দেবপ্রতিম পুরকায়স্থ

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
দেবপ্রতিম পুরকায়স্থ
জন্ম১৯৭৬
আসাম
জাতীয়তাভারতীয়
শিক্ষাবিএসসি (অনার্স)

এমবিএ

পিএইচডি
মাতৃশিক্ষায়তনকটন কলেজ, গুয়াহাটি বিশ্ববিদ্যালয়

উত্কাল বিশ্ববিদ্যালয়, ভুবনেশ্বর

KIIT, ভুবনেশ্বর
পেশাঅধ্যাপক, একাডেমিক নেতা, লেখক
দাম্পত্য সঙ্গীসোমালি পুরকায়স্থ
সন্তানসুপ্রতিম পুরকায়স্থ
পিতা-মাতাদিলীপ কুমার পুরকায়স্থ, অনিমা পুরকায়স্থ
দেবপ্রতিম পুরকায়স্থ

দেবপ্রতিম পুরকায়স্থ (জন্ম ১৯৭৬, আসাম) কৌশল বিভাগের একজন অধ্যাপক, একাডেমিক নেতা এবং কেস পদ্ধতি বিশেষজ্ঞ।[১][২] তিনি অনেক পুরস্কারপ্রাপ্ত[৩] এবং বেস্টসেলিং কেস স্টাডি লিখেছেন যা ম্যানেজমেন্ট বিষয়গুলি পড়ানোর ক্ষেত্রে ব্যবহৃত হয়। তিনি যুক্তরাজ্য ভিত্তিক স্বতন্ত্র কেস পদ্ধতি সংস্থা দ্য কেস সেন্টারের[৪] তালিকাটি প্রথম প্রকাশিত হওয়ার পরে ২০১৬ সাল থেকে প্রতিবছর ১ নম্বর সেরা বিক্রয়কারী লেখক।[৫][৬][৭]

পুরকায়স্থ কে কেস পদ্ধতির চেনাশোনাগুলিতে একটি পরিচিত মুখ হিসাবে বর্ণনা করা হয়েছে[৮], গ্রাফিক উপন্যাস (কমিক বই) ফর্ম্যাট সহ বিভিন্ন উদ্ভাবনী বিষয় এবং ফর্ম্যাটে কেস স্টাডির বিকাশের জন্য তিনি পরিচিত।[৯][১০] ডিসেম্বর ২০১৯-এ শেষ দশকের জন্য, পুরকায়স্থের কেস স্টাডি বিশ্বব্যাপী প্রায় পাঁচ লক্ষ শিক্ষার্থীদের পড়ানোর জন্য ৯০ টিরও বেশি দেশের ১০০০ টিরও বেশি ব্যবসায়িক বিদ্যালয়ে ব্যবহৃত হয়েছিল।[১১]

ভূমিকা এবং দায়িত্ব[সম্পাদনা]

এএসিএসবি-অনুমোদিত আইসিএফএআই বিজনেস স্কুল হায়দরাবাদ [১২] (আইসিএফএআই ফাউন্ডেশন ফর উচ্চশিক্ষা, হায়দরাবাদ) -এ কৌশল শেখানোর পাশাপাশি, পুরকায়স্থ আইবিএস কেস রিসার্চ সেন্টারের নেতৃত্ব দেওয়ার জন্য প্রথমে সহযোগী ডিন, তারপরে ডিন[১১], এবং তারপরেই পরিচালক হিসাবে গণ্য হন।[৯][১৩]

তিনি 'কেস ফোলিও - আইইউপি জার্নাল অফ ম্যানেজমেন্ট কেস স্টাডিজ' এর পরামর্শক সম্পাদকও[১৪], উত্তর আমেরিকার কেস রিসার্চ অ্যাসোসিয়েশন (NACRA) দ্বারা প্রকাশিত 'কেস রিসার্চ জার্নাল' এর সম্পাদকীয় বোর্ডের সদস্য।[২] তিনি ‘দি কেস জার্নাল’, দ্য কেস অ্যাসোসিয়েশনের দাপ্তরিক জার্নাল (Emerald গ্রুপ দ্বারা প্রকাশিত) এবং দ্য কেস সেন্টার দ্বারা প্রকাশিত ‘কেস ফোকাস’ এর সম্পাদকীয় উপদেষ্টা বোর্ডের সদস্য।[৫][১৫]

