পরৈকোড়া জমিদার বাড়ি

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
পরৈকোড়া জমিদার বাড়ি
বিকল্প নামযোগেশ চন্দ্র রায়ের জমিদার বাড়ি
সাধারণ তথ্য
ধরনবাসস্থান
অবস্থানআনোয়ারা উপজেলা
ঠিকানাপরৈকোড়া গ্রাম
শহরআনোয়ারা উপজেলা, চট্টগ্রাম জেলা
দেশবাংলাদেশ
খোলা হয়েছে১৬০০ শতকে
স্বত্বাধিকারীশান্তিরাম কানুনগো
কারিগরী বিবরণ
পদার্থইট, সুরকি ও রড

পরৈকোড়া জমিদার বাড়ি বাংলাদেশ এর চট্টগ্রাম জেলার আনোয়ারা উপজেলার পরৈকোড়া গ্রামে অবস্থিত এক ঐতিহাসিক জমিদার বাড়ি। যা অনেকের কাছে ''যোগেশ চন্দ্র রায়ের জমিদার বাড়ি '' নামে ও পরিচিত। [১][২]

ইতিহাস[সম্পাদনা]

জমিদার শান্তিরাম কানুনগো ১৬০০ শতকের দিকে এই জমিদার বংশের গোড়াপত্তন করেন। পরবর্তীতে তার পুত্র দেওয়ান বৈদ্যনাথ এই জমিদারী পরিচালনা করেন। তিনি তার জমিদারীর আমলে তার নামানুসারে চট্টগ্রাম শহরে "দেওয়ান বাজার" নামে একটি হাট প্রতিষ্ঠা করেন। দেওয়ান বৈধ্যনাথের পরে জমিদারী পরিচালনা করেন তার পুত্র হরচন্দ্র রায়। তিনি ছিলেন নিঃসন্তান। তাই তিনি দত্তক নেন গিরিশ চন্দ্রকে। এরপর তিনিই এই জমিদারী পরিচালনা করতে থাকেন। কিন্তু গিরিশ চন্দ্র রায় মাত্র ২৭ বৎসর বয়সে ইন্তেকাল করলে তার স্ত্রী নয়নতারা যোগেশ চন্দ্রকে দত্তক নেন।

পরবর্তীতে তার মৃত্যু হলে এই পুরো জমিদারীর হাল ধরেন যোগেশ চন্দ্র রায়। এরপর তিনি দক্ষতার সাথে এই জমিদারী পরিচালনা করতে থাকেন। তিনি ছিলেন একজন শিক্ষানুরাগী ও প্রজাহিতোষী জমিদার। তিনি পরৈকোড়া এলাকার একটা মধ্য ইংরেজি স্কুলকে তার পালক মায়ের নামে "নয়নতারা উচ্চ বিদ্যালয়" নামকরণ করে উচ্চ বিদ্যালয়ে উন্নীত করেন। তিনি প্রজাদের সুবিধার জন্য অনেক রাস্তাঘাট, ব্রীজ-কালভার্ট ও পুকুর-দিঘী খনন করেন। এছাড়াও তিনি প্রজাদের চিঠি আদান-প্রদানের জন্য তার জমিদারী এলাকায় একটি পোস্ট অফিস এবং চিকিৎসার জন্য একটি হাসপাতাল প্রতিষ্ঠা করেন। তাই তিনি প্রজাদের কাছে একজন সু-পরিচিত জমিদার ছিলেন। তাই এখনো এই জমিদার বাড়িকে তার নামেই অনেকে চেনেন। তিনি ব্রিটিশ সরকারের কাছ থেকে "রায় বাহাদুর" উপাধি লাভ করেন। তারপরে তার ৩ পুত্র এই জমিদারী পরিচালনা করেন। তারা হলেন পূর্ণেন্দু, সুখেন্দু ও অমলেন্দু বিকাশ রায়।[৩][৪]

অবকাঠামো[সম্পাদনা]

বর্তমান অবস্থা[সম্পাদনা]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. আনোয়ারার ইতিহাস ও ঐতিহ্য- পর্ব-১ (পরৈকোড়া জমিদার বাড়ি)- আবদুল আজিম!
  2. মোহাম্মদ মোরশেদ হোসেন, আনোয়ারা। "হারিয়ে যাচ্ছে কালের সাক্ষী"দৈনিক প্রথম আলো। সংগ্রহের তারিখ ২০১৯-০৭-১৩ 
  3. "সাড়ে চার হাজার বছরের প্রাচীন ইতিহাস : প্রসঙ্গ চট্টগ্রাম"The Daily Sangram। সংগ্রহের তারিখ ২০১৯-০৭-১৩ 
  4. আনোয়ারা (চট্টগ্রাম) সংবাদদাতা (১৭ ফেব্রুয়ারি ২০১৯)। "আনোয়ারার পরৈকোড়া জমিদার বাড়ি সংরক্ষণের উদ্যোগ নেই"আমাদের কথা। ১৩ জুলাই ২০১৯ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৩ জুলাই ২০১৯