ব্রণ

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
ব্রণ
বিশেষত্বচর্মবিজ্ঞান, family medicine উইকিউপাত্তে এটি সম্পাদনা করুন

অ্যাকনি ভালগারিস (ইংরেজি: Acne vulgaris বা Acne) বা ব্রণ হলো মানব ত্বকের একটি দীর্ঘমেয়াদী রোগবিশেষ যা বিশেষত লালচে ত্বক, প্যাপ্যুল, নডিউল, পিম্পল, তৈলাক্ত ত্বক, ক্ষতচিহ্ন বা কাটা দাগ ইত্যাদি দেখে চিহ্নিত করা যায়।[১] ভীতি, দুশ্চিন্তা ও বিষণ্ণতা উদ্রেকের পাশাপাশি, এটির প্রধান পার্শ্ব প্রতিক্রিয়া হচ্ছে আত্মবিশ্বাস কমে যাওয়া।[২] অতিরিক্ত পর্যায়ে মানসিক অবসাদ এবং আত্মহত্যার মত অবস্থার উদ্ভব হতে পারে।[২][৩][৪] একটি সমীক্ষায় দেখা গিয়েছে, ব্রণের রোগীদের আত্মহত্যার পরিমাণ ৭.১%।[৫]

বয়ঃসন্ধিকালে লিঙ্গ নির্বিশেষে টেস্টোস্টেরন এর মত অ্যান্ড্রোজেন বৃদ্ধির ফলে ব্রণ হতে পারে।[৬] ত্বকের উপর তৈলাক্ত গ্রন্থির মাত্রার উপর ব্রণ হওয়া নির্ভর করে। এমন সব স্থান হল-মুখ, বুকের উপর অংশ ও পিঠ।[৭] অনেকসময় ব্রণ অনাক্রম্যতা (asymptomatic) প্রদর্শন করে।[৮][৯] ত্বকে উপস্থিত লোম রন্ধ্র (hair follicle) এবং সিবেসিয়াস গ্রন্থির (sebaceous gland) সংখ্যা অ্যান্ড্রোজেন সংবেদনশীলতার হার নির্ধারণ করে।

ব্রণের অনেক ধরনের চিকিৎসা আছে। স্বল্প পরিমাণ কার্বোহাইড্রেট যেমন চিনি খাওয়া যেতে পারে।[১০] ঔষধের মধ্যে আছে: বেনজইল পারঅক্সাইড, অ্যান্টিবায়োটিক, রেটিনয়েড, হরমোন চিকিৎসা, স্যালিসাইলিক এসিড, আলফা হাইড্রক্সি এসিড, নিকোটিনামাইড, কেরাটোলাইটিক সাবান ইত্যাদি।[১১] দ্রুত চিকিৎসা ব্রণের দীর্ঘস্থায়ী প্রভাবকে বিনাশ করে।[১২] বয়ঃসন্ধিকালে ব্রণ বেশি হয়, পাশ্চাত্যে যার পরিমাণ ৮০-৯০%।[১৩][১৪][১৫] গ্রাম্য সমাজে এর মাত্রা কম।[১৫][১৬] ২০১০ সালে সারা বিশ্বব্যাপী ৬৫০ মিলিয়ন মানুষের ৮ম সাধারণ রোগ হিসেবে এটি নির্ণীত হয়েছে।[১৭] সময়ের সাথে সাথে অধিকাংশ মানুষের ব্রণ কমে যায় এবং ২৫ বছরের মধ্যে একেবারে নির্মুল না হলেও একদমই কমে যায়।[১৮] ফলে, ব্রণ কবে একেবারে শেষ হয়ে যাবে, তা পূর্বানুমান করা যায় না। কিছু কিছু মানুষের ৩০-৪০ বছরের পরেও ব্রণ থাকতে দেখা যায়।[১৯]

লক্ষণ[সম্পাদনা]

কারণ[সম্পাদনা]

হরমোন[সম্পাদনা]

