বিষয়বস্তুতে চলুন

মমতাজ হুসেইন (আইনজীবী)

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
মমতাজ হোসেন
মমতাজ হোসেন
জন্ম
জাতীয়তাব্রিটিশ
পেশামডেল, অভিনেত্রী, রেডিও উপস্থাপিকা, উকিল
কর্মজীবন১৯৯২-বর্তমান
সন্তান
ওয়েবসাইটwww.mumtazhussain.com

মমতাজ হোসেন একজন ইংরেজ উকিল এবং রেডিও উপস্থাপক। তিনি RedShift রেডিও তে Health and Healing with Mumtaz নামের অনুষ্ঠান করেন। এই অনুষ্ঠানের জন্যই তিনি বেশি পরিচিত।

প্রাথমিক জীবন[সম্পাদনা]

কিশোর মমতাজ হোসেন আশা করতেন বড় হয়ে একজন ডাক্তার অথবা আইনজীবী হবেন।[১]  তিনি নিজের ছেলেবেলা সম্পর্কে বর্ণনা করেছেন 'বিচক্ষণ, একাডেমিক কঠোর পরিশ্রমী শান্ত কন্যা এবং চার ভাইবোনের মধ্যে সবচেয়ে বড়" হিসেবে। তার পরিবার অনেক শিক্ষা সচেতন ছিলো। তিনি চাইলেন বিশ্ববিদ্যালয়ে আইন বিভাগে ভর্তি হতে। তার মা-বাবা এ প্রস্তাব মেনে নিলেন। তিনি নিজের যোগ্যতায় পড়াশোনা করে স্নাতক ডিগ্রী অর্জন করেন।[২]

তিনি একটি মুসলিম পরিবারে জন্মগ্রহণ করেন। তার বাবা ১৫ বা ১৬ বছর বয়সে যুক্তরাজ্য তে চলে যান। যখন মমতাজ হোসেনের জন্ম হয়,তখন তার মায়ের বয়স ছিলো মাত্র ১৯ বছর। তার মা ছিলেন একজন শিল্পী আছে,যার কাজ প্রদর্শিত হয়েছে রয়েল অ্যাকাডেমি অব আর্ট এ।[৩]

তিনি একজন পাকিস্তানি-ইরানি বংশদ্ভুত ছেলেকে বিয়ে করেন। তার একজন মেয়ে, ইয়াসমিন (জন্ম ১৯৯৪) এবং এক ছেলে, জাহান (জন্ম ১৯৯৬) আছে। ১৯৯৮ সালে তিনি তার স্বামীকে তালাক দেন। [৩]

কর্মজীবন[সম্পাদনা]

১৯৯২ সালে তিনি আইনজীবী হিসেবে নিজের যোগ্যতা প্রমাণ করেন। তিনি পারিবারিক আইন, বাণিজ্যিক, সিভিল মোকদ্দমা, ইচ্ছা, অপরাধ এবং ব্যক্তিগত আঘাত ইত্যাদি নিয়ে কাজ করতেন। তারপর তিনি Parabis গ্রুপ এ চলে যান এবং ব্যক্তিগত আঘাত ডিপার্টমেন্ট এ ম্যানেজার হিসেবে কাজ করেন।[৪]

অভিনয় এবং মডেলিং এ কিছু সময় কাজ করার পর,[২] তিনি  সিভিল আইনের উপর দৃষ্টি নিবদ্ধ করেন। তার দুই সন্তান জন্ম হলে তিনি কর্মজীবন থেকে কিছুদিনের জন্য অবসরে যান। এরপর আবার ফিরে এসে তার কাজে যোগ দান করেন।

২০১০ সালে মমতাজ হোসেন তার আইনি অনুশীলন প্রায় চার বছর পর বন্ধ রাখেন। তারপর স্থানীয় রেডিও তে শো করা শুরু করেন। রেডশিট রেডীওতে তার অনুষ্ঠান Health and Healing with Mumtaz প্রচন্ড জনপ্রিয়তা লাভ করে।.[২][৫] একই বছর তিনি মিডিয়া ও সম্প্রচার এরিনা তে ব্যবসা উন্নয়নের কাজ শুরু করেন।

২০১২ সালের অক্টোবর মাসে তিনি Pannone এ যোগ দেন।  তিনি কানেক্ট টু ল'র একজন উকিল এবং বিজনেস ডেভেলপমেন্ট ম্যানেজার হিসেবে কাজ করেন।[৪]

স্বীকৃতি[সম্পাদনা]

২০১১ সালে মমতাজ হোসেন ম্যানচেস্টারে অন্যের ওপর প্রভাব রাখতে পারে এমন নির্বাচিত সেরা ৫০ জন নারীর মধ্যে ছিলেন।[২]

ব্যক্তিগত জীবন[সম্পাদনা]

মমতাজ হোসেন ছিলেন একজন একক মা, তিনি লন্ডন এবং ম্যানচেস্টারে বসবাস করতেন এবং সেখানেই কাজ করতেন।[৬]

মমতাজ হোসেন ১৫-১৬ বছর বয়সী মেয়েদের পরামর্শ দিতেন।

আরও দেখুন[সম্পাদনা]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "Meet Our Big Sisters ..." (ইংরেজি ভাষায়)। Girls Out Loud। ৩ ফেব্রুয়ারি ২০১৪ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১ ফেব্রুয়ারি ২০১৪ 
  2. Birch, Phil (৬ জুলাই ২০১১)। "Inspirational Women – Mumtaz Hussain" (ইংরেজি ভাষায়)। the3rdi magazine। ৩ ফেব্রুয়ারি ২০১৪ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১ ফেব্রুয়ারি ২০১৪ 
  3. Sharman, Judith (৯ জুলাই ২০১২)। "A Conversation With Mumtaz Hussain" (ইংরেজি ভাষায়)। Well Tree Learning। ১ ফেব্রুয়ারি ২০১৪ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১ ফেব্রুয়ারি ২০১৪ 
  4. "Mumtaz Hussain" (ইংরেজি ভাষায়)। Pannone। ২ ফেব্রুয়ারি ২০১৪ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১ ফেব্রুয়ারি ২০১৪ 
  5. "F.A.Q" (ইংরেজি ভাষায়)। Mercedes Leal। সংগ্রহের তারিখ ১ ফেব্রুয়ারি ২০১৪ 
  6. উদ্ধৃতি ত্রুটি: <ref> ট্যাগ বৈধ নয়; birdhousefundvday নামের সূত্রটির জন্য কোন লেখা প্রদান করা হয়নি