বিষয়বস্তুতে চলুন

বিশ্ব জনসংখ্যা দিবস

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
বিশ্ব জনসংখ্যা দিবস
তারিখজুলাই ১১
পরবর্তী আয়োজন১১ জুলাই ২০২৫
সংঘটনবার্ষিক
২০১৯ খ্রিস্টাব্দ অবধি বিশ্ব জনসংখ্যা বৃদ্ধির লেখচিত্র
২০১৮ খ্রিস্টাব্দে বিশ্বের বিভিন্ন দেশের জনসংখ্যা বৃদ্ধির হার

বিশ্ব জনসংখ্যা দিবস প্রতি বছর ১১ জুলাই তারিখে পালিত একটি বাৎসরিক আয়োজন, যার লক্ষ্য বিশ্ব জনসংখ্যা সংক্রান্ত বিভিন্ন প্রশ্নের উপরে জনসচেতনতা বৃদ্ধি করা। ১৯৮৭ সালের ১১ জুলাই তারিখে বিশ্ব জনসংখ্যা ৫০০ কোটি ছাড়িয়ে গেলে সারা বিশ্বের জনমানুষের মধ্যে যে আগ্রহের সৃষ্টি হয়, তাতে অনুপ্রাণিত হয়ে ১৯৮৯ সালে জাতিসংঘ উন্নয়ন কর্মসূচির পরিচালনা পরিষদ এই দিবসটি প্রতিষ্ঠা করে। বিশ্ব জনসংখ্যা দিবসের লক্ষ্য হলো পরিবার পরিকল্পনা, লিঙ্গসমতা, দারিদ্র, মাতৃস্বাস্থ্য এবং মানবাধিকারের মতো জনসংখ্যা সংক্রান্ত বিভিন্ন বিষয়ে জনগণের সচেতনতা বৃদ্ধি করা।[১]

বিশ্বব্যাংকের ‘বিশ্ব জনসংখ্যা প্রতিবেদন-২০২১’ অনুযায়ী ২০২১ সালের শেষে বিশ্বের জনসংখ্যা প্রায় ৭৮৭ কোটি ৫০ লাখ।[২] ২০১৯ সালের মাঝামাঝি বিশ্বের জনসংখ্যা ৭৭০ কোটিতে পৌঁছেছিল। এটি ক্রমান্বয়ে বৃদ্ধি পেয়ে ২০৩০ সালে ৮৫০ কোটি, ২০৫০ সালে ৯৭০ কোটি এবং এবং ২১০০ সালে গিয়ে ১০৯০ কোটিতে পোঁছাতে পারে বলে জাতিসংঘ অনুমান করছে। ২০৫০ সালের মধ্যে যে জনসংখ্যা বৃদ্ধি পাবে, তার অর্ধেকের বেশি সংঘটিত হবে ৯টি দেশে; এগুলি হল ভারত, নাইজেরিয়া, পাকিস্তান, কঙ্গো গণতান্ত্রিক প্রজাতন্ত্র, ইথিওপিয়া, তানজানিয়া, ইন্দোনেশিয়া, মিশর এবং মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র।[৩] ২০২৭ সাল নাগাদ ভারত চীনকে ছাড়িয়ে বিশ্বের সবচেয়ে জনবহুল রাষ্ট্রে পরিণত হবে।[৩]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "World Population Day: Health And Rights Of Women In The Time Of COVID-19"NDTV.com। সংগ্রহের তারিখ ২০২০-০৭-১১ 
  2. "বিশ্বের জনসংখ্যা কত?, বাংলা ট্রিবিউন, ২৭ মার্চ ২০২২"। ২৭ মার্চ ২০২২ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২৭ মার্চ ২০২২ 
  3. Population Division of the United Nations Department of Economic and Social Affairs (২০১৯), World Population Prospects 2019: Highlights (পিডিএফ) 

আরও দেখুন[সম্পাদনা]

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]