পোকেমন

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
(পোকিমন থেকে পুনর্নির্দেশিত)
অন্য ব্যবহারের জন্য, দেখুন পোকেমন (দ্ব্যর্থতা নিরসন)
আন্তর্জাতিক মুক্তির জন্যে পোকেমনের অফিসিয়াল লোগো; "পোকেমন" মূলত জাপানী শিরোনাম "পকেট মন্সটার"-এর সংক্ষিপ্ত রূপ।

পোকেমন (ポケモン Pokemon?, /ˈpkmɒn/ POH-kay-mon[১][২]) জাপানী ভিডিও গেম কোম্পানি নিন্টেন্ডো কর্তৃক প্রকাশিত একটি মিডিয়া ফ্রেঞ্চাইজদ্য পোকেমন কোম্পানির মালিকানাধীন[৩] এই গেম ১৯৯৬ সালে সাতোশি তাজিরি কর্তৃক নির্মিত হয়। মূলত গেম ফ্রিক কর্তৃক উন্নয়নকৃত একজোড়া পরস্পর সম্পর্কযুক্ত গেম বয় রোল-প্লেইং ভিডিও গেম হিসাবে এটি মুক্তি দেয়া হয়। পোকেমন বিশ্বের দ্বিতীয় সর্বাধিক সফল এবং লাভজনক ভিডিও গেম-ভিত্তিক মিডিয়া ফ্র্যাঞ্চাইজে পরিণত হয়েছে, যা শুধুমাত্র নিন্টেন্ড'র নিজস্ব মারিও ফ্রেঞ্চাইজের পেছনে অবস্থান করছে।[৪] পরবর্তীকালে একে আনিমে, মাঙ্গা, ট্রেডিং কার্ড, খেলনা, বই, এবং অন্যান্য মাধ্যমে বিভিন্নভাবে উপস্থাপন করা হয়েছে।

ফ্রেঞ্চাইজটি ২০০৬ সালে দশম বর্ষপূর্তি পালন করে।[৫] ভিডিও গেমের ক্রমবর্ধমান বিক্রয় (ঘরোয়া কনসোল সংস্করণসহ, যেমন নিন্টেন্ডো ৬৪-এর জন্যে "হেই ইউ, পিকাচু!") ২০০ মিলিয়ন কপির অধিক দাঁড়ায়।[৬] নভেম্বর ২০০৫ সালে, ফোরকিডস এন্টারটেইনমেন্ট, যা পোকেমনের গেম-ব্যতিত অন্যান্য লাইসেন্স নিয়ন্ত্রণকারী, ঘোষণা করে যে পোকেমন প্রতিনিধিত্ব চুক্তি আর নবায়িত করা হবে না। পোকেমন ইউএসএ ইনক. (বর্তমানে দ্যা পোকেমন কোম্পানি ইন্টারন্যাশনাল), জাপানের পোকেমন কোম্পানির একটি সহায়ক প্রতিষ্ঠান; যা বর্তমানে এশিয়ার বাইরে পোকেমনের লাইসেন্স ক্রিয়া পরিচালনা করে থাকে।[৭]

নাম[সম্পাদনা]

পোকেমন নামটি জাপানি ব্র্যান্ড পকেট মন্সটার (ポケットモンスター পোকেত্তোমনসুতা?)-এর রোমান হরফে লেখা সংক্ষিপ্ত রূপ;[৮] এ-ধরণের সংকোচন জাপানে খুবই সাধারণ। পোকেমন কথাটি, পোকেমন ফ্রেঞ্চাইজকে নির্দেশ করার পাশাপাশি যৌথভাবে ৬৪৯টি কাল্পনিক প্রজাতিকেও নির্দেশ করে, যারা পোকেমন মিডিয়াতে আবির্ভাব ঘটায়। এক বচন এবং বহু বচন উভয়ে "পোকেমন" ও পৃথকভাবে প্রত্যেকটি প্রজাতির নাম অভিন্ন; তবে এই বিধিটি শুধুমাত্র ইংরেজি ব্যাকরণে বাস্তবায়িত হয়।

