭ সালের মার্চ মাসে ফিনিক্সের একটি মোটেলে এক সফর শেষে বাড়ি ফেরার পথে যাত্রাবিরতি করার সিদ্ধান্ত নেন। সে দিন হঠাৎ করে মাঝরাতে মাইক ডাকা শুরু করেছিল। অলসেন তার গলায় দেবার জন্য শস্যদানার শাঁস ব্যতীত আর কিছু পেয়েছিল না। তিনি এর আগের দিন প্রদর্শনী স্থলে ভুলবশত মাইকের খাওয়ানোর সিরিঞ্জ রেখে এসেছিলেন। ফলশ্রুতিতে তিনি মাইককে বাঁচাতে ব্যর্থ হন। অলসেন দাবি করেছিলেন যে, তিনি মোরগটিকে বেঁচে দিয়েছেন। এর দরুন, ১৯৪৯ এর শেষভাগ পর্যন্ত মোরগটির দেশের অন্যান্য অংশের প্রদর্শনীতে উপস্থিত হবার গল্প অলসেনের এলাকার লোকেরা বিশ্বাস করেছিল। অপর সূত্রমতে, মাইকের ছিন্ন শ্বাসনালী সেদিন শ্বাসগ্রহণ করতে ব্যর্থ হয়েছিল যার দরুন মাইককে মোটেলে মৃত্যুবরণ করতে হয়েছিল।[২]

মাইকের অলৌকিকভাবে বেঁচে থাকার ঘটনার ব্যাখ্যা[সম্পাদনা]

এটা পরবর্তীতে নিরূপিত হয়েছিল যে কুড়ালটি জুগুলার শিরা কাটতে ব্যর্থ হয়েছিল ও একটি ক্লট মাইককে রক্ত বের হয়ে মৃত্যুর মুখে ঢলে পড়তে বাধা প্রদান করেছিল।[৭] মাইকের মাথার অধিকাংশ অংশ বিচ্ছিন্ন হয়ে গেলেই এর মগজের অধিকাংশ অংশ ও এর একটি কান শরীরের সাথেই ছিল। মোরগ-মুরগির শ্বাসগ্রহণ, হৃদযন্ত্রের ক্রিয়া, অধিকাংশ প্রতিবর্তী ক্রিয়া ইত্যাদি মগজের দ্বারা নিয়ন্ত্রিত হয় বিধায় মাইক বেঁচে থাকতে সক্ষম হয়েছিল। এটি সম্পূর্ণ মস্তিষ্কহীন অবস্থায় হোমিওস্ট্যাটিক ক্রিয়া পরিচালিত হবার একটি ভালো উদাহরণ।[৭]

স্মৃতি[সম্পাদনা]

মাইকের স্মৃতিকে উপজীব্য করে কলোরাডোতে একটি সংগঠন প্রতিষ্ঠিত হয়েছে যা প্রতি বছরের মে মাসের তৃতীয় সপ্তাহে "মস্তকহীন মাইক দিবস" উদযাপন করে থাকে। তাদের আয়োজনের মধ্যে থাকে "মস্তকহীন মুরগির মত ৫০০০ মি দৌড়", ডিম নিক্ষেপ, মুরগির মাথা চাপানো, মোরগ-মুরগির মত ডাকা ও মুরগি লোটোখেলা।[৮]

মাইকের স্মৃতিকে উপজীব্য করে হাস্যরসাত্মক ব্যান্ডদল "হেডলেস মাইক" শিরোনামের একটি গান গেয়েছিল ও গানের জন্য মিউজিক ভিডিও নির্মাণ করেছিল। ব্যান্ডদলটি প্রায়ই কনসার্টে মস্তকহীন মাইক নামের একটি পাপেট উপস্থাপন করে থাকে।[৯]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "Mike's Story" (ইংরেজি ভাষায়)। Mike the Headless Chicken। ২০০৭। সংগ্রহের তারিখ মে ২৮, ২০১২ 
  2. "The chicken that lived for 18 months without a head"বিবিসি (ইংরেজি ভাষায়)। ১০ সেপ্টেম্বর ২০১৫। সংগ্রহের তারিখ ১২ সেপ্টেম্বর ২০১৫ 
  3. লয়েড, জন; মিচিনসন, জন (২০০৬)। দ্যা বুক অফ জেনারেল ইগ্নোরেন্স (ইংরেজি ভাষায়)। Faber and Faber। আইএসবিএন 0-571-23368-6 
  4. "The Rooster" (ইংরেজি ভাষায়)। Time Inc.। অক্টোবর ২৯, ১৯৪৫। সংগ্রহের তারিখ নভেম্বর ১৩, ২০০৮ 
  5. "Beheaded Chicken Calmly Lives On"সল্ট লেক ট্রিবিউন (ইংরেজি ভাষায়)। সেপ্টেম্বর ১৯, ১৯৪৫। পৃষ্ঠা 17। সংগ্রহের তারিখ সেপ্টেম্বর ১০, ২০১৮Newspapers.com-এর মাধ্যমে। 
  6. Staff. Consumer Price Index (estimate) 1800–2012. Federal Reserve Bank of Minneapolis. Retrieved February 22, 2012.
  7. Lambert, Kelly; Kinsley, Craig; Kinsley, Craig H. (২০০৪)। Clinical Neuroscience (ইংরেজি ভাষায়)। ওর্থ পাবলিশার্স। পৃষ্ঠা 84–। আইএসবিএন 978-0-7167-5227-1 
  8. "Mike the Headless Chicken Day" (ইংরেজি ভাষায়)। salon.com। সংগ্রহের তারিখ অক্টোবর ২৮, ২০০৮ 
  9. "The Radioactive Chicken Heads - "Headless Mike"" (ইংরেজি ভাষায়)। ফানি অর ডাই। ২০ আগস্ট ২০১৬ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৬ সেপ্টেম্বর ২০১৯ 

গ্রন্থপঞ্জি[সম্পাদনা]

  • Amy Reiter (১৯৯৯)। "Mike the Headless Chicken more popular than Clinton"Salon। সংগ্রহের তারিখ মার্চ ৮, ২০০৮ 
  • Charles Furneaux, executive producer; Gregory Diefenbach, producer; Mark Lewis, producer (২০০১)। The Natural History of the Chicken (Video)। PBS Home Video। সংগ্রহের তারিখ অক্টোবর ১১, ২০১৩ 
  • Silverman, Steve (২০০১)। Einstein's Refrigerator: And Other Stories from the Flip Side of History। Kansas City, Missouri: Andrews McMeel Publishing। আইএসবিএন 0-7407-1419-8 

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]