পেশাওয়ারের যুদ্ধ (১০০১)

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
পেশাওয়ারের যুদ্ধ
তারিখ২৭ নভেম্বর ১০০১
অবস্থান
ফলাফল গজনভিদের বিজয়
যুধ্যমান পক্ষ
গজনভি সাম্রাজ্য কাবুল শাহি
সেনাধিপতি ও নেতৃত্ব প্রদানকারী
মাহমুদ গজনভি জয়পাল
শক্তি
১৫,০০০ অশ্বারোহী
অজ্ঞাত সংখ্যক আফগান ও গাজি
১২,০০০ অশ্বারোহী
৩০,০০০ পদাতিক
৩০০ হাতি
হতাহত ও ক্ষয়ক্ষতি
অজ্ঞাত ৫,০০০-১৫,০০০ নিহত

পেশাওয়ারের যুদ্ধ ১০০১ সালের ২৭ নভেম্বর পেশাওয়ারের নিকটে সুলতান মাহমুদ গজনভিজয়পালের বাহিনীর মধ্যে সংঘটিত হয়। যুদ্ধে জয়পাল পরাজিত ও বন্দী হন। পরে তিনি অপমানিত বোধ করে চিতার আগুনে ঝাপ দিয়ে আত্মহত্যা করেন। এই বিজয় ছিল সুলতান মাহমুদের অন্যতম প্রধান বিজয়।

পটভূমি[সম্পাদনা]

সবুক্তগিন কান্দাহার জয় করার পর হিন্দু শাহি রাজ্যের সাথে তার লড়াই হয়।[১] হিন্দু শাহি শাসক জয়পাল সবুক্তগিনকে আক্রমণ করার পর পরাজিত হন। পরবর্তীতে তিনি ১,০০,০০০ সৈনিকের বাহিনী নিয়ে পুনরায় আক্রমণ করেন কিন্তু পরাজিত হন।[২] লাগমান বিধ্বস্ত হয় এবং কাবুলজালালাবাদ গজনভিদের অধিকারে আসে। ৯৯৭ সালে মাহমুদ গজনভি সিংহাসনে বসেন। ১০০১ সালে তিনি ১৫,০০০ অশ্বারোহী এবং আফগান ও গাজিদের বড় সেনাদল নিয়ে পেশাওয়ার পৌছান।[১]

যুদ্ধ[সম্পাদনা]

আল-উতবি রচিত তারিখ ইয়ামিনি গ্রন্থে গজনভি ও শাহি রাজ্যের লড়াইয়ের বিবরণ রয়েছে।[৩] আল-উতবির মতে মাহমুদ পেশাওয়ারে পৌছার পর শহরের বাইরে তাবু স্থাপন করেন। অতিরিক্ত সৈনিকের অপেক্ষায় জয়পাল আক্রমনে দেরী করছিলেন। এরপর মাহমুদ আক্রমণের সিদ্ধান্ত নেন। জয়পাল তার অশ্বারোহী ও হস্তীবাহিনীকে আক্রমণের জন্য পরিচালনা করেন কিন্তু তার বাহিনী পরাজিত হয়।[৪] জয়পাল সপরিবারে বন্দী হন।

পরবর্তী অবস্থা[সম্পাদনা]

বড় অঙ্কের মুক্তিপণের বিনিময়ে জয়পালের পরিবারের সদস্যদের ছেড়ে দেয়া হয়। কিন্তু পরাজয়ের কারণে জয়পাল অপমানিত বোধ করে এবং চিতার আগুনে ঝাপ দিয়ে আত্মহত্যা করেন।[৫]

পরবর্তীতে মাহমুদ সিন্ধু অঞ্চল জয় করেন এবং ১০০৯ সালে জয়পালের পুত্র আনন্দপালকে যুদ্ধে পরাজিত করেন। এরপর তিনি লাহোরমুলতান জয় করেন।

আরও দেখুন[সম্পাদনা]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. Satish Chandra। Medieval India: From Sultanat to the Mughals-Delhi Sultanat (1206–1526) Part 1 (3rd সংস্করণ)। Har-Anand Publication Pvt Ltd। পৃষ্ঠা 17–18। আইএসবিএন 8124105227 
  2. Sir H. M. Elliot (১৮৬৯)। "Chapter II, Tarikh Yamini or Kitabu-l Yamini by Al Utbi"The History of India, as Told by Its Own Historians. The Muhammadan Period। Trubner and Co। পৃষ্ঠা 18–24। 
  3. Pradeep Barua (২০০৬)। The State At War In South Asia। University of Nebraska Press। পৃষ্ঠা 25। আইএসবিএন 0-8032-1344-1 
  4. Sir H. M. Elliot (১৮৬৯)। "Chapter II, Tarikh Yamini or Kitabu-l Yamini by Al Utbi"The History of India, as Told by Its Own Historians. The Muhammadan Period। Trubner and Co। পৃষ্ঠা 24–26। 
  5. Sir H. M. Elliot (১৮৬৯)। "Chapter II, Tarikh Yamini or Kitabu-l Yamini by Al Utbi"The History of India, as Told by Its Own Historians. The Muhammadan Period। Trubner and Co। পৃষ্ঠা 27।