বান্দুং গ্র্যান্ড মসজিদ

স্থানাঙ্ক: ৬°৫৫′১৮″ দক্ষিণ ১০৭°৩৬′২৩″ পূর্ব / ৬.৯২১৭৩৪° দক্ষিণ ১০৭.৬০৬২৫৯° পূর্ব / -6.921734; 107.606259
উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
বান্দুং গ্রান্ড মসজিদ
মসজিদ রায়া বান্দুং
চিত্র:Great Mosque of Bandung.jpg
মসজিদের সম্মুখ দৃশ্য, ২০১৭
ধর্ম
অন্তর্ভুক্তিইসলাম
প্রদেশপশ্চিম জাভা
যাজকীয় বা
সাংগঠনিক অবস্থা
প্রাদেশিক মসজিদ
অবস্থাসক্রিয়
অবস্থান
অবস্থানবান্দুং, ইন্দোনেশিয়া
ভৌগোলিক স্থানাঙ্ক৬°৫৫′১৮″ দক্ষিণ ১০৭°৩৬′২৩″ পূর্ব / ৬.৯২১৭৩৪° দক্ষিণ ১০৭.৬০৬২৫৯° পূর্ব / -6.921734; 107.606259
স্থাপত্য
ধরনমসজিদ
ভূমি খননফেব্রুয়ারি ২৫, ২০০১
সম্পূর্ণ হয়জুন ৪, ২০০৩
নির্দিষ্টকরণ
ধারণ ক্ষমতা১৩,০০০ জন
গম্বুজসমূহ
মিনারসমূহ
মিনারের উচ্চতা৮১ মিটার (২৬৬ ফু)
ওয়েবসাইট
প্রাতিষ্ঠানিক ওয়েবসাইট

বান্দুং গ্র্যান্ড মসজিদ (ইন্দোনেশিয়ান: মসজিদ রায়া বান্দুং) যা আগে বান্দুংয়ের গ্রেট মসজিদ (ইন্দোনেশিয়ান গ্রেট মসজিদ বান্দুং ) নামেও পরিচিত ছিল। এটি ইন্দোনেশিয়ার পশ্চিম জাভা প্রদেশের রাজধানী বান্দুংয়ের একটি মসজিদ। মসজিদটি ২০০৪ সালে পশ্চিম জাভা প্রদেশের প্রাদেশিক মসজিদের মর্যাদা লাভ করেছিল। মসজিদটির পূর্ব দিকে অবস্থিত বান্দুংয়ের আলুন-আলুন ।

ইতিহাস[সম্পাদনা]

পুরাতন মসজিদ কাঠামোর একটি দৃশ্য।

বান্দুং গ্র্যান্ড মসজিদ প্রথম ১৮১২ সালে নির্মিত হয়েছিল। প্রথম বিল্ডিংটি একটি কাঠের প্ল্যাটফর্মের কাঠামো ছিল এবং বাঁশের তাঁত প্রাচীর এবং বহু-স্তরযুক্ত খড়ের ছাদে ঢাকা ছিল। মসজিদ কমপ্লেক্সের একটি বড় হাউয ছিল যা নামাজ পড়ার আগে অযু করার জন্য পানি সরবরাহ করা হতো। [১]

১৮২৬ সালে মসজিদটি ধীরে ধীরে সংস্কার করা হয়েছিল। ছাদটি পুনর্নির্মাণ করা হয়েছিল এবং বাঁশের তাঁত প্রাচীরটি স্টর্ডিয়ার কাঠ দিয়ে প্রতিস্থাপন করা হয়েছিল। ১৮৫০ সালে, গ্রেট পোস্ট রোড (বর্তমানে জালান এশিয়া আফ্রিকা) নির্মাণের সাথে সাথে মসজিদটি সংস্কার ও সম্প্রসারণ করা হয়; ছাদটি মাটির টাইলসগুলি দিয়ে প্রতিস্থাপন করা হয়েছিল এবং প্রাচীরটি শক্ত ইট দিয়ে প্রতিস্থাপন করা হয়েছিল। পিরামিডাল বহু-স্তরযুক্ত ছাদ বিশিষ্ট মসজিদটিকে একটি বাল নিউংচুং ( সুন্দানিজ "স্পাইকি মণ্ডপ ")নাম দেয়। [১] ১৮৭৫ সালে মসজিদের বেসটি শক্ত পাথর দ্বারা প্রতিস্থাপন করা হয়। মসজিদ কমপ্লেক্সের পরিধিটি নতুন ইটের প্রাচীর দিয়ে ফিশ-স্কেল প্যাটার্ন দ্বারা আবদ্ধ করা হয়; যা বান্দুংয়ের সাথে সম্পর্কিত একটি ঐতিহ্যবাহী প্যাটার্ন। বান্দুংয়ের পেন্ডোপো কমপ্লেক্সের চারপাশের দেয়ালেওস এই প্যাটার্ণ পাওয়া যায়। ১৯০০ সালে প্রধান প্রার্থনা হলের দক্ষিণ এবং উত্তরে কাভার্ড বারান্দা (প্যাভেষ্টেন) আকারে প্রসারিত করা হয়। [১]

১৯৩০ সালে, হেনরি ম্যাকলাইন পন্টের নকশার পরে গ্রেট মসজিদের আচ্ছাদিত সামনের বারান্দাটি (সেরাম্বি) পুনর্নির্মাণ করা হয়েছিল। [২] দ্বিতীয় তলার ছাদ করে, প্রধান নামাজের হলটির তৃতীয় তলার ছাদের সাথে মসজিদের সম্মুখের বাম এবং ডানদিকে যুক্ত করা হয়েছিল। [১]

