পাবলো এসকোবার

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
পাবলো এসকোবার
Pablo Escobar Mug.jpg
১৯৭৭ সালে মেদেয়িন কন্ট্রোল এজেন্সি কর্তৃক গৃহীত পাবলো এসকোবারের একটি মুখের ছবি।
জন্মপাবলো এমিলিও এসকোবার গভিরিয়া
(১৯৪৯-১২-০১)১ ডিসেম্বর ১৯৪৯
রিওনেগ্রো, কলম্বিয়া
মৃত্যু২ ডিসেম্বর ১৯৯৩(১৯৯৩-১২-০২) (৪৪ বছর)
মেদেয়িন, কলম্বিয়া
মৃত্যুর কারণশুটিং
অন্য নাম
  • ডন পাবলো (স্যার পাবলো)
  • এল পাদরিনো (দ্য গডফাদার)
  • এল পাট্রন (দ্য বস)
  • এল সেনোর (দ্য লর্ড)
  • এল ম্যাজিকো (দ্য ম্যাজিশিয়ান)
  • এল পাবলিতো (লিটল পাবলো)
  • এল যার দে লা কোকেইনা (দ্য স্যার অব কোকেইন)
পেশামেদেয়িন কার্টেলের প্রতিষ্ঠাতা ও প্রধান, এবং রাজনীতিবিদ
মোট সম্পত্তিইউএস$৩০ বিলিয়ন (১৯৯৩ আনুমানিক)
দাম্পত্য সঙ্গীমারিয়া ভিক্টোরিয়া হেনো (১৯৭৬–১৯৯৩; তাঁর মৃত্যু)
সন্তান
দণ্ডাদেশের কারণমাদক পাচার ও চোরাচালান, গুপ্তহত্যা, বোমানিক্ষেপ, ঘুষ দেওয়া বা নেওয়া, কালোবাজারি, হত্যা

পাবলো এমিলিও এসকোবার গভিরিয়া (স্পেনীয় উচ্চারণ: [ˈpaβ̞lo eˈmiljo eskoˈβ̞aɾ ɣ̞aˈβ̞iɾja]; ১ ডিসেম্বর ১৯৪৯ – ২ ডিসেম্বর ১৯৯৩) ছিলেন একজন কলম্বীয় মাদক সম্রাট (ড্রাগ লর্ড) এবং মাদক সন্ত্রাস। তার ড্রাগ কার্টেলটি তার কর্মজীবনের উচ্চতায় মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে আনুমানিক ৮০% কোকেনের চোরাচালান সরবরাহ করেছিল, যা তার ব্যক্তিগত আয় বছরে $২১.৯ বিলিয়ন মার্কিন ডলারে পরিণত করেছিল।[১][২] তাকে প্রায়ই কোকেনের রাজা বলা হত এবং "ইতিহাসের সবচেয়ে ধনী অপরাধী" ছিলেন, জানামতে ৯০'এর গোড়ার দিকে তাঁর সম্পদের পরিমান ছিল ইউএস$২৫ এবং ইউএস$৩০ বিলিয়ন ডলারের মাঝামাঝি (২০১৭ এর প্রায় $৪৮.৫ এবং $৫৬ বিলিয়নের সমমূল্য),[৩][৪] যা তাকে তার যুগের বিশ্বের অন্যতম সবচেয়ে ধনী ব্যক্তি করে তোলে।[৫][৬]

এসকোবার রিওনেগ্রো, কলম্বিয়া-এ জন্মগ্রহণ করেন, এবং মেদেয়িনের কাছাকাছি বেড়ে ওঠেন। তিনি মেদেয়িনের ইউনিভার্সিড অটোনোমা লাতিনোআমেরিকানায় অল্পসময় পড়াশোনা করেছিলেন কিন্তু ডিগ্রী ছাড়া সেখান থেকে বের হয়ে যান; তিনি অপরাধমূলক কর্মকাণ্ডে অংশগ্রহণ করতে শুরু করেন নিষিদ্ধ সিগারেট এবং জাল লটারি টিকিট বিক্রি করে, এবং তিনি মোটর গাড়ির চুরিতে অংশ নেন। ১৯৭০-এর দশকে, তিনি বিভিন্ন নিষিদ্ধ চোরাকারবারিদের জন্য কাজ শুরু করেন, নিজে কোকেইন বিক্রি শুরু করার আগে মুক্তিপণের জন্য প্রায়শই মানুষদের অপহরণ করতেন, পাশাপাশি ১৯৭৫ সালে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের মধ্যে প্রথম চোরাচালান রুট স্থাপন করেন। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে মাদক বাজারে কোকেইনের ক্রমবর্ধমান চাহিদার কারণে তাঁর অনুপ্রবেশ দ্রুত বর্ধিত হয়েছিল; এবং, ১৯৮০ এর দশকে, আনুমানিক ৭০ থেকে ৮০ টন কোকেইন কলম্বিয়া থেকে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে পাঠানো হতো। তার মাদক নেটওয়ার্কটি সাধারণত মেদেয়িন কার্টেল নামে পরিচিত ছিল, যা প্রায়শই বিদেশী এবং বিদেশী প্রতিদ্বন্দ্বী কার্টেলগুলির সাথে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করে, যার ফলে পুলিশ কর্মকর্তা, বিচারক, স্থানীয় ও বিশিষ্ট রাজনীতিবিদ হত্যার মতো ঘটনা ঘটে।

১৯৮২-এ, "লিবারেল বিকল্প" আন্দোলনের অংশ হিসেবে এসকোবারকে কলম্বিয়ার চেম্বার অব রিপ্রেজেন্টেটিভস এর বিকল্প সদস্য নির্বাচিত করা হয়। এর মাধ্যমে, তিনি পশ্চিম কলম্বিয়ার ঘরবাড়ি ও ফুটবল মাঠ নির্মানের জন্য দায়ীত্বে ছিলেন, যার ফলে তিনি যেসব নগরগুলোতে ঘুরে বেড়াতেন সেখানের স্থানীয়দের মধ্যে উল্লেখযোগ্য জনপ্রিয়তা অর্জন করেন। তবে, কলম্বিয়া বিশ্বের মানুষ হত্যার রাজধানী হয়ে ওঠে, এবং এসকোবার কলম্বীয় ও আমেরিকান সরকার কর্তৃক নিন্দৃত হয়েছিলেন ।[৭] ১৯৯৩-এ, তাঁর ৪৪ তম জন্মদিনের একদিন পরে কলম্বিয়ার জাতীয় পুলিশ এসকোবারকে গুলি করে হত্যা করেছিল।[৮][৯]

প্রারম্ভের জীবন[সম্পাদনা]

মেদেয়িন শহর, যেখানে এসকোবার বড় হয়ে ওঠে এবং তার অপরাধমূলক কর্মজীবন শুরু করে।

পাবলো এমিলিও এসকোবার গভিরিয়া কলম্বিয়ার আন্তিওকুইয়া বিভাগের রিউনেগ্রো-এ ১ ডিসেম্বর ১৯৪৯-এ জন্মগ্রহণ করেন। তিনি কৃষক পিতা আবেল দে জেসুস দারি এসকোবর ইচেভারি (১৯১০–২০০১) এবং প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষিকা হেমিল্ডা দে লস ডলোরেস গভিরিয়া বেরিও (মৃত্যু. ২০০৬) এর সাত সন্তানের তৃতীয় সন্তান ছিলেন।[১০][১১][১২] মেদেয়িনের নিকটবর্তী শহরটিতে বেড়ে উঠা, এসকোবারের কিশোর বয়সেই তার অপরাধমূলক কর্মজীবন শুরু করে বলে মনে করা হয়, গোপনে সমাধি শিলা চুরি করে সেগুলোকে গুঁড়ো বানিয়ে স্থানীয় চোরাকারবারিদের কাছে সেগুলো পুন:বিক্রি করতেন। তাঁর ভাই, রবার্তো এসকোবার, এটি অস্বীকার করেন, পরিবর্তে দাবি যে সমাধি শিলাগুলো কবরস্থান মালিকদের থেকে এসেছিলো যেগুলোর দেখাশুনার জন্য লোকেরা অর্থ পরিশোধ করতো নাহ , এবং তার একজন আত্মীয় ছিল যার একটি স্মৃতিস্তম্ভের ব্যবসা ছিল।[১৩] এসকোবারের ছেলে, সেবাস্তিয়ান মারোকুইন, দাবি করেন তাঁর বাবার অপরাধে যুক্ত হওয়া শুরু হয় একটি জাল হাই স্কুল ডিপ্লোমা বিক্রির অনুশীলনের মাধ্যমে,[৬] সেই জাল করা ডিপ্লোমা সনদগুলো ছিলো ইউনিভার্সিড অটোনোমা লাতিনোআমেরিকানার। এসকোবার অল্প সময়ের জন্য বিশ্ববিদ্যালয়ে অধ্যয়নরত ছিলেন, কিন্তু ডিগ্রী অর্জন ছাড়াই তা ত্যাগ করেন।।[১৪]

