দ্বিতীয় মুস্তাফা

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
দ্বিতীয় মুস্তাফা
مصطفى ثانى
কায়সার-ই রোম
আমিরুল মুমিনিন
খাদেমুল হারামাইন শরিফাইন
উসমানীয় খলিফা
II. Mustafa.jpg
২২তম উসমানীয় সাম্রাজ্যের সুলতান (বাদশাহ)
রাজত্ব৬ ফেব্রুয়ারি ১৬৯৫ – ২২ আগস্ট ১৭০৩
পূর্বসূরিদ্বিতীয় আহমেদ
উত্তরসূরিতৃতীয় আহমেদ
জন্ম৬ ফেব্রুয়ারি ১৬৬৪
এদির্ন প্রাসাদ, এদির্ন, উসমানীয় সাম্রাজ্য
মৃত্যু২৯ ডিসেম্বর ১৭০৩(1703-12-29) (বয়স ৩৯)
তোপকাপি প্রাসাদ, ইস্তাম্বুল, উসমানীয় সাম্রাজ্য
সমাধিতুরহান সুলতানের সমাধি, নতুন মসজিদ, ইস্তাম্বুল
পত্নীসালিহা সুলতান
শেহশুভার সুলতান
আলীকেনাব কাদিন
আফিফা কাদিন
ইভাজ কাদিন
বাহতিয়ার কাদিন
শাহীন কাদিন
বংশধরদেখুন নিচে
পূর্ণ নাম
মুস্তাফা বিন মুহাম্মদ
রাজবংশঅটোমান
পিতাচতুর্থ মুহাম্মদ
মাতাগুলনুস সুলতান
ধর্মসুন্নি ইসলাম
তুগরাদ্বিতীয় মুস্তাফা স্বাক্ষর

দ্বিতীয় মুস্তাফা (/ˈmʊstəfə/; উসমানীয় তুর্কি: مصطفى ثانى Muṣṭafā-yi sānī; ৬ ফেব্রুয়ারি ১৬৬৪ – ২৯ ডিসেম্বর ১৭০৩) ছিলেন ১৬৯৫ থেকে ১৭০৩ পর্যন্ত উসমানীয় সাম্রাজ্যের একজন সুলতান

প্রাথমিক জীবন[সম্পাদনা]

তিনি ১৬৬৪ সালের ৬ ফেব্রুয়ারি এদির্ন প্রাসাদে জন্মগ্রহণ করেছন। তিনি ছিলেন সুলতান চতুর্থ মুহাম্মদ (১৬৪৮-৮৭) এবং গুলনুস সুলতানের পুত্র, যার নাম পূর্ব ছিল ইভেনিয়া,[১] যিনি ছিলেন গ্রিক ক্রিটান বংশোদ্ভূত। [২][৩][৪] দ্বিতীয় মুস্তাফা ১৭০৩ সালে তার ভাই তৃতীয় আহমেদের (১৭০৩-৩০) হাতে সিংহাসন দিয়েছিলেন।

এদির্নে জন্মগ্রহণ করায়, মুস্তাফার শৈশব এখানেই কাটে। ১৬৬৯ সালে তিনি বাবার সাথে মোরা ইয়েনিহিরিতে থাকাকালীন তিনি বেদ-ই বেসিনেলি অনুষ্ঠানে মেহমেদ এফেন্দির কাছ থেকে প্রথম শিক্ষা গ্রহণ করেন। [৫] তার লেখালেখি শিক্ষক ছিলেন বিখ্যাত ক্যালিগ্রাফার হাফিজ ওসমান। ১৬৭৫ সালে তিনি এবং তাঁর ভাই আহমেদের সুন্নতে খতনা হয় এবং তাঁর বোন হেতিজা সুলতান এবং ফাতেমা সুলতান বিবাহ হয়। [৬] উদযাপনটি ২০ দিন স্থায়ী হয়েছিল। [৭]

রাজত্ব[সম্পাদনা]

চরিত্র[সম্পাদনা]

