বশিষ্ঠাশ্রম দেবালয়

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
বশিষ্ঠাশ্রম দেবালয়
Basistha mandir.JPG
ধর্ম
অন্তর্ভুক্তিহিন্দুধর্ম
জেলাকামরূপ মহানগর জেলা
অবস্থান
অবস্থানগুয়াহাটী
দেশভারত

বশিষ্ঠাশ্রম দেবালয় আসামর গুয়াহাটী মহানগরের দক্ষিণ-পূর্বের সন্ধ্যাচল পাহাড়ে অবস্থিত এক শিব মন্দির। এই মন্দিরটি আহোম রাজা রাজেশ্বর সিংহ নির্মাণ করিয়েছিলেন[১] এবং বহু জমি দান করেছিলেন। কিংবদন্তী মতে এই আশ্রম মহর্ষি বশিষ্ঠ স্থাপন করেন। 'গঙ্গা' নামের সাথে বয়ে যাওয়া এই আশ্রম পর্যটকের জন্য এক অন্যতম আকর্ষণের কেন্দ্র।

ইতিহাস[সম্পাদনা]

'কালিকা পুরাণ' মতে একবার ব্রহ্মার পুত্র বশিষ্ঠ মুনি নিমি রাজার শাপে দেহহীন হন। নিরূপায় হয়ে বশিষ্ঠ ব্রহ্মার শরণাপন্ন হওয়াতে তাঁর উপদেশ অনুসারে সন্ধ্যাচল পাহাড়ে বিষ্ণুর তপস্যা করতে আরম্ভ করেন। তপস্যায় বিষ্ণু সন্তুষ্ট হন এবং বশিষ্ঠ সন্ধ্যাম ললিতা ও কান্তা – এই ত্রিধারা প্রবাহিত করে গঙ্গাকে নামিয়ে আনেন। ত্রিধারার সঙ্গমস্থলে গা ধুয়ে এবং জল খেয়ে মুনি পূর্বরূপ ফিরে পান। তাঁর নাম থেকে এই আশ্রমের নাম বশিষ্ঠাশ্রম হয়।[২]

আহোম রাজা রাজেশ্বর সিংহ এই স্থানে ১৯৫১-১৭৬৯ খ্রিস্টাব্দের সময়পর্বে এক শিব মন্দির নির্মাণ করান এবং আশ্রমে ৮৩৫ বিঘা জমি দান করেন।

অবস্থান[সম্পাদনা]

বশিষ্ঠাশ্রম গুয়াহাটী মহানগর থেকে প্রায় ১১ কিলোমিটার ভিতরে অবস্থিত। বেলতলা-বশিষ্ঠ পথে গড়ভঙ্গা সংরক্ষিত বনাঞ্চল পার হয়ে এই আশ্রম পাওয়া যায়। আশ্রমে প্রথমে একটি শিব মন্দির আছে এবং কাছে একটি গণেশ মন্দির আছে। আশ্রমের কাছ দিয়ে 'গঙ্গা' নামের নদী বয়ে গেছে। বশিষ্ঠের তপস্যাস্থল বলে বিশ্বাস করা একটি গুহা আশ্রমের পাঁচ কিলোমিটার মধ্যে আছে।[৩]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. Deb, Dr P S। "Shiv Temple at Basistha Ashram, Assam"ShivShankar.in। ShivShankar.in। 
  2. শান্তনু কৌশিক বরুয়া (২০১৬)। Master আসাম ইয়ের বুক ২০১৬। জ্যোতি প্রকাশন। পৃষ্ঠা ৪৮২–৪৮৩। 
  3. Prashanta। "Basistha Temple in Guwahati"। Assam Journal। ৩০ মার্চ ২০১৬ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৫ জানুয়ারি ২০১৬