এসকোবার অবশেষে অস্কার বেনিল আগুয়েরের সাথে অনেক অপরাধমূলক কর্মকান্ডে জড়িত হয়েছিলেন, রাস্তায় ঘোরাঘুরি করা, নিষিদ্ধ সিগারেট বিক্রি, জাল লটারি টিকিট বিক্রি এবং গাড়ি চুরি করার মতো অপকর্মে যুক্ত হন।[১৫] ১৯৭০-এর দশকের শুরুতে, মাদক বাণিজ্যে যুক্ত হওয়ার পূর্বে, তিনি চোর ও দেহরক্ষী হিসেবে ভূমিকা পালন করেন, মেদেয়িনের এক কার্যনির্বাহীকে অপহরন করে মুক্তিপনের মাধ্যমে $১০০,০০০ ডলার আয় করেন।[১৬] এসকোবার আলবারো প্রিয়েতো এর জন্য কাজ করতেন, যিনি ছিলেন মেদেয়িনের একজন নিষিদ্ধ চোরাকারবারি। মাত্র ২২ বছর বয়সেই তিনি ১ মিলিয়ন কলম্বীয় পেসো উপার্জন করে ফেলেন।[১৭] এসকোবার বিখ্যাত তাঁর ২৬ বছর বয়সেই তাঁর ব্যাংক ডিপোজিটে ১০০ মিলিয়ন কলম্বীয় পেসো (৩ মিলিয়ন মার্কিন ডলার) অর্থ জমা করার জন্য।[১৮]

অপরাধ কর্মজীবন[সম্পাদনা]

কোকেইন পরিবেশন[সম্পাদনা]

আন্তর্জাতিক মাদক রুট।

দ্য একাউন্ট্যান্ট'স স্টোরি-এ, রবার্তো এসকোবার (পাবলো এসকোবারের ভাই) আলোচনা করেছেন যেভাবে পাবলো এসকোবার মধ্যবিত্ত সরলতা এবং অস্পষ্টতা থেকে বিশ্বের ধনী পুরুষদের একজনে উত্থাপিত হয়েছেন। ১৯৭৫-এর শুরুতে, পাবলো তার কোকেইন অপারেশনের বিকাশ শুরু করে, বেশ কয়েকবার বিমান উড়িয়ে, প্রধানত কলম্বিয়া ও পানামার মধ্যে, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের চোরাচালান রুট বরাবর। তার ছেলের মতে পরে তিনি, লারজেট এবং ছয়টি হেলিকপ্টার সহ পনেরটি বড় বিমান কিনেছিলেন, পাবলোর একজন প্রিয় বন্ধু বিমানের অবতরণের সময় মারা যান এবং বিমানটি ধ্বংস হয়ে যায়। পাবলো বিমানটিকে স্ক্র্যাপের অংশ থেকে পুনর্নির্মিত করে সংরক্ষণ করে রেখেছিলেন এবং পরে তার খামারের হ্যাসিন্দা ন্যপোলস এর দিকে একটি গেটের উপরে এটিকে ঝুলিয়েছিল।

মে ১৯৭৬-এ এসকোবার এবং তার কিছু লোক ইকুয়েডরের থেকে ৩৯ পাউন্ড (১৮ কেজি) কোকেইন নিয়ে মেদেয়িন ফেরার পথে গ্রেপ্তার হন। প্রাথমিকভাবে, পাবলো মেদেয়িনের বিচারকদের ঘুষ দেওয়ার চেষ্টা করেছিল, যারা তার বিরুদ্ধে মামলা করেছিল, এবং তিনি ব্যর্থ হয়েছিলেন। কয়েক মাস ধরে আইনি বিদ্রোহের পর, তিনি দুই গ্রেপ্তার কর্মকর্তার খুনের আদেশ দেন এবং মামলাটি পরে বাদ দেওয়া হয়।[১৯]

রবার্তো এসকোবার বর্ণনা করেন যে পাবলো কেবল মাদক ব্যবসায়ের মধ্যে পড়ে গিয়েছিল কারণ অন্যান্য ধরনের নিষিদ্ধ জিনিসের ব্যবসা ট্রাফিকের জন্য খুব বিপজ্জনক হয়ে উঠেছিল। তখন সেখানে কোনও ড্রাগ কার্টেল ছিল না এবং কেবলমাত্র কয়েকটি ড্রাগ ব্যারন ছিল, পাবলো এটিকে প্রবাহমান এলাকা হিসাবে দেখেছিল, যা তিনি নিজের বানাতে চেয়েছিলেন। পেরুতে, পাবলো কোকেইন পেস্ট কিনতে পারতো, যেগুলোকে মেদেলিনের দুই-কক্ষের ঘরের একটি পরীক্ষাগারে কোকেইনের গুড়োতে রুপান্তর করতে পারতেন। তাঁর প্রথম ভ্রমনে, পাবলো ৩০ পাউন্ড (১৪ কেজি) পেস্ট কিনেছিল, যেটি ছিল তাঁর নিজের কোকেইন সাম্রাজ্য প্রতিষ্ঠার দিকে প্রথম পদক্ষেপ। প্রথমে তিনি পুরোনো প্লেনে করে চোরাচালান করতেন, প্রতি ট্রিপে একজন পাইলট মার্কিন $৫০০,০০০ ডলার নিয়ে ফিরে আসতে পারতেন, নির্ভর করতো চোরাচালানের পরিমানের উপর।[২০]

বিশিষ্টতার উত্থান[সম্পাদনা]

পাউডার কোকেইন তৈরি, প্যাকেজ এবং বিক্রি পাবলো এসকোবার এবং তার সহযোগীদের দ্বারা করা হতো এবং অবশেষে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে ড্রাগ বাজারে বিতরণ করা হতো।

শীঘ্রই, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে কোকেইনের চাহিদা বাড়ছিলো, এবং এসকোবার দক্ষিণ ফ্লোরিডা, ক্যালিফোর্নিয়া, এবং দেশের অন্যান্য অংশে আরো চোরাচালান, রুট এবং বিতরণ নেটওয়ার্ক সংগঠিত করেছিলো। তিনি এবং কার্টেলের সহ-প্রতিষ্ঠাতা কার্লোস লেহদার বাহামা-এ একটি নতুন ট্রান্স-চালান কেন্দ্রের বিকাশের জন্য একত্রে কাজ করেছিলেন, ২২০ মাইল (৩৫০ কিমি) ফ্লোরিডা উপকূল দক্ষিণপূর্বে অবস্থানরত নরম্যান'স কেই নামক একটি দ্বীপে। তার ভাইয়ের মতে, এসকোবার নরম্যান'স কেই কিনেননি; পরিবর্তে, এটি লেহদার এর একমাত্র উদ্যোগ ছিল। এসকোবার এবং রবার্ট ভেসকো দ্বীপের অধিকাংশ জমি ক্রয়, যার মধ্যে ছিল ১ কিলোমিটার (৩,৩০০ ফু) এয়ারস্ট্রিপ, একটি বন্দর, একটি হোটেল, ঘর, নৌকা, এবং বিমান, এবং তারা কোকেইন সংরক্ষণ জন্য একটি শীতাতপনিয়ন্ত্রীত গুদাম নির্মিত করেছিল। ১৯৭৮ থেকে ১৯৮২-এ, মেদেয়িন কার্টেল এর জন্য এটি একটি কেন্দ্রীয় চোরাচালান রুট হিসাবে ব্যবহৃত হয়েছিল। এই রুটের মাধ্যমে বিপুল লাভের অর্থ দিয়ে, এসকোবার শীঘ্রই কয়েক মিলিয়ন ডলার দিয়ে অ্যান্টিওকুইয়াতে ৭.৭ বর্গমাইল (২০ কিমি) জমি কিনেছিলেন, যার উপর তিনি হ্যাসিন্দা ন্যপোলস নির্মাণ করেছিলেন। তাঁর নির্মিত বিলাসবহুল বাড়িটিতে একটি চিড়িয়াখানা, একটি হ্রদ, একটি ভাস্কর্যপূর্ণ বাগান, একটি ব্যক্তিগত ষাঁড়ের লড়াইযের ঘেরা-মাঠ, এবং তার পরিবার এবং কার্টেলের জন্য অন্যান্য সুবিধাদি ছিল।[২১]

এক পর্যায়ে এটি অনুমান ছিল যে[২২] ৭০ থেকে ৮০ টন কোকেইন কলম্বিয়া থেকে প্রতি মাসে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে পাঠানো হতো। ১৯৮০ এর দশকের মাঝামাঝিতে, তার জীবনের শক্তির উচ্চতার সময়, মেদেয়িন কার্টেল যুক্তরাষ্ট্রে প্রতি জেটলাইনারে করে ১১ টন করে পাঠাতো (এসকোবার কর্তৃক পাঠানো সবচেয়ে বড় চালান ছিল ৫১,০০০ পাউন্ড (২৩,০০০ কেজি), যেটি পাঠানো হয়েছিল নৌকায় করে মাছের পেস্টের সঙ্গে, যা তার ভাইয়ের বই "এসকোবার" এ উল্লেখ করা আছে)। রবার্টো এসকোবার এছাড়াও দাবি করেন যে, বিমান ব্যবহার করার পাশাপাশি তার ভাই বৃহৎ চালানের পরিবহনের জন্য দুটি ছোট সাবমেরিন নিযুক্ত করেছিলেন।[১]

প্রতিষ্ঠিত ড্রাগ নেটওয়ার্ক[সম্পাদনা]

