ভারত-বাংলাদেশ মৈত্রী উদ্যান

স্থানাঙ্ক: ২৩°০৭′২.৯″ উত্তর ৯১°২২′৩৭.২″ পূর্ব / ২৩.১১৭৪৭২° উত্তর ৯১.৩৭৭০০০° পূর্ব / 23.117472; 91.377000
উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
ভারত-বাংলা মুক্তি মৈত্রী পার্ক
INDIA AND BANGLADESH MAITREE UDDAN.jpg
ধরনবাংলাদেশের স্বাধীনতার প্রতি শ্রদ্ধা জানাতে চোত্তাখোলায় নির্মিত উদ্যান
অবস্থানচোত্তাখোলা, ভারত
স্থানাঙ্ক২৩°০৭′২.৯″ উত্তর ৯১°২২′৩৭.২″ পূর্ব / ২৩.১১৭৪৭২° উত্তর ৯১.৩৭৭০০০° পূর্ব / 23.117472; 91.377000
খোলা হয়১১ নভেম্বর ২০১০
অবস্থাসম্পূর্ণ
হাশেম খানের "গণহত্যা ১৯৭১" এবং মাহমুদুল হাসান সোহাগের সহযোগিতায়
মাহমুদুল হাসান সোহাগ এর "বিজয় ১৯৭১"
ভারত-বাংলাদেশ মৈত্রী উদ্যানে টেরাকোটা

ভারত-বাংলাদেশ মৈত্রী উদ্যান ছিল বাংলাদেশী মুক্তিযোদ্ধাদের একটি বেস ক্যাম্প যেখান থেকে তারা চট্টগ্রাম, কুমিল্লা ও বৃহত্তর নোয়াখালীতে পাকিস্তানি বাহিনীর বিরুদ্ধে গেরিলা যুদ্ধ শুরু করে।[১][২][৩]

অবস্থান[সম্পাদনা]

আন্তর্জাতিক সীমান্তের নিকট অবস্থিত মৈত্রী উদ্যান হল চোত্তাখোলায় নির্মিত একটি উদ্যান যা মুক্তিযুদ্ধের সময় তাদের জীবন উৎসর্গকারী বাংলাদেশী মুক্তিযোদ্ধাভারতীয় সৈন্যদের প্রতি শ্রদ্ধা নিবেদন করে। একটি যুদ্ধ জাদুঘর, টিলা, সবুজ উপত্যকা, হ্রদ, গাছপালা, ভাস্কর্য, বাংলাদেশী মুক্তিযোদ্ধাদের কবরস্থান এবং অন্যান্য উপাদান সম্বলিত এটি কেবল একটি উদ্যান নয় এর চেয়েও অনেক বেশি।[৪]

ইতিহাস[সম্পাদনা]

মুক্তিযুদ্ধে সক্রিয়ভাবে জড়িত থাকায় স্মৃতি উদ্যানটি ত্রিপুরাবাসীর দীর্ঘদিনের লালিত দাবি ছিল। তারা মুক্তিযোদ্ধাদের সর্বাত্মক সহায়তা প্রদান করে ও প্রায় ১৬ লাখ মানুষকে আশ্রয় দেয়, যা রাজ্যের তৎকালীন জনসংখ্যার চেয়ে বেশি। চোত্তাখোলা ত্রিপুরার রাজধানী আগরতলা থেকে ১৩০ কিলোমিটার দূরে যা ১৯৭১ সালে ত্রিপুরার ১১টি যুদ্ধ ক্যাম্পের অন্যতম হিসাবে কাজ করেছিল। সুন্দর এই অবস্থানটি ২০ হেক্টর জমির উপর একটি প্রাকৃতিক হ্রদ দ্বারা আংশিকভাবে পৃথক করা সাতটি টিলা নিয়ে গঠিত। এটি মুক্তিযুদ্ধের সময় তীব্র তৎপরতার স্বাক্ষী ও এখনও ১৯৭১ সালে এটির উপর নির্মিত বেশ কয়েকটি বাঙ্কার ও পরিখার ধ্বংসাবশেষের আকারে এর স্মারক বহন করে।[৫][৬]

