পাকিস্তান-ফিলিপাইন সম্পর্ক

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
পাকিস্তান-ফিলিপাইন সম্পর্ক
মানচিত্র Pakistan এবং Philippines অবস্থান নির্দেশ করছে

পাকিস্তান

ফিলিপাইন

পাকিস্তান-ফিলিপাইন সম্পর্ক বলতে পাকিস্তান ও ফিলিপাইনের মধ্যে দ্বিপক্ষীয় সম্পর্ককে বোঝায়। দেশ দুটি মধ্যে কূটনৈতিক , বাণিজ্যিক ও সাংস্কৃতিক সম্পর্কও বিদ্যমান।

ইতিহাস[সম্পাদনা]

ফিলিপাইন পাকিস্তানে একটি ফিলিপাইন দূতাবাস খোলার মাধ্যমে ১৯৪৯ সালের ৮ সেপ্টেম্বর পাকিস্তানে কূটনৈতিক সম্পর্ক স্থাপন করেছিল। পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী হুসেন শহীদ সোহরাওয়ার্দীর মে মাসে, ১৯৫৭ সালে করাচির ফিলিপাইন দূতাবাস উন্নীত হন। [১][২] পাকিস্তান এছাড়াও ম্যানিলা একটি দূতাবাস opned,[৩] এবং ফিলিপাইন্স পরে ইসলামাবাদ থেকে তার দূতাবাস সরিয়ে নেয়। [৪]

বানিজ্যিক সংযোগ[সম্পাদনা]

২০০৬ সালে দুই দেশের মধ্যে দ্বিপাক্ষিক বাণিজ্যের প্রায় ৭০ মিলিয়ন মার্কিন ডলার ছিল। [৫] পাকিস্তান থেকে ফিলিপাইনের আমদানিতে ৪২.৩ মিলিয়ন মার্কিন ডলারেরও বেশি মূল্য রয়েছে, বেশিরভাগই পোশাক এবং ফার্মাসিউটিকাল ড্রাগসহ। ২০০৬ সালে পাকিস্তানকে ফিলিপাইনের রপ্তানি মূল্য $ ২৮.৮ মিলিয়ন মার্কিন ডলারে মূল্যায়িত হয়। দুই দেশের মধ্যে বাণিজ্য ও বিনিয়োগের সুযোগকে উন্নীত করার জন্য পাকিস্তান-ফিলিপাইনের ব্যবসায়িক কাউন্সিল গঠন করা হয়।[৬]

মাইগ্রেশন[সম্পাদনা]

পাকিস্তানে ঘরোয়া সাহায্যকারী হিসাবে কাজে প্রায় ৩,০০০ ফিলিপাইন জনগন আছে মিন্দানাও থেকে প্রায় ৬০ জন ধর্মীয় ছাত্ররাও পাকিস্তানের বিভিন্ন ইসলামী শিক্ষায় অধ্যয়ন করেন। [৫] ২০০৫ সালে, এক হাজারেরও বেশি পাকিস্তানি ফিলিপাইনে বসবাস করত। [৭]

সৌদি আরব, সংযুক্ত আরব আমিরাত, কুয়েত, কাতার ও বাহরাইনের মত মধ্যপ্রাচ্য দেশে বিদেশী ফিলিপিনো এবং বিদেশী পাকিস্তানিদের একটি বড় প্রবাসী জনগোষ্ঠী রয়েছে। এবং যেমন মধ্যপ্রাচ্য দেশগুলিতে পাকিস্তানী ও ফিলিপিনো জনগণের মধ্যে উল্লেখযোগ্য সামাজিক যোগাযোগ রয়েছে।

প্রতিরক্ষা সহযোগিতা[সম্পাদনা]

পাকিস্তান তেহরিক-ই-তালেবান পাকিস্তানের বিরুদ্ধে গেরিলা যুদ্ধের বিরুদ্ধে লড়াই করছে এবং ফিলিপাইনের এমআইএলএফের বিরুদ্ধে একটি বিদ্রোহী যুদ্ধের বিরুদ্ধে লড়াইয়ে উভয় দেশই সন্ত্রাসবাদ হুমকির সম্মুখীন। পাকিস্তান ও ফিলিপাইন উভয় দেশের নিরাপত্তা, গোয়েন্দা এবং আইন প্রয়োগকারী এজেন্সির মধ্যে সহযোগিতা ও আন্তঃফ্রোতামূলক কর্মকাণ্ডের জন্য একটি আইনি কাঠামো হিসেবে একটি সমঝোতা স্মারক স্বাক্ষর করেছে। ".[৮]

দ্বিপাক্ষিক পরিদর্শন[সম্পাদনা]

পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী মন্ত্রিসভা হুসেন শহীদ সোহরাওয়ার্দী (মে ১৯৫৭), মোহাম্মদ খান জুনো (মে ১৯৮৮) এবং বেনজির ভুট্টো (ফেব্রুয়ারি ১৯৯৫) ফিলিপাইনের সফর করেন। ১৯৬২ সালের জুলাই মাসে ফিলিপাইনের রাষ্ট্রপতি ডিওসডডো ম্যাকাপাগাল পাকিস্তান সফর করেন।

২০০৫ সালে প্রেসিডেন্ট পারভেজ মোশাররফ পাকিস্তানের প্রথম রাষ্ট্রপতি ছিলেন ফিলিপাইন সফর করারেন ফিলিপাইনের রাষ্ট্রপতি গ্লরিয়া ম্যাকাপাগাল-অ্যারোইয়ো এর আমন্ত্রন ও আনুষ্ঠানিকতায়। [৮]

পাকিস্তানে হেলিকপ্টার দুর্ঘটনা[সম্পাদনা]

৮ মে, ২০১৫ তারিখে, ফিলিপাইনের রাষ্ট্রদূত ডমিংগো লুসেনরি, পাকিস্তানের গিলগিট-বালতিস্তান, পাকিস্তানের নালতার উপত্যকায় হেলিকপ্টার দুর্ঘটনায় নিহত হন। [৯]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "Pakistan-Philippines journey to friendship"BusinessMirror। ২৩ মার্চ ২০১৭। সংগ্রহের তারিখ ২৩ মার্চ ২০১৭ 
  2. "Overview of Philippines and Pakistan Relations"Philippine Embassy - Islamabad, Pakistan। Official Gazette of the Philippines। সংগ্রহের তারিখ ফেব্রুয়ারি ২৩, ২০১৭ 
  3. Embassy of Pakistan in Philippines.
  4. Embassy of Philippines in Pakistan
  5. "Why Pakistan matters to the Philippines"। ২৩ জুলাই ২০১১ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২৮ নভেম্বর ২০১৭ 
  6. Pakistan-Philippines Business Council
  7. "Yearbook 2004-2005 Government of Pakistan, Ministry of Labour, Manpower & Overseas Pakistanis (Overseas Pakistanis Division)" (PDF)। ২৪ মে ২০১০ তারিখে মূল (PDF) থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২৮ নভেম্বর ২০১৭ 
  8. Philippines, Pakistan agree to boost intelligence cooperation
  9. "DFA confirms envoy's death in Pakistan chopper crash"। GMA News। ৯ মে ২০১৫। সংগ্রহের তারিখ ৯ মে ২০১৫