ধারণা[সম্পাদনা]

পোকেমন জগতের ধারণা, ভিডিও গেমস এবং পোকেমনের সাধারণ কাল্পনিক দুনিয়া উভয়ে, পোকামাকড় সংগ্রহ করার শখ থেকে আগত হয়, একটি জনপ্রিয় বিনোদনের খেলা যা পোকেমনের নির্বাহী পরিচালক সাতোশি তাজিরি ছেলেবেলায় উপভোগ করতেন। গেমসের খেলোয়ারদেড় পোকেমন প্রশিক্ষক (ইংরেজি: Pokémon Trainer) হিসেবে নিয়োজিত করা হয়, আর এ ধরণের প্রশিক্ষকদের জন্য দুটি সাধারণ লক্ষ্য (বেশীরভাগ পোকেমন গেমস-এ) হলোঃ একটি কাল্পনিক অঞ্চলের (ইংরেজি: Region) প্রাপ্তিসাধ্য সকল পোকেমন প্রজাতি সংগ্রহ করে পোকেডেক্স পূর্ণ করা, যেখানে ঐ গেমটি অংশগ্রহণ করে; আর তাদের সংগ্রহ করা পোকেমন থেকে একটি শক্তিশালী দল গঠন করা, যেন তারা অন্যান্য প্রশিক্ষকদের পোকেমন দলের সাথে প্রতিযোগিতা করতে পারে, এবং পরিণামে সবচেয়ে শক্তিশালী প্রশিক্ষক অর্থাৎ, পোকেমন নিয়ন্ত্রণকারী (ইংরেজি: Pokémon Master) হিসেবে প্রতিষ্ঠিত হতে পারে। পোকেমন সংগ্রহ, প্রশিক্ষন ও লড়াই করার এসকল বিষয় পোকেমন ফ্রেঞ্চাইজের প্রায় সকল রূপেই লক্ষণীয়, এমনকি ভিডিও গেমস, আনিমে ও মাঙ্গা সিরিজ, এবং পোকেমন ট্রেডিং কার্ড গেমেও।