মাসিক চক্র এবং বয়ঃসন্ধিকালে হরমোনের মাত্রাধিক্যের কারণে ব্রণ হয়। বয়ঃসন্ধিকালে, অ্যান্ড্রোজেন বৃদ্ধির কারণে অতিরিক্ত সিবাম তৈরি হয়।[৭][২০] গর্ভকালীন সময়েও অ্যান্ড্রোজেন বৃদ্ধির কারণে অতিরিক্ত সিবাম তৈরি হয়।[৯][২১] এছাড়াও কিছু হরমোন ব্রণের সাথে সম্পর্কযুক্তঃ টেস্টোস্টেরন, ডিহাইড্রোএপিএন্ডোস্টেরন।

পরবর্তী জীবনে ব্রণ হওয়া অস্বাভাবিক, যদিও ব্রণের মতই আরেক ধরনের উপস্থিতি থাকতে পারে।[অস্পষ্ট] প্রাপ্ত বয়স্ক নারীর ব্রণের পেছনে কারণ হিসেবে গর্ভধারণের মত স্বাভাবিক বিষয় থেকে শুরু করে পলিসিস্টিক ওভারি সিনড্রোম[২২] বা কুশিং সিনড্রোম[২৩] থাকতে পারে।

জেনেটিক[সম্পাদনা]

কিছু ব্যক্তির ব্রণের পেছনে জেনেটিক উপাদান যেমন TNF-আলফা, IL-1 আলফা ইত্যাদি দায়ী বলে মনে করা হয়,[১৩] যা যমজ গবেষণা দ্বারা সমর্থিত।[২৪] এসব প্রচলিত মেন্ডেলের বংশগতির পোষকের প্যাটার্নকে অনুসরণ করে না।

মানসিক[সম্পাদনা]

অতিরিক্ত দুশ্চিন্তা করলে ব্রণ বাড়ে।[২৫] মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের ন্যাশনাল ইন্সটিটিউট অব হেলথ দুশ্চিন্তাকে ব্রণ বৃদ্ধিকারক একটি এজেন্ট বলে উল্লেখ করেছে।[২৬]

সংক্রমণ[সম্পাদনা]

Propionibacterium acnes একটি অবায়বিয় (Anerobic) ব্যাক্টেরিয়ার প্রজাতি যা ব্রণের পেছনে অনেকাংশে দায়ী,[২৪] যদিও শুধুমাত্র P. acnes দ্বারা কলোনী সৃষ্টির পর Staphylococcus aureus কেও দায়ী করা হয়।[২৭] তারপরেও, P. acnes এর বিশেষ কিছু জাত দীর্ঘমেয়াদি ব্রণের সমস্যার সাথে সম্পর্কযুক্ত।[২৮] P. acnes এর অ্যান্টিবায়োটিক প্রতিরোধ দিন দিন বাড়ছে।[২৯] Demodex নামক পরজীবির দ্বারা সংক্রমণের ফলেও ব্রণ হতে পারে।[৩০][৩১]

প্যাথোফিজিওলজি[সম্পাদনা]

রোগ নির্ণয়[সম্পাদনা]

ব্রণের মাত্রা নিরূপণের কিছু পন্থা আছে, যা নিম্নোক্ত:

  • লিডস গ্রীডিং : সংক্রামতা এবং অসংক্রামতা নির্ধারণ করে (বিস্তার ০–১০)।
  • কুকস গ্রেডিং স্কেল: ছবি ব্যবহার করে মাত্রা নির্ধারণ করে (সবচেয়ে কম ০,সবচেয়ে বেশি ৮)।
  • পিলসবারি স্কেল: মাত্রা নির্ধারণ করে ১ (সবচেয়ে কম) - ৪ (সবচেয়ে বেশি)।

পরিণতি[সম্পাদনা]

ব্রণ সচরাচর বিশ বছরের আশেপাশেই শেষ হয়ে যায়, তবে প্রাপ্তবয়স্কদেরও থাকতে পারে।[১১] স্থায়ী দাগও থেকে যেতে পারে।[১৪]

