নেতাজি সুভাষ চন্দ্র বোস গোমো-হাতিয়া লাইন

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
নেতাজি সুভাস চন্দ্র বোস গোমহ-হাতিয়া প্রধান লাইন
Bokaro City Railway Station.jpg
নেতাজি সুভাস চন্দ্র বোস গোমহ-হাতিয়া লাইন বোকারো অতিক্রম করছে
সংক্ষিপ্ত বিবরণ
সিস্টেমবৈদ্যুতিক
অবস্থাসক্রিয়
অঞ্চল
বিরতিস্থলসুভাস চন্দ্র বোস রেলওয়ে স্টেশন
হাতিয়া জংশন রেলওয়ে স্টেশন
ক্রিয়াকলাপ
উদ্বোধন১৯৬১
মালিকভারতীয় রেল
পরিচালক
রোলিং স্টকের ধরনWAP-7 of Tatanagar shed and Howrah shed, WAP-4 of Howrah shed, WAM-4 of Tatanagar Shed and Bokaro Shed and WDM-3A of Bokaro shed
প্রযুক্তিগত
রেলপথের দৈর্ঘ্য১৫২ কিমি (৯৪ মা)
ট্র্যাক গেজ৫ ফুট ৬ ইঞ্চি (১,৬৭৬ মিলিমিটার) ব্রডগেজ
চালন গতি১৩০ কিলোমিটার
সর্বোচ্চ টিলা৬২৮ মিটার
পথের মানচিত্র
টেমপ্লেট:Netaji S.C.Bose Gomoh–Hatia line

নেতাজি সুভাস চন্দ্র বোস গোমোহ-হাতিয়া লাইন একটি রেললাইন যা ভারতের ঝাড়খণ্ড রাজ্যের এনএসসি বোস গোমোহ এবং হাতিয়াকে সংযুক্ত করে। এটি পূর্ব মধ্য রেলওয়ে এবং দক্ষিণ পূর্ব রেলওয়ের আওতাধীন।

ইতিহাস[সম্পাদনা]

২ ফুট ৬ ইঞ্চি (৭৬২ মিলিমিটার) ২ ফুট ৬ ইঞ্চি (৭৬২ মিলিমিটার) -প্রশস্ত ন্যারো-গেজ পুরুলিয়া-রাঁচি লাইনটি ১৯০৭ সালে বেঙ্গল নাগপুর রেলওয়ে দ্বারা খোলা হয়।

১৯০৭ সালে আদ্রা দিয়ে গোমোতে গ্র্যান্ড কর্ডের সাথে সংযুক্ত হয় প্রশস্ত ব্রডগেজ লাইনের মাধ্যমে। ১৪৩ কিলোমিটার (৮৯ মা) দীর্ঘ ব্রডগেজ চন্দ্রপুরা-মুড়ি-রাঁচি-হাতিয়া লাইন ১৯৫৭ সালে শুরু হয় এবং ১৯৬১ সালে শেষ হয়। এই লাইনের নির্মাণের মধ্যে ছিল ন্যারোগেজ কোটশিলা-রাঁচি লাইনকে ব্রডগেজে রূপান্তর করা। ন্যারোগেজ পুরুলিয়া-কোটশিলা সেক্টর ১৯৯২ সালে ব্রডগেজে রূপান্তরিত করা হয়।

বিদ্যুতায়ন[সম্পাদনা]

গোমোহ-চন্দ্রপুরা-ফুসরো সেক্টর ১৯৫৭-৫৮ সালে বিদ্যুতায়িত হয়, ১৯৮৬-৮৭ সালে রাজাবেরা-বোকারো স্টিল সিটি, ১৯৮৮-৮৯ সালে বোকারো স্টিল সিটি ইয়ার্ড, ১৯৯৮-৯৯ সালে রাধাগাঁও-মুরি-কিতা, ১৯৯৮-৯৯ সালে কিতা-নামকোম, ২০০১-০২ সালে নামকুম-রাঁচি-হাতিয়া, ১৯৯৮-৯৯ সালে পুরুলিয়া-কোটশিলা বিদ্যুতায়িত হয়।