১৯৫৫ সালে, এশিয়া-আফ্রিকা সম্মেলনের বছর, মসজিদটির প্রথম বড় সংস্কার হয়। এশিয়া-আফ্রিকা সম্মেলনের অতিথিদের থাকার জন্য, মসজিদটির মূল আঙ্গিনাটি ব্যাপক আকারে প্রসারিত করা হয়েছিল। ফলস্বরূপ, উনিশ শতকের আসল বহু-স্তরযুক্ত ছাদ, প্যাভেষ্টেন এবং দ্বি-স্তরের সেরাম্বি ভেঙে ফেলা হয়েছিল। ঐতিহ্যবাহী জাভানিজের বহু-স্তরযুক্ত ছাদটির পরিবর্তে রাষ্ট্রপতি সুকর্ণো নিজের নকশাকৃত পেঁয়াজ আকৃতির গম্বুজ মসজিদটিতে প্রতিস্থাপন করেছিলেন। ১৯৬৭ সালে, প্রবল বাতাস শক্তিশালী আকৃতির এই নতুন গম্বুজটিকে ক্ষতিগ্রস্ত করেছিল। ১৯৭০ সালে মসজিদটিতে একটি নতুন হিপ ছাদ দেওয়া হয়। [১]

১৯৭১ সালে পশ্চিম জাভার গভর্নর আবারও মসজিদটি সম্প্রসারণের সিদ্ধান্ত নেন। ১৯৭২ সালে নির্মাণ শুরু হয়েছিল এবং ১ অক্টোবর, ১৯৭৩ সালে এটি সমাপ্ত হয়। এই পর্যায়ে, মসজিদটি প্রথম তলা এবং আনুষ্ঠানিকভাবে অযু করার জন্য একটি বেসমেন্ট তৈরী করা হয়। ছাদ শৈলীকে একটি জোগ্লো স্টাইল ছাদে রূপান্তরিত হয়। মসজিদটি একটি নতুন নলাকার আধুনিক স্টাইলের মিনার এবং একটি সেতুও রয়েছে যা মসজিদটিকে আলুন-আলুনের সাথে সংযুক্ত করে। [১] [২] ১৯৮০ এর দশকে, মসজিদের সামনের অংশে একটি শক্ত প্রাচীর এবং ইস্পাত প্রবেশদ্বার যুক্ত করা হয়েছিল। [২]

বর্তমান মসজিদ[সম্পাদনা]

সর্বশেষ বড় সংস্কার ২০০১ সালে হয়েছিল। নির্মাণকাজ ২৫ ফেব্রুয়ারি,২০০১-এ শুরু হয়েছিল এবং জুন ৪, ২০০৩ -এ শেষ হয়েছিল। প্রকল্পটি বান্দুংয়ের আলুন-আলুন প্রকল্পের পুনর্বাসনের অংশ ছিল। সামগ্রিক প্রকল্পটি ১৩ জানুয়ারী, ২০০৪ সালে সমাপ্ত হয়। এই সময়ে মসজিদটির নাম মসজিদ আগুঙ বান্দুং ("বান্দুং গ্রেট মসজিদ") থেকে মসজিদ রায়য়া বান্দুং ("বান্দুং গ্র্যান্ড মসজিদ")নামকরণ করা হয়েছিল। মসজিদটিকে একটি প্রাদেশিক মসজিদ হিসেবে স্বীকৃতি প্রদান করা হয়।

নতুন মসজিদের নকশাটি চারটি দেশীয় ডিজাইনার দ্বারা নকশাকৃত। তারা হলেন- কেউলম্যান, আরি আটাদিব্রত, নুমান এবং স্লেমেট উইরাসনজায়ার। প্রধান বৃত্তাকার গম্বুজটি (যেখানে মূল ছাদটি দাঁড়িয়েছিল) ৩০ মিটার ব্যাসের; দুটি ছোট গম্বুজ মসজিদের সামনের দিকে অবস্থিত। মসজিদটির নতুন পশ্চিম শাখাটি আলুন-আলুনের সাথে মিশে গিয়েছে। [১] আলুন-আলুন বারাত স্ট্রিট অপসারণ করে, চারটি রাস্তায় ঘেরা আলুন-আলুন নকশাকে এখন মসজিদে একীভূত করা হয়েছে; ট্র্যাফিক ডাইভার্সনটি এখন বনানুই স্ট্রিট এবং দেবী সার্টিকা স্ট্রিটের সাথে সংযোগ বিচ্ছন্ন করা হয়েছে।

মসজিদটির সর্বাধিক স্বতন্ত্র বৈশিষ্ট্য হলো এর দুটি জোড়া মিনার, প্রতিটি ৮১ মিটার উঁচু। আল্লাহর ৯৯ টি নাম উপস্থাপনের জন্য মিনারগুলি ৯৯ মিটার উঁচু করার পরিকল্পনা করা হয়েছিল তবে হুসেন সাস্ত্রেনগরা আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরের অবস্থানের সাথে উচ্চতা বিধিনিষেধের কারণে এটি ৮১ মিটারে পরিবর্তন করা হয়। [২] মিনারগুলি মূল বিল্ডিংটির বাম এবং ডান পাশে অবস্থিত। দুটি মিনারের শীর্ষে রয়েছে একটি ছোট ছাদ; যা বান্দুংয়ের গ্রেট মসজিদের মূল ছাদটির প্রতিরূপ। মিনারগুলির শীর্ষচূড়া প্রতি শনি ও সোমবার সর্বসাধারণের জন্য উন্মুক্ত করা হয়ে থাকে। [২]

আরো দেখুন[সম্পাদনা]

  • ইন্দোনেশিয়ার মসজিদগুলির তালিকা

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

কাজ উদ্ধৃত[সম্পাদনা]