==চিকিৎসা==মূলত ব্রণ যদি অতিরিক্ত মাত্রার হয় তবে এর চিকিৎসা করার জন্য হোমিপ্যাথিক,এলিপ্যাথিক,ভেষজ মাধ্যমে করা যায়।

বেনজইল পারঅক্সাইড[সম্পাদনা]

অ্যান্টিবায়োটিক[সম্পাদনা]

স্যালিসাইলিক এসিড[সম্পাদনা]

এক ধরনের জৈব এসিড।এর আণবিক সংকেত নিম্নরূপ

     C-OH
   /  \
CH     C-COOH 
 |     |
CH     CH
  \   /
    CH

হরমোন[সম্পাদনা]

টপিক্যাল রেটিনয়েড[সম্পাদনা]

ওরাল রেটিনয়েড[সম্পাদনা]

সমন্বিতকরণ[সম্পাদনা]

প্রক্রিয়া[সম্পাদনা]

রোগতত্ত্ব[সম্পাদনা]

২০১০ সালে সারা বিশ্বব্যাপী ৬৫০ মিলিয়ন মানুষের ব্রণ হয়েছিল, যা মোট জনসংখ্যার ৯.৪%।[৩২] পাশ্চাত্যে প্রায় ৯০% মানুষের কৈশোরকালে ব্রণ হয়ে প্রাপ্তবয়স পর্যন্ত বিরাজ করে।[১৪] বয়ঃসন্ধির পর থেকে শুরু করে ২৫ বছরের মধ্যে ৫৪% নারীর এবং ৪০% পুরুষের ব্রণ হয়।[৯] ৮৫% ব্যক্তির জীবনব্যাপী ব্রণ রয়েছে,[৯] যেখানে ২০% মানুষের মারাত্মক অবস্থায় বিদ্যমান।[৩৩] গ্রাম্য সমাজে এর মাত্রা কম।[১৬] পাপুয়া নিউ গিনিপ্যারাগুয়েতে ব্রণ প্রায় হয় না বললেই চলে।[৩৩] ছেলেদের থেকে মেয়েদের ব্রণ বেশি হয় (মেয়ে = ৯.৮% বনাম ছেলে = ৯.0%)।[৩২] ৪০ বছরের বেশি মানুষের মধ্যে ১% পুরুষ ও ৫% নারীর সমস্যা থেকে যেতে পারে।[১৪] সকল বয়সের মানুষই আক্রান্ত হতে পারে।[৩৩][৩৪]

যুক্তরাষ্ট্রে ৪০-৫০ মিলিওন মানুষের ব্রণ হয় (১৬%) এবং অস্ট্রেলিয়াতে এ সংখ্যা ৩-৫ মিলিওন (২৩%)।[৭][৩৫]

ইতিহাস[সম্পাদনা]

