বাংলাদেশ শুল্ক বিভাগ

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
বাংলাদেশ শুল্ক বিভাগ
গঠিত১৯৭২
যে অঞ্চলে কাজ করে
বাংলাদেশ
ওয়েবসাইটbangladeshcustoms.gov.bd customs.gov.bd/index.jsf

বাংলাদেশ শুল্ক বিভাগ বা বাংলাদেশ কাস্টমস (ইংরেজি:Bangladesh Customs) বাংলাদেশের প্রধান শুল্ক সংস্থা।

ইতিহাস[সম্পাদনা]

শুল্ক আইনের মাধ্যমে বাংলাদেশের স্বাধীনতার পরে ১৯৭২ সালে জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের অধীনে বাংলাদেশ শুল্ক বিভাগ গঠিত হয়।[১] ২০১৬ সালে বাংলাদেশ শুল্ক বিভাগ অস্ত্র ও ওষুধের অবৈধ পাচার বন্ধ করার জন্য অপারেশন আইআরইএনই এ নামে একটি অপারেশন নিযুক্ত করে।[২]

প্রতিষ্ঠানের কাঠামো[সম্পাদনা]

বাংলাদেশ শুল্ক বিভাগ সাধারণত তিন ধরনের ট্যাক্স সংগ্রহ করে থাকে, বিভাগটি জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের অধীনে কাজ করে। অন্য দুটি সংস্থা ভ্যাট এবং আয়কর। শুল্ক বিভাগ বিভিন্ন বিষয়ের উপর পরিকল্পনা, প্রণয়ন, বাস্তবায়ন এবং পর্যায়ক্রমিক পর্যালোচনা এবং পুনর্বিবেচনা করার জন্য দায়ী। এর প্রধান কিছু কার্যক্রম :

  • আমদানি পর্যায়ে কর্তব্য এবং কর সংগ্রহ,
  • গার্হস্থ্য শিল্প সুরক্ষা,
  • বাণিজ্য উদারীকরণ,
  • বাণিজ্যের সুবিধা,
  • চোরাচালান প্রতিরোধ,
  • নিষিদ্ধ পণ্য, নারকোটিক্স এবং জাতীয় নিরাপত্তা জন্য ক্ষতিকর উদ্যেশ্য, এবং
  • মানি লন্ডারিং প্রতিরোধ

শুল্ক বিভাগ শুল্ক স্টেশনগুলির কার্যক্রম নিরীক্ষণ করে এবং কার্যালয়ের নির্দেশ ও ব্যাখ্যা প্রদান করে। কাস্টমস উইংয়ের অধীনে অফিসগুলি এনবিআর এর দ্বারা প্রণীত নীতিমালা বাস্তবায়ন করে, আমদানি পর্যায়ে দায়িত্ব ও কর সংগ্রহ করে, অন্যান্য সীমান্ত সংস্থার দ্বারা প্রণীত প্রাসঙ্গিক আইন এবং প্রবিধান প্রয়োগ করে এবং বাণিজ্যের সুবিধা নিশ্চিত করে। বাংলাদেশে তথা বাংলাদেশ শুল্ক বিভাগের অধীনে ছয়টি কাস্টম স্টেশন আছে (চট্টগ্রাম, ঢাকা, মংলা, আইসিডি কমলাপুর, বেনাপোল ও পংগাঁও), দুটি কাস্টমস বন্ড কমিশনারেট (ঢাকা ও চট্টগ্রাম), একটি কাস্টমস গোয়েন্দা এবং তদন্ত অধিদপ্তর, এবং অন্য একটি কাস্টমস মূল্যায়ন এবং অভ্যন্তরীণ অডিট কমিশন এবং বেশ কয়েকটি কার্যকরী ভূমি কাস্টমস স্টেশন আছে।

চেয়ারম্যান হলেন এনবিআর-তে সর্বোচ্চ সিদ্ধান্ত গ্রহণকারী কর্তৃপক্ষ, শুল্ক উইংয়ের মৌলিক কাজগুলি চার সদস্যের তত্ত্বাবধানে হয়ে থাকে। সদস্যদের অবস্থানগুলি হল:

(১) সদস্য (কাস্টমস: নীতি);

(২) সদস্য (কাস্টমস: রপ্তানি, বন্ড এবং আইটি);

(৩) সদস্য (কাস্টমস: অডিট, আধুনিকীকরণ এবং আন্তর্জাতিক বাণিজ্য); এবং

(৪) সদস্য (কাস্টমস: প্রশাসন)।[৩]

গোয়েন্দা শাখা[সম্পাদনা]

বাংলাদেশ শুল্ক বিভাগে একটি বুদ্ধিমত্তা গোয়েন্দা বিভাগ আছে যারা চোরাচালান সহ এই সম্পর্কিত অপরাধ দমনে কাজ করে। ২০১৬ সালে শুল্ক বিভাগ কর ফাঁকি দিয়ে বাংলাদেশে কেনা এবং বিক্রি করা গাড়িগুলি পুনরুদ্ধারের জন্য অপারেশন শুরু করে, বিশ্বব্যাংক এবং জাতিসংঘ এর মতো বিভিন্ন আন্তর্জাতিক সংস্থাগুলিতে কর্মরত কর্মকর্তার বিরুদ্ধে গাড়ি কেনার অভিযোগ পাওয়া যায়।[৪][৫][৬]

  1. Bala, Swapan Kumar; Ahmed, Helal Uddin। "Customs Duty"en.banglapedia.org। Banglapedia। সংগ্রহের তারিখ ১৪ ডিসেম্বর ২০১৬ 
  2. "Operation IRENE to recover smuggled arms, drugs"Dhaka Tribune। ২০ ডিসেম্বর ২০১৬ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৪ ডিসেম্বর ২০১৬ 
  3. "Bangladesh Customs, National Board of Revenue (NBR) (Beta version)"bangladeshcustoms.gov.bd (ইংরেজি ভাষায়)। ২০১৭-০৩-০১ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০১৭-০৩-০১ 
  4. "Customs officials seize former UNDP Bangladesh chief's car over duty irregularities"bdnews24.com। সংগ্রহের তারিখ ১৪ ডিসেম্বর ২০১৬ 
  5. "Misuse of Tax-free Cars: UN reminds its foreign staff to follow rules"The Daily Star। ৮ ডিসেম্বর ২০১৬। সংগ্রহের তারিখ ১৪ ডিসেম্বর ২০১৬ 
  6. "Foreigners in duty-free car scam"Prothom Alo। ৮ ডিসেম্বর ২০১৬ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৪ ডিসেম্বর ২০১৬