দুর্গেশগড়ের গুপ্তধন

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
দুর্গেশগড়ের গুপ্তধন
দুর্গেশগড়ের গুপ্তধন.jpg
দুর্গেশগড়ের গুপ্তধন চলচ্চিত্রের পোস্টার
পরিচালকধ্রুব বন্দ্যোপাধ্যায়
প্রযোজকমহেন্দ্র সোনি
শ্রীকান্ত মোহতা
রচয়িতাশুভেন্দু দাশমুন্সি
শ্রেষ্ঠাংশেআবীর চট্টোপাধ্যায়
অর্জুন চক্রবর্তী
ঈশা সাহা
কৌশিক সেন
অরিন্দম শীল
সুরকারবিক্রম ঘোষ
চিত্রগ্রাহকসৌমিক হালদার
সম্পাদকসঞ্জীব কুমার দত্ত
প্রযোজনা
কোম্পানি
মুক্তি
  • ২৪ মে ২০১৮ (2018-05-24) (ভারত)
দেশভারত
ভাষাবাংলা
আয়₹৬ কোটি[১][২]

দুর্গেশগড়ের গুপ্তধন হল ২০১৯ সালের ২৪ মে মুক্তিপ্রাপ্ত একটি বাংলা অ্যাকশন, অ্যাডভেঞ্চার ও রহস্যধর্মী চলচ্চিত্র। শুভেন্দু দাশমুন্সি রচিত কাহিনি অবলম্বনে এই ছবিটি পরিচালনা করেন ধ্রুব বন্দ্যোপাধ্যায় এবং শ্রীকান্ত মোহতা ও মহেন্দ্র সোনি শ্রী ভেঙ্কটেশ ফিল্মসের ব্যানারে ছবিটি প্রযোজনা করেন।[৩] ২৪ মে মুক্তি পাওয়ার পর টানা ১০০ দিনের বেশি প্রদর্শিত হয় ছবিটি এবং এই ১০০ দিনে ছবিটি পশ্চিমবঙ্গে মোট ৬,০০০ টি শো'তে এবং পশ্চিমবঙ্গের বাইরে জাতীয় স্তরে ২৯৪ টি শো'তে প্রদর্শিত হয়।[৪]

চিত্রনাট্য[সম্পাদনা]

ইতিহাসের অধ্যাপক সুবর্ণা সেন ওরফে সোনা দা, আবির ও ঝিনুকের সাথে সোনার দা'র এক ছাত্রের দুর্গেশগরে অবস্থিত পৈতৃক প্রাসাদ দেখার সিদ্ধান্ত নেন। এই ছাত্রের ঠাকুরদা ছিলেন এককালের জমিদার এবং বাংলার খ্যাতনামা শিল্পী। পরিবারে একটি রূপকথার প্রচলন রয়েছে যে তারা একবারে একটি বিশাল অর্থ-সম্পদ পেয়েছিল, তবে এর সমস্ত চিহ্ন এবং পথচিহ্নগুলি হারিয়ে গেছে। আবির ও ঝিনুকের সাথে সোনা দা দুর্গেশগরের সেই মঞ্চে দুর্গাপূজার উৎসবে অংশ গ্রহণ করে এবং হারিয়ে যাওয়া সূত্র ধরেই বাংলার সর্বশ্রেষ্ঠ ধন খুঁজতে নিয়জিত হয়।

শ্রেষ্ঠাংশে[সম্পাদনা]

নির্মাণ[সম্পাদনা]

সঙ্গীত[সম্পাদনা]

দুর্গেশগড়ের গুপ্তধন
বিক্রম ঘোষ কর্তৃক সাউন্ডট্র্যাক অ্যালবাম
মুক্তির তারিখমে ২০১৯
শব্দধারণের সময়২০১৯
শব্দধারণকেন্দ্রবিক্রম ঘোষ স্টুডিও
ঘরানাচলচ্চিত্রের গান
দৈর্ঘ্য১১:৫০
সঙ্গীত প্রকাশনীএসভিএফ মিউজিক
প্রযোজকবিক্রম ঘোষ