আমেরিকার প্রাচীনতম অ্যাল ইপেক্টেডোর সংবাদপত্র মাদক পাচারের বিরুদ্ধে গুরুতর মনোভাব বজায় রাখে এবং ১৯৮২ সালে হাউস অব রিপ্রেজেন্টেটিভস-এ আগমনের পরে এসকোবারের অপরাধমূলক জীবনের বিবরণ প্রকাশ করে। ১৯৮৯ সালে গাড়ী বোমা বিস্ফোরন ঘটিয়ে সংবাদপত্রটির অফিস (ছবিটিতে) ধ্বংস করা হয়, এসকোবারের আদেশ অনুসারে।

১৯৮২ সালে এসকোবারকে "লিবারেল অল্টারনেটিভ" নামে একটি ছোট আন্দোলনের অংশ হিসাবে কলম্বিয়ার প্রতিনিধিদের চেম্বার এর বিকল্প সদস্য নির্বাচিত করা হয়েছিল। এই প্রচারণার আগে তিনি "লিবারেল পুনর্নবীকরণ আন্দোলনের" প্রার্থী ছিলেন, কিন্তু লুয়েস কার্লোস গালান এর দৃঢ় বিরোধের কারণে তাকে এই পদ ছেড়ে দিতে হয়েছিল, যার প্রেসিডেন্সিয়াল প্রচারণা "লিবারেল পুনর্নবীকরণ আন্দোলন" দ্বারা সমর্থিত ছিল। তাঁকে সেখান থেকে অব্যহতির অন্যতম কারন ছিল, এটি প্রকাশ পায় যে তিনি মাদক চোরাচালানের সঙ্গে জড়িত, আর একজন মাদক চোরাচালানকারী কোন ভাবেই দলে থাকতে পারেন নাহ এমনকি এটিও শুনা যায় তিনি অর্থের বিনিময়ের মাধ্যমে অসৎভাবে এ স্থানে এসেছেন। গালান অনেকগুলি মৃত্যুর হুমকি প্রাপ্তির পর, ১৯৮৯ সালের ১৮ আগস্ট, সোয়াচা, কুন্ডিনমার্ছা শহরে প্রচারণা সমাবেশের সময় ড্রাগ কার্টেলের ভাড়াটে হিটম্যানদের দ্বারা গালানকে গুলি করে হত্যা করা হয়। তার হত্যার তদন্ত অস্তিত্বহীন রয়ে যায়।[২৩][২৪] অধিকাংশের মতে এবং এসকোবারের জীবনী নিয়ে নির্মিত নেটফ্লিক্স সিরিজ "নারকোস" এ তাঁর হত্যাকান্ডে এসকোবারের ভূমিকা দেখানো হয়েছে। এসকোবার স্পেনের ফেলিপ গনজালেজের শপথ গ্রহণের জন্য কলম্বিয়ার সরকারী প্রতিনিধি ছিলেন।[২৫]

তার ড্রাগ নেটওয়ার্কটির কুখ্যাতি অর্জনের সাথে সাথে এসকোবার দ্রুত আন্তর্জাতিকভাবে পরিচিত হয়ে ওঠে; মেডেলিন কার্টেল মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র, মেক্সিকো, পুয়ের্তো রিকো, ডোমিনিকান প্রজাতন্ত্র, ভেনিজুয়েলা, এবং স্পেনে প্রবেশ করা মাদকের একটি বড় অংশ নিয়ন্ত্রণ করেছিল। কলম্বিয়া থেকে কোকা প্রতিস্থাপন করে বলিভিয়া এবং পেরু থেকে কোকা নিয়ে উৎপাদন প্রক্রিয়াটিও পরিবর্তন করা হয়েছিল, যা প্রতিবেশী দেশগুলির কোকার চেয়ে নিম্নমানের হিসাবে দেখা শুরু হয়েছিল। আরো এবং আরও ভাল কোকেনের চাহিদা বেড়ে যাওয়ার কারণে, এসকোবার রবার্টো সুয়ারেজ গোমেজ এর সঙ্গে আমেরিকা এবং ইউরোপ এর অন্যান্য দেশগুলিতে পণ্যটিকে আরও এগিয়ে নিয়ে যাওয়ার জন্য একসাথে কাজ শুরু করেছিলেন, শুনা যায় যে এটি পাশাপাশি এশিয়াতেও পৌছে গিয়েছিল।

বিচার ভবন অবরোধ[সম্পাদনা]

১৯৮৫-এর কলম্বীয় সুপ্রিমকোর্ট অবরোধের জন্য বিভিন্ন মিডিয়া সংস্থা এসকোবারকে সরাসরি দায়ি করে।

এটি অভিযোগ করা হয় যে ১৯৮৫-এর কলম্বীয় সুপ্রিমকোর্ট অবরোধে এসকোবার ১৯ই এপ্রিল আন্দোলন-এর বামপন্থী গেরিলা, আরো পরিচিত এম-১৯, এর সাথে একহয়ে এই ঘটনা ঘটিয়েছিলেন। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের সঙ্গে কলম্বিয়ার লস এক্সটেনশনস চুক্তি সংবিধানে অধ্যয়নরত থাকায় সুপ্রিম কোর্টের উপর প্রতিশোধের জন্য এটি ঘটেছে, অবরোধের ফলে আদালতে অর্ধেক বিচারকদের হত্যা করা হয়।[২৬] এম-১৯ কে অর্থ প্রদান করা হয়েছিল যাতে তাঁরা ভেঙ্গে কোর্টে প্রবেশ করে এবং লস এক্সটেনশনস —এর উপর সব কাগজ ও নঁথি পুড়িয়ে ফেলে, কলম্বিয়ার সরকারের মাধ্যমে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে উক্ত আসামীকে হস্তান্তরিত হওয়ার হুমকির মুখে থাকায় কোকেইন চোরাকারবারির একটি গ্রুপ এই কাজটি করে। এ চুক্তির মাধ্যমে কলম্বীয় সরকার যুক্তরাষ্ট্র সরকারের কাছে উক্ত আসামীকে হস্তান্তরিত করতে পারতো, ফলে উক্ত আসামীদের অধিক আইনের মুখোমুখি হওয়ার সম্ভাবনা ছিল। এসকোবারও এই লস এক্সটেনশনস (বিদেশে পলাতক আসামীকে সেই রাস্ট্রে অর্পন করা যে রাস্ট্রে সে দোষী সাব্যস্ত হয়েছে) এই চুক্তির তালিকায় অর্ন্তভুক্ত ছিল। তাদের মুক্তির আলোচনার জন্য বন্দীও করে নেওয়া হয়, তাদের অপরাধের জন্য মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের সঙ্গের লস এক্সটেনশনস চুক্তি এভাবে তারা প্রতিরোধ করে।[২৭]

এসকোবার তার শক্তির উচ্চতায়[সম্পাদনা]

ট্র্যানকিল্যান্ডিয়া কাকেটায় অবস্থিত মেডেলিন কার্টেলের প্রধান কোকেইন উৎপাদন কেন্দ্র ছিল এটি। এতে ১৯ টি প্রসেসিং ল্যাবরেটরি, প্রচুর পরিমাণে তাজা পানি (ইয়ারি নদী থেকে), একটি স্বাধীন বৈদ্যুতিক ব্যবস্থা, শয়নকক্ষ এবং অবতরণের জন্য একটি রানওয়ে ছিল। ১৯৮৪ সালে ন্যাশনাল পুলিশ এবং ডিইএ এই ল্যাবরেটরিটি ধ্বংস করে প্রায় ১৪ টন মাদক বাজেয়াপ্ত করেছিল, যার মূল্যমান ছিল ১.২ বিলিয়ন ডলার।
মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে মেদেয়িন কার্টেল কর্তৃক প্রেরিত কোকেন ব্লকগুলিতে বস্তাবন্দী করা হতো এবং যন্ত্রপাতি, গাড়ি, সাবমেরিন, নৌকা এবং এমনকি কলম্বিয়া থেকে আগত প্লেনের টায়ারগুলিতেও লুকানো হতো। প্রতিদিন ১৫ টন কোকেইন পাচার করা হতো উত্তরে।

তার শক্তির উচ্চতার সময়, মেদেয়িন কার্টেল প্রতিদিন ৭০ মিলিয়ন মার্কিন ডলার (প্রায় এক বছরে প্রায় ২৬ বিলিয়ন ডলার) নিয়ে এসেছে। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে প্রতিদিন ১৫ টন কোকেইন চোরাচালান করতো, যার অর্থমূল্য এক বিলিয়ন মার্কিন ডলারের অর্ধেকেরও বেশি, কার্টেলটি প্রতি সপ্তাহে মার্কিন $১০০০ ডলার খরচ করতো কেবল নগদ টাকার বান্ডেলগুলো মোড়ানোর জন্য রাবার ব্যন্ড ক্রয়ের মাধ্যমে, অধিকাংশগুলো তাঁদের ওয়্যারহাউজে সংরক্ষণ করতো। ১০% নগদ টাকা বছর প্রতি বাতিল করতে হতো কেবল ইদুরের আক্রমনে কারনে।[১৭]

