মরিশাসের ইতিহাস

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন

মরিশাসের জ্ঞাত ইতিহাস আরবদের দ্বারা এটি আবিষ্কারের পরে শুরু হয়, এরপরে ইউরোপীয়রা এবং মানচিত্রে এর উপস্থিতি পরিলক্ষিত হয় ১৬ শতাব্দীর গোড়ার দিকে। এরপর মরিশাসে একের পর এক নেদারল্যান্ডস, ফ্রান্স এবং গ্রেট ব্রিটেন উপনিবেশ স্থাপন করে এবং ১৯৬৮ সালে মরিশাস স্বাধীন হয়।

আবিষ্কার[সম্পাদনা]

মরিশাস প্রথম আবিষ্কৃত হয়েছিল মুরস জনগোষ্ঠী দ্বারা। এটি দ্বীপের প্রাচীনতম বিদ্যমান ঐতিহাসিক প্রমাণ দ্বারা প্রমাণিত হয়েছে, যা বর্তমানে মরিশাস নামে পরিচিত, দেশটি ইতালীয় মানচিত্রকার আলবার্তো ক্যান্টিনো কর্তৃক ১৫০২ সালের মানচিত্রে রয়েছে। [১] ক্যান্টিনো তিনটি দ্বীপ দেখায় যাদের একত্রে ম্যাসকারেনেস (রেউনিও, মরিশাস এবং রদ্রিগাস) বলে মনে করা হয় এবং এদের দিনা মার্গাবিন, দিনা আরোবি এবং দিনা মোরাজে নামে অভিহিত করেন। মধ্যযুগীয় আরব বিশ্বে ভারত মহাসাগরের দ্বীপাঞ্চল ওয়াকওয়াক নামে পরিচিত ছিল। [২]

পর্তুগিজ আবিষ্কার (১৫০৭–১৫১৩)[সম্পাদনা]

পরবর্তীতে মরিশাস ১৫০৭ এবং ১৫১৩ এর মধ্যে পর্তুগিজদের দ্বারা অনুসন্ধান এবং পরিদর্শন করা হয়েছিল। পেড্রো মাসকারেনহাসের নামানুসারে মরিশাস এবং পার্শ্ববর্তী দ্বীপগুলি মাসকারিন দ্বীপপুঞ্জ বা ইলহাস মাসকারেনহাস হিসাবে পরিচিত ছিল।

তৃতীয় ডি জোয়াও এর রাজত্বকালে (১৪১৫-১৫৪৩) সালে পর্তুগিজ আবিষ্কার (ভার্দে)

ডাচ ইস্ট ইন্ডিয়া কোম্পানির যুগ (১৫৯৮-১৭১০)[সম্পাদনা]

মরিশাসের একটি উপকূলের ডাচ মানচিত্র। ডাচ মরিশাস (১৬৩৮–১৭১০) দ্বীপে প্রতিষ্ঠিত প্রথম স্থায়ী মানব বসতি
১৬০১ সালে জোহান থিওডোর ডি ব্রাই দ্বারা মরিশাসে তোতা শিকার

১৫৯৮ সালে, অ্যাডমিরাল জ্যাক কর্নেলিয়াস ভ্যান নেক এবং ওয়াইব্র্যান্ড ভ্যান ওয়ারউইকের নির্দেশে আট জাহাজের সমন্বয়ে ইন্দোনেশিয়ার দ্বিতীয় ডাচ অভিযান নেদারল্যান্ডসের টেক্সেল থেকে ভারতীয় উপমহাদেশের দিকে যাত্রা করেছিল। আটটি জাহাজ কেপ অফ গুড হোপ পার হবার পরে দুর্যোগপূর্ণ আবহাওয়ার মধ্যে পড়ে এবং আলাদা হয়ে যায়। তিনটি মাদাগাস্কারের উত্তর-পূর্ব দিকে তাদের পথ খুঁজে পেয়েছিল, এবং বাকি পাঁচটি দক্ষিণ-পূর্ব দিকে পুনরায় দলবদ্ধ হয়ে যাত্রা করে। ১ সেপ্টেম্বর, অ্যাডমিরাল ভ্যান ওয়ারউইকের নির্দেশে পাঁচটি জাহাজ মরিশাসকে দেখতে পায়। ২০ সেপ্টেম্বর, তারা একটি বন্দরের মত উপকূলে প্রবেশ করে যার নাম দিয়েছিলেন "পোর্ট ডি ওয়ারউইক" (বর্তমানে "গ্র্যান্ড পোর্ট" নামে পরিচিত)। তারা অবতরণ করে এবং দ্বীপের নামকরণ করা সিদ্ধান্ত নেয় "প্রিন্স মরিটজ ভ্যান নাসেইল্যান্ড", উইলিয়াম সাইলেন্ট -এর পুত্র, প্রিন্স মরিটস (ল্যাটিন সংস্করণ: মরিশাস) নাসাউ হাউস-র, অধিকাংশ ডাচ প্রজাতন্ত্রের স্ট্যাডথোল্ডার (কার্যালয়), এবং বহরের প্রধান জাহাজ, "মরিশাস" -এর নামে। সেই থেকে কেবল মরিশাস নামটি রয়ে গেছে। ২রা অক্টোবর, জাহাজগুলি আবার বানতামের উদ্দেশ্যে যাত্রা করে। উইলিয়াম অফ অরেঞ্জের বংশধরদের মধ্যে কিছু মহিলা মরিশাসের বাসিন্দা হয়ে থেকে যান, এদের মধ্যে জিল হোলোয়, একজন বিশিষ্ট ব্যবসায়ী, সামুদ্রিক সাংবাদিক এবং লেখক অন্তর্ভুক্ত। [৩]

