দুর্বার মহিলা সমন্বয় সমিতি

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
দুর্বার মহিলা সমন্বয় সমিতি
সংক্ষেপেডিএমএসসি
গঠিত১৯৯৫[১]
ধরণসি বি ও
অবস্থান
যে অঞ্চলে কাজ করে
পশ্চিমবঙ্গ
সদস্যপদ
যৌনকর্মী
সভাপতি
পুতুল সরকার
সচিব
কাজল বোস
উপদেষ্টা
ভারতী দে
প্রধান পরামর্শদাতা, প্রতিষ্ঠাতা [২]
ডাক্তার স্মরজিত জানা
ওয়েবসাইটwww.durbar.org

দুর্বার মহিলা সমন্বয় সমিতি (ইংরেজি: Durbar Mahila Samanwaya Committee অথবা দুর্বার পশ্চিমবঙ্গের ৬৫ হাজার যৌনকর্মীর সমষ্টিগত দল। ১৯৯২ সালের ১৫ ফেব্রুয়ারি কলকাতায় সবচেয়ে বড় নিষিদ্ধ পল্লী সোনাগাছিতে প্রতিষ্ঠিত দুর্বার, ভারতের আনুমানিক ১১ হাজার যৌনকর্মীর সাথে, নারী অধিকার, যৌনকর্মীদের অধিকার সমর্থন, মানব পাচার বিরোধী এবং এইচআইভি / এইডস প্রতিরোধ নিয়ে কাজ করছে।[১][৩] ফোর্ড ফাউন্ডেশন এবং ন্যাশনাল এডস কন্ট্রোল অর্গানাইজেশন (এন এ সি ও), ইত্যাদি সংস্থাগুলির সাহায্যে পশ্চিমবঙ্গে যৌন কর্মীদের জন্য ৫১ টি বিনামূল্যের ক্লিনিক চালানো হয়, যারা নেটওয়ার্কিং, অধিকার সুরক্ষা এবং যৌনকর্মীদের জন্য বিকল্প জীবিকা তৈরির মতো উদ্যোগেও সহায়তা করে।[৪]

পতিতাবৃত্তিকে বৈধ পেশা এবং যৌন কর্মীদের কর্মী হিসেবে স্বীকৃতির লড়াইয়ের জন্য এবং, যৌনকর্মীদের তথা তাদের সন্তানদের জন্য নিরাপদ সামাজিক অস্তিত্বের জন্য দলটি লক্ষ্যমাত্রায় স্পষ্টত রাজনৈতিক। তারা পতিতাবৃত্তি বৈধকরণের জন্য কাজ করে এবং আইন সংস্কারের চেষ্টা করে যা যৌন মানবাধিকারকে সীমাবদ্ধ করে।

ইতিহাস[সম্পাদনা]

১৯৯২ সালের ১৫ ফেব্রুয়ারি, কলকাতার অল ইন্ডিয়া ইনস্টিটিউট অব সায়েন্স এন্ড পাবলিক হেল্থের একজন জনস্বাস্থ্য বিজ্ঞানী ডঃ স্মরজিৎ জানা এইচআইভি সম্পর্কিত গবেষণার জন্য সোনাগাছির নিষিদ্ধ পল্লী এলাকা পরিদর্শন করেন। একটি সমগোত্রীয় শিক্ষা দল যৌন কর্মীদের মধ্যে থেকে গঠিত হয় এবং তাঁদের প্রশিক্ষণ প্রদান করা হয়। অল্প কিছুদিন পরে, গবেষণায় যৌনকর্মীদের মধ্যে যৌন বিষয়ক অধিকার, তাদের সন্তানদের শিক্ষা, আর্থিক পরিষেবাগুলি উপলব্ধতা এবং পুলিশ এবং স্থানীয় গুন্ডাগুলির দ্বারা হয়রানির শিকার হওয়ার সমস্যাগুলি উঠে আসে সাথে কন্ডোম ব্যবহারের প্রসার ঘটে। এভাবে ১৯৯৫ সালে তিনি ১২ জন যৌনকর্মীকে অংশীদার হিসাবে নিয়ে 'দুর্বার মহিলা সমিতি কমিটি' (ডিএমএসসি) গঠন করেন। ২০১২ সালের মধ্যে ডিএমএসসি পশ্চিমবঙ্গের ৪৮ টি শাখার মধ্য থেকে ৬৫ হাজার সদস্যের সদস্যপদ লাভ করে এবং যেগুলি যৌন কর্মীদের দ্বারা পরিচালিত হয়, তাদের সন্তান এবং সরকারি কর্মকর্তারা তাদের বোর্ড সদস্য হিসাবে থাকেন। কেবল নারই যৌনকর্মীই নয় বরং পুরুষ এবং ট্রান্সজেন্ডার যৌনকর্মীরাও এতে সদস্য হন। [১][৫][৬]