কোকেইন ব্যবসায়ের সারাংশ নিয়ে প্রশ্ন করা হলে, এসকোবার উত্তর দিয়েছিলেন "[ব্যবসাটি] সহজ: আপনি এখানে কাউকে ঘুষ দেন, আপনি সেখানে কাউকে ঘুষ দেন এবং আপনি টাকা ফেরত পেতে সাহায্য করার জন্য একজন বন্ধুসুলভ ব্যাংকারকে অর্থ প্রদান করেন।"[২৮] ১৯৮৯-এ, "ফোর্বস" ম্যাগাজিনের হিসেব অনুযায়ী এসকোবার বিশ্বের ২২৭জন বিলিয়নিয়ারের মধ্যে একজন যার ব্যক্তিগত ব্যক্তিগত সম্পদের মূল্য প্রায় ৩ বিলিয়ন মার্কিন ডলার[২৯] যেখানে কিনা মেদেয়িন কার্টেল বৈশ্বিক ৮০% কোকেইনের বাজার নিয়ন্ত্রন করতো।[৩০] সাধারণভাবে এটি বিশ্বাস করা হয় যে এসকোবার মেদেয়িনের এ্যাটলেটিকো নাস্যিয়োনেলের মুখ্য ফাইন্যান্সিয়র ছিলেন, যা ১৯৮৯ সালে কোপা লিবার্টাদোরেসে, যা দক্ষিণ আমেরিকার সবচেয়ে মর্যাদাপূর্ণ ফুটবল টুর্নামেন্ট, কোপা লিবার্টাদোরেস জিতেছিল।[৩১]

মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র এবং কলম্বিয়ার সরকারের শত্রু হিসাবে দেখা হলেও, এসকোবার মেদেয়িনের (বিশেষ করে দরিদ্র জনগোষ্ঠী) অনেকের জন্য একজন নায়ক ছিলেন। তিনি জনসাধারণের সম্পর্ক তে প্রাকৃতিক ছিলেন এবং কলম্বিয়ার দরিদ্রদের মধ্যে তিনি স্বেচ্ছাসেবী তৈরির জন্য কাজ করেছিলেন। একজন দীর্ঘজীবি ক্রীড়া ভক্ত হিসেবে, তিনি ফুটবল ক্ষেত্র এবং মাল্টি স্পোর্টস কোর্ট নির্মাণের অবদান রাখেন, সেইসাথে শিশুদের ফুটবল দলের পৃষ্ঠপোষকতাও করেন।[১৭] পশ্চিম কলম্বিয়াতে ঘর ও ফুটবলের ক্ষেত্র নির্মাণেও এসকোবার ছিলেন, যা তাকে দরিদ্রদের মধ্যে জনপ্রিয়তা অর্জন করেতে সাহায্য করেছিল।[৩২][৩৩][২৫] তিনি রবিন হুড ইমেজ গড়ে তোলার জন্য কঠোর পরিশ্রম করেন এবং ঘন ঘন হাউজিং প্রকল্প এবং অন্যান্য নাগরিক কার্যক্রমে টাকা বিতরণ করতেন, যা তাকে প্রায়ই স্থানীয় শহরগুলির স্থানীয়দের মধ্যে উল্লেখযোগ্য জনপ্রিয়তা এনে দেয়। মেডেলিনের কিছু লোক প্রায়শই এসকোবারকে লুকিয়ে রাখা, কর্তৃপক্ষের কাছ থেকে তথ্য লুকাতে বা তার সুরক্ষার জন্য যা করতে পারে তা করার মাধ্যমে পুলিশের কাছে ধরে খাওয়া থেকে তাকে সাহায্য করেছিল। মেদেয়িন ও অন্যান্য এলাকার মাদক পাচারকারীরা তাদের কলম্বিয়ার কোকেইন-সংক্রান্ত লাভের ২০% থেকে ৩৫% এরও বেশি পরিমাণ অর্থ এসকোবারের কাছে হস্তান্তর করতো, কারণ তিনি ছিলেন একমাত্র ব্যক্তি যিনি কোকেইনের চালান সফলভাবে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে প্রেরণ করেছিলেন।[৩৪]

কলম্বিয়ার কার্টেলগুলির সার্বভৌমত্ব বজায় রাখার জন্য ক্রমাগত সংগ্রামের ফলস্বরূপ কলম্বিয়ায় ১৯৯১ সালে ২৫,১০০ হিংসাত্মক মৃত্যু এবং ১৯৯২ সালে ২৭,১০০ মৃত্যুর ঘটনা ঘটে, এতে করে কলম্বিয়া দ্রুত বিশ্বের হত্যার রাজধানী হয়ে ওঠে।[৩৫] এই মৃত্যুহার বেড়েছিল এসকোবার কর্তৃক পুলিশ অফিসারদের হত্যার জন্য গুপ্তঘাতক নিয়োগের মাধ্যমে, যার ফলস্বরুপ ৬০০ জন পুলিশকে হত্যা করা হয়েছিল।[৭]

লা ক্যাথেড্রাল জেলখানা[সম্পাদনা]

লুইস কার্লোস গালান এর হত্যাকাণ্ডের পর সিজার গ্যাভিরিয়া এর প্রশাসন এসকোবার এবং ড্রাগ কার্টেলগুলির বিরুদ্ধে এগিয়ে আসে। অবশেষে, সরকার এসকোবারের সঙ্গে আলোচনা করে এবং তাকে আত্মসমপর্ন করতে ও সকল অপরাধ কর্মকান্ড বন্ধ করতে বলে সাজার সময় কমানো ও তাঁর পছন্দসই আদেশ মানার বিনিময়ে। পূর্বের আইনটি বাতিল করার শর্তসাপেক্ষ , ১৯৯১ সালে কলম্বিয়ার কর্তৃপক্ষের কাছে এসকোবার আত্মসমর্পণ করে। আত্মসমর্পনের পূর্বে, ১৯৯১ সালের নতুন অনুমোদিত কলম্বিয়ার সংবিধানের মাধ্যমে কলম্বিয়ার নাগরিকদের যুক্তরাষ্ট্রে প্রত্যাবর্তন করা বন্ধ করা হয়েছিল। এই আইনটি বিতর্কিত ছিল, কারণ এটি সন্দেহ করা হয়েছিল যে এসকোবার এবং অন্যান্য মাদক সম্রাটরা আইনটি পাস করার জন্য সাংবিধানিক পরিষদের সদস্যকে প্রভাবিত করেছে। এসকোবার তার নিজের বিলাসবহুল প্রাইভেট কারাগার তৈরি করেছিলেন, যা হচ্ছে লা ক্যাথেড্রাল, যাতে ছিল একটি ফুটবল পিচ, তার কন্যার জন্য বৃহৎ পুতুলের ঘর, বার, জাকুজ্জি এবং জলপ্রপাত। চুক্তি অনুযায়ী তার জেলখানার দুই কিলোমিটারের আশে-পাশে কোন সরকারি আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর লোক থাকতে পারবে নাহ। এসকোবার এটিকে জেলখানা বললেও মূলত এটি ছিল তার নিরাপত্তার জন্য নির্মিত একটি বিলাসবহুল প্রাসাদ ঘর। তার নিজস্ব পালিত সন্ত্রাসী বাহিনী এর নিরাপত্তা রক্ষার কাজে নিয়োজিত থাকতো। মূলত এই জেলখানার কারনে তিনি ধারা-ছোয়ার বাহিরে থাকতেন। প্রকাশ পায় যে তিনি তার মেদেয়িন কার্টেলের দুই অংশীদারকে সেখানে হত্যা করেছেন। মূলত তার জীবনী নিয়ে নির্মিত নেটফ্লিক্সের নারকোস ধারাবাহিকে দেখা যায়, সেই জেলখানায় তার সহযোগীদের আনাগোনা থাকতো। একদিন দেখা যায় তাঁর দুইজন অংশীদারের সঙ্গে কথা কাটা-কাটি হয় চোরাচালানের অর্থ নিয়ে। এক পর্যায়ে এসকোবার তাদের লাঠি-দিয়ে মুখ-মন্ডলে প্রচন্ড আঘাত করেন এক পর্যায়ে তারা মারা যায়। আর তাঁদের লাশ ধামা-চাপা দিতে তাদের মৃতদেহ চুল্লিতে পুড়িয়ে ফেলা হয়। এক পর্যায়ে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের মাদক নিয়ন্ত্রন সংস্থার দুইজন এজেন্ট তদন্ত করে দেখেন যে সেই দুজন অংশীদার লা ক্যাথেড্রালে প্রবেশের পর আর সেখান থেকে বের হননি। তাঁরা নিশ্চিত হন যে সেই দুজনকে হত্যা করা হয়েছে। তাঁরা সেই খবরটি একটি সংবাদপত্রের মাধ্যমে প্রকাশ করান। ফলে চারদিকে আলোচনা ছড়িয়ে পড়ে। যেহুতো সরকারের সঙ্গে চুক্তি ছিল এসকোবার লা ক্যাথেড্রালে থাকা অবস্থায় কোন অপরাধ কর্মকান্ড করতে পারবে না, তাই এটি ছিল চুক্তির লঙ্গন। যা সরকারকে এসকোবারকে সুযোগ প্রধান করে তাকে আরো অধিক কঠোর জেলে স্থানান্তর করার। ২২ জুলাই ১৯৯২-এ বিপুল পরিমান সেনাবাহিনী জড়ো করা হয় তার লা ক্যাথেড্রাল ঘিরে ফেলার জন্য। কলম্বিয়ার প্রেসিডেন্টের একজন উপমন্ত্রী সেক্রেটারি সেখানের গেটের ভেতর প্রবেশ করে তাঁর সঙ্গ কথা বলার জন্য, কিন্তু এসকোবারের বাহিনীর লোকেরা তাঁকে আটক করে রাখে, প্রেসিডেন্টের সঙ্গে কথা বলার জন্য যাতে তিনি গেটের সামনে থাকা সেনাবাহিনীর বহরকে চলে যেতে বলেন। কিন্তু প্রেসিডেন্ট তাঁর সঙ্গে কথা বলতে চায়নি । বরং স্পেশাল রেসকিউ ফোর্স পাঠানো হয় উপমন্ত্রীকে উদ্বারের জন্য। তাঁরা লা ক্যাথেড্রালে ঢুকে পড়ে এবং উপমন্ত্রীকে উদ্বার করে। বিপুল সংঘর্ষ হয়। এসকোবারের অনেক লোক নিহত হয়। কিন্তু এসকোবার মাটির নিচের লুকানো সুড়ঙ্গ দিয়ে ববের হয়ে যেতে সমর্থ হন। তাঁর প্রভাব তাকে অগ্রিম পরিকল্পনা আবিষ্কার এবং একটি ভাল সময় নিয়ে পালাবার সুযোগ করে দেয়, তার বাকি জীবন পুলিশ থেকে পলায়ন করে কাঁটে।[৩৬][৩৭]