উদ্বোধন[সম্পাদনা]

ত্রিপুরার প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী মাণিক সরকার ১৬ ডিসেম্বর, বাংলাদেশের বিজয় দিবসে ভারতীয় ও বাংলাদেশী শিল্পী, বুদ্ধিজীবী ও মুক্তিযোদ্ধাদের উপস্থিতিতে স্মৃতিসৌধ ও পার্কের উদ্বোধন করেন। ১১ নভেম্বর ২০১০ সালে বাংলাদেশের তৎকালীন শিক্ষামন্ত্রী দীপু মনি উদ্যানটির ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করেন।

ভাষ্কর্য[সম্পাদনা]

শিল্পী ও ভাস্কর[সম্পাদনা]

ত্রিপুরা ও বাংলাদেশের প্রখ্যাত শিল্পীরা তাদের সৃষ্টি - মূর্তি থেকে চিত্রকল্প এই প্রকল্পের অংশ যা স্মৃতিসৌধের আকর্ষণে যোগ করেছে।

বাংলাদেশী শিল্পী ও ভাস্কর[সম্পাদনা]

তারা পার্কের জন্য ভাস্কর্য তৈরি করে।

স্মারক উদ্যানটি বাংলাদেশের পরবর্তী প্রজন্মকে তাদের কষ্টার্জিত স্বাধীনতার ইতিহাস ও কীভাবে দুই বন্ধুত্বপূর্ণ প্রতিবেশী দেশকে স্বাধীনতা আনতে বাহিনীতে যোগ দিয়েছিল তা শিখতে সাহায্য করবে।[১০][১১]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "Indo-Bangladesh Friendship Park to be opened in Tripura on Vijay Diwas"UNI 
  2. "Renowned artists from Tripura and Bangladesh join hands to build a war memorial"www.theweekendleader.com (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০২১-০৭-১৭ 
  3. "Chottakhola Maitree Udyan to be inaugurated on Bangladesh Victory Day"Dhaka Tribune। ২০১৭-১২-০৪। সংগ্রহের তারিখ ২০২১-০৭-১৭ 
  4. "Bangladesh PM likely to iugurate memorial park in Tripura - Sentinelassam"www.sentinelassam.com (ইংরেজি ভাষায়)। ২০১৬-১২-১০। সংগ্রহের তারিখ ২০২১-০৭-১৭ 
  5. "চোত্তাখোলা ভারত-বাংলাদেশ মৈত্রী উদ্যান বন্ধুত্বের নতুন ঠিকানা"Janakantha। সংগ্রহের তারিখ ২০২১-০৭-১৭ 
  6. "A memorial to celebrate the Bangladesh Liberation War"Free Press Journal (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০২১-০৭-১৭ 
  7. "ত্রিপুরার চোত্তাখোলা উদ্যান আমাদের যুদ্ধকালের ঠিকানা"Risingbd.com। সংগ্রহের তারিখ ২০২১-০৭-১৭ 
  8. "ভারত বাংলাদেশ মৈত্রী উদ্যান একটি মহৎ উদ্যোগ"Amar Sangbad। ২০১৬-০৪-০৮। সংগ্রহের তারিখ ২০২১-০৭-১৭ 
  9. রায়চৌধুরী, বাপি। "মুক্তিযুদ্ধের স্মৃতিতে সাজছে চোত্তাখোলা"www.anandabazar.com। সংগ্রহের তারিখ ২০২১-০৭-১৭ 
  10. "ঈদের ছুটিতে ঘুরে আসুন ত্রিপুরা"Jago News 24। সংগ্রহের তারিখ ২০২১-০৭-১৭ 
  11. "Quader, Shringla visit Feni bridge"The Independent। Dhaka। সংগ্রহের তারিখ ২০২১-০৭-১৭