মর থেংগারি

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
মর থেংগারি
আমার সাইকেল চলচ্চিত্র পোস্টার.jpg
পরিচালকঅং রাখাইন
প্রযোজকমা নান খাইং
রচয়িতাঅং রাখাইন
চিত্রনাট্যকারনাসিফুল ওয়ালিদ
শ্রেষ্ঠাংশে
  • কমল মণি চাকমা
  • ইন্দিরা চাকমা
সুরকারঅর্জুন
চিত্রগ্রাহক
  • সৈয়দ কাশেফ
  • শাহবাজি
সম্পাদকশামসুল আরেফিন
পরিবেশকখোনা টকিজ
মুক্তি
  • ২০১৫ (2015)
দৈর্ঘ্য৬১ মিনিট
দেশবাংলাদেশ
ভাষাচাকমা
নির্মাণব্যয়১৩,০০,০০০

মর থেংগারি (বাংলা ভাষায় অর্থ: আমার সাইকেল) বাংলাদেশে নির্মিত সর্বপ্রথম চাকমা ভাষার চলচ্চিত্র।[১][২] ২০১৪ সালের ১৩তম বাংলাদেশ আন্তর্জাতিক স্বল্পদৈর্ঘ্য ও উন্মুক্ত চলচ্চিত্র উৎসবে প্রদর্শিত হয় এই চলচ্চিত্রটি।[৩] অং রাখাইন পরিচালিত এই চলচ্চিত্রটি এক তরুণকে ঘিরে গড়ে উঠেছে, যার সম্বল কিনা কেবলই একটি বাইসাইকেল।[৪][৫] রাঙামাটি পার্বত্য অঞ্চলের অপরূপ দৃশ্যপটে দৃশ্যায়ণ, ভাল অভিনয় এবং চাকমা জীবনের সহজ প্রতিচ্ছবি এই চলচ্চিত্রটিকে দর্শকদের নিকট প্রিয় করে তুলে।[৬]

ভিন্ন ভাষার চলচ্চিত্র হওয়ায় মর থেংগারি সেন্সর বোর্ডের অনুমতি পায়নি। তাই বাংলাদেশে এই চলচ্চিত্রের বাণিজ্যিক মুক্তি দেয়া হয়নি।[৭] এই চলচ্চিত্র বিভিন্ন দেশের চলচ্চিত্র উৎসবে প্রদর্শিত হয়েছে।

কাহিনী[সম্পাদনা]

কমল নামের এক চাকমা ছেলে শহরে কাজ করত, কিন্তু সেখানে চাকরি হারিয়ে প্রায় নিঃস্ব হয়ে কেবল একটি সাইকেল নিয়ে তার পাহাড়ের জন্মভূমিতে ফিরে আসে। তার শেষ সম্বল ছিল কেবল এই বাইসাইকেল। যদিও কমলের ছেলে তার বাবাকে ফিরে পেয়ে খুশি, তবে সাইকেল ছাড়া তার পরিবারকে দেওয়ার কিছুই নেই কমলের। কমল নতুন চাকরির পেতে শহরে ফিরে না যাওয়ার সিদ্ধান্ত নেয়, সে জীবন নির্বাহ করার জন্য এই বাইসাইকেল দিয়েই কাজ শুরু করে। সে সাইকেল দিয়ে বিভিন্ন পণ্য এবং মানুষকে নিয়ে যাতায়াত শুরু করে। এভাবেই সে তার পরিবারকে চালিয়ে নেয়। দুর্ভাগ্যক্রমে একদিন দুর্ঘটনা ঘটে, একজন বৃদ্ধ লোক আহত হয়। গ্রামের গুন্ডারা কমলকে হুমকি দেয় এবং ঘোষণা করে যে কেউ এই সাইকেলে চড়তে পারবে না। গুণ্ডারা তার কাছে টাকা চায়। সে টাকা দিতে অস্বীকৃতি জানায়। তখন তারা সাইকেলটিকে ভেঙে দিয়ে যায়।

অভিনয়ে[সম্পাদনা]

  • কমল মণি চাকমা - কোমল
  • ইন্দিরা চাকমা - দেবী

প্রযোজনা ও নির্মাণ[সম্পাদনা]

পরিচালক অং রাখাইন ১০ বছর ধরে এই চলচ্চিত্র নিয়ে ভেবেছিলেন।[৪] অবশেষ তিনি তার এই প্রথম চলচ্চিত্রটি নির্মাণ করেন। নিজে রাখাইন সম্প্রদায়ের হলেও তিনি চাকমা সম্প্রদায়ের উপরে এই চলচ্চিত্রটি নির্মাণ করেছেন, কারণ তার কাছে মনে হয়েছে চাকমা সম্প্রদায়ের জীবন-সংগ্রাম আরও বেশি প্রগাঢ়।[৫]