পুরস্কার এবং স্বীকৃতি[সম্পাদনা]

পুরকায়স্থ দ্য কেস সেন্টারের এক্সিকিউটিভ কমিটি থেকে ২০১৫ সালে ‘কেস পদ্ধতিতে অসামান্য অবদান’ পুরস্কার সহ বেশ কয়েকটি কেস পদ্ধতি পুরস্কার এবং প্রশংসা জিতেছেন।[১৬][১৭] তিনি সর্বকনিষ্ঠ এবং এই সময়ের মধ্যে মাত্র আটজন অধ্যাপকের মধ্যে একজন যিনি এই আজীবন কৃতিত্বের পুরস্কার জিতেছেন [১]। এটিই প্রথমবারের মতো ভারতের কোনও অনুষদের সদস্য এই সম্মানজনক পুরস্কার জিতেছিলেন[১৮] তিনি এই আমেরিকা ও ইউরোপের বাইরের প্রথম শিক্ষকও ছিলেন যিনি এই পুরস্কারটি পেয়েছিলেন এবং দ্য কেস সেন্টারের সর্বকালের শীর্ষ লেখকদের তালিকায় স্থান পেয়েছিলেন (২০১৪ সালে প্রকাশিত, গত ৪০ বছর ব্যাপিত)।[৩][১৯]

পুরকায়স্থের অন্যান্য পুরস্কারগুলি হল নিম্নলিখিত সংস্থা থেকে: একাডেমি অফ ম্যানেজমেন্ট[২০][২১][২২], এমবিএ'র সমিতি (Association of MBA, যুক্তরাজ্য)[১৪], ইএফএমডি (EFMD)[২৩][২৪][২৫][২৬], সিইএমএন (CEEMAN)[২৭], উত্তর আমেরিকা কেস রিসার্চ অ্যাসোসিয়েশন[২৮][২৯], ওকোস ইন্টারন্যাশনাল (সুইজর্লণ্ড)[৩০], দ্য কেস সেন্টার[৪][৮][৩১][৩২][৩৩], জন মলসন স্কুল অফ বিজনেস (কনকর্ডিয়া বিশ্ববিদ্যালয়)[১০][৩৪][৩৫], চীন ইউরোপ আন্তর্জাতিক ব্যবসা স্কুল (CEIBS)[৩৬][৩৭], এএসই বিজনেস স্কুল (পর্তুগাল)[৩৮], সিরাকিউজ বিশ্ববিদ্যালয়[৩৯], ইত্যাদি।[১][২][৫][৪০]

চিত্রশিল্পী সিদ্ধার্থ ঘোষের সাথে গ্রাফিক নভেল ফর্ম্যাটে তিনটি কেস তৈরি করেছেন পুরকায়স্থ[৪১]। সিদ্ধার্থ ঘোষের দ্বারা চিত্রিত 'টারবুলেন্স অন দ্য টারম্যাক' এর জন্য পুরকায়স্থ দ্য কেস সেন্টার থেকে ২০১৯ সালের 'আউটস্ট্যান্ডিং কমপ্যাক্ট কেস' পুরস্কার জিতেছিলেন[৪২]

