বিবর্ধন

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
বিবর্ধক কাচ ব্যবহার করলে স্ট্যাম্পটি বড় আকারের প্রদর্শিত হয়
৩৯-মেগাপিক্সেল চিত্রে ফ্রেম প্রতি ৬% বিবর্ধন হয়। চূড়ান্ত ফ্রেমে, প্রায় ১৭০ গুন, এই চিত্রে লোকটির কর্নিয়ায় ছবি প্রতিবিম্বিত হতে দেখা যাচ্ছে।


রৈখিক বিবর্ধন, বিম্বের দৈর্ঘ্য ও লক্ষ্যবস্তুর দৈর্ঘ্যের অনুপাতকে রৈখিক বিবর্ধন বলে।

(১) কোনো লক্ষ্যবস্তুর দৈর্ঘ্য l ও বিম্বের দৈর্ঘ্য l' হলে, রৈখিক বিবর্ধন,


m= l' / l


(২) লক্ষ্যবস্তুর দূরত্ব u এবং বিম্বের দূরত্ব v হলে, রৈখিক বিবর্ধন।

m = -v / u

u ও v এর যথাযথ চিহ্ন সহকারে উক্ত সমীকরণে মান বসিয়ে প্রাপ্ত বিবর্ধন m হতে বোঝা যায় বিম্বটি সোজা না উল্টা আর বিবর্ধনের পরম মান থেকে বোঝা যায় বিম্বটি লক্ষব্স্তুর তুলনায় বড় (বিবর্ধিত) না ছোট (খর্বিত) না লক্ষ্যবস্তুর সমান। অনেক সময় বিশেষ করে আলোক যন্ত্র, দূরবীক্ষণ যন্ত্র ইত্যাদির ক্ষেত্রে রৈখিক বিবর্ধনের তুলনায় কৌণিক বিবর্ধন ব্যবহার সুবিধাজনক।

কৌণিক বিবর্ধন[সম্পাদনা]

বিম্ব দ্বারা সৃষ্ট দৃষ্টকোণ ও বস্তুু দ্বারা সৃষ্ট দৃষ্টকোণের অনুপাতকে কৌণিক বিবর্ধন বলে। যন্ত্র ছাড়া বস্তু যদি a কোণ তৈরি করে এবং যন্ত্র ব্যবহারের ফলে চূড়ান্ত বিম্ব যদি চোখে b কোণ তৈরি করে তবে,

M= b / a


তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]