প্রতিহিংসাপরায়ণ ভূত

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
সরাসরি যাও: পরিভ্রমণ, অনুসন্ধান
যাজক রাইগোর প্রতিহিংসাপরায়ণ ভূত ইঁদুরের রোগ হিসেবে প্রাদুর্ভাব হয়ে মী মন্দির ধ্বংস করে দিচ্ছে (১৮৯১)।

পুরাণেলোকসাহিত্যে, প্রতিহিংসাপরায়ণ ভূত বা প্রতিহিংসাপরায়ণ আত্মা বলতে সেই সব মৃত আত্মাকে নির্দেশ করা হয় যারা মৃত্যুর পর তাদের উপর ঘটা বিভিন্ন অবিচার যেমন; অস্বাভাবিক মৃত্যু, নিষ্ঠুরতা ও অন্যান্য অবিচারের জন্য প্রতিশোধ নিতে ফিরে আসে। এ কারণে কিছু কিছু সংস্কৃতিতে অন্ত্যেষ্টিক্রিয়া, সমাহিত করা বা শবদাহ অনুষ্ঠানগুলো গুরুত্বপূর্ণ হিসেবে বিবেচিত হয়; প্রতিহিংসাপরায়ণ ভূতদের সেই অসুখী সব ভূতও বলা হয় যাদের মৃত্যুর পর তাদের শেষকৃত্য অনুষ্ঠান বা এধরনের আচার সঠিকভাবে পালিত হয়নি।[১]

সাংস্কৃতিক পটভূমি[সম্পাদনা]

প্রাচীন বিভিন্ন সংস্কৃতিতেও প্রতিহিংসাপরায়ণ ভূতের বিশ্বাস প্রচলিত ছিল। বিভিন্ন কিংবদন্তি ও বিশ্বাস অনুসারে, এসব ভূতেরা জীবিতদের বিশ্বে লক্ষ্যহীনভাবে ও অস্থিরভাবে ঘুরে বেড়ায় এবং প্রতিশোধ নেওয়ার উত্তম সময় সন্ধান করে। যখন প্রতিশোধ নেওয়া শেষ হয়ে যায় তখন তার মৃতদের দুনিয়ায় ফিরে যায় কিন্তু কিছু কিছু ক্ষেত্রে এরা অসন্তুষ্ঠ থাকে।[২] কিছু কিছু সংস্কৃতিতে বিশ্বাস করা হয় প্রতিহিংসাপরায়ণ ভূতেরা সাধারণত নারী হয়ে থাকে; বিশ্বাস অনুসারে, যে সকল নারীদের বেঁচে থাকতে তাদের উপর অন্যায়-অত্যাচার করা হয়েছে এবং হতাশা নিয়ে মৃত্যুবরণ করেছে তারাই পরবর্তীকালে মৃত্যুর পর প্রতিহিংসাপরায়ণ ভূতে পরিণিত হয়।[৩][৪]

বিভিন্ন সংস্কৃতিতে প্রতিহিংসাপরায়ণ ভূত তাড়ানোর জন্য মন্ত্র ও তাদের হাত থেকে নিবৃত্তির জন্য সামাজিক ও ধর্মীয়ভাবে বিভিন্ন আচার অনুষ্ঠান পালন করা হয়ে থাকে। প্যরাগুয়ের উত্তরের আচি জাতিগোষ্ঠীর লোকজন প্রথাসিদ্ধ সমাধির পরিবর্তে শবদাহ সমাহিত করাকে খুবই বিপদজ্জনক মনে করে এবং এতে প্রতিহিংসাপরায়ণ ভূতের আক্রমনের ঝুঁকি রয়েছে বলে বিশ্বাস করে।[৫] যেকোন স্থানে কোন ব্যক্তি খুন হলে এবং মৃতদেহ সঠিকভাবে সমাহিত করা না হলে; মৃতদেহ পুনরায় কবর থেকে উঠানো হয় এবং পরবর্তীতে খারাপ আত্মাদের হাত থেকে বাঁচার জন্য সঠিক আচার অনুষ্ঠানের মাধ্যমে পুনরায় সমাহিত করা হয়।

বিভিন্ন দেশে সমসাময়িক চলচ্চিত্র পতিহিংসাপরায়ণ ভূতের কাহিনী নিয়ে তৈরি করা হয়েছে; যেমন, দ্য গ্রাজ, দ্য পিট এন্ড দ্য পেন্ডুলাম, দ্য ফগ, দ্য ওয়ার্ড, ক্যসাদাগা, কাল, লেফ্ট ফর ডেড, বিশ সাল বাদ, ডার্লিং, রাগিনী এমএমএস, ডার্ক স্যাডোস ও দ্য ট্রাবলসাম নাইটস চলচ্চিত্র ধারাবাহিক। এছাড়াও কিছু টেলিভিশন ধারাবাহিক যেমন, স্পুকি ভ্যালেন্টাইন, স্পুকি নাইট, কার্মেড এন্ড ঘোস্ট উইসপারার ও জনপ্রিয় থাই টেভিভিশন অপেরা রেঙ গাও। কিছু কিছু উপন্যাস যেমন, তামির ত্রিয়াদ ও তামসিন, কমিকস যেমন, জেন্টেলম্যান ঘোস্ট এন্ড জাজ ডেথ, অ্যানিমেশন ধারাবাহিক যেমন, ড্যানি ফেন্টম ও অ্যাডভেঞ্চার গেম যেমন, জো মিথোসও পতিহিংসাপরায়ণ ভূতের কাহিনী নিয়ে নির্মিত।

আরো দেখুন[সম্পাদনা]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. Kwon, Heonik (২০০৮)। Ghosts of War in Vietnam। Cambridge: Cambridge University Press। আইএসবিএন 0-521-88061-0 
  2. Kentucky's Most Haunted: The Vengeful Ghost of Carl Pruitt
  3. Henry Whitehead, The Village Gods of South India, Asian Educational Services, New Delhi 1988 (First ed. 1921), আইএসবিএন ৯৭৮-৮১-২০৬-০১৩৭-৬
  4. Xavier Romero-Frias, The Maldive Islanders, A Study of the Popular Culture of an Ancient Ocean Kingdom, Barcelona 1999, আইএসবিএন ৮৪-৭২৫৪-৮০১-৫
  5. Pierre Clastres, Chronique des indiens Guayaki. Ce que savent les Aché, chasseurs nomades du Paraguay. Plon. Paris, 1972

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]