  • প্রাচীন মিশর, গ্রীস, রোমে ব্রণের চিকিৎসায় সালফার ব্যবহৃত হত।[৩৬]
  • ১৯২০ সাল: বেনজইল পারঅক্সাইড[৩৭]
  • ১৯৭০ সাল: মূলত ট্রেটিনইন,[৩৮][৩৯] তবে মাইনোসাইক্লিনের মত অ্যান্টিবায়োটিকও ব্যবহৃত হত।[৩৯]
  • ১৯৮০ সাল: মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে অ্যাকুটেন ব্যবহৃত হত, যা পরবর্তীতে টেরাটোজেন বলে প্রতীয়মান হয়, যা গর্ভধারণের সময় ভ্রূণের মারাত্মক ক্ষতি করে। সেখানে ১৯৮২ থেকে ২০০৩ সালের মধ্যে ২০০০ এর অধিক নারী এই উপাদান গ্রহণ করে গর্ভবতী হন, যার অধিকাংশই গর্ভপাতে পর্যবসিত হয়। জন্মগত ত্রুটি নিয়ে ১৬০ টিরও বেশি শিশু জন্মগ্রহণ করে।[৪০][৪১]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. Adityan B, Kumari R, Thappa DM (মে ২০০৯)। "Scoring systems in acne vulgaris"। Indian Journal of Dermatology, Venereology and Leprology75 (3): 323–6। ডিওআই:10.4103/0378-6323.51258পিএমআইডি 19439902 
  2. Barnes, L.E.; Levender, M.M.; Fleischer, A.B., Jr.; Feldman, S.R. (এপ্রিল ২০১২)। "Quality of life measures for acne patients"। Dermatologic Clinics (Review)। 30 (2): 293–300। ডিওআই:10.1016/j.det.2011.11.001পিএমআইডি 22284143 
  3. Purvis, Diana; Robinson, Elizabeth; Merry, Sally; Watson, Peter (২০০৬)। "Acne, anxiety, depression and suicide in teenagers: A cross-sectional survey of New Zealand secondary school students"। Journal of Paediatrics and Child Health42 (12): 793–6। ডিওআই:10.1111/j.1440-1754.2006.00979.xপিএমআইডি 17096715 
  4. Goodman, G (জুলাই ২০০৬)। "Acne and acne scarring–the case for active and early intervention"Australian family physician35 (7): 503–4। পিএমআইডি 16820822 
  5. Picardi, Angelo; Mazzotti, Eva; Pasquini, Paolo (২০০৬)। "Prevalence and correlates of suicidal ideation among patients with skin disease"। Journal of the American Academy of Dermatology54 (3): 420–6। ডিওআই:10.1016/j.jaad.2005.11.1103পিএমআইডি 16488292 
  6. James, William D. (২০০৫)। "Acne"। New England Journal of Medicine352 (14): 1463–72। ডিওআই:10.1056/NEJMcp033487পিএমআইডি 15814882 
  7. Benner, Nicholas; Sammons, Dawn (২০১৩)। "Overview of the treatment of acne vulgaris"। Osteopathic Family Physician5 (5): 185–90। ডিওআই:10.1016/j.osfp.2013.03.003 
  8. Harper, Julie C (৬ আগস্ট ২০০৯)। "Acne Vulgaris"। eMedicine। সংগ্রহের তারিখ ২০০৯-১২-২১ 
  9. Kong YL, Tey HL (জুন ২০১৩)। "Treatment of acne vulgaris during pregnancy and lactation"। Drugs73 (8): 779–87। ডিওআই:10.1007/s40265-013-0060-0পিএমআইডি 23657872 
  10. Mahmood, SN; Bowe, WP (এপ্রিল ১, ২০১৪)। "Diet and acne update: carbohydrates emerge as the main culprit."। Journal of drugs in dermatology : JDD13 (4): 428–35। পিএমআইডি 24719062 
  11. Ramos-e-Silva, M; Carneiro, SC (২০০৯)। "Acne vulgaris: Review and guidelines"। Dermatology nursing / Dermatology Nurses' Association21 (2): 63–8; quiz 69। পিএমআইডি 19507372 
  12. উদ্ধৃতি ত্রুটি: অবৈধ <ref> ট্যাগ; Goodman নামের সূত্রের জন্য কোন লেখা প্রদান করা হয়নি
  13. Taylor, Marisa; Gonzalez, Maria; Porter, Rebecca (মে–জুন ২০১১)। "Pathways to inflammation: acne pathophysiology"। European Journal of Dermatology (Review)। 21 (3): 323–33। ডিওআই:10.1684/ejd.2011.1357পিএমআইডি 21609898 