লোকো শেড[সম্পাদনা]

নেতাজি এসসি বোস গোমোর একটি বৈদ্যুতিক লোকো শেড রয়েছে যার ধারণক্ষমতা ১২৫+৷ শেডের লোকোগুলির মধ্যে রয়েছে WAG-7, WAG-9, WAG-9I, WAP-7। WAP-7 লোকোগুলি মর্যাদাপূর্ণ হাওড়া রাজধানী এক্সপ্রেস পরিষেবা দেয়৷

রেলওয়ে পুনর্গঠন[সম্পাদনা]

১৯৫২ সালে, ইস্টার্ন রেলওয়ে গঠিত হয় ইস্ট ইন্ডিয়ান রেলওয়ে কোম্পানির একটি অংশ নিয়ে, পূর্বে মুঘলসরাই এবং বেঙ্গল নাগপুর রেলওয়ে । ১৯৫৫ সালে, দক্ষিণ পূর্ব রেলওয়ে পূর্ব রেলওয়ে থেকে খোদাই করা হয়।এটি লাইন নিয়ে গঠিত যা বেশিরভাগই আগে বিএনআর দ্বারা পরিচালিত হয়। [১] পূর্ব মধ্য রেলওয়ে ১৯৯৬-৯৭ সালে তৈরি করা হয়।

এই রুটে কিছু প্রধান ট্রেন:-

  • পুরুষোত্তম এক্সপ্রেস
  • রাঁচি রাজধানী এক্সপ্রেস
  • বোকারো স্টিল সিটি-ভুবনেশ্বর গরীব রথ এক্সপ্রেস
  • ভুবনেশ্বর রাজধানী এক্সপ্রেস
  • হাওড়া-রাঁচি শতাব্দী এক্সপ্রেস
  • ওড়িশা যোগাযোগ ক্রান্তি এক্সপ্রেস
  • ঝাড়খণ্ড যোগাযোগ ক্রান্তি এক্সপ্রেস
  • সম্বলপুর-জম্মু তাউই এক্সপ্রেস
  • ঝাড়খণ্ড স্বর্ণ জয়ন্তী এক্সপ্রেস
  • টাটানগর-অমৃতসর জালিয়ানওয়ালাবাগ এক্সপ্রেস
  • আহমেদাবাদ-কলকাতা এক্সপ্রেস
  • শক্তিপুঞ্জ এক্সপ্রেস
  • হাওড়া-ভোপাল সাপ্তাহিক এক্সপ্রেস
  • রাঁচি-নয়া দিল্লি গরীব রথ এক্সপ্রেস
  • সম্বলপুর-বারানসী এক্সপ্রেস
  • রাঁচি-কামাখ্যা এক্সপ্রেস

এই রুটের রেল বিভাগ:-

  • হাতিয়া-রাঁচি বিভাগ
  • রাঁচি-জোহনা বিভাগ এবং রাঁচি-গৌতমধারা বিভাগ (পাহাড়ের কারণে ট্র্যাকগুলি বিভক্ত)
  • জোনা-মুড়ি বিভাগ এবং গৌতমধারা-মুড়ি বিভাগ (মুড়িতে ট্র্যাকগুলি মিলিত হয়)
  • মুড়ি-কোটশিলা বিভাগ
  • কোটশিলা-বোকারো স্টিল সিটি বিভাগ
  • বোকারো স্টিল সিটি-চন্দ্রপুরা বিভাগ
  • চন্দ্রপুরা-গোমোহ বিভাগ

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. উদ্ধৃতি ত্রুটি: <ref> ট্যাগ বৈধ নয়; zones নামের সূত্রটির জন্য কোন লেখা প্রদান করা হয়নি