পোকেমন জগতের প্রায় সব চিন্তাধারায়, একজন প্রশিক্ষক যিনি বন্য পোকেমন (ইংরেজি: Wild Pokémon) -এর মুখোমুখি হন, সেগুলোর দিকে এক ধরণের, বিশেষ ভাবে প্রস্তুতকৃত, অধিক পরিমাণে উৎপাদন যোগ্য গোলাকার যন্ত্র, যার নাম পোকেবল (ইংরেজি: Poké Ball), ছুঁড়ে মাড়ার মাধ্যমে সেগুলোকে সংগ্রহ করতে পারেন। যদি পোকেমনটি পোকেবল -এর সীমার মধ্যে থেকে পালাতে সফল না হয়, তবে ঐ পোকেমনটিকে আনুষ্ঠানিকভাবে ঐ প্রশিক্ষক এর গোলাম হিসেবে ধরে নেয়া হয়। অতঃপর, এটি তাই করবে, যা তার নতুন মালিক নির্দেশ করবে, যদি না উক্ত প্রশিক্ষক এমন অনভিজ্ঞতা প্রদর্শন করেন, যে পোকেমনটি তার নিজের ইচ্ছানুযায়ী চলতে বেশী স্বাচ্ছন্দ বোধ করবে। প্রশিক্ষকেরা তাদের যেকোনো পোকেমনকে অন্য পোকেমনের সঙ্গে অ-প্রাণঘাতী লড়াইয়ে লিপ্ত হবার জন্যে বাহিরে বের করতে পারেন; যদি বিপক্ষের পোকেমন বন্য হয়, তাহলে উক্ত প্রশিক্ষক উল্লেখ্য পোকেমনটিকে একটি পোকেবল -এর সাহায্যে সংগ্রহ করতে পারবেন, অতঃপর তিনি তার পোকেমন সংগ্রহ বৃদ্ধি করতে পারবেন। কিছু কিছু গেমসের বিশেষ পরিস্থিতি ব্যতিত, অন্য মালিকের অধিনস্থ পোকেমন সংগ্রহ করা যায় না। যদি একটি পোকেমন আরেকটি পোকেমনকে লড়াইয়ে এমনভাবে হাড়িয়ে দেয় যাতে পোকেমনটি অজ্ঞান (ইংরেজি: Faint) হয়ে যায়, তাহলে জয়ী পোকেমনটি অভিজ্ঞতা লাভ করে এবং মাঝে মাঝে নতুন পর্যায়ে উন্নীত (ইংরেজি: Level Up) হয়। উন্নীত হবার সময়ে, পোকেমনের লড়াই সম্বন্ধীয় তথ্যাবলী বা তথ্য (ইংরেজি: Stats) বৃদ্ধি পায়, যেমন আক্রমণ (ইংরেজি: Attack) এবং দ্রুততা (ইংরেজি: Speed)। কিছু সময় পর পর পোকেমন নতুন আক্রমণও (ইংরেজি: Move) শিখতে পারে, যা লড়াইয়ে কৌশল হিসেবে ব্যবহৃত হয়। তদতিরিক্ত, অনেক প্রজাতির পোকেমন আকার ও চারিত্রিকভাবে রূপান্তরিত হবার ক্ষমতা রাখে, যার মাধ্যমে সে সমধর্মী তবে আরও বেশী শক্তিশালী প্রজাতির পোকেমনে রূপান্তরিত হতে পারে; এই প্রক্রিয়াকে বলা হয়, বিবর্তন (ইংরেজি: Evolution)।

প্রকৃত সিরিজে, প্রত্যেক গেমের এক-খেলোয়ার মোড -এ প্রশিক্ষককে একটি পোকেমন দল গঠন করতে হয় যাতে তিনি অন্যান্য, খেলোয়ার অনিয়ন্ত্রিত প্রশিক্ষক (ইংরেজি: Non-player character Trainer) ও তাদের পোকেমনদের হাঁড়াতে পারেন। প্রতিটি গেম প্রশিক্ষকদের ভ্রমনের জন্যে একটি নির্দিষ্ট অঞ্চলের মধ্যে দিয়ে একটি রৈখিক পথ তৈরি করে, যে ভ্রমনে তিনি বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ ঘটনা সম্পূর্ণ করবেন এবং পথে একাধিক প্রতিদ্বন্দ্বী -এর সঙ্গে লড়াই করবেন। প্রত্যেক গেম-এ আটজন শক্তিশালী প্রশিক্ষকদের বিশেষ ভাবে তুলে ধরা হয়, যাদেরকে বলা হয় জিম অধিনায়ক (ইংরেজি: Gym Leader)। প্রশিক্ষকদের জন্যে তাঁদের হারানো, গেমের অগ্রগতির জন্যে খুবই গুরুত্বপূর্ণ। পুরস্কার হিসেবে প্রশিক্ষককে একটি জিম নিদর্শন (ইংরেজি: Gym Badge) দেয়া হয়। কেবল মাত্র আটটি জিম নিদর্শন সংগ্রহ করার পরই প্রশিক্ষক ঐ অঞ্চলের পোকেমন সংঘকে (ইংরেজি: Pokémon League) লড়াইয়ে আহ্বান (ইংরেজি: Challenge) করতে পারে, যেখানে চারজন অত্তাধিক প্রতিভাবান পোকেমন প্রশিক্ষক, যাদেরকে যৌথভাবে "অভিজাত চার" (ইংরেজি: Elite Four) বলা হয়, প্রশিক্ষককে চারটি পোকেমন লড়াইয়ে স্বাগতম করেন। যদি উক্ত প্রশিক্ষক এই চারকে রামধোলাই দিতে সক্ষম হন, তবে তাকে ঐ অঞ্চলের বিজয়ীর সঙ্গে লড়াইয়ে নামতে হবে, যে অভিজাত চারকে পূর্বে হারিয়ে ছিল। যেই প্রশিক্ষকই এই শেষ লড়াইয়ে জয়ী হয়, তিনি ঐ অঞ্চলের নতুন বিজয়ী হিসেবে প্রতিষ্ঠিত হন এবং পোকেমন নিয়ন্ত্রণকারী নামে ভূষিত হন।