এরপরে, দ্বীপটির পোর্ট ডি ওয়ারউইক ডাচরা দীর্ঘ সমুদ্র যাত্রার পর যাত্রাবিরতি হিসাবে ব্যবহার করত।

১৬৯২ সালে নতুন গভর্নর হিসাবে রেলফ ডায়োডাটি নিযুক্ত হন। দ্বীপটি বিকাশের প্রচেষ্টায় ডায়োডাটি ঘূর্ণিঝড়, কীটপতঙ্গ, পশুর অসুস্থতা এবং খরার মতো অনেক সমস্যার মুখোমুখি হন। নিরুৎসাহিত হয়ে, ডায়োডাটি শেষ পর্যন্ত হাল ছেড়ে দেন এবং তার প্রতিস্থাপন হিসাবে আসেন আব্রাহাম মোমবার ভ্যান ডি ভেল্ড। পরবর্তীকালে এর চেয়ে ভাল ফল হয় নি। ১৭১০ সালে দ্বীপটি পরিত্যক্ত ঘোষণা করা হয়।

ফরাসি শাসন (১৭১৫–১৮১০)[সম্পাদনা]

১৭৯১ সালে ফরাসি মানচিত্রে মরিশাস (তখন "আইল দে ফ্রান্স" নামে পরিচিত ছিল)

ডাচরা পরিত্যাগ করার পর এই দ্বীপ ফরাসি উপনিবেশে পরিণত হয়, সেপ্টেম্বর ১৭১৫ সালে ভারতে যাওয়ার পথে গিলিয়াম ডুফ্রেসন ডি আরসেল এই বন্দরের দখল নেন। তিনি দ্বীপের নাম রেখেছিলেন "আইল দে ফ্রান্স"। ছয় বছর পরে, ১৭২১ সালে, ফরাসিরা তাদের দখল শুরু করে। যাইহোক, ১৭৩৫ সালে ফরাসী গভর্নর মাহা দে লা বোর্দোনাইসের আগমনে "আইল ডি ফ্রান্স" কার্যকরভাবে বিকাশ লাভ করতে শুরু করেছিল। মাহা দে লা বোর্দোনেইস "জার্ডিন আঙ্গুর ফল", মরিচ, দারুচিনি এবং লবঙ্গ জাতীয় মশলা রোপণ করেছিলেন। মাহা দে লা বোর্দোনেইস পোর্ট লুইসে একটি নৌঘাঁটি এবং একটি জাহাজ নির্মাণ কেন্দ্র প্রতিষ্ঠা করেছিলেন। তার আমলে, অনেক ভবন তৈরী করা হয়েছিল, তার কিছু সংখ্যক ভবন আজও দাঁড়িয়ে আছে।  

ব্রিটিশ শাসন (১৮১০–১৯৬৮)[সম্পাদনা]

১৯ এবং ২০ আগস্ট গ্র্যান্ড পোর্টের যুদ্ধের একমাত্র ফরাসী নৌ বিজয় (নেপোলিয়োনীয় যুদ্ধের সময়) সত্ত্বেও, পিয়েরে বাউভেটের নেতৃত্বে একটি নৌ বহর মরিশাসকে দখল করে ১৮ ডিসেম্বর ১৮১০ সালে। দ্বীপটি দখলের চার বছর পরে প্যারিস চুক্তি (১৮১৪) দ্বারা এটা নিশ্চিত করা হয়েছিল। নেপোলিয়োনীয় আইনের কোড সহ ফরাসি প্রতিষ্ঠানগুলি বজায় ছিল। ফরাসী ভাষা সেই মুহুর্তে ইংরেজির চেয়ে বেশি বিস্তৃত ছিল।