এইচআইভি / এইডস প্রকল্প[সম্পাদনা]

দুর্বার এসটিডি / এইচআইভির ইন্টারভেন্সান প্রোগ্রাম (সাধারণত সোনাগাছি প্রকল্প নামে পরিচিত) ১৯৯৯ সাল থেকে চালু হয়। সোনাগাছি প্রকল্পের মালিকানা ও ব্যবস্থাপনা অল ইন্ডিয়া ইনস্টিটিউট অফ হাইজিন অ্যান্ড পাবলিক হেলথ, যেটি কলকাতায় অবস্থিত একটি কেন্দ্রীয় সরকারি পাবলিক হেলথ ট্রেনিং অ্যান্ড রিসার্চ ইনস্টিটিউট, যারা ১৯৯২ সালে এই প্রোগ্রামটি শুরু করে তাঁদের থেকে ডিএমএসসি কর্তৃক গৃহীত হয়।[৭] ১৯৯৯সালে এস.টি.ডি / এইচআইভি ইন্টারভেনশন প্রোগ্রাম নিয়ন্ত্রণ লাভের পর, ডিএমএসসি পশ্চিমবঙ্গের অন্যান্য নিষিদ্ধ এলাকায় সোনাগাছি মডেলের প্রতিলিপি করা শুরু করেন।[৮]

হাফ স্কাই: টার্নিং অপ্রেসান ইনটু অপারচুনিটি ফর উইমেন ওয়ার্ল্ড ওয়াইড (পৃথিবী জুড়ে মহিলাদের সুযোগের মধ্যে নিপীড়ন) বইটি বিবৃত নীতির বিপরীতে তথ্য প্রদান করার চেষ্টা করেছে, ডিএমএসসি তাদের পতিতালয়ে যৌন দাসত্ব, পাচার এবং নাবালিকাদের অনুমতি দেয়।.[৯]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "The new rhythms of Sonagachi: As the city's sex workers collective turns 20..."Mint। ২৪ ফেব্রুয়ারি ২০১২। 
  2. "মালদহে দুর্বারের জন্মদিন পালন"। সংগ্রহের তারিখ ১৩ মার্চ ২০১৮ 
  3. A missionary enterprise Frontline, Volume 22 - Issue 08, 12 - 25 Mar. 2005
  4. "Sex workers' union gives them the power to say no"Mint। ৩০ নভেম্বর ২০০৯। 
  5. History of Durbar
  6. Bagchi, p. 124
  7. The Songachi project is 12! NGO Connect The Shakti Newsletter Issue 18. Jan / Feb 2004
  8. "DEAD ZONES: Fighting Back in India.; Calcutta's Prostitutes Lead the Fight on AIDS"New York Times। ৪ জানুয়ারি ১৯৯৯। 
  9. Kristof, Nicholas D.; Sheryl WuDunn. 2009. Half the Sky: Turning Oppression into Opportunity for Women Worldwide

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]