পাথারিয়া পাহাড়

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে

পাথারিয়া পাহাড় মৌলভীবাজার জেলার বড়লেখা উপজেলায় অবস্থিত, যার পূর্ব নাম "আদম আইল"। এই পাহাড়ের উপর থেকে পতিত পানিতেই সৃষ্টি হয়েছে মাধবকুণ্ড জলপ্রপাত

অবস্থান[সম্পাদনা]

এই পাহাড়টি বাংলাদেশের উত্তর-পূর্ব কোণে অবস্থিত সিলেট বিভাগের মৌলভীবাজার জেলার বড়লেখা উপজেলার ৮ নম্বর দক্ষিণভাগ ইউনিয়নের অধীন গৌরনগর মৌজার অন্তর্গত। এই পাহাড়, সিলেট সদর থেকে ৭২ কিলোমিটার, মৌলভীবাজার জেলা থেকে ৭০ কিলোমিটার, কুলাউড়া রেলওয়ে জংশন থেকে ৩২ কিলোমিটার এবং কাঁঠালতলী থেকে ৮ কিলোমিটার দূরত্বে অবস্থিত।

নামকরণ[সম্পাদনা]

প্রায় এক হাজার বছর আগে এই অঞ্চলটি গভীর অরণ্য দ্বারা পূর্ণ ছিলো এবং এখানে "পাথরি" নামক নাগা জনগোষ্ঠীর একটি উপশাখার অধিবাসীরা বসবাস করত। কালক্রমে বসবাসকারী জনগোষ্ঠীর নামের সাথে মিল থেকে এই অরণ্য অঞ্চলের নাম 'পাথারিয়া' হয়।[১]

বর্ণনা[সম্পাদনা]

এই পাহাড়টি ২৪ কিলোমিটার অঞ্চল জুড়ে বিস্তৃত। এটি বাংলাদেশের সাথে ভারতের পূর্ব দিকের সীমান্তবর্তী খাসিয়া-জয়ন্তীয়া উচ্চভূমির একটি বর্ধিত অংশ যার অপর অংশ ভারতের আসামে বিস্তৃত।[২]

উদ্ভিদ বৈচিত্র[সম্পাদনা]

এখানে পূর্বে প্রচুর প্রাকৃতিক কমলা লেবুর গাছ থাকলেও বর্তমানে তার সঙখ্যা হ্রাস পেয়েছে। এই বনাঞ্চলটি আগর-আতর কাঠ গাছের জন্য বিখ্যাত। বর্তমানে এখানে যেসব প্রাকৃতিক উদ্ধিদ দেখা যায় তার মধ্যে রয়েছেঃ নাগকেশর, পালান,[৩] বাঁশ, বেত, কালাকস্তুরী বা মুশকদানা ও বনঢ্যাড়শ।[৪]

আরও দেখুন[সম্পাদনা]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "barlekha.hpage.co.in"। ৫ মার্চ ২০১৬ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৭ ডিসেম্বর ২০১২ 
  2. পাথারিয়া পাহাড়, মৌলভীবাজার। দৈনিক কালের কন্ঠ; তারিখঃ ১৫ মার্চ ২০১০; সংগ্রহঃ ১৭ ডিসেম্বর, ২০১২
  3. http://www.kishorgonj.com/?p=11409
  4. http://www.prothomalo.com/print/news/187292[স্থায়ীভাবে অকার্যকর সংযোগ]

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]