মার্চ ২০১৮ সালে, পুরকায়স্থকে ক্যারিয়ার 360 এর "অনুষদ গবেষণা পুরস্কার" -র শৃঙ্খলা জুড়ে ভারতের শীর্ষশিক্ষকদের মধ্যে গণ্য করা হয়েছিল, যা ভারত সরকারের তৎকালীন মানবসম্পদ বিকাশ মন্ত্রী প্রকাশ জাভাদেকার উপস্থাপন করেছিলেন।[৪৩]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. Chakravorty, Reshmi (২০১৬-১২-১৩)। "Professor Debapratim Purkayastha: The case study expert"Deccan Chronicle (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০২০-০৬-১৯ 
  2. Sauerbronn, Fernanda Filgueiras, Diochon, Pauline Fatien, Mills, Albert J. and Raufflet, Emmanuel (Eds) (২০১৭)। The Dark Side 3: Critical Cases on the Downside of Business। Routledge। পৃষ্ঠা XI। আইএসবিএন 9781783537570 
  3. Hindustan Times (২০১৫-০৪-০৯)। "Achieving New Milestones in Education"www.pressreader.com। সংগ্রহের তারিখ ২০২০-০৬-১৯ 
  4. BLoC, Team (২০২০-০২-২৬)। "ICFAI Business School bags two Case Centre awards"@bloncampus (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০২০-০৬-১৯ 
  5. "Dr. Debapratim Purkayastha: Best Selling Case Author"Open The Magazine (ইংরেজি ভাষায়)। ২০১৯-১১-০৮। ২০২০-০৬-০৩ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০২০-০৬-১৯ 
  6. "Top 40 Bestselling Case Authors 2018/19"thecasecentre.org (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০২০-০৬-১৯ 
  7. "ICFAI Business School Professor Tops 2018-19 Bestselling Authors List"ANI News (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০২০-০৬-১৯ 
  8. Ethier, Marc (২০১৯-০২-২৫)। "Who Is Writing, & Who Is Teaching, The Best MBA Cases?"Poets&Quants (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০২০-০৬-১৯ 
  9. McCracken, Richard (২০১৯-১১-১৬)। "Teaching cases: Vision, realisation and impact"@businessline (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০২০-০৬-১৯ 
  10. Dhoul, Tim (২০১৭-০৫-৩০)। "Cinematic Scenarios and Comics: The Case Method in Context"QS TopMBA Career Guide (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০২০-০৬-১৯ 
  11. Srrayvinya, Olm (ডিসেম্বর ২০১৯)। "Dr. Debapratim Purkayastha: A Relentless Highflyer & Leader Creating Future - Ready Leaders"education.siliconindia.com। সংগ্রহের তারিখ ২০২০-০৬-১৯ 
  12. Telangana Today (২০২০-০২-১৯)। "ICFAI Business School gets AACSB accreditation"Telangana Today (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০২০-০৬-১৯ 
  13. BLoC, Team (২০২০-০৪-২৭)। "ICFAI Business School among world's most successful case publishers"@businessline (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০২০-০৬-১৯ 
  14. Diochon, Pauline Fatien, Raufflet, Emmanuel and Mills, Albert J. (Eds) (২০১৩)। The Dark Side 2: Critical Cases on the Downside of Business। Greenleaf Publishing। পৃষ্ঠা 126। আইএসবিএন 978-1-906093-92-1 
  15. "Case Focus - editorial board"thecasecentre.org (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০২০-০৬-১৯ 
  16. "Outstanding Contribution to the Case Method 2015 winner"thecasecentre.org (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০২০-০৬-১৯ 
  17. Kamath, Vinay (২০১৫-০৬-০৯)। "'Case studies help students apply theories and concepts in a real-world scenario'"@businessline (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০২০-০৬-১৯ 
  18. Reporter, B. S. (২০১৫-০২-২৭)। "ICFAI B-school professor gets global recognition"Business Standard India। সংগ্রহের তারিখ ২০২০-০৬-১৯ 
  19. "40th anniversary bestselling authors"thecasecentre.org (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০২০-০৬-১৯ 
  20. Telangana Today (২০১৮-০৯-০৩)। "ICFAI Business School Wins Dark Side Case Award in the US"Telangana Today (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০২০-০৬-১৯ 