উৎসব ও পুরস্কার[সম্পাদনা]

  • সেরা চিত্রনাট্য, উফা রৌপ্য আকবুজাত জাতিগত চলচ্চিত্র উত্সব ২০১৬, রাশিয়া
  • সম্মানজনক উল্লেখ, সিনে কুরুমিন - আন্ত. আদিবাসী চলচ্চিত্র উত্সব ২০১৬, ব্রাজিল
  • তাল্লিন ব্ল্যাক নাইট চলচ্চিত্র উৎসব ২০১৫, এস্তোনিয়া
  • গোথেনবার্গ চলচ্চিত্র উৎসব ২০১৬, সুইডেন
  • জাঞ্জিবার আন্তর্জাতিক চলচ্চিত্র উৎসব ২০১৬, তানজানিয়া
  • ১৭তম এশিয়াটিকা মেডিয়ালে চলচ্চিত্র উৎসব, রোম ২০১৬
  • ১৫তম উইনিপেগ আদিবাসী চলচ্চিত্র উত্সব ২০১৬
  • স্কাবমাগোভাত চলচ্চিত্র উৎসব, ফিনল্যান্ড ২০১৬
  • জাঞ্জিবার আন্তর্জাতিক চলচ্চিত্র উৎসব, ২০১৬
  • কাসা এশিয়া চলচ্চিত্র উত্সব, স্পেন ২০১৬
  • নম পেন আন্তর্জাতিক চলচ্চিত্র উৎসব, কম্বোডিয়া ২০১৬
  • বেয়ার বোনস আন্তর্জাতিক চলচ্চিত্র ও সংগীত উত্সব, যুক্তরাষ্ট্র ২০১৭

বিতর্ক[সম্পাদনা]

বেশ কয়েকটি উত্সবে ছবিটি দেখানোর পরে এটি কিছু আন্তর্জাতিক স্বীকৃতি পায়। চলচ্চিত্রটি তাল্লিন ব্ল্যাক নাইট চলচ্চিত্র উৎসব, গোথেনবার্গ চলচ্চিত্র উৎসব এবং জাঞ্জিবার আন্তর্জাতিক চলচ্চিত্র উৎসবের মতো অনেক গুরুত্বপূর্ণ চলচ্চিত্র উত্সবে প্রদর্শিত হয়, তবে বাংলাদেশ চলচ্চিত্র সেন্সর বোর্ডের অনুমোদন না পাওয়ার কারণে চলচ্চিত্রটি বাংলাদেশে প্রদর্শিত হয় নি। অনুমোদন না দেয়ার কারণ হিসেবে বাংলা ভাষার চলচ্চিত্র নয় উল্লেখ করা হয়।[৭] এছাড়া বাংলাদেশ সেনাবাহিনী একটি অভিযোগ দায়ের করে যে ছবিটিতে পার্বত্য চট্টগ্রামে সেনাবাহিনীর যে তত্পরতা দেখায় তা একটি সংবেদনশীল বিষয়।

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "চাকমা ভাষায় নির্মিত প্রথম চলচ্চিত্র 'মর থেংগারি'"বিবিসি বাংলা। সংগ্রহের তারিখ ৭ ডিসেম্বর ২০১৪ 
  2. "চাকমা ভাষায় প্রথম সিনেমা 'মর থেংগারি'"বিডি নিউজ ২৪.কম। সংগ্রহের তারিখ ৬ ডিসেম্বর ২০১৪ 
  3. "চাকমা ভাষায় 'মর থেংগারি'"দ্য ডেইলী স্টার। সংগ্রহের তারিখ ১০ জানুয়ারি ২০১৫ 
  4. "অংয়ের গল্প"দৈনিক প্রথম আলো। সংগ্রহের তারিখ ২৪ জানুয়ারি ২০১৫ 
  5. "First Chakma feature film premiered"নিউজ এজ। সংগ্রহের তারিখ ৭ ডিসেম্বর ২০১৪ 
  6. "For the love of films"দ্য ডেইলী স্টার। সংগ্রহের তারিখ ৭ ডিসেম্বর ২০১৪ 
  7. "Bangladesh's Censor Board Blocks the Country's First Chakma-Language Film"গ্লোবাল ভয়েসেস। সংগ্রহের তারিখ ১১ ডিসেম্বর ২০১৫ 

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]