ছবির আবহ সঙ্গীত এবং গানগুলিতে বিক্রম ঘোষ সুর দিয়েছেন এবং গানগুলি শুভেন্দু দাস মুন্সী দ্বারা রচিত।

গানের তালিকা
নং.শিরোনামগীতিকারসুরকারকণ্ঠশিল্পীদৈর্ঘ্য
১."হিস্ট্রি র‌্যাপ ভোল. ২"শুভেন্দু দাস মুন্সিবিক্রম ঘোষবিক্রম ঘোষ৩:৩৯
২."মা গো তুই"শুভেন্দু দাস মুন্সিবিক্রম ঘোষমনোময় ভট্টাচার্য্য, সোমচন্দা ভট্টাচার্য১:৫৯
৩."ডুব দে রে মন"শুভেন্দু দাস মুন্সিবিক্রম ঘোষনির্মাল্য রায়২:১৫
৪."কলাবৌ গান"শুভেন্দু দাস মুন্সিবিক্রম ঘোষনির্মাল্য রায়১:৫১
৫."দুর্গেশগড়ের মাসুম"শুভেন্দু দাস মুন্সিবিক্রম ঘোষনির্মাল্য রায়, ইমন চক্রবর্তী২:০৬
মোট দৈর্ঘ্য:১১:৫০

প্রচার ও মুক্তি[সম্পাদনা]

দুর্গেশগড়ের গুপ্তধন ছবির মোশান পোস্টার উদ্বোধনের অনুষ্ঠানে আবীর চট্টোপাধ্যায়, অর্জুন চক্রবর্তী ও ঈশা সাহা।

প্রতিক্রিয়া[সম্পাদনা]

সমালোচনা[সম্পাদনা]

আগের ছবি গুপ্তোধনর সন্ধানে-এর পরে দুর্গেশগোরার গুপ্তোধনও বক্স অফিসে হিট হয়।[৬] সিনেমাটি বেশিরভাগ সমালোচকদের কাছ থেকে ইতিবাচক পর্যালোচনা পেয়েছিল। টাইমস অফ ইন্ডিয়ার উপম বুজারবারুহ এই ছবিকে ৫ এর মধ্যে ৩.৫ রেটিং প্রদান করেন।[৭] আনন্দবাজার পত্রিকার অন্তরা মজুমদার ১০ এর মধ্যে ৬.৫ রেটিং প্রদান করেন।[৮] ফার্স্টপোস্ট-এর সম্পাদক ভাস্কর চট্টোপাধ্যায় সিনেমাটিকে ৫ এর মধ্যে ৩ রেট প্রদান করে বলেন "দুর্গেশগোরের গুপ্তোধনও তাঁর আগের ছবিটির মতোই ত্রয়ীর দু: সাহসিক কাহিনী দেখায়, ছবিটি এখন অবধি তরুণ ও বৃদ্ধ উভয় দর্শকের কল্পনা জাগিয়ে তুলেছে। ইতিহাস ও শ্রাবণের ঝলমলে মেরিনেডের স্বাদযুক্ত এবং ধাঁধা, সমাধান এবং গোপনীয় সংকেতগুলি যথেষ্ট পরিমাণে সজ্জিত, এটি সাম্প্রতিক সময়ে অন্যতম বুদ্ধিমান বাংলা চলচ্চিত্র। ধাঁধাটি জাল বা জোর পূর্বক প্রদান করা হয়েছে বলে মনে হয় না, সংকেতটি ডিকোড করা আসলেই বেশ উত্তেজনাপূর্ণ এবং কাহিনীর সামগ্রিক উজ্জ্বল প্রকৃতি এটি নিশ্চিত করে যে সমালোচকদের সবচেয়ে কঠোরতম ও খুব ভাল সময় কাটায় ছবিতে"।[৯]

আয়[সম্পাদনা]