লাল দাড়ি, ছোট ঘাড়, মাঝারি উচ্চতা এবং মহামান্য হিসাবে সম্মানিত করা হয়। দ্বিতীয় মুস্তাফার লেভিনির তৈরি একটি ক্ষুদ্রাকৃতি রয়েছে। ১৬৯৯ এর দিকে, তাঁর পিতার মতো তিনিও শিকার এবং বিনোদন, সাহিত্যে রচনা এবং ছদ্মনাম সহ কবিতা লিখার উপর আগ্রহী হন। এই সুলতানের কৌতূহল ছিল, যারা সেলি, নেসিহ এবং সুলাসের স্টাইলে তীরন্দাজী করতো। সিলাহদার ফাইন্ডিক্লিলি মেহমেদ আঘা, যাকে তাঁর সময়কালের ইতিহাস লেখার দায়িত্ব দেওয়া হয়েছিল। তিনি মুস্তফার রাজত্বকালকে তাঁর বই নুসরতনেমে বর্ণনা করেছেন। [৮]

পরিবার[সম্পাদনা]

পত্নী
পুত্র
  • প্রথম মাহমুদ (২ আগস্ট ১৬৬৯ – ১৩ ডিসেম্বর ১৭৫৪), সালিহা সুলতানের গর্ভের ছেলে;[৯]
  • শাহজাদা সুলাইমান (২৫ ডিসেম্বর ১৬৯৭ – ২৫ ডিসেম্বর ১৬৯৭, এদির্ন প্রাসাদ, এদির্ন, নিউ মসজিদে সমাধিস্ত), আফিফা কাদিনের গর্ভের ছেলে;[৯]
  • শাহজাদা মুহাম্মদ (২২ নভেম্বর ১৬৯৮ – ৫ জুন ১৭০৩, এদির্ন প্রাসাদ, এদির্ন, নিউ মসজিদে সমাধিস্ত), আফিফা কাদিনের গর্ভের ছেলে;[৯]
  • তৃতীয় উসমান (২/৩ জানুয়ারি ১৬৯৯ – ৩০ অক্টোবর ১৭৫৭), শেহশুভার সুলতানের গর্ভের ছেলে;[৯]
  • শাহজাদা হাসান (১৬ এপ্রিল ১৬৯৯ – ২৫ মে ১৭৩৩), ১৭৩০ থেকে উত্তরাধিকারী হয়ে উঠেছে। [৯]
  • শাহজাদা হুসেইন (৭ মে ১৬৯৯ – ২৪ আগস্ট ১৭০০, এদির্ন প্রাসাদ, এদির্ন, নিউ মসজিদে সমাধিস্ত);
  • শাহজাদা সেলিম (১৬ মে ১৭০০ – ৮ জুম ১৭০১, এদির্ন প্রাসাদ, এদির্ন, নিউ মসজিদে সমাধিস্ত), আফিফা কাদিনের গর্ভের ছেলে;[৯]
  • শাহজাদা আহমেদ (৩ মার্চ ১৭০৩ – ৭ সেপ্টেম্বর ১৭০৩, এদির্ন প্রাসাদ, এদির্ন, দারুলহাদীস মসজিদে সমাধিস্ত), আফিফে কাদিনের গর্ভের সন্তান;[৯]
কন্যা
  • আয়শা সুলতান (৩০ এপ্রিল ১৬৯৬ – ২৬ সেপ্টেম্বর ১৭৫২, ইস্তাম্বুল, নিউ মসজিদে সমাধিস্ত);
  • আমিনা সুলতান (১ সেপ্টেম্বর ১৬৯৬ – আনু. ১৭৩৯, ইস্তাম্বুল, নিউ মসজিদে সমাধিস্ত);
  • সাফিয়া সুলতান (১৩ ডিসেম্বর ১৬৯৬ – ১৫ মে ১৭৭৮, ইস্তাম্বুল, নিউ মসজিদে সমাধিস্ত);
  • রুকাইয়া সুলতান (১৩ নভেম্বর ১৬৯৭ – ২৮ মার্চ ১৬৯৮, এদির্ন প্রাসাদ, এদির্ন, দারুলহাদীস মসজিদে সমাধিস্ত);
  • হেতিজা সুলতান (১৪ ফেব্রুয়ারি ১৬৯৮ – কৈশরে মৃত্যু, এদির্ন প্রাসাদ, এদির্ন, দারুলহাদীস মসজিদে সমাধিস্ত;
  • ফাতমা সুলতান (৮ অক্টোবর ১৬৯৯ – ২০ মে ১৭০০, ইস্তাম্বুল, নিউ মসজিদে সমাধিস্ত);
  • ইসমিহান সুলতান (২৩ এপ্রিল ১৭০০ – ১ জুন ১৭০০);
  • উম্মুকুলসুম সুলতান (১০ জুন ১৭০০ – ১ মে ১৭০১, এদির্ন প্রাসাদ, এদির্ন, দারুলহাদীস মসজিদে সমাধিস্ত);
  • জয়নাব সুলতান (১০ জুন ১৭০০ – ১৮ ডিসেম্বর ১৭০৫, ইস্তাম্বুল, নিউ মসজিদে সমাধিস্ত);
  • আমিতুল্লাহ সুলতান (২২ জুন ১৭০১ – ১২ এপ্রিল ১৭২৭, ইস্তাম্বুল, নিউ মসজিদে সমাধিস্ত);