সার্চ ব্লক ও লস পেপেস[সম্পাদনা]

এসকোবারের মুক্তির পর, তাঁকে হত্যার জন্য মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের যৌথ বিশেষ অপারেশন কমান্ড (যাতে ছিল ডেবগ্রু (সিল টিম সিক্স) ও ডেল্টা ফোর্স) এবং সেন্ট্রা স্পাইক যোগ দেয়। তারা অনুসন্ধান ব্লক নামে পরিচিত একটি বিশেষ কলম্বিয়ার পুলিশ টাস্ক ফোর্সকে প্রশিক্ষন ও উপদেশ দিত, যা এসকোবারকে সনাক্ত করতে তৈরি করা হয়েছিল। পরে, এসকোবারের সঙ্গে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র ও কলম্বিয়ার সরকারের সংঘর্ষ বেড়ে যায়, এবং এসকোবারের শত্রুর সংখ্যা বাড়তে থাকে, একটি নজরদারী কমিটির সদস্য পরিচিত লস পেপেস (Los Perseguidos por Pablo Escobar, "People Persecuted by Pablo Escobar") গঠিত হয়। গ্রুপটিকে তার প্রতিদ্বন্দ্বী এবং সাবেক সহযোগীদের মাধ্যমে অর্থায়ন করা হয়, এদের মধ্যে ছিল কালি কার্টেল এবং কার্লোস কাস্টানোর নেতৃত্বে ডানপন্থী আধা সামরিক বাহিনীও। লস পেপেস শক্তিশালী হয়ে ওঠে, এসকোবারের আইনজীবি, আত্মীয়সহ তাঁর ৩০০ এর অধিক সহযোগীকে হত্যা করে।[৩৮] এবং মেদেয়িন কার্টেলের বিপুল পরিমান সম্পদ ধ্বংস করে।

সার্চ ব্লকের সদস্য এবং কলম্বীয় ও মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের গোয়েন্দা সংস্থার অনেকের সঙ্গে লস পেপেসের আঁতাত ছিল। এই সমন্বয়টি মূলত গোয়েন্দা বিভাগের মাধ্যমে লস পেপেসকে এসকোবার এবং তার কয়েকটি অবশিষ্ট জোটকে নির্মুল করার অনুমতি দেওয়ার জন্য পরিচালিত হয়েছিল, কিন্তু অভিযোগ রয়েছে যে কিছু সার্চ ব্লক সদস্য সরাসরি লস পেপেস এর "ডেথ স্কোয়াড" মিশনে অংশগ্রহণ করেছে।[৩৩][পৃষ্ঠা নম্বর প্রয়োজন] লস পেপেসের অন্যতম একজন নেতা ছিলেন থিয়েগো মুরিলো বেজেরানো (আরো পরিচিত "ডন বার্না" নামে), সাবেক মেডেলিন কার্টেল সহযোগী যিনি প্রতিদ্বন্দ্বী ড্রাগ কিংপিং হয়ে ওঠেন এবং অবশেষে কলম্বিয়াতে আত্ম-প্রতিরক্ষার ক্ষেত্রে সবচেয়ে শক্তিশালী গোষ্ঠীগুলির একজন হিসেবে আবির্ভূত হন।

ব্যক্তিগত জীবন[সম্পাদনা]

পরিবার ও সম্পর্ক[সম্পাদনা]

মার্চ ১৯৭৬-এ, ২৬ বছর বয়সে ১৫ বছর বয়সী মারিয়া ভিক্টোরিয়া হেনাওকে বিবাহ করেন পাবলো এসকোবার। এই সসম্পর্কে হেনাও এর পরিবার নিরুৎসাহিত ছিল, যারা মনে করতো এসকোবার সামাজিকভাবে নিকৃষ্ট; তারা দুইজন পালিয়ে যায়।[১৮] তাঁদের দুই সন্তান: হুয়ান পাবলো (এখন সেবাস্তিয়ান মারোকুইন) এবং ম্যানুয়েলা।

২০০৭-এ, সাংবাদিক ভার্জিনিয়া ভালেজো তাঁর আত্মজীবনী আমান্দো এ পাবলো, ওডিয়ান্দো এ এসকোবার (লাভিং পাবলো, হেটিং এসকোবার) প্রকাশ করেন, যার মধ্যে তিনি এসকোবারের সাথে তার রোমান্টিক সম্পর্ক এবং তার প্রেমিকের বিভিন্ন প্রেসিডেন্ট, ক্যারিবিয়ান স্বৈরশাসক এবং উচ্চ প্রফাইলের রাজনীতিবিদদের সাথের সম্পর্ক বর্ণনা করেছেন।[৩৯] লাভিং পাবলো (২০১৭) চলচ্চিত্রে তারঁ বইটি থেকে অনুপ্রেরিত হয়ে তৈরি করা হয়েছে।[৪০]

মাদক পরিবেশক গ্রিসেল্ডা ব্লাংকো এর এসকোবারের সাথে একটি গোপন, কিন্তু উতৎসাহী, সম্পর্কযুক্ত ঘটনা ঘটেছে, তার পরের পাওয়া ডায়েরির বেশ কয়েকটি জিনিসের জন্য তাঁর "কোক দে মি রে" (মাই কোক কিং) এবং "পোলা ব্লাঙ্কা" (হোয়াইট ডিক) ডাকনামগুলি যুক্ত হয়েছে।[৪১]

সম্পত্তি[সম্পাদনা]

ধনী হয়ে উঠার পরে, এসকোবার অনেক বাড়িঘর ও নিরাপদ বাসস্থান তৈরি বা ক্রয় করেছিলেন, হাসিয়ান্দা ন্যপোলিসের মাধ্যমে উল্লেখযোগ্য কুখ্যাতি অর্জন করেছিলেন। বিলাসবহুল বাড়িটিতে একটি উপনিবেশিক ঘর, একটি ভাস্কর্য পার্ক, এবং বিভিন্ন মহাদেশ থেকে আনা প্রাণীসমূহের একটি সম্পূর্ণ চিড়িয়াখানা ছিল, এতে ছিল হাতি, বহিরাগত পাখি, জিরাফ এবং জলহস্তী। এসকোবারের এছাড়াও কাছাকাছি একটি গ্রীক-শৈলী দুর্গ নির্মাণ করার পরিকল্পনাও ছিল, এবং দুর্গ নির্মাণ শুরু করা হলেও, এটি শেষ হয় নি।[৪২]

এসকোবারের নিজের নামে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে একটি বাড়িও ছিল: ৬৫০০ বর্গ ফুট, গোলাপী রঙ্গের, ওয়াটারফ্রন্ট প্রাসাদটি ফ্লোরিডা মিয়ামি বিচ-এর ৫৮৬০ নর্থ বে রোডে অবস্থিত। ১৯৮০-এর দশকে বিসসকেইন বে-এ নির্মিত চারটি শোয়ার কক্ষের ভবনটি, ১৯৮০-এর দশকে সরকার কর্তৃক দখল করা হয়। পরবর্তীতে, জীর্ণ এই সম্পত্তিটি ক্রিশ্চিয়ান ডি বারডাউয়ারের মালিকানাধীন ছিল, যিনি চিকেন কিচেন ফাস্ট ফুড চেইনের মালিক, তিনি ২০১৪ সালে এটি কিনেছিলেন। ডি বারডাউয়ার পরে একটি ডকুমেন্টারি ফিল্ম ক্রু এবং পেশাদার গুপ্তধন সন্ধানকারী দলকে ভাড়া করেছিলেন বাড়িটির জীর্ণ অবস্থার আগের ও পরের এসকোবার বা মেদেয়িন কার্টেল সংক্রান্ত কোন জিনিসের সন্ধান করার জন্য।[৪৩]

এসকোবার এছাড়াও ইসলা গ্র্যান্ডে একটি বিশাল ক্যারিবিয়ান গেটওয়ে মালিক ছিলেন, যা কার্টেজেন থেকে ২২ মাইল (৩৫ কিলোমিটার) দূরে অবস্থিত ইস্লাস ডেল রোজারিও যুক্ত ২৭ টি প্রবাল দ্বীপের ক্লাস্টারের বৃহত্তম।[৪৪]