দুর্গেশগড়ের গুপ্তধন-এর প্রযোজনা সংস্থা এসভিএফ জানায় ছবিটি মুক্তির প্রথম তিন দিনে এর ব্যবসার পরিমাণ ছিল ₹১.২৫ কোটি টাকা। প্রথম সপ্তাহে দুর্গেশগড়ের গুপ্তধন ব্যবসা করেছিল ₹২.২৫ কোটি টাকা। মুক্তির পর টানা ১০ দিনে ছবিটির বক্স অফিস কালেকশন ₹৩.২০ কোটি টাকা। ছবিটি পশ্চিমবঙ্গের পাশাপাশি ভারতের অন্য রাজ্যে বেশকিছু হলে সাফল্যের সঙ্গে প্রদর্শিত হয়। ২০১৯ সালে যে সমস্ত বাংলা ছবি পশ্চিমবঙ্গে ও জাতীয়স্তরে মুক্তি পেয়েছে, তাদের মধ্যে এই ছবিটিই সর্বোচ্চ আয়কারি চলচ্চিত্র। দুর্গেশগড়ের গুপ্তধন ছবিটিকে 'ব্লকবাস্টার' হিসাবে উল্লেখ করে ফিল্ম সমালোচকেরা।[২][১০][১১] ছবিটি পশ্চিমবঙ্গে প্রায় ₹৫.৭০ কোটি টাকা আয় করে এবং পশ্চিমবঙ্গের বাইরে মুম্বাই, বেঙ্গালুরুদিল্লী জাতীয় রাজধানী অঞ্চল থেকে মোট ₹৩০ লাখ টাকা আয় করে। ছবিটি সর্বমোট ₹৬ কোটি টাকা আয় করে।[১]

পশ্চিমবঙ্গে ৩৫টি এবং জাতীয় স্তরে চারটি সিনেমা হলে হাউজফুলেরও রেকর্ড করে এই ছবি।[১০]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "Durgeshgorer Guptodhon Box Office Collection Till Date" 
  2. "বক্স অফিসে দাপিয়ে বেড়াচ্ছে 'দুর্গেশগড়ের গুপ্তধন'"। zeenews.india.com/bengali। ৪ জুন ২০১৯। সংগ্রহের তারিখ ৫ জুন ২০১৯ 
  3. "রিভিউ দুর্গেশগড়ের গুপ্তধন: রহস্য-ইতিহাসের জমজমাট যুগলবন্দি"। movies.ndtv.com/bengali। ২৫ মে ২০১৯। সংগ্রহের তারিখ ৬ জুন ২০১৯ 
  4. "Durgeshgorer Guptodhon completes 100 days in box office"। ২ সেপ্টেম্বর ২০১৯। সংগ্রহের তারিখ ২ জানুয়ারি ২০১৯ 
  5. "বাংলার নতুন গোয়েন্দা সোনাদা - বিশ্ব বাংলা সংবাদ"। ১ এপ্রিল ২০১৮। ১৫ জুন ২০১৮ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২৫ অক্টোবর ২০১৮ 
  6. "No Hindi remake of 'Durgeshgorer Guptodhon'!"। TNN। 
  7. Buzarbaruah, Upam। "DURGESHGORER GUPTODHON MOVIE REVIEW" 
  8. মজুমদার, অন্তরা। "ইতিহাস আর কল্পনার রোমাঞ্চকর বুনট" 
  9. Chattopadhyay, Bhaskar। "Dhrubo Banerjee delivers another enjoyable adventure thriller" 
  10. "দুর্গেশগড়ের গুপ্তধন'-এও সাফল্যে পেলেন 'সোনাদা'"। www.anandabazar.com। ৪ জুন ২০১৯। সংগ্রহের তারিখ ৫ জুন ২০১৯ 
  11. "২০১৯ এসভিএফ-এর সোনায় সোহাগা"। eisamay.indiatimes.com। ৪ জুন ২০১৯। সংগ্রহের তারিখ ৫ জুন ২০১৯ 

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]