পান্তুলা রামা

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
ড. পান্তুলা রামা
PRAMA.jpg
ড. পান্তুলা রামা
প্রাথমিক তথ্য
উদ্ভবভারত
ধরনকর্ণাটকী সংগীত
পেশাসুরকার– কন্ঠশিল্পী
বাদ্যযন্ত্রসমূহবেহালা, ভায়োলা (বেহালাজাতীয় বীণা)
কার্যকাল১৯৮০ - বর্তমান
লেবেলচরসুর ডিজিটাল স্টেশন, কলাবর্ধিনী, শশীবদনা, মণিপ্রভালাম
ওয়েবসাইটwww.pantularama.com[১]

পান্তুলা রামা একজন গায়ক এবং যন্ত্রশিল্পী যিনি কর্ণাটকীয় সংগীত বিশারদ। তিনি কর্ণাটকী কন্ঠ সংগীত এবং বাদ্যযন্ত্র (বেহালা এবং ভায়োলা) উভয় ক্ষেত্রেই একজন অত্যন্ত দক্ষ শিল্পী। তিনি শিক্ষা এবং কলা ক্ষেত্রেওও নিজের জন্য একটি স্থান তৈরি করেছেন। এক বিস্ময়কর সংগীত ক্ষমতাযুক্ত শিশু, পান্তুলা, আট বছর বয়সে পূর্ণাঙ্গ সংগীতানুষ্ঠান শুরু করেছিলেন। ডঃ পান্তুলা রামা বর্তমানে একজন জনপ্রিয় এবং অন্বেষিত শিল্পী।[২]

তিনি "গোল্ডেন ভয়েস" হিসাবে আন্তর্জাতিক প্রশংসা পেয়েছেন। তাঁর কন্ঠ অষ্টক অতিক্রম করতে পারে, এবং নিম্ন অষ্টকে একটি মন্ত্রমুগ্ধ প্রভাব নিয়ে আসে। রামাকে "অন্ধ্র প্রদেশের নাইটিংগেল" এবং "মেলোডি কুইন" হিসাবে ভূষিত করা হয়েছে। বিশ্বের শীর্ষস্থানীয় মঞ্চে তাঁর পারদর্শিতার ফলে তাঁর বিশ্বব্যাপী একটি ভক্ত ক্লাব তৈরি হয়েছে যাঁরা তাঁর সংগীতের যাদু এবং সর্বোত্তমতার প্রশংসা করেন।[৩]

কর্ম জীবন[সম্পাদনা]

ডঃ রামা তাঁর বাবা শ্রী পান্তুলা গোপাল রাওয়ের কাছ থেকে সংগীতের প্রাথমিক প্রশিক্ষণ নিয়েছিলেন। তাঁর সংগীত ব্যক্তিত্বটি পরে "সংগীত কলাসাগর" শ্রী ইভাতুরি বিজয়েশ্বর রাওয়ের কাছ আকার পেয়েছিল। একটি বিস্তৃত সংগীত ভাণ্ডার এবং একটি অত্যন্ত কল্পনাপ্রবণ পদ্ধতির সাহায্যে, তিনি পুরানো এবং নতুন সুরকারদের কাজের ব্যাখ্যা করার জন্য বিখ্যাত। উজ্জ্বল শৈল্পিকতার জন্য তাঁর অনন্য শৈলীর স্বতন্ত্রতা, রচনার স্পষ্টতা, একটি সর্বদা সতেজ পদ্ধতি এবং কর্ণাটকী সংগীতের বিভিন্ন উপাদানগুলির একটি নিখুঁত ভারসাম্য, সারা বিশ্ব জুড়ে শ্রোতাদের মন্ত্রমুগ্ধ করে। তিনি তাঁর রাগম, তানম, পল্ল্বীর (কর্ণাটকী সংগীতের শ্রেষ্ঠ রচনা) অনন্য নির্মাণের জন্য জনপ্রিয়। তিনি অনায়াসে বুদ্ধি এবং নান্দনিকতা মিশ্রিত করে শ্রোতাদেরকে ভাবাবেশে মুগ্ধ করে ফেলেন। রামা অন্ধ্র বিশ্ববিদ্যালয় থেকে কর্ণাটকী সংগীতে ডক্টরেট ডিগ্রিধারী। তিনি একজন শিক্ষাবিদ। তিনি "শেপিং অফ অ্যান আইডিয়াল কার্ণাটিক মিউজিশিয়ান থ্রু সাধনা" শিরোনামে একটি বই লিখেছেন। তিনি পরবর্তী প্রজন্মের সংগীতশিল্পীদের জন্য একজন অনুপ্রেরণা স্বরূপ। [৩]