এসকোবার গোটা কলম্বিয়া জুড়ে গর্ত করে মাটির নীচে রেখেছিলেন কাড়ি কাড়ি ডলার। তাছাড়াও বিশ্বের অনেক দেশেই তার অনেক বিলাশবহুল বাড়ি ছিল।

মৃত্যু[সম্পাদনা]

২ ডিসেম্বর ১৯৯৩-এ সার্চ ব্লকের সদস্যরা পাবলো এসকোবারের মৃত্যু উদযাপন করছে। তাঁর মৃত্যুতে ১৬ মাসের অনুসন্ধান প্রচেষ্টা শেষ হয়, ১০০ মিলিয়ন ডলারের খরচ হয়।
পাবলো এসকোবারের সমাধি এবং মন্টে স্যাক্রো কবরস্থান, ইটাগুই

লা ক্যাথেড্রাল থেকে পালানোর ১৬ মাস পর, পাবলো এসকোবার ২ ডিসেম্বর ১৯৯৩-এ একটি শ্যুটআউটে মারা যান।[৪৫] ব্রিগেডিয়ার হুগো মার্টিনেজের নেতৃত্বে একটি কলম্বিয়ার ইলেকট্রনিক নজরদারি দল,[৪৬] এসকোবারের রেডিওটেলফোন ট্রান্সমিশন ট্র্যাক করতে রেডিও ট্রাইল্যাটেরেশন প্রযুক্তি ব্যবহার করেন এবং মেডেলিন এর লস ওলিভোস এলাকার মধ্যবিত্তদের থাকার জন্য বানানো এক কলোনীতে তাঁর লুকানো অবস্থায় সন্ধান পান। কর্তৃপক্ষ কাছাকাছি পৌছাতেই এসকোবার এবং তাঁর দেহরক্ষী, আলভারো দে জেসুস আগুদেলো (ডাক নাম "এল লিমন") এর সঙ্গে বন্দুক যুদ্ধ ঘটে। দুই পলাতকই পিছনের রাস্তায় পৌঁছানোর জন্য আশেপাশের বাড়ির ছাদের উপর দিয়ে দৌড়ে পালিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করেছিল, কিন্তু উভয়ই কলম্বীয় জাতীয় পুলিশ কর্তৃক গুলির আঘাতে নিহত হন।[৮] এসকোবার তাঁর পা এবং ধড়ে গুলিবদ্ধ হন, এবং একটি গুলি তার কানে মারাত্মক আঘাত করে।

এসকোবারের মৃত্যু আদতেই পুলিশের বুলেটে হয়েছে নাকি পুলিশের গুলি খাবার পর এসকোবার নিজেই নিজের মাথায় গুলি করে আত্মহত্যা করেছেন তাঁ আজও প্রমানিত হয়নি। পাবলোর মৃত্যু নিয়ে অনেকের মনে অনেক সংশয় রয়েছে, কারোর মতে তিনি পুলিশের হাতে মারা গেছেন আবার কেউবা বলছে তিনি আত্মহত্যা করেছেন । এসকোবারের আত্মীয়স্বজন বিশ্বাস করেন যে তিনি আত্মহত্যা করেছিলেন।[৯][৪৭] তার দুই ভাই, রবার্টো এসকোবার এবং ফার্নান্দো সানচেজ আরেলানো বিশ্বাস করেন যে তিনি নিজেই কান দিয়ে গুলি করেছিলেন। বিষয় সম্পর্কে একটি বিবৃতিতে, দুজন বলেছিলেন যে পাবলো "আত্মহত্যা করেছে, তিনি মারা যাননি। কোনো এক সময় পারিবারিক বৈঠকে পাবলো বলেছিলেন পুলিশের হাতে তিনি কখনো মরবেন না, যদি দেখেন মৃত্যু সুনিশ্চিত তখন তিনি কানের নিচে গুলি করে আত্মহত্যা করবেন। তার লাশ যখন পাওয়ায় তখন তার বুকে, পায়ে আর কানের একটু নিচে গুলির চিহ্ন পাওয়া যায়। এতে ধারনা করা হয়, তিনি আত্মহত্যা করেছিলেন।[৪৮][পৃষ্ঠা নম্বর প্রয়োজন]

তাঁর মৃত্যুর পর[সম্পাদনা]

এসকোবারের মৃত্যুর পর এবং মেদেয়িন কার্টেলের পরবর্তী বিভক্তকরণের পর, কোকেইন বাজার ১৯৯০ এর দশকের মাঝামাঝি পর্যন্ত প্রতিদ্বন্দ্বী কালি কার্টেলের দ্বারা প্রভাবিত হয়েছিল, যখন তার নেতারা কলম্বিয়ার সরকার কর্তৃক নিহত হন বা বন্দী হন। এসকোবার তৈরি করা রবিন হুড ইমেজ মেদেয়িনে স্থায়ী প্রভাব বজায় রেখেছিল। সেখানে অনেকেই, বিশেষ করে শহরটির দরিদ্রদের যাদেরকে এসকোবার জীবিত অবস্থায় সহায়তা করেছিল তাঁদের তাঁর মৃত্যুতে জন্য শোক প্রকাশ করেছিল, এবং ২৫,০০০ এরও বেশি লোক তাঁর অন্ত্যেষ্টিক্রিয়াতে উপস্থিত ছিলেন। তাদের কেউ কেউ তাকে একটি পবিত্র ব্যক্তি হিসেবে বিবেচনা করতো এবং স্বর্গীয় সাহায্য পেতে তাঁর জন্য প্রার্থনা করতো।[৪৯]

ভার্জিনিয়া ভালিজোর সাক্ষ্য[সম্পাদনা]

জুলাই ৪, ২০০৬-এ, ভার্জিনিয়া ভালিজো, যিনি ১৯৮৩ থেকে ১৯৮৭ সাল পর্যন্ত এসকোবারের সাথে রোমান্টিকভাবে জড়িত টেলিভিশন সংবাদ উপস্থাপিকা, ১৯৮৯ সালের প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে প্রার্থী লুয়েস কার্লোস গ্যালানকে হত্যার দায়ে অভিযুক্ত সাবেক সেনেটর আলবার্তো সান্টোফিমিয়োর বিরুদ্ধে ট্রায়ালটিতে তার সাক্ষ্য প্রমাণের জন্য কলম্বিয়ার অ্যাটর্নি জেনারেল মারিও ইগুনারকে প্রস্তাব দিয়েছিলেন। ইগুয়ারান স্বীকার করেছিলেন যে, যদিও ৪ জুলাই ভ্যালেজো তার কার্যালয়ে যোগাযোগ করেছিলেন, বিচারক ১৯ জুলাই তারিখে সম্ভাব্য বন্ধ হওয়ার কয়েক সপ্তাহ আগে এই বিচার বন্ধ করার সিদ্ধান্ত নিয়েছিলেন। পদক্ষেপটিকে খুব দেরী হিসাবে দেখা হয়।[৫০][৫১]

হাই-প্রোফাইল ক্রিমিনাল কেইসসমূহে তার সহযোগিতার জন্য তাঁর নিরাপত্তার জন্য ১৮ জুলাই, ২০০৬-এ, ভালিজোকে ড্রাগ এনফোর্সমেন্ট অ্যাডমিনিস্ট্রেশন (ডিইএ) এর একটি বিশেষ ফ্লাইটে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে নিয়ে যাওয়া হয়।[৫২][৫৩] জুলাই ২৪-এ, a video in which Vallejo had accused Santofimio of instigating Escobar to eliminate presidential candidate Galán was aired by RCN Television of Colombia. ভিডিওটি ১৪ মিলিয়ন মানুষ দেখেছিল, এবং গালানের হত্যার পুনরাবৃত্তি ঘটনার ক্ষেত্রে এটি সহায়ক ছিল। আগস্ট ৩১, ২০১১-এ অপরাধে তার ভূমিকার জন্য সান্টোফিমিওকে ২৪ বছর কারাদণ্ড দেওয়া হয়েছিল।[৫৪][৫৫]

বিচার ভবন অবরোধে ভূমিকা[সম্পাদনা]