পোকেমনের তালিকা[সম্পাদনা]

মূল নিবন্ধ: পোকেমনের তালিকা

ভিডিও গেমসমূহ[সম্পাদনা]

প্রজন্মসমূহ[সম্পাদনা]

সর্বপ্রথম যে পোকেমন গেম সমূহ প্রস্তুত করা হয়, সেগুলো ছিল সৈনাপত্যবিদ্যা বিষয়ক এক ধরণের চরিত্র-নির্বাহী খেলা বা রোল-প্লেয়িং গেম (আরপিজিএস), যা গেম বয়ের জন্যে তৈরি করেন সাতোশি তাজিরি। এই আরপিজিএস খেলাসমূহের পরবর্তী খেলাসমূহ তাঁদের অনুফল-গুলো এবং ইংরেজি অনুবাদগুলো এখনও প্রধান পোকেমন গেম হিসেবে বিবেচিত হয়। আর সিরিজের বেশীরভাগ অনুরাগীরা এই গেমগুলোকেই অর্পণ করেন, যখন তারা বলেন, পোকেমন গেমস। দ্যা পোকেমন কোম্পানি ইন্টারন্যাশনাল -এর তত্ত্বাবধানে থাকা পোকেমনের সকল অনুমতিপ্রাপ্ত বিষয়সম্পত্তি অমার্জিতভাবে প্রজন্ম দিয়ে ভাগ করা হয়। এই প্রজন্মগুলো অমার্জিতভাবে মুক্ত হবার কালানুক্রমে বিভক্ত; কিছু বছর পর পর, যখন আনুষ্ঠানিকভাবে প্রধান আর.পি.জি. সিরিজের একটি অনুফল মুক্তি পায়, যাতে আছে নতুন পোকেমন, চরিত্র, এবং খেলার ধারণা, তখন ঐ অনুফলটি পোকেমন ফ্রেঞ্চাইজ -এর একটি নতুন প্রজন্ম বলে বিবেচিত হয়। প্রধান গেমসমূহ এবং তাদের প্রতিমাগুলো, এনিমি, ম্যাঙ্গা, এবং ট্রেডিং কার্ড গেম সবই নতুন পোকেমন সম্পত্তি দ্বারা আধুনিকায়ন করা হয়ে থাকে, যখন একটি নতুন প্রজন্ম শুরু হয়। ফ্রেঞ্চাইজটি তার ষষ্ঠতম প্রজন্ম শুরু করে জাপানে, অক্টোবর ১২, ২০১৩ সালে।

লেবেল ৫ বাল্বাসোর-এর যুদ্ধ এবং পোকেমন ইয়েলো লেবেল ৫-এর চারমেন্ডার[৯]

অন্যান্য মাধ্যমে[সম্পাদনা]

আনিমে ধারাবাহিক[সম্পাদনা]

মূল নিবন্ধ: পোকেমন (আনিমে)

চলচ্চিত্র[সম্পাদনা]

এখানে মূল জাপানি মুক্তির বছর অনুযায়ী চলচ্চিত্রের তালিকা রয়েছে:

  1. পোকেমন: দ্য ফার্স্ট মুভি—মিউটো স্ট্রাইকস বেক (১৯৯৮)
  2. পোকেমন: দ্য মুভি ২০০০—দ্য পাওয়ার অফ ওয়ান (১৯৯৯)
  3. পোকেমন ৩: দ্য মুভি—স্পিল অফ দ্য আনঔন (২০০০)
  4. পোকেমন ফরেভার—সেলিবি: ভয়েস অফ দ্য ফরেস্ট (২০০১)
  5. পোকেমন হিরোস (২০০২)
  6. পোকেমন: জিরাচি উইশ মেকার (২০০৩)
  7. পোকেমন: ডেসটিনি ডিওক্সিস (২০০৪)
  8. পোকেমন: লুকারিও অ্যান্ড দ্য মায়েস্ট্রি অফ মিউ (২০০৫)
  9. পোকেমন রেঞ্জার অ্যান্ড দ্য টেম্পল অফ দ্য সি (২০০৬)
  10. পোকেমন: দ্য রাইজ অফ ডার্করাই (২০০৭)
  11. পোকেমন: জিরান্টিনা অ্যান্ড দ্য স্কাই ওয়ারিওর (২০০৮)
  12. পোকেমন: আর্কেস অ্যান্ড দ্য জুয়েল অফ লাইফ (২০০৯)
  13. পোকেমন: জোরোআর্ক: মাস্টার অফ ইলুশনস (২০১০)
  14. পোকেমন দ্য মুভি: ব্ল্যাক—ভিকটিনি অ্যান্ড রেশিরাম অ্যান্ড
    পোকেমন দ্য মুভি: হোয়াইট—ভিকটিনি অ্যান্ড জেকরোম
    (২০১১)
  15. পোকেমন দ্য মুভি: কায়রেম ভার্সেস দ্য সোর্ড অফ জাস্টিস (২০১২)
  16. পোকেমন দ্য মুভি: জেনেসেক্ট অ্যান্ড দ্য লেজেন্ড অ্যায়োকেন্ড (২০১৩)
  17. পোকেমন দ্য মুভি: ডাইয়েন্সি অ্যান্ড দ্য কোনোন অফ ডেসট্রাকশন (২০১৪)

আরো দেখুন[সম্পাদনা]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

বই
টীকা
  1. "The ABC Book, A Pronunciation Guide"NLS Other Writings। NLS/BPH। জানুয়ারি ৭, ২০১৩। সংগৃহীত আগস্ট ১০, ২০১৩ 
  2. টেমপ্লেট:Cite video game
  3. "Company History"ポケットモンスターオフィシャルサイト। The Pokémon Company। সংগৃহীত ২১ জুলাই ২০১৪ 
  4. Boyes, Emma (জানুয়ারি ১০, ২০০৭)। "UK paper names top game franchises"GameSpot। GameSpot UK। সংগৃহীত ফেব্রুয়ারি ২৬, ২০০৭ 
  5. "Pokemon 10-Year Retrospective"। IGN। সংগৃহীত আগস্ট ১৯, ২০০৯ 
  6. "Pokémon Black Version and Pokémon White Version for Nintendo DS coming to Europe in Spring 2011" (Press release)। Nintendo। মে ২৯, ২০১০। সংগৃহীত মে ২৮, ২০১০ 
  7. Carless, Simon (ডিসেম্বর ২৩, ২০০৫)। "Pokemon USA Moves Licensing In-House"। Gamasutra। সংগৃহীত আগস্ট ১০, ২০১৩ 
  8. Swider, Matt। "The Pokemon Series Pokedex"। Gaming Target। সংগৃহীত ফেব্রুয়ারি ২৮, ২০০৭ 
  9. MacDonald, Mark; Brokaw, Brian; Arnold; J. Douglas; Elies, Mark (১৯৯৯)। Pokémon Trainer's Guide। Sandwich Islands Publishing। পৃ: ৭৩। আইএসবিএন 0-439-15404-9 

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]