মৃত্যু[সম্পাদনা]

ইস্তাম্বুলে নতুন সুলতানের আগমনের হয়, এদির্ন ফাউন্ডেশন এবং রাজ্য অধিকারের পরে। মুস্তাফা এবং তার রাজকুমারদের ইস্তাম্বুলের তোপকাপি প্রাসাদে এনে তাদের কাফেসে বন্দী করা হয়। মুস্তাফার বন্দী জীবন চার মাস স্হায়ী ছিলো। ১৭০৩ সালের ২৯ডিসেম্বর তিনি ব্যথিত অবস্থায় বা কোন অজানা কারণে মারা যান। তুরস্কের ইস্তাম্বুলের ইমানোনু শহরের নতুন মসজিদে তাঁর দাদী তুরহান হেতিজা সুলতানের পাশে তাঁকে দাফন করা হয়েছিল। [৮]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. Baker, Anthony E (১৯৯৩)। The Bosphorus। Redhouse Press। পৃষ্ঠা 146। আইএসবিএন 975-413-062-0The Valide Sultan was born Evmania Voria, daughter of a Greek priest in a village near Rethymnon on Crete. She was captured by the Turks when they took Rethymnon in 1645. 
  2. Bromley, J. S. (১৯৫৭)। The New Cambridge Modern History। University of California: University Press। পৃষ্ঠা 554। আইএসবিএন 0-521-22128-5the mother of Mustafa II and Ahmed III was a Cretan 
  3. Sardo, Eugenio Lo (১৯৯৯)। Tra greci e turchi: fonti diplomatiche italiane sul Settecento ottomano। Consiglio nazionale delle ricerche। পৃষ্ঠা 82। আইএসবিএন 88-8080-014-0Their mother, a Cretan, lady named Rabia Gulnus, continued to wield influence as the Walide Sultan - mother of the reigning sultan 
  4. Library Information and Research Service (২০০৫)। The Middle East। Library Information and Research Service। পৃষ্ঠা 91। She was the daughter of a Cretan (Greek) family and she was the mother of Mustafa II (1664–1703), and Ahmed III (1673–1736). 
  5. Sakaoğlu 2015, পৃ. 285।
  6. Uluçay 2011, পৃ. 110।
  7. Sakaoğlu 2015, পৃ. 286।
  8. Sakaoğlu 2015, পৃ. 294।
  9. Majer, Hans Georg (১৯৯২)। Osmanlı Araştırmaları XII (The Journal of Ottoman Studies XII): The harem of Mustafa II (1695–1703)। পৃষ্ঠা 435–7, 438। 
  10. Çalık, Sıddık (১৯৯৩)। 1108 Numaralı Harc-ı Hassa Defterinin Transkripsiyonu ve Değerlendirmesi। পৃষ্ঠা 278–79।