ধীরেন্দ্রলাল ধর

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে

ধীরেন্দ্রলাল ধর (১২ জানুয়ারি, ১৯১৩ - ২০ সেপ্টেম্বর ১৯৯১) একজন খ্যাতনামা বাঙালি সাহিত্যিক। তিনি শিশুসাহিত্যে তার অবদানের জন্যে ভারতের জাতীয় পুরস্কার পান।

প্রারম্ভিক জীবন[সম্পাদনা]

ধীরেন্দ্রলাল কলকাতায় জন্মগ্রহণ করেন। পিতার নাম ছিল অমৃতলাল ধর। আর্য মিশন ইনস্টিটিউশন ও বিদ্যাসাগর কলেজ থেকে শিক্ষা সম্পন্ন করেন। তিনি তিনি কর্পোরেশন টিচার্স ট্রেনিং কলেজ থেকে শিক্ষন নেন ও শিক্ষকতা কাজে যোগদান করেন। স্বদেশী মনোভাবাপন্ন ধীরেন্দ্রলাল ১৯২৮ খ্রিষ্টাব্দ থেকে ভারতীয় জাতীয় কংগ্রেস দলের সাথে যুক্ত হন। লবণ সত্যাগ্রহতে অংশ নিয়েছিলেন। পরে হিন্দু মহাসভার যুব শাখাতে যোগ দেন।[১]

সাহিত্য[সম্পাদনা]

সাহিত্যিক ধীরেন্দ্রলাল গল্প, উপন্যাস, গোয়েন্দা ও এডভেঞ্চার কাহিনী, জীবনী, নাটক, প্রবন্ধ সাহিত্যের প্রায় সমস্ত শাখায় অবদান রেখে গেছেন। তার প্রকাশিত গ্রন্থের সংখ্যা শতাধিক। তার প্রথম প্রকাশিত গ্রন্থ 'মৃত্যুর পশ্চাতে' ১৯৩৪ সালে বের হয়। উল্লেখযোগ্য অন্যান্য রচনাগুলির মধ্যে আছে গল্প হলেও সত্যি, আমার দেশের মানুষ, মহাকালের পূজারী, পশ্চিম দিগন্তে, বিপদের বেড়াজাল, সিপাহী যুদ্ধের কাহিনী, অসি বাজে ঝনঝন, এই দেশেরই মেয়ে, রঙমহল, বাংলার ডাকাত, মহাকাল, এডভেঞ্চার অমনিবাস, নালন্দা থেকে লুম্বিনী ইত্যাদি।[২][৩] তার রচিত বড়দের জন্যে লেখা উপন্যাসগুলির মধ্যে রয়েছে রতিবিলাপ, ঢেউ, আলোর ইশারা, বড়সাহেব, বোমা ও বারুদ। ধীরেন্দ্রলাল ধরের লেখা প্রিয়দর্শী অশোক, নীলকর এলো দেশে, মন্দিরে মন্দিরে ইত্যাদি গ্রন্থ পুরষ্কৃত হয়েছে। তিনি বহু বই ও পত্রিকা সম্পাদনাও করেছেন। শিশুসাহিত্যের জন্যে ১৯৭৯ সালে ভারত সরকার দ্বারা জাতীয় পুরস্কার পান ধীরেন্দ্রলাল।[১]

মৃত্যু[সম্পাদনা]

১৯৯১ সালের ২০ সেপ্টেম্বর মারা যান সাহিত্যিক ধীরেন্দ্রলাল ধর।

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. দ্বিতীয় খন্ড, অঞ্জলি বসু সম্পাদিত (২০০৪)। সংসদ বাঙালি চরিতাভিধান। কলকাতা: সাহিত্য সংসদ। পৃষ্ঠা ১৪৩। 
  2. "ধীরেন্দ্রলাল ধর"। সংগ্রহের তারিখ ১০ জুলাই ২০১৭ 
  3. "au: ধীরেন্দ্রলাল ধর"। সংগ্রহের তারিখ ১০ জুলাই ২০১৭