ব্রিটিশ প্রশাসন, যা গভর্নর রবার্ট টাউনসেন্ড ফারকুহারকে দিয়ে শুরু হয়েছিল, তার পরে দ্রুত সামাজিক এবং অর্থনৈতিক পরিবর্তন ঘটে। সর্বাধিক গুরুত্বপূর্ণ ঘটনাগুলির মধ্যে একটি হ'ল ১৮৩৫ সালের ১ ফেব্রুয়ারি দাসত্ব বিলুপ্তি। ফরাসিদের দখলের সময় আফ্রিকা এবং মাদাগাস্কার থেকে আমদানি করা দাসদের হারানোর জন্য আবাদকারীরা ২০ মিলিয়ন পাউন্ড স্টার্লিংয়ের ক্ষতিপূরণ পেয়েছিল।

স্বাধীনতা (১৯৬৮)[সম্পাদনা]

১৯৬১ সালের পরে ব্রিটিশরা অতিরিক্ত স্ব-সরকার এবং শেষ পর্যন্ত স্বাধীনতার অনুমতি দিতে সম্মত হলে একটি স্বাধীনতা আন্দোলন গতি পায়। মরিশিয়ান লেবার পার্টি (এমএলপি), স্যার আব্দুল রাজাক মোহাম্মদ এর মুসলিম কমিটি অব অ্যাকশন (সিএএম) এবং ইনডিপেন্ডেন্ট ফরোয়ার্ড ব্লক (আইএফবি), একটি ঐতিহ্যবাদী হিন্দু দল নিয়ে গঠিত একটি জোট, স্যার গায়েতান ডুভাল কিউসির ফ্র্যাঙ্কো-মরিশিয়ান এবং ক্রয়েল সমর্থক এবং জুলস কোয়েনিগের মরিশিয়ান সোশ্যাল ডেমোক্র্যাটিক পার্টির (পিএমএসডি) সমর্থকদের বিরোধিতা সত্ত্বেও ১৯৬৭ সালের বিধানসভা নির্বাচনে সংখ্যাগরিষ্ঠতা অর্জন করে। এমএলপি-সিএএম-আইএফবি জোট "ইন্ডিপেন্ডেন্স পার্টি" নামে পরিচিত ছিল। উপনিবেশিক সরকারের প্রধানমন্ত্রী স্যার সিউওসাগুর রামগোলাম স্বাধীনতার পরে প্রথম প্রধানমন্ত্রী হন, ১২ মার্চ ১৯৬৮। ১২ মার্চ তারিখটি বিশেষত মহাত্মা গান্ধীর লবণ মার্চের সাথে মিল রেখে বেছে নেওয়া হয়েছিল যা ১৯৩০ সালের ১২ মার্চ ঘটেছিল। [৪] ১৯৬৫ এবং ১৯৬৮ সালের মধ্যে সেখানে বিভিন্ন জাতিগত দাঙ্গার সৃষ্টি হয়েছিল, যেগুলো দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়া থেকে আগত ব্রিটিশ সৈন্যদের সহায়তায় নিয়ন্ত্রণে আনা সম্ভব হয়েছিল। স্বাধীনতাপূর্ব সাম্প্রদায়িক কলহের কারণে প্রায় ৩০০ জন মারা গিয়েছিল। [৫]

প্রজাতন্ত্র (১৯৯২)[সম্পাদনা]

১৯৯১ সালের ডিসেম্বর মাসে মরিশাসকে কমনওয়েলথের মধ্যে একটি প্রজাতন্ত্র বানানোর জন্য সংবিধান সংশোধন করা হয়। মরিশাসের অন্তর্বর্তী রাষ্ট্রপতি হিসাবে সর্বশেষ গভর্নর জেনারেল স্যার বীরসামি রিঙ্গাদুকে নিয়ে ১২ মার্চ ১৯৯২ সালে মরিশাস প্রজাতন্ত্র হয়েছিল। ৩০ জুন ১৯৯২ সালে কাসাম উতিম মরিশাসের পরবর্তী প্রেসিডেন্ট হন।

আরো দেখুন[সম্পাদনা]

নোট এবং রেফারেন্স[সম্পাদনা]

  1. Toorawa, S. 2007. The medieval Waqwaq islands and the Mascarenes. Hassam Toorawa Trust, Port Louis, Mauritius
  2. Tolan, J. (2015). Europe and the Islamic World: A history. Princeton University Press. pp 11.
  3. Charles John Smythe Pioneer, Premier and Administrator of Natal Daphne Child Publisher : C.Struik (Pty)ltd 1973
  4. Moheeputh, Anand। "12 March: What does it mean for Mauritius and India?"। lexpress.mu। L'Express। সংগ্রহের তারিখ ২০০৬-০৩-০৯ 
  5. "Archived copy"। ২০০৭-০৮-৩১ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০০৭-০৮-৩১ 

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]