  14. Dawson, A. L.; Dellavalle, R. P. (২০১৩)। "Acne vulgaris"। BMJ346: f2634। ডিওআই:10.1136/bmj.f2634পিএমআইডি 23657180 
  15. Berlin, David J. Goldberg, Alexander L.। Acne and Rosacea Epidemiology, Diagnosis and Treatment.। London: Manson Pub.। পৃষ্ঠা 8। আইএসবিএন 9781840766165 
  16. Spencer, EH; Ferdowsian, HR; Barnard, ND (এপ্রিল ২০০৯)। "Diet and acne: a review of the evidence."। International Journal of Dermatology48 (4): 339–47। ডিওআই:10.1111/j.1365-4632.2009.04002.xপিএমআইডি 19335417 
  17. Hay, RJ; Johns, NE; Williams, HC; Bolliger, IW; Dellavalle, RP; Margolis, DJ; Marks, R; Naldi, L; Weinstock, MA; Wulf, SK; Michaud, C; J L Murray, C; Naghavi, M (অক্টো ২৮, ২০১৩)। "The Global Burden of Skin Disease in 2010: An Analysis of the Prevalence and Impact of Skin Conditions."। The Journal of investigative dermatologyপিএমআইডি 24166134 
  18. Arndt, Hsu; Kenneth, Jeffrey (২০০৭)। Manual of dermatologic therapeutics। Lippincott Williams & Wilkins। আইএসবিএন 0-7817-6058-5 [পৃষ্ঠা নম্বর প্রয়োজন]
  19. Anderson, Laurence. 2006. Looking Good, the Australian guide to skin care, cosmetic medicine and cosmetic surgery. AMPCo. Sydney. আইএসবিএন ০-৮৫৫৫৭-০৪৪-X.[পৃষ্ঠা নম্বর প্রয়োজন]
  20. "Frequently Asked Questions: Acne"। U.S. Department of Health and Human Services, Office of Public Health and Science, Office on Women's Health। ১৬ জুলাই ২০০৯। ২০০৯-০৮-০৯ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০০৯-০৭-৩০ 
  21. Melnik, Bodo; Jansen, Thomas; Grabbe, Stephan (২০০৭)। "Abuse of anabolic-androgenic steroids and bodybuilding acne: An underestimated health problem"। JDDG5 (2): 110–7। ডিওআই:10.1111/j.1610-0387.2007.06176.xপিএমআইডি 17274777 
  22. Teede H, Deeks A, Moran L (২০১০)। "Polycystic ovary syndrome: a complex condition with psychological, reproductive and metabolic manifestations that impacts on health across the lifespan"BMC Med8 (1): 41। ডিওআই:10.1186/1741-7015-8-41পিএমআইডি 20591140পিএমসি 2909929অবাধে প্রবেশযোগ্য 
  23. James, William; Berger, Timothy; Elston, Dirk (২০০৫)। Andrews Diseases of the Skin: Clinical Dermatology (10th সংস্করণ)। Saunders। পৃষ্ঠা 500আইএসবিএন 0-7216-2921-0 
  24. Bhate, K.; Williams, H.C. (মার্চ ২০১৩)। "Epidemiology of acne vulgaris"। The British Journal of Dermatology (Review)। 168 (3): 474–85। ডিওআই:10.1111/bjd.12149পিএমআইডি 23210645 
  25. Chiu, Annie; Chon, SY; Kimball, AB (২০০৩)। "The Response of Skin Disease to Stress"। Archives of Dermatology139 (7): 897–900। ডিওআই:10.1001/archderm.139.7.897পিএমআইডি 12873885 
  26. "Questions and Answers about Acne"। National Instituteবে of Arthritis and Musculoskeletal and Skin Diseases, National Institutes of Health। জানুয়ারি ২০০৬। 
  27. Bek-Thomsen, M.; Lomholt, H. B.; Kilian, M. (২০০৮)। "Acne is Not Associated with Yet-Uncultured Bacteria"Journal of Clinical Microbiology46 (10): 3355–60। ডিওআই:10.1128/JCM.00799-08পিএমআইডি 18716234পিএমসি 2566126অবাধে প্রবেশযোগ্য 
  28. Lomholt, Hans B.; Kilian, Mogens (২০১০)। Bereswill, Stefan, সম্পাদক। "Population Genetic Analysis of Propionibacterium acnes Identifies a Subpopulation and Epidemic Clones Associated with Acne"PLoS ONE5 (8): e12277। ডিওআই:10.1371/journal.pone.0012277পিএমআইডি 20808860পিএমসি 2924382অবাধে প্রবেশযোগ্য 