  21. BLoC, Team (২০১৮-০৮-২১)। "ICFAI Business School wins Dark Side Case Award"@businessline (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০২০-০৬-১৯ 
  22. Telangana Today (২০১৭-০৮-২৮)। "ICFAI Business School case on sexual harassment wins award"Telangana Today (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০২০-০৬-১৯ 
  23. Bradshaw, Della (২০১২-০৪-১৯)। "Oxford and IBS in photo finish for case competition"www.ft.com (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০২০-০৬-১৯ 
  24. The Hans India (২০১৯-০৫-০১)। "IBS wins three EFMD Case awards"www.thehansindia.com (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০২০-০৬-১৯ 
  25. "ICFAI Business School, Hyderabad Wins EFMD Case Award"BW Education (ইংরেজি ভাষায়)। ২০১৭-০৬-২৩। সংগ্রহের তারিখ ২০২০-০৬-১৯ 
  26. BLoC, Team (২০১৬-০৬-১৭)। "Authors from IBS Hyderabad win big at European case study awards"@businessline (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০২০-০৬-১৯ 
  27. "News"www.ceeman.org। সংগ্রহের তারিখ ২০২০-০৬-১৯ 
  28. "IBS Hyderabad wins CMA-Alberta Award for outstanding case in Corporate Governance"India CSR (ইংরেজি ভাষায়)। ২০১১-১১-১৪। সংগ্রহের তারিখ ২০২০-০৬-১৯ 
  29. BLoC, Team (২০১৫-১০-১৭)। "Case from ICFAI Business School Wins Best Case Award at NACRA 2015"@businessline (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০২০-০৬-১৯ 
  30. Vatyam, Nirupa (২০১৮-০৬-০৮)। "ICFAI Business School sweeps Oikos Case Writing Competition 2018 - Times of India"The Times of India। সংগ্রহের তারিখ ২০২০-০৬-১৯ 
  31. Telangana Today (২০১৮-০৩-০৬)। "IBS wins 'Outstanding Case Writer' Award"Telangana Today (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০২০-০৬-১৯ 
  32. Bradshaw, Della (২০১৫-০২-২২)। "Harvard scoops the trophies in the business school 'Oscars'"www.ft.com (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০২০-০৬-১৯ 
  33. BUREAU, OUR (২০১৪-০৯-২৩)। "ICFAI Business School faculty wins The Case Centre, UK Award"@businessline (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০২০-০৬-১৯ 
  34. Editor, D2C (২০১৯-০২-১২)। "ICFAI B-school wins two prizes in an International Writing Contest -"Dare2Compete (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০২০-০৬-১৯ 
  35. "Past cases | John Molson MBA International Case Competition" (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০২০-০৬-১৯ 
  36. Sridhar, G. Naga (২০১৬-০৫-২৬)। "ICFAI Business School authors win global case studies contest"@businessline (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০২০-০৬-১৯ 
  37. Eds. (২০১৯)। China-Focused Cases Selected Winners of the CEIBS Global Case Contest। Springer। পৃষ্ঠা 57 and 137। আইএসবিএন 978-981-13-2706-3 
  38. Bureau, Our (২০১৪-০৩-০৫)। "ICFAI study wins Case Award"@businessline (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০২০-০৬-১৯ 
  39. BLoC, Team (২০১৯-০৬-০৭)। "ICFAI B-school wins two prestigious awards"@businessline (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০২০-০৬-১৯ 
  40. Bureau, Our (২০১৬-০৩-০২)। "Faculty from ICFAI Business School, Hyderabad, win Case Centre awards"@businessline (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০২০-০৬-১৯ 
  41. "Featured case: Turbulence on the Tarmac"thecasecentre.org (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০২০-০৬-২৭ 
  42. BizEd Magazine (২০১৯-০৪-২২)। "Case Centre Announces 2019 Case Writing Winners"bized.aacsb.edu। সংগ্রহের তারিখ ২০২০-০৬-২৭ 
  43. Telangana Today (২০১৮-০৩-২৬)। "IBS professor in top faculty"Telangana Today (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০২০-০৬-১৯