এসকোবারের জীববিজ্ঞানীদের মধ্যে, শুধুমাত্র ভালেজো ১৯৮৫ সালের বিচার ভবন অবরোধে তার ভূমিকা সম্পর্কে বিস্তারিত ব্যাখ্যা দিয়েছেন। সাংবাদিক ব্যাখ্যা করেছিলেন যে এসকোবার এই অপারেশনে অর্থায়ন করেছিলেন, যেটি এম-১৯ দ্বারা সংঘটিত হয়েছিল; কিন্তু তিনি ১০০ জন লোকের মৃত্যুর জন্য আর্মিকে অভিযুক্ত করেন, এদের মধ্যে ১১জন সুপ্রিম কোর্ট ম্যাজিস্ট্রেট, এম-১৯ সদস্য , এবং ক্যাফেটেরিয়ার কর্মচারীরা ছিলেন। তার বিবৃতি ২০০৮ সালে মামলার পুনর্বিন্যাস করেছে; ভালেজোকে সাক্ষ্য দিতে বলা হয়েছিল, এবং তার বই এবং প্রশংসাপত্রের মধ্যে বর্ণিত অনেক ঘটনা কলম্বিয়ার কমিশনের সত্যের মাধ্যমে নিশ্চিত করা হয়েছিল।[৫৬] এই ঘটনাগুলি একজন উচ্চপদস্থ প্রাক্তন কর্নেল এবং সাবেক জেনারেলের দৃঢ় বিশ্বাসের পাশাপাশি আরও বেশি তদন্তের দিকে অগ্রসর হয়, অবরোধের পর আটকদের জোরপূর্বক অন্তর্ধানের জন্য, পরে যথাক্রমে ৩০এবং ৩৫ বছরের কারাগারে পাঠানো হয়।[৫৭][৫৮] ভ্যালেজো পরবর্তীতে গালানের হত্যার সাক্ষ্য দেন।[৫৯] তাঁর আত্মজীবনী আমান্দো এ পাবলো, ওডিয়ান্দো এ এসকোবার (লাভিং পাবলো, হেটিং এসকোবার) -এ, তিনি কলম্বীয় রাষ্ট্রপতি আলফনসো লোপেজ মাইকেলসেন, আর্নেস্তো সাম্পার এবং আলভারো উরিবে সহ বেশ কয়েকজন রাজনীতিককে ড্রাগ কার্টেলের সঙ্গে সম্পর্ক থাকায় অভিযুক্ত করেছিলেন।[৬০] হুমকির কারণে, এবং এই ক্ষেত্রে তার সহযোগিতা জন্য ৩ জুন, ২০১০-এ মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র কলম্বিয়ার এই সাংবাদিককে রাজনৈতিক আশ্রয় দেয়।

আত্মীয়-স্বজন[সম্পাদনা]

এসকোবারের স্ত্রী (মারিয়া হেনাও, এখন মারিয়া ইসাবেল সান্তোস কাবালেরো), পুত্র (হুয়ান পাবলো, এখন হুয়ান সেবাস্তিয়ান মারোকুইন সান্তোস) এবং কন্যা (ম্যানুয়েলা) অন্য কোন দেশে আশ্রয় গ্রহণের সুযোগ না পেয়ে ১৯৯৫ সালে কলম্বিয়া ত্যাগ করে।[৬১] এসকোবার এর অসংখ্য এবং ক্রমাগত অবিশ্বস্ততা সত্ত্বেও, মারিয়া তার স্বামীর সমর্থক ছিলেন, যদিও তিনি তাকে এসব সহিংসতা থেকে বিরত থাকতে অনুরোধ করেছিলেন। কালী কার্টেলের সদস্যরাও তাদের স্ত্রীদের ক্ষেত্রে কীভাবে একজন মহিলার আচরণ করা উচিত তা প্রদর্শনের জন্য পাবলোর সাথে তার কথোপকথনগুলির রেকর্ডিংয়ের পুনরাবৃত্তি করেছিলেন।[৬২] মারিয়ার এই মনোভাবের কারনে পাবলো এসকোবারের মৃত্যুর পর কালি কার্টেল তাঁকে এবং সন্তানদের হত্যা করে নি, যদিও গোষ্ঠী তাদের বিরুদ্ধে এসকোবারের যুদ্ধের জন্য ক্ষতিপূরণের লক্ষ লক্ষ ডলার (এবং প্রাপ্ত) দাবি করেছিল। হেনাও তার পুত্রের জীবনের কথা চিন্তা করে নিশ্চিত সিদ্ধান্ত নিয়েছিল যে, তিনি কালি কার্টেলের উপর প্রতিশোধ নিবেন নাহ এবং মাদক বাণিজ্যে জড়াবেন নাহ।[৬৩]

প্রথমে মোজাম্বিক এবং পরে ব্রাজিলে পালানোর পর, তাঁর পরিবার আর্জেন্টিনায় গিয়ে স্থায়ী হয়।[৬৪] তার অভিযুক্ত নাম অনুসারে, হেনও একজন সফল রিয়েল এস্টেট উদ্যোক্তা হয়ে উঠেন যতক্ষণ না তার একজন ব্যবসায়িক সহযোগী তার সত্যিকারের পরিচয় আবিষ্কার করেন, এবং হেনাও তার উপার্জন থেকে গা ঢাকা দেন। স্থানীয় গণমাধ্যমে সতর্কতা অবলম্বন করা হয়, এবং এসকোবারের বিধবা স্ত্রী হিসাবে আবির্ভূত হওয়ার পর, হেনাওকে তার আর্থিক সংস্থানের তদন্তের সময় আট মাস ধরে কারাদন্ড দেওয়া হয়।[৬৫] তাঁর পুত্রের মতে, হেনাও এসকোবারকে ভালোবাসে "কারণ তার দুষ্টু হাসি [এবং] [তার] দিকে তাকানোর ধরনের জন্য। [তিনি] স্নেহপূর্ণ এবং মিষ্টি ছিলেন। একটি মহান প্রেমিক। মানুষকে সাহায্য করার জন্য এবং তাদের কষ্টে সমবেদনা জানানোর জন্য আমি তাঁর অভিপ্রায়কে ভালোবাসি। আমরা সেখানে যেতে [পারতাম] যেখানে তিনি দরিদ্রদের জন্য স্কুল নির্মাণের স্বপ্ন দেখতেন। [শুরুথেকে] তিনি সর্বদা একজন ভদ্রলোক ছিলেন।"[৬৬] হেনাও এখন অন্য নামে উত্তর ক্যারোলিনা এর একটি জায়গায় বসবাস করেন বলে মনে করা হয়।[তথ্যসূত্র প্রয়োজন] এটি সম্পূর্ণ মিথ্যা: মারিয়া ভিক্টোরিয়া হেনাও দে এসকোবার, তার নতুন পরিচয় মারিয়া ইসাবেল সান্তোস ক্যাবালেরোর নিয়ে, বুয়েনস আইরেস-এ তার ছেলে এবং মেয়ের সাথে বসবাস করছেন।[৬৭] ২০১৫ সালের ৫ জুন আর্জেন্টাইন ফেডারেল বিচারক নেসর ব্যারেল তাকে এবং তার ছেলে সেবাস্তিয়ান মারোকুইন সান্তোসকে দুইজন কলম্বিয়ার মাদক পাচারকারীর সাথে মানি লন্ডারিংয়ের জন্য অভিযুক্ত করেন।[৬৮][৬৯][৭০] বিচারক প্রত্যেকের প্রায় ১ মিলিয়ন ডলারের সম্পদ জব্দ করার আদেশ দেন।[৭১]

হাসিয়ান্দা ন্যপোলিস[সম্পাদনা]

এসকোবারের মৃত্যুর পর, হাসিয়ান্দা ন্যপোলি এর খামারবাড়ি, চিড়িয়াখানা এবং দুর্গ সরকার কর্তৃক স্বল্প আয়ের পরিবারকে "এক্সটেনসিওন দে ডোমিনিও" (ডোমেন বিলুপ্তি) নামে একটি আইনের অধীনে দিয়ে দেওয়া হয়েছিল। সম্পত্তিটি একটি থিম পার্কে রূপান্তরিত করা হয়েছে যার চারটি বিলাসবহুল হোটেলগুলি চিড়িয়াখানাকে ঘিরে রেখেছে।[৪২]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

তথ্যসূত্র ও টীকা[সম্পাদনা]

