বানৌজা মেঘনা

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
ইতিহাস
বাংলাদেশ
নাম: বানৌজা মেঘনা
নির্মাতা: ভিটি গ্রুপ, ত্যানজং রু, সিঙ্গাপুর
অভিষেক: ১৯ জানুয়ারী ১৯৮৪
মাতৃ বন্দর: চট্টগ্রাম
শনাক্তকরণ: শনাক্তকরণ সংখ্যা: পি ২১১
অবস্থা: সক্রিয়
সাধারণ বৈশিষ্ট্য
প্রকার ও শ্রেণী: মেঘনা ক্লাস উপকূলীয় টহল জাহাজ
ওজন:   ৪১০ টন
দৈর্ঘ্য: ৪৬.৫ মিটার (১৫২.৫ ফুট)
প্রস্থ: ৭.৫ মিটার (২৪.৬ ফুট)
Draught: ২ মিটার (৬.৬ ফুট)
প্রচালনশক্তি: ২ x প্যাক্সম্যান ভ্যালেন্টা ১২সিএম ডিজেল; ৫০০০ অশ্বশক্তি (৩.৭৩ মে.ও.); 2 x শ্যাফট 
গতিবেগ: ২০ নট
সীমা: ১৬ নট গতিতে ২০০০ মাইল
লোকবল: ৩৯
সেন্সর এবং
কার্যপদ্ধতি:
সমুদ্রপৃষ্ঠ অনুসন্ধান রাডার: ডেকা ১২২৯; আই-ব্যান্ড
যান্ত্রিক যুদ্ধাস্ত্র
ও ফাঁদ:
সেলেনিয়া এনএ ১৮বি অপট্রোনিক সিস্টেম
রণসজ্জা:
  • ১ x ৫৭মিমি বোফর্স ডিপি কামান
  • ১ x ৪০মিমি বোফর্স বিমান বিধ্বংসী কামান
  • ২ x ৭.৬২মিমি মেশিনগান

বানৌজা মেঘনা বাংলাদেশ নৌবাহিনীর একটি মেঘনা ক্লাস উপকূল টহল জাহাজ। জাহাজটি ১৯৮৫ সাল থেকে বাংলাদেশ নৌবাহিনীতে যুক্ত আছে।

অস্ত্রসম্ভার[সম্পাদনা]

জাহাজটিতে প্রধান অস্ত্র হিসেবে আছে একটি ৫৭মিমি ৭০ ক্যালিবারের বোফর্স ডিপি কামান যা প্রতি মিনিটে ২.৪ কেজি ওজনের ২০০টি শেল ১৭ কিলোমিটার দুরত্বে নিক্ষেপ করতে পারে। সহায়ক অস্ত্র হিসেবে জাহাজে রয়েছে দুইটি ৭.৬২ মিমি মেশিনগান। এছাড়া বিমান বিধ্বংসী অস্ত্র হিসেবে রয়েছে একটি ৪০ মিমি ৭০ ক্যালিবারের বোফর্স কামান যা প্রতি মিনিটে ৩০০টি ০.৯৬ কেজির শেল ১২ কিলোমিটার  দুরত্বে নিক্ষেপ করতে সক্ষম।

আরো দেখুন[সম্পাদনা]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]