পরিবর্তনসমূহ

পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
 
==ফলাফল==
সরকার অভ্যুত্থানটিকে কিম দে জুং এবং তার অনুসারী বিদ্রোহীদের অভিসন্ধিমূলকা কার্যক্রম বলে চিহ্নিত করে। কিমকে এই কারণে দোষী সাব্যস্ত করে মৃত্যুদন্ড দেয়া হয়, যদিও তার শাস্তি পরবর্তীতে আন্তর্জাতিক মহলের চাপে কমানো অহয়। সর্বমোট ১,৩৯৪ জনকে গোয়াংজু অভ্যুথানে সরাসরি জড়িত থাকার কারণে গ্রেফতার এবং ৪২৭ জনকে সাজা দেয়া হয়। এদের মাঝে ৭ জন মৃত্যুদন্ড এবং ১২ জন যাবজ্জীবন কারাদন্ড ভোগ করেন।
গোয়াংজু অভ্যুত্থান কোরিয়ার রাজনীতি এবং ইতিহাসে সুদূরপ্রসারী ভূমিকা রাখে। চুন দু-হোয়ান সামরিক শক্তিবলে ক্ষমতা দখল করার কারণে ইতিমধ্যেই তার জনপ্রিয়তা কমে গিয়েছিল। তবে সাধারন জনগণের উপর বিশেষ ফোর্সের মাধ্যমে দমনমূলক ক্ষমতা প্রদর্শনের ফলে তার জনপ্রিয়তা তলানীতে গিয়ে ঠেকে। ১৯৮০ সালের এই আন্দোলন পরবর্তীতে দক্ষিণ কোরিয়ায় গণতন্ত্রের সূচনা করতে মূখ্য ভূমিকা পালন করে। গোয়াংজু অভ্যুত্থান পরবর্তীতে দক্ষিণ কোরিয়ার মানুষদের শোষণের বিরুদ্ধে এবং গণতন্ত্রের জন্য সংগ্রামের প্রতীক হয়ে উঠে।
২০০০ সালের শুরুতে, ১৮ই মে মেমোরিয়াল ফাউন্ডেশন মানবাধিকার রক্ষার্থে সচেতন নাগরিকদের জন্য একটি বাৎসরিক পুরষ্কার, গোয়াংজু মানবাধিকার পদক দেয়া শুরু করে। <ref name="GP">{{cite web |url=http://518.org/eng/html/main.html?TM18MF=03020000 |title=Gwangju Prize for Human Rights |publisher=May 18 Memorial Foundation |accessdate=April 24, 2011}}</ref>
 
==পূনর্মূল্যায়ন==

পরিভ্রমণ বাছাইতালিকা