বসুন্ধরা গ্রুপ

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
বসুন্ধরা গ্রুপ
কোম্পানি
শিল্পআবাসন উৎপাদন
প্রতিষ্ঠাকাল১৯৮৭
সদরদপ্তরঢাকা, বাংলাদেশ
পণ্যসমূহসিমেন্ট, টিস্যু, মিডিয়া, এলপিজি, কাগজ, স্টিল, বিপণী
কর্মীসংখ্যা
১৫০০০+
স্লোগানদেশ ও মানুষের জন্য
ওয়েবসাইটwww.bashundharagroup.com

বসুন্ধরা গ্রুপ বাংলাদেশের অন্যতম বৃহৎ শিল্প প্রতিষ্ঠান। ১৯৮৭ সালে এটি ইস্ট ওয়েস্ট প্রপার্টি ডেভেলপমেন্ট (প্রাঃ) লিমিটেড হিসেবে আবাসন ব্যবসার মধ্য দিয়ে তাদের যাত্রা শুরু করে।[১]

ইতিহাস[সম্পাদনা]

বসুন্ধরা গ্রুপ ১৯৮৭ সালে আবাসন ব্যবসা হিসেবে প্রতিষ্ঠাতা ও বর্তমান চেয়ারম্যান আহমেদ আকবর সোবহানের উদ্যোগে যাত্রা শুরু করে। শাফিয়াত সোবহান সানভীর বসুন্ধরা গ্রুপের ভাইস চেয়ারম্যান। বসুন্ধরা গ্রুপ এর প্রথম সফল প্রকল্পের পরে উৎপাদন, শিল্প এবং বাণিজ্যসহ বিভিন্ন নতুন খাতে বিনিয়োগ করে। ১৯৯০ এর দশকে সিমেন্ট, কাগজ, টিস্যু পেপার এবং ইস্পাত উৎপাদন, এলপি গ্যাসের বোতলজাতকরণ এবং বিতরণের পাশাপাশি আরও অনেক উদ্যোগ গ্রহন করা হয়েছিল। ২০১৪ সালের ৪ ফেব্রুয়ারি তত্ত্বাবধায়ক সরকার কর্তৃক দায়েরকৃত কর ফাঁকির মামলায় বসুন্ধরা গ্রুপের কর্মকর্তাদের আত্মসমর্পণ করার নির্দেশ দেয় বাংলাদেশ সুপ্রিম কোর্ট। [২] ০১১ সালের ১৯ ডিসেম্বর বসুন্ধরার জমির দাম নিয়ে মোহাম্মদ শাহজাহান 'জালিয়াতির' অভিযোগে বসুন্ধরার চেয়ারম্যান আহমেদ আকবর সোবহানের বিরুদ্ধে মামলা করেছিলেন। [৩] বসুন্ধরা বাংলাদেশ অর্থনৈতিক অঞ্চল কর্তৃপক্ষের কাছ থেকে বাংলাদেশের কেরানীগঞ্জে দুটি বিশেষায়িত অর্থনৈতিক অঞ্চল স্থাপনের অনুমতি পেয়েছে। [৪] ২০২০ সালে বসুন্ধরা বাংলাদেশের বৃহত্তম বিটুমিন প্লান্ট তৈরি করতে ১৪৩.৭ মিলিয়ন ডলার বিনিয়োগ করেছে। এই কারখানাটি এককভাবে বাংলাদেশকে বিটুমিন উৎপাদনে স্বয়ংসম্পূর্ণ হতে সহায়তা করবে এবং উদ্বৃত্ত বিদেশে রফতানি করা যাবে। [৫]

অঙ্গপ্রতিষ্ঠান ও পণ্যসমূহ[সম্পাদনা]

বসুন্ধরা সিটি[সম্পাদনা]

বসুন্ধরা সিটি বসুন্ধরা গ্রুপের নির্মিত দক্ষিণ এশিয়ার বৃহত্তম শপিং মল। [৬][৭] বাংলাদেশের রাজধানী ঢাকার পান্থপথে কাওরান বাজারের নিকটে অবস্থিত এই বহুতল ভবনটি আধুনিক স্থাপত্য নকশা অনুযায়ী নির্মিত হয়েছে। বসুন্ধরা সিটি ভবনটি একটি ২১ তলাবিশিষ্ট ভবন, যার নিচের ৮টি তলা বিপণী বিতানের জন্য ব্যবহার করা হয় এবং অবশিষ্ট তলাগুলি বসুন্ধরা গ্রুপের দপ্তর হিসেবে ব্যবহার করা হয়। ভবনের বিপণী বিতান অংশে প্রায় ২,৫০০টি দোকানের জায়গা রয়েছে। এছাড়াও আছে খাবারের দোকানের জন্য একটি নির্দিষ্ট তলা, মাটির নিচে বা বেসমেন্ট লেভেলে অবস্থিত একটি বড় শরীরচর্চা কেন্দ্র, একটি মাল্টিপ্লেক্স সিনেমা হল এবং এর উপরের তলাতে শিশুদের বিনোদন কেন্দ্রসহ একটি খাবারের রেস্তোরাঁ। ছাদে বাগানসহ সম্পূর্ণ শীতাতপ নিয়ন্ত্রিত এই বিপণী বিতানটি ঢাকার নগরীর আধুনিকায়নের অন্যতম প্রতীক হিসেবে বিবেচিত।

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "Bashundhara Official Profile"। ১৭ মার্চ ২০১২ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২৩ নভেম্বর ২০১৬ 
  2. "Court orders Bashundhara Group officials to surrender"The Daily Star। সংগ্রহের তারিখ ২০১৬-০৪-২০ 
  3. "Bashundhara chairman sued for 'fraud'"The Daily Star। সংগ্রহের তারিখ ২০১৬-০৪-২০ 
  4. "Bashundhara to build two economic zones"The Daily Star। ২০১৬-০৭-২৭। সংগ্রহের তারিখ ২০১৬-০৮-১১ 
  5. "Bashundhara builds Bangladesh's biggest bitumen plant"The Daily Star (ইংরেজি ভাষায়)। ২০২০-০২-২৩। সংগ্রহের তারিখ ২০২০-০৭-০২ 
  6. BBC NEWS | South Asia | Shoppers flock to Dhaka mega-mall
  7. http://www.metalworld.com/trade/aa1057928.html

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]