এয়ারটেল (বাংলাদেশ)

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
এয়ারটেল (রবি আজিয়াটা লিমিটেড)
রবি আজিয়াটা লিমিটেডের একটি পণ্য ব্র্যান্ড
শিল্পটেলিযোগাযোগ
অবস্থারবি আজিয়াটা লিমিটেডের সঙ্গে একত্রিত
পূর্বসূরীওয়ারিদ টেলিকম বাংলাদেশ
প্রতিষ্ঠাকাল১০ মে ২০০৭
সদরদপ্তররবি কার্যালয়, ৫৩, গুলশান দক্ষিণ এভিনিউ, গুলশান, ঢাকা-১২১২, বাংলাদেশ
পরিষেবাসমূহমোবাইল টেলিফোনি, জিপিআরএস, এজ, ৪ জি +, আন্তর্জাতিক রোমিং
আয়বৃদ্ধি৳ ৩৮.৮৫ বিলিয়ন (রবি আজিয়াটা লিমিটেড)
ওয়েবসাইটএয়ারটেল (রবি আজিয়াটা লিমিটেড)

এয়ারটেল হচ্ছে বাংলাদেশে রবি আজিয়াটা লিমিটেড পরিচালিত একটি পণ্য ব্র্যান্ড, যেটি ১৬ নভেম্বর ২০১৬ সালে এয়ারটেল বাংলাদেশ লিমিটেড ও রবি আজিয়াটা লিমিটেড কোম্পানি দুটি একীভূত হবার পর থেকে রবি আজিয়াটা লিমিটেডের লাইসেন্সের অধীনে পরিচালিত।[১] এই একীভূতকরণের ফলে এয়ারটেল বাংলাদেশ লিমিটেড আইনগত বিলুপ্ত হয় এবং এয়ারটেল গ্রাহকরা রবি আজিয়াটা লিমিটেড কোম্পানির অধীনে রবি নেটওয়ার্ক দ্বারা পরিচালিত হতে শুরু করে। এখন থেকে এয়ারটেল এবং এর ০১৬ নম্বর সিরিজ টি রবি আজিয়াটা লিমিটেডের মালিকানাধীন ।

রবি ও এয়ারটেল একীভূতকরণের শর্ত ছিলো রবি এয়ারটেল মিলিতভাবে রবি নামে চলবে এবং একীভূত হবার ২ বছরের মধ্যে এয়ারটেল নামটি বিলুপ্ত হবে, রবি ও এয়ারটেল উভয় গ্রাহক রবি নামে পরিচিত হবে। পাশাপাশি ০১৬ নম্বর সিরিজ দিয়ে নতুন সংযোগ প্রদান করতে পারবে না রবি আজিয়াটা লিমিটেড। বর্তমানে রবি আজিয়াটা লিমিটেড (এয়ারটেল) এর ০১৬ সিরিজের একাধিক ব্লক এর নতুন সংযোগ বিক্রি তে নিষেধাজ্ঞা রয়েছে । [২]

ইতিহাস[সম্পাদনা]

২০০৫ সালের ডিসেম্বরে ওয়ারিদ টেলিকম ইন্টারন্যাশনাল এলএলসি ৫০ মিলিয়ন ডলার এর বিনিময়ে বিটিআরসি থেকে বাংলাদেশের ৬ষ্ঠ জিএসএম মোবাইল অপারেটর হিসাবে লাইসেন্স পায়। ১০ মে, ২০০৭ সালে ৬১টি জেলায় নেটওয়ার্ক কভারেজ প্রদানের মাধ্যমে এবং ৭০% জনসমষ্টিকে ঘিরে এর আনুষ্ঠানিক যাত্রা শুরু হয়। পরবর্তীতে ২০১০ সালের জানুয়ারিতে ওয়ারিদ ১ লক্ষ মার্কিন ডলারের বিনিময়ে ভারতের ভারতী এয়ারটেল নিকট কোম্পানির ৭০% শেয়ার বিক্রিয় করে। পরবর্তীতে যা এয়ারটেল বাংলাদেশ লিমিটেড নাম ধারণ করে। ভারতী প্রস্তাবের মধ্যে ছিল কোম্পানির নতুন শেয়ার তৈরির জন্য ৩০০ মিলিয়ন মার্কিন ডলারের প্রাথমিক বিনিয়োগ করার। বাংলাদেশ টেলিকমিউনিকেশন রেগুলেটরি কমিশন ৪ জানুয়ারি ২০১০ তারিখে এই চুক্তিকে অনুমোদন করে। একই বছরের ২০ ডিসেম্বর তা এয়ারটেল নামে সেবা প্রদান শুরু করে।

মার্চ ২০১৩ সালে, ওয়ারিদ তার বাকী ৩০% শেয়ার ভারতী এয়ারটেলের মালিকানাধীন সিঙ্গাপুর ভিত্তিক ভারতি এয়ারটেল হোল্ডিংস পিটি লিমিটেডের কাছে ৮৫ মিলিয়ন মার্কিন ডলারে বিক্রি করে।

২০১৬-এর জানুয়ারিতে রবি এবং এয়ারটেল বাংলাদেশ ঘোষণা করে যে তারা তাদের অপারেটরকে এওত্রিত করতে চায়, এবং যৌথ সত্তাটি রবি নামে পরিচিত হবে। ১৬ নভেম্বর ২০১৬ সালে একীভূত কোম্পানি হিসেবে যাত্রা রবি যাত্রা শুরু করে।[৩]

এয়ারটেল গ্রাহকেরা রবি নেটওয়ার্কে[সম্পাদনা]

রবি এয়ারটেল একীভূতকরণের ফলে এয়ারটেল এর গ্রাহকেরা স্বয়ংক্রিয়ভাবে রবি নেটওয়ার্ক এ যুক্ত হয়ে নিরবিচ্ছিন্নভাবে সকল সুবিধা উপভোগ করবেন। কোনো কারণে রবি নেটওয়ার্ক এ সংযুক্ত হতে ব্যার্থ হলে ফোনের নেটওয়ার্ক সেটিংস থেকে রবি নেটওয়ার্ক খুঁজে নিয়ে তাতে যুক্ত হতে পারবেন সহজেই।

[৪]

আরও দেখুন[সম্পাদনা]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "এয়ারটেল সম্পর্কে"। সংগ্রহের তারিখ ১৮ নভেম্বর ২০১৬ 
  2. "রবির '০১৬০' ও '০১৬১' নম্বর বিক্রিতে নিষেধাজ্ঞা বহাল"। সংগ্রহের তারিখ ২১ মার্চ ২০২১ 
  3. "এক হল রবি-এয়ারটেল"bangla.bdnews24.com। ১৬ নভেম্বর ২০১৬। সংগ্রহের তারিখ ৩০ মে ২০১৮ 
  4. "ঢাকায় শুরু হচ্ছে রবি-এয়ারটেলের নেটওয়ার্ক সমন্বয়" 

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]