থিয়েনকুং মহাকাশ স্টেশন

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
থিয়েনকুং মহাকাশ স্টেশন[১]
২০২২ সালের জুলাই মাস পর্যন্ত থিয়েনকুং মহাকাশ স্টেশনের বর্তমান নির্মাণ অবস্থার কাল্পনিক চিত্র। চিত্রের মাঝখানে থিয়েনহো কোর মডিউল, বাম দিকে ওয়েনথিয়েন মডিউল, ডানদিকে মেংথিয়েন এবং নিম্নতম বিন্দুতে শেনচৌকে দেখা যাচ্ছে।
২০২২ সালের জুলাই মাস পর্যন্ত থিয়েনকুং মহাকাশ স্টেশনের বর্তমান নির্মাণ অবস্থার কাল্পনিক চিত্র। চিত্রের মাঝখানে থিয়েনহো কোর মডিউল, বাম দিকে ওয়েনথিয়েন মডিউল, ডানদিকে মেংথিয়েন এবং নিম্নতম বিন্দুতে শেনচৌকে দেখা যাচ্ছে।
স্টেশনের পরিসংখ্যান
ক্রু সংখ্যা:সম্পূর্ণ মহাকাশচারী: ৩-৬[২]
বর্তমানে রয়েছে: ৩
অভিযান: ৩
কমান্ডার: ছেন তুং
উৎক্ষেপণ:২৯ এপ্রিল ২০২১ (থিয়েনহো)
২৪ জুলাই ২০২২ (ওয়েনথিয়েন)
অক্টোবর ২০২২ (মেংথিয়েন)
ডিসেম্বর ২০২৩ (শিংথিয়েন)
উৎক্ষেপণ মঞ্চ:ওয়েনছাং মহাকাশ উৎক্ষেপণ স্থল এলসি-১
অভিযানের বর্তমান অবস্থা:নির্মানাধীন
ভর:১,০০,০০০ কেজি (সম্পূর্ণ হওয়ার পরে)
দৈর্ঘ্য:~ ২০.০০ মিটার
ব্যাস:~ ৪.২০ মিটার
লিভিং আয়তন:বাসযোগ্য: ১১০ মি (৩,৮৮০ ঘনফুট) (পরিকল্পিত)
অনুভূ:৩৮৯.৫ কিমি[৩]
অপভূ:৩৯৫ কিমি[৩]
কক্ষপথের নতি:৪১.৫৮°[৩]
প্রতিরূপ কক্ষপথের কৌণিক দূরত্ব:৩৮৯.২ কিমি[৩]
গড় দ্রুতি:৭.৬৮ কিমি/সে[৩]
কক্ষীয় পর্যায়:৯২.২ মিনিট[৪]
কক্ষপথে অতিক্রান্ত দিন:৫৬২ দিন, ২৩ ঘণ্টা, ৫৫ মিনিট
(১৩ নভেম্বর ২০২২)
পরিব্যাপ্ত দিন:৪৩২ দিন, ৯ ঘণ্টা ও ৩৪ মিনিট
(১৩ নভেম্বর ২০২২)
৬ জুন ২০২২ অনুযায়ী পরিসংখ্যান
থিয়েনকুং মহাকাশ স্টেশন[১]

থিয়েনকুং'[৫][৬][৭] মহাকাশ স্টেশন চীনের দ্বারা ভূমিপৃষ্ঠ থেকে ৩৪০ কিলোমিটার থেকে ৪৫০ কিলোমিটারের (২১০-২৮০ মাইল) মধ্যে নিম্ন পার্থিব কক্ষপথে নির্মিত হচ্ছে। এটি চীনের মনুষ্যবাহী মহাকাশ কর্মসূচির "তৃতীয় ধাপ"-এর লক্ষ্য হিসাবে চীনের প্রথম দীর্ঘমেয়াদী মহাকাশ স্টেশন নির্মাণ করা হচ্ছে। থিয়েনকুং মহাকাশ স্টেশনটি আন্তর্জাতিক মহাকাশ কেন্দ্রের ওজনের প্রায় পাঁচ ভাগের এক ভাগ এবং রুশ মির মহাকাশ স্টেশনের আকারের প্রায় সমান। থিয়েনকুংয়ের ভর ৮০ টন থেকে ১০০ টনের (১,৮০,০০০ পাউন্ড থেকে ২,২০,০০০ পাউন্ড) মধ্যে থাকবে বলে আশা করা হচ্ছে।

স্টেশনটি পূর্বসূরি থিয়েনকুং-১থিয়েনকুং-২ থেকে প্রাপ্ত অভিজ্ঞতার উপর ভিত্তি করে নির্মাণ হচ্ছে।[৮][৯][১০] মূল মডিউল থিয়েনহো ("স্বর্গের সুরেলা") ২০২১ সালের ২৯ এপ্রিল উৎক্ষেপণ করা হয়,[৫][৭] এরপর একাধিক মহাকাশচারী ও মহাকাশচারী বিহীন অভিযান এবং আরও দুটি মডিউল ২০২২ সালে উৎক্ষেপণ করা হবে।[৮] চৈনিক নেতারা আশা প্রকাশ করেছেন, যে স্টেশনটিতে পরিচালিত গবেষণা চীনের বিদ্যমান মহাকাশ গবেষণাগারগুলির প্রস্তাবিত সময়কাল ও ক্ষমতার বাইরে মহাকাশে বিজ্ঞান পরীক্ষা চালানোর জন্য গবেষকদের ক্ষমতাকে উন্নত করবে।[১১]

উদ্দেশ্য ও অভিযান[সম্পাদনা]

মহাকাশ স্টেশন পরিচালনাকারী সিএমএসএ-এর মতে, থিয়েনকুং-এর উদ্দেশ্য ও অভিযানে মহাকাশযানের মিলন প্রযুক্তির আরও উন্নয়ন; কক্ষপথে স্থায়ী মানব ক্রিয়াকলাপ, মহাকাশ স্টেশনের দীর্ঘমেয়াদী স্বায়ত্তশাসিত মহাকাশ উড্ডয়ন, পুনরুত্পাদনশীল জীবন সমর্থনকারী প্রযুক্তি এবং স্বায়ত্তশাসিত পণ্যসম্ভার ও জ্বালানী সরবরাহ প্রযুক্তির মতো গুরুত্বপূর্ণ প্রযুক্তিগুলিতে অগ্রগতি; পরবর্তী প্রজন্মের কক্ষপথ পরিবহন যানবাহনের পরীক্ষা; কক্ষপথে বড় আকারে বৈজ্ঞানিক ও ব্যবহারিক প্রয়োগ; ভবিষ্যতে গভীর মহাকাশ অনুসন্ধানে সহায়তা করতে সক্ষম প্রযুক্তির উন্নয়নকে তালিকাভুক্ত করা হয়েছে।[১২][১৩][১৪]

এছাড়াও, বেসরকারি খাতের বাণিজ্যিক কার্যক্রমকে উৎসাহিত করা হচ্ছে, চীনের মানব মহাকাশ যাত্রা কর্মসূচি নকশা অনুসারে: “যখন আমাদের মহাকাশ স্টেশন সম্পূর্ণ হবে ও চলমান হবে, আমরা সক্রিয়ভাবে বেসরকারি খাতকে বিভিন্ন উপায়ে মহাকাশে নিযুক্ত হতে উত্সাহিত করব।” “আমরা আশা করি মহাকাশ প্রয়োগ ও মহাকাশ সম্পদ উন্নয়ন সহ ক্ষেত্রগুলিতে অংশগ্রহণের জন্য প্রতিযোগিতামূলক, খরচ-