বিষয়বস্তুতে চলুন

"এয়ারটেল (বাংলাদেশ)" পাতাটির দুইটি সংশোধিত সংস্করণের মধ্যে পার্থক্য

ট্যাগ: মোবাইল সম্পাদনা মোবাইল ওয়েব সম্পাদনা
 
== ইতিহাস ==
২০০৫ সালের ডিসেম্বরে ওয়ারিদ টেলিকম ইন্টারন্যাশনাল এলএলসি ৫০ মিলিয়নকোটি [[ডলার]] এর বিনিময়ে [[বাংলাদেশ টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রণ কমিশন|বিটিআরসি]] থেকে [[বাংলাদেশ|বাংলাদেশের]] ৬ষ্ঠ [[জিএসএম]] মোবাইলমুঠোফোন অপারেটরনেটওয়ার্ক সেবাদাতা হিসাবে লাইসেন্সঅনুমতিপত্র পায়। ১০ মে, ২০০৭ সালে ৬১টি জেলায় মুঠোফোন নেটওয়ার্ক কভারেজসেবা প্রদানের মাধ্যমে এবং ৭০% জনসমষ্টিকে ঘিরে এর আনুষ্ঠানিক যাত্রা শুরু হয়। পরবর্তীতে ২০১০ সালের জানুয়ারিতে ওয়ারিদ ১ লক্ষ মার্কিন ডলারের বিনিময়ে ভারতের ভারতী এয়ারটেল নিকট কোম্পানির ৭০% শেয়ারঅংশীদারিত্ব বিক্রিয়বিক্রি করে। পরবর্তীতে যা এয়ারটেল বাংলাদেশ লিমিটেড নাম ধারণ করে। ভারতী প্রস্তাবের মধ্যে ছিল কোম্পানির নতুন শেয়ার তৈরির জন্য ৩০০৩০ মিলিয়নকোটি মার্কিন ডলারের প্রাথমিক বিনিয়োগ করার। [[বাংলাদেশ টেলিকমিউনিকেশনটেলিযোগাযোগ রেগুলেটরিনিয়ন্ত্রণ কমিশন|বিটিআরসি]] ৪ জানুয়ারি ২০১০ তারিখে এই চুক্তিকে অনুমোদন করে। একই বছরের ২০ ডিসেম্বর তা এয়ারটেল নামে সেবা প্রদান শুরু করে।
 
মার্চ ২০১৩ সালে, ওয়ারিদ তার বাকী ৩০% শেয়ার ভারতী এয়ারটেলের মালিকানাধীন সিঙ্গাপুর ভিত্তিক ভারতি এয়ারটেল হোল্ডিংস পিটি লিমিটেডের কাছে ৮৫ মিলিয়ন মার্কিন ডলারে বিক্রি করে।
৩১৮টি

সম্পাদনা