পাই দিবস

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
ইউনিভার্সিটি অফ ওয়াটারলুতে বিনামূল্য পাই পরিবেশন করা হচ্ছে।
পাই দিবসের জনক ল্যারি শ।

পাই দিবস ও আপাত পাই দিবস গাণিতিক ধ্রুবক পাই (π)এর সম্মানে উদযাপনের দিন। পাই-এর মান প্রায় ৩.১৪ বলে প্রতি বছর মার্চ ১৪ (৩/১৪) পাই দিবস হিসাবে পালিত হয়। তবে আপাত পাই দিবস নানা দিনে পালিত হয়ে থাকে।

পাই দিবস কখনও কখনও ১৪ই মার্চ দুপুর ১টা ৫৯ মিনিটে উদযাপন করা হয়। ঐ দিন দুপুর ১টা ৫৯ মিনিটকে পাই মিনিট নামে আখ্যায়িত করা হয়। দুপুর ১টা ৫৯ মিনিট ২৬ সেকেন্ডকে পাই সেকেন্ড বলা হয়। পাই সেকেন্ডে পাই দিবস পালনের মধ্য দিয়ে পাইয়ের মানের (৩.১৪১৫৯২৬) কাছাকাছি সময়ে দিবসটি উদযাপন করা সম্ভব হয়।

পাই দিবস আপেক্ষিকতার তত্ত্ব প্রদানের জন্য সুখ্যাত বিজ্ঞানী আইনস্টাইনেরও জন্মদিন।

আপাত পাই দিবস বিভিন্ন দিবসে উদযাপিত হয়ে থাকে। ২২-এ জুলাই (২২/৭) তারিখটি এদের মধ্যে সবচেয়ে পরিচিত। এছাড়াও ১০-ই নভেম্বর, যা কিনা বছরের ৩১৪-তম দিন (অভিবর্ষ বা লিপ ইয়ারের ক্ষেত্রে ৯-ই নভেম্বর) আপাত পাই দিবস হিসেবে উদযাপিত হয়। কোথাও কোথাও ২১-এ ডিসেম্বর (বছরের ৩৫৫-তম দিন) এবং লিপ ইয়ারের ক্ষেত্রে ২০-এ ডিসেম্বর দুপুর ১:১৩ মিনিটে চৈনিক পাই ভগ্নাংশের (৩৫৫/১১৩) সাথে মিল রেখে আপাত পাই দিবস উদযাপন করা হয়। 1.১৯৮৮ সালে প্রথমবারের মতো পাই দিবস পালিত হয় সানফ্রানসিসকো-এর একটি বিজ্ঞান জাদুঘরে। জাদুঘরের বৃত্তাকার স্থানে এর কর্মচারী ও দর্শনার্থীরা মিলে কেক (পাই) খেয়ে দিনটি উদযাপন করেন। [১] ঐ জাদুঘরের কর্মকর্তা ল্যারি শ এই দিবস উদযাপনের উদ্যোক্তা বলে তাকে “পাই‌‌-এর রাজপুত্র” বলা হয়। জাদুঘর কতৃপক্ষ এরই মধ্যে দ্বিতীয় জীবনে প্রথম পাই দিবস উদযাপনকে যোগ করেছে। ম্যাসাচুসেট্‌স ইনস্টিটিউট অফ টেকনোলজি অনেক সময় তাদের নতুন শিক্ষার্থীদের গ্রহণপত্র পাই দিবসে ডাকে দিয়ে থাকে। [২]

বাংলাদেশে পাই দিবস[সম্পাদনা]

২০০৬ সাল থেকে বাংলাদেশে পাই দিবস উদযাপিত হচ্ছে। বাংলাদেশ গণিত অলিম্পিয়াড কমিটির উদ্যোগে দেশে এই দিবস উদযাপন শুরু হয়। দেশের বেশ কিছু গণিত ক্লাব ও শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে নানা আয়োজনের মধ্যে দিবসটি পালিত হয়। আয়োজনের মধ্যে রয়েছে পাই শোভাযাত্রা, পাই-এর মান বলা, পাই নিয়ে আলোচনা ইত্যাদি। এছাড়া রয়েছে পাই দিবসের শুভেচ্ছা বিনিময়। ক্রমেই এটি আরো জনপ্রিয় হয়ে উঠছে।

আরো দেখুন[সম্পাদনা]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. Adrian Apollo (মার্চ ১০, ২০০৭)। "A place where learning pi is a piece of cake"The Fresno Bee। সংগৃহীত ২০০৭-০৩-২১ 
  2. McClan, Erin (মার্চ ১৪, ২০০৭)। "Pi fans meet March 14 (3.14, get it?)"msnbc.com। সংগৃহীত ২০০৮-০১-২৪ 

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]