পূরবী দত্ত

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
শ্রীমতি পূরবী দত্ত
Portrait of Srimati Purabi Dutta.jpg
শ্রীমতি পূরবী দত্ত
প্রাথমিক তথ্য
জন্ম(১৯৪২-০৩-১৭)১৭ মার্চ ১৯৪২
কলকাতা, পশ্চিমবঙ্গ, ভারত
মৃত্যু১ ডিসেম্বর ২০১৩(2013-12-01) (বয়স ৭১)
ধরননজরুল গীতি
পেশাগায়িকা, নেপথ্য কণ্ঠশিল্পী

পূরবী দত্ত (ইংরেজি: Purabi Dutta ) জন্ম: ১৭ মার্চ ১৯৪২) একজন ভারতীয় গায়িকা। তিনি কলকাতায় বসবাস করতেন এবং বাংলা ভাষাতেই গান গাইতেন, মূলত তিনি নজরুল গীতি গাওয়ার জন্য বিখ্যাত।

প্রারম্ভিক জীবন[সম্পাদনা]

পূরবী দত্ত বিখ্যাত শাস্ত্রীয় কণ্ঠশিল্পী বিভূতি দত্তের কন্যা ছিলেন, তাই বাড়িতেই ছোট বয়স থেকেই তার প্রশিক্ষণ শুরু হয়েছিল। ১৯৪৬ সালে, মাত্র চার বছর বয়সে, তিনি চেতলা মুরারি স্মৃতি সংগীত সম্মিলনী আয়োজিত সর্বভারতীয় সংগীত প্রতিযোগিতায় অংশগ্রহণ করেছিলেন [১] যেখানে তিনি তার গানের জন্য রৌপ্য ট্রফি জিতেছিলেন।[২]

সঙ্গীত জীবন[সম্পাদনা]

পূরবী দত্ত শাস্ত্রীয় সঙ্গীতের শিল্পী হলেও মূলত তিনি নজরুল গীতি গাওয়ার জন্য বিখ্যাত।[৩] তার প্রারম্ভিক দিনগুলিতে তিনি কলকাতার অল ইন্ডিয়া রেডিওর বিভিন্ন প্রোগ্রামের সাথে যুক্ত ছিলেন এবং তার সংগীত জীবনের বেশিরভাগ গান রেকর্ড ওখানেই হয়েছিল। যার মধ্যে বেশিরভাগ ছিল নজরুল গীতি। তিনি সারাজীবন নিঃস্বার্থ নজরুল গীতির প্রশিক্ষণে আত্মনিয়োগ করেছিলেন। বহু বছর ধরে তিনি গড়িয়াহাটের "বানি চক্র" এবং পরবর্তীকালে "বেঙ্গল মিউজিক কলেজ" -এর সাথে যুক্ত ছিলেন। [৪] যেখানে তিনি হেমন্ত মুখোপাধ্যায়, চিন্ময় চট্টোপাধ্যায় এবং অখিলবন্ধু ঘোষ প্রমুখের সাথে অধ্যাপনা করেছিলেন। তিনি পণ্ডিত জ্ঞানপ্রকাশ ঘোষ, বিমান মুখোপাধ্যায়, মানবেন্দ্র মুখোপাধ্যায়, অধীর বাগচি এবং বাংলার অন্যান্য বিশিষ্ট শিল্পী ও গায়কদের খুব কাছের মানুষ ছিলেন। ১৯৫০ এবং '৬০ এর দশকে তিনি অল ইন্ডিয়া রেডিওর সাথে যুক্ত ছিলেন এবং বিভিন্ন প্রোগ্রামে গান করেছিলেন। [৫]

নজরুল গীতিতে পূরবী দত্তের অ্যালবামগুলি খুব জনপ্রিয় হয়েছিল। অ্যালবামের কয়েকটি শিরোনাম নিচে উল্লেখ করা হয়েছে:

  • ১৯৭৪ কাজী নজরুলের গান - সারেগামা
  • ১৯৭৫ কাজী নজরুলের গান - সারেগামা
  • ১৯৮০ ভ্যালেন্টাইন স্পেশাল - বাংলা রোম্যান্টিক নজরুলগীতি
  • ১৯৮২ হালুদ গন্দর ফুল
  • ২০১৪ ছাড় ছাড় আঁচল
  • ২০১৪ ঝুম ঝুম ঝুমরা নাচতে
  • ২০১৪ শিউলি তোলে ভোরবেলা - আইএনআরইসিও

প্রায় দের বছর নিজেকে সবার থেকে দূরে রাখবার পর ২০০৪ সালের এপ্রিলে পূরবী দত্ত বাংলা সংগীত মেলার মঞ্চে তিনি আরেকবার আত্মপ্রকাশ করেছিলেন।[৬] তিনি দুটি গান গেয়েছিলেন:"মনে পরে আজ সে কোন জনমে" এবং তার পর "নিরন্ধ্র মেঘে মেঘে অন্ধ গগন।"

দেহত্যাগ[সম্পাদনা]

রবিবার, ১ ডিসেম্বর ২০১৩,[৭] তার সংগীত জগত থেকে অনেক দূরে তিনি চলে যান, তার সোনারপুরের বাড়িতে শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেছিলেন। তিনি তার গড়িয়াহাটের বাড়ি থেকে চলে আসার পর এই বাড়িতে থাকতেন, জীবনের শেষ দিন অবধি। তার মৃত্যুর পর "কলকাতা ২৪ এক্স ৪ নিউজ" চ্যানেল নিম্নলিখিত লেখাটি প্রকাশ করেছিল:

"প্রয়াত হলেন প্রবাদ-প্রতীম শিল্পী পূরবী দত্ত৷ রবিবার সকালে মৃত্যু হয় তাঁর৷ গানের জগতে বিশেষত নজরুল গীতিতেই সুনাম অর্জন করেছিলেন এই শিল্পী৷ তবে শুধু নজরুল গীতি নয়, সময়ের সঙ্গে নিজেকে পরিবর্তন করে কিছু আধুনিক গানও গেয়েছিলেন এই শিল্পী৷ কিশোরী বয়স থেকেই নজরুল গীতিতে পারদর্শীতা লাভ করেছিলেন পূরবী দত্ত৷ বিশিষ্ট শিল্পীর মৃত্যুতে গভীর শোকপ্রকাশ করছেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়৷"

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "Murari Smriti"chetlamurarismritisangeetsammilani.com। সংগ্রহের তারিখ ২০১৭-০৯-১০ 
  2. "Murari Smriti Facebook"facebook.com/pg/CHETLAMURARISMRITISANGEETSAMMILANI। সংগ্রহের তারিখ ২০১৭-০৯-১০ 
  3. "বাংলা সংগীত"jagobikrampur.com। সংগ্রহের তারিখ ২০১৭-০৯-১০ [স্থায়ীভাবে অকার্যকর সংযোগ]
  4. "Bengal Music College"bengalmusiccollege.org। সংগ্রহের তারিখ ২০১৭-০৯-১০ 
  5. Chattopadhyay, Alok, সম্পাদক (২০১৪)। Pandit Jnanprakash Ghosh। Ajkal Publishers Pvt. Ltd.। আইএসবিএন 978-81-7990-159-5 
  6. "Yesterday Once More"telegraphindia.com। সংগ্রহের তারিখ ২০১৭-০৯-১০ 
  7. "Chief Minister's Office"wbcmo.gov.in/। ২০১১-০৫-১৯ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০১৭-০৯-১০