তাঁর জীবন অভিজ্ঞতা এবং এই দিকে গভীর মননের ফলস্বরূপ, রামা ২০১৬ সালে তাঁর সকলের জন্য-সামাজিক-সাংস্কৃতিক আন্দোলন শুরু করেছেন, যার নাম তিনি দিয়েছেন "পা রা - সুপ্রীম।" তিনি সর্বকনিষ্ঠ কণ্ঠশিল্পী হিসেবে অল ইন্ডিয়া রেডিও কর্তৃক মর্যাদাপূর্ণ ‘শীর্ষ গ্রেড’ পেয়েছেন। তিনি বি-হাই গ্রেডযুক্ত বেহালা এবং ভায়োলা বাদক। [৩]

পান্তুলা বিবাহ করেছেন একজন নামকরা বেহালাবিদ কণ্ঠশিল্পী এবং ভায়োলা শিল্পী এম.এস.এন. মুর্তিকে। এই যুগল একসঙ্গে তাঁদের পরিবেশনা দিয়ে সংগীত প্রেমীদের মুগ্ধ করেছেন। [২]

পুরস্কার[সম্পাদনা]

সংগীতের ক্ষেত্রে তাঁর অসামান্য অবদানের জন্য তিনি অসংখ্য পুরস্কার এবং উপাধি পেয়েছেন।

  • সেরা সংগীতশিল্পী, অন্ধ্রপ্রদেশ সরকারের রাজ্য পুরস্কার ১৯৯৬-৯৭ সালের জন্য উপস্থাপিত
  • এমএস সুবুলক্ষ্মী পুরস্কার বিশাখাপত্তনম সংগীত একাডেমী দ্বারা সম্মানিত, ২০১০ সাল
  • এক্সএস রিয়েল সংস্থা, ২০১১ দ্বারা বিশিষ্ট কণ্ঠশিল্পী পুরস্কার
  • গতিশীলতা এবং উদ্ভাবন-এর জন্য দেবী মহিলা পুরস্কার – নিউ ইন্ডিয়ান এক্সপ্রেস দ্বারা ভূষিত করা হয়েছে, ২০১৫ সাল
  • বরিষ্ঠ বিশিষ্ট কণ্ঠশিল্পী পল্লবী পুরস্কার, মাদ্রাজ মিউজিক একাডেমি কর্তৃক প্রদত্ত বিশিষ্ট মহিলা কণ্ঠশিল্পীকে ২০০৬ সাল, ২০০৮ সাল, ২০১২ সাল, ২০১৮ সাল
  • মাদ্রাজ সংগীত একাডেমীর সহযোগিতায় ইন্দিরা শিবশৈলম ফাউন্ডেশন কর্তৃক প্রদত্ত ইন্দিরা শিবশৈলম এন্ডোমেন্ট মেডেল, ২০১৯
  • সম্প্রতি, রামাকে দিল্লির শ্রী সম্মুখানন্দ সংগীত সভা দ্বারা "নাদ ভূষণম" উপাধি দেওয়া হয়েছিল।[২]

গ্রন্থপঞ্জী[সম্পাদনা]

  • শেপিং অফ অ্যান আইডিয়াল কার্ণাটিক মিউজিশিয়ান থ্রু সাধনা - জ্ঞান পাবলিশিং হাউস।

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "Pantula Rama"। Pantula Rama। সংগ্রহের তারিখ ২০১৬-১২-০১ 
  2. "Stringing together a career"। সংগ্রহের তারিখ ২৪ মার্চ ২০২০ 
  3. "PANTULA RAMA"। সংগ্রহের তারিখ ২৪ মার্চ ২০২০ 

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]