  1. "Pablo Escobar Gaviria – English Biography – Articles and Notes"। ColombiaLink.com। ৮ নভেম্বর ২০০৬ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৬ মার্চ ২০১১ 
  2. "Pablo Emilio Escobar 1949 – 1993 9 Billion USD – The business of crime – 5 'success' stories"। MSN। ১৭ জানুয়ারি ২০১১। ১৪ জুলাই ২০১১ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৬ মার্চ ২০১১ 
  3. "10 facts reveal the absurdity of Pablo Escobar's wealth"Business Insider। সংগ্রহের তারিখ ২০১৮-০৭-২৮ 
  4. "Here's How Rich Pablo Escobar Would Be If He Was Alive Today"UNILAD (ইংরেজি ভাষায়)। ২০১৬-০৯-১৩। সংগ্রহের তারিখ ২০১৮-০৭-২৮ 
  5. "10 facts reveal the absurdity of Pablo Escobar's wealth"। businessinsider.com। ফেব্রুয়ারি ২০১৬। 
  6. Page 469, Pablo Escobar, My Father. Escobar, Juan Pablo. St. Martin's Press, New York. 2014.
  7. Karl Penhaul (৯ মে ২০০৩)। "Drug kingpin's killer seeks Colombia office"। Boston Globe 
  8. "Decline of the Medellín Cartel and the Rise of the Cali Mafia"। U.S. Drug Enforcement Administration। ১৮ জানুয়ারি ২০০৬ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৩ ফেব্রুয়ারি ২০১০ 
  9. "Familiares exhumaron cadáver de Pablo Escobar para verificar plenamente su identidad"El Tiempo [স্থায়ীভাবে অকার্যকর সংযোগ]
  10. "Abel de Jesús Escobar Echeverri"। Geni। 
  11. "Hermilda Gaviria Berrío"। Geni। 
  12. Marcela Grajales। "Pablo Escobar"Accents Magazine। Kean University। জুন ১৯, ২০১১ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৩ ফেব্রুয়ারি ২০১০ 
  13. "Escobar Seventh Richest Man in the World in 1990"। Richest Person.org। ৬ ডিসেম্বর ২০১০ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৩ ফেব্রুয়ারি ২০১০ 
  14. Salazar, Alonso। "Pablo Escobar, h el patrón del mal (La parábola de Pablo)"Google Livres। Penguin Random House Grupo Editorial USA, 2012। সংগ্রহের তারিখ ১১ ফেব্রুয়ারি ২০১৫ 
  15. J.D. Rockefeller (১৭ মার্চ ২০১৬)। Cocaine King Pablo Escobar: Crimes and Drug Dealings। J.D. Rockefeller। পৃষ্ঠা 3–। আইএসবিএন 978-1-5306-1889-7 
  16. "Colombian Druglord Trying To Turn Wealth Into Respect"Orlando Sentinel। ১০ মার্চ ১৯৯১। সংগ্রহের তারিখ ১৬ মার্চ ২০১১ 
  17. Escobar, Roberto (২০০৯)। The Accountant's Story: Inside the Violent World of the Medellín Cartel। Grand Central Publishing। 
  18. Page 74, Pablo Escobar, My Father. Escobar, Juan Pablo. St. Martin's Press, New York. 2014.
  19. "Pablo Escobar – The Medellin Cartel"। Medellintraveler.com। ১৬ অক্টোবর ২০০৭ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৬ মার্চ ২০১১ 
  20. "Amazing story of how Pablo Escobar came to be the richest crook in history"Daily Record। Scotland। ১৬ মার্চ ২০০৯। সংগ্রহের তারিখ ১৬ মার্চ ২০১১ 
  21. "The godfather of cocaine"Frontline। WGBH। 
  22. Baselmans 2016, পৃ. 88।
  23. Page 116, Pablo Escobar, My Father. Escobar, Juan Pablo. St. Martin's Press, New York. 2014.
  24. Tiempo, Casa Editorial El। "SANTOFIMIO RECOMENDÓ MATAR A LUIS CARLOS GALÁN: POPEYE"El Tiempo 
  25. J.D. Rockefeller 2016, পৃ. 5।
  26. "Cali Colombia nacional Pablo Escobar financió la toma del Palacio de Justicia Escobar financió toma del Palacio de Justicia"El Pais 
  27. Jhon Jairo Velásquez (obtained 21 October 2014)
  28. "Farmer's son who bribed and murdered his way into drugs: Neither government forces nor other drug traffickers were interested in taking Pablo Escobar alive. Patrick Cockburn reports"The Independent। London। ৩ ডিসেম্বর ১৯৯৩। 
  29. "Japan's Tsutsumi Still Tops Forbes' Richest List"Los Angeles Times। Associated Press। ১০ জুলাই ১৯৮৯। সংগ্রহের তারিখ ২২ ফেব্রুয়ারি ২০১২ 
  30. Meade, Teresa A. (২০০৮)। A history of modern Latin America, 1800 – 2000। Oxford: Blackwell। পৃষ্ঠা 302। আইএসবিএন 1-4051-2050-9। সংগ্রহের তারিখ ৬ অক্টোবর ২০১১ 
  31. Davison, Phil. "The Road to Italy: In the Shadow of the Drug Barons". The Independent 20 May 1990. Lexis-Nexis Academic. 8 October 2009
  32. "GARCÍA HERREROS CAUSA CONFUSIÓN"El Tiempo 
  33. Mark Bowden (২০০১)। Killing Pablo: The Hunt For The World's Greatest Outlaw। New York: Atlantic Monthly Press 
  34. Baselmans 2016, পৃ. 97।
  35. "Colombia 1993 Chapter II: The Violence Phenomenon"। ২৫ জুলাই ২০১১ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। 
  36. Treaster, Joseph B. (২৩ জুলাই ১৯৯২)। "Colombian Drug Baron Escapes Luxurious Prison After Gunfight"The New York Times। পৃষ্ঠা 1। সংগ্রহের তারিখ ২১ জুলাই ২০১১ 
  37. "Escobar escape humiliates Colombian leaders" 
  38. "Angry Over Blast, Colombia Vigilantes Kill Escobar Lawyer" "Angry Over Blast, Colombia Vigilantes Kill Escobar Lawyer". Los Angeles Times, 17 April 1993
  39. "Los Narcopresidentes" [The Narco-presidents] (Spanish ভাষায়)। ২৪ নভেম্বর ২০০৮। সংগ্রহের তারিখ ১৫ অক্টোবর ২০১৭ 
  40. Mayorga, Emilio (সেপ্টেম্বর ৩, ২০১৭)। "Loving Pablo Director on Reuniting Javier Bardem and Penelope Cruz: It's Been Very Intense"Variety। সংগ্রহের তারিখ ২০১৭-১০-১৮ 
  41. Jerry, Tom (৩০ সেপ্টেম্বর ২০১৩)। "Me matan, Limon! -Patricio Rey y sus Redonditos de Ricota"INEDITO। সংগ্রহের তারিখ ১৯ জুন ২০১৬ – YouTube-এর মাধ্যমে। 
  42. Ceaser, Mike (২ জুন ২০০৮)। "At home on Pablo Escobar's ranch"। BBC News। সংগ্রহের তারিখ ১৩ ফেব্রুয়ারি ২০১০ 
  43. Macias, Amanda Macias & Associated Press (২৪ জানুয়ারি ২০১৬)। "Military & Defense: A luxurious Miami mansion built by the 'King of Cocaine' is no more"Business Insider 
  44. Macias, Amanda (১২ মে ২০১৬)। "Military & Defense: This dilapidated villa once served as a Caribbean getaway for drug-kingpin Pablo Escobar"Business Insider 
  45. "Colombia Drug Lord Escobar Dies in Shootout"  LA Times, 3 December 1993
  46. Interview with Hugo Martinez – the man who 'got' Pablo Escobar D. Streatfeild. November 2000.[অনির্ভরযোগ্য উৎস?]
  47. ইউটিউবে Video of Escobar's exhumation (স্পেনীয়)
  48. Roberts, Kenneth. (2007). Zero Hour: Killing of the Cocaine King.
  49. https://www.bbc.com/news/world-latin-america-25183649
  50. "Colombian Attorney General on Virginia Vallejo's offer to testify against Santofimio" (PDF)। ২৯ মে ২০১০ তারিখে মূল (PDF) থেকে আর্কাইভ করা। 
  51. "Back to jail for Colombia ex-minister"Independent Online। Bogotá। সেপ্টেম্বর ১, ২০১১। সংগ্রহের তারিখ ২০১৭-১০-১৯ 
  52. "Virginia Vallejo takes refuge in United States"। Virginia Vallejo। ১৭ জুলাই ২০১১ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা।  reprinted and translated from Gonzalo Guillen (১৬ জুলাই ২০০৬)। "Virginia Vallejo"। El Nuevo Herald 
  53. "Pablo Escobar's Ex-Lover Flees Colombia"। Fox News Channel। 
  54. "Testimony of Virginia Vallejo in 2006" 
  55. "Links of Colombian politicians with drug cartels" 
  56. Caracol Radio (২৭ আগস্ট ২০০৮)। "Virginia Vallejo testificó en el caso Palacio de Justicia"। Caracol Radio। 
  57. "Colombia ex-officer jailed after historic conviction"। BBC News। 
  58. "Colombian 1985 Supreme Court raid commander sentenced"। BBC News। 
  59. "Galan Slaying a State Crime, Colombian Prosecutors Say"Latin American Herald Tribune 
  60. Romero, Simon (৩ অক্টোবর ২০০৭)। "Colombian Leader Disputes Claim of Tie to Cocaine Kingpin"The New York Times। পৃষ্ঠা 1। 
  61. "Drug lord's wife and son arrested"। BBC News। ১৭ নভেম্বর ১৯৯৯। সংগ্রহের তারিখ ১৩ ফেব্রুয়ারি ২০১০ 
  62. Page 466, Pablo Escobar, My Father. Escobar, Juan Pablo. St. Martin's Press, New York. 2014.
  63. Pages 468-495, Pablo Escobar, My Father. Escobar, Juan Pablo. St. Martin's Press, New York. 2014.
  64. King, Julie (১৫ জুন ২০১৫)। "A Cursed Family: A Look at Pablo Escobar's Family 21 Years After His Death"XPat Nation। ২০ জানুয়ারি ২০১৬ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। 
  65. Pages 521-537, Pablo Escobar, My Father. Escobar, Juan Pablo. St. Martin's Press, New York. 2014.
  66. Page 68, Pablo Escobar, My Father. Escobar, Juan Pablo. St. Martin's Press, New York. 2014.
  67. "Se conoce foto de la hija de Pablo Escobar en Buenos Aires"El Tiempo। এপ্রিল ২৫, ২০১৮। সংগ্রহের তারিখ সেপ্টেম্বর ১৯, ২০১৮ 
  68. "Pablo Escobar's widow and son in Argentina money laundering probe"Deutsche Welle। নভেম্বর ১, ২০১৭। সংগ্রহের তারিখ সেপ্টেম্বর ১৯, ২০১৮ 
  69. "María Isabel Santos Cabllero and Sebastián Marroquín held on money laundering charges" 
  70. Lam, Katherine (জুন ৬, ২০১৮)। "Pablo Escobar's widow, son charged with money laundering in Argentina"Fox News। সংগ্রহের তারিখ সেপ্টেম্বর ২০, ২০১৮ 
  71. "Pablo Escobar's widow and son held on money laundering charges in Argentina"The Guardian। জুন ৫, ২০১৮। সংগ্রহের তারিখ সেপ্টেম্বর ১৯, ২০১৮ 

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]