  29. "National Guideline Clearinghouse"। Guideline.gov। 11/12/2007। ২২ ডিসেম্বর ২০০৮ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা।  এখানে তারিখের মান পরীক্ষা করুন: |তারিখ= (সাহায্য)
  30. Zhao, YE; Hu, L; Wu, LP; Ma, JX (মার্চ ২০১২)। "A meta-analysis of association between acne vulgaris and Demodex infestation"Journal of Zhejiang University. Science. B (Meta-analysis)। 13 (3): 192–202। ডিওআই:10.1631/jzus.B1100285পিএমআইডি 22374611পিএমসি 3296070অবাধে প্রবেশযোগ্য 
  31. Bhate, K; Williams, HC (এপ্রিল ২০১৪)। "What's new in acne? An analysis of systematic reviews published in 2011–2012"। Clinical and Experimental Dermatology (Review)। 39 (3): 273–7। ডিওআই:10.1111/ced.12270পিএমআইডি 24635060 
  32. Vos, Theo; Flaxman (২০১২)। "Years lived with disability (YLDs) for 1160 sequelae of 289 diseases and injuries 1990–2010: A systematic analysis for the Global Burden of Disease Study 2010"। The Lancet380 (9859): 2163–96। ডিওআই:10.1016/S0140-6736(12)61729-2পিএমআইডি 23245607 
  33. Bhate, K; Williams, HC (মার্চ ২০১৩)। "Epidemiology of acne vulgaris."। The British journal of dermatology168 (3): 474–85। ডিওআই:10.1111/bjd.12149পিএমআইডি 23210645 
  34. Shah, Sejal K.; Alexis, Andrew F. (২০১০)। "Acne in skin of color: Practical approaches to treatment"। Journal of Dermatological Treatment21 (3): 206–11। ডিওআই:10.3109/09546630903401496পিএমআইডি 20132053 
  35. White, Gary M. (১৯৯৮)। "Recent findings in the epidemiologic evidence, classification, and subtypes of acne vulgaris"। Journal of the American Academy of Dermatology39 (2): S34–7। ডিওআই:10.1016/S0190-9622(98)70442-6পিএমআইডি 9703121 
  36. Keri J, Shiman M (২০০৯)। "An update on the management of acne vulgaris"Clin Cosmet Investig Dermatol17 (2): 105–10। পিএমআইডি 21436973পিএমসি 3047935অবাধে প্রবেশযোগ্য 
  37. Myra Michelle Eby, Michelle Eby Myra (২০০৮)। Return to Beautiful Skin। Basic Health Publications। পৃষ্ঠা 275। 
  38. "Tretinoin (retinoic acid) in acne"। The Medical letter on drugs and therapeutics15 (1): 3। ১৯৭৩। পিএমআইডি 4265099 
  39. Jones, H (১৯৮০)। "13-Cis Retinoic Acid and Acne"। The Lancet316 (8203): 1048–9। ডিওআই:10.1016/S0140-6736(80)92273-4পিএমআইডি 6107678 
  40. Bérard, Anick; Azoulay, Laurent; Koren, Gideon; Blais, Lucie; Perreault, Sylvie; Oraichi, Driss (২০০৭)। "Isotretinoin, pregnancies, abortions and birth defects: A population-based perspective"British Journal of Clinical Pharmacology63 (2): 196–205। ডিওআই:10.1111/j.1365-2125.2006.02837.xপিএমআইডি 17214828পিএমসি 1859978অবাধে প্রবেশযোগ্য 
  41. Holmes, SC; Bankowska, U; MacKie, RM (১৯৯৮)। "The prescription of isotretinoin to women: Is every precaution taken?"। British Journal of Dermatology138 (3): 450–5। ডিওআই:10.1046/j.1365-2133.1998.02123.xপিএমআইডি 9580798 

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]

  • Questions and Answers about Acne - US National Institute of Arthritis and Musculoskeletal and Skin Diseases (যুক্তরাষ্ট্রের ন্যাশনাল ইন্সটিটিউট অব মাসকিউলোস্কেলেটাল এন্ড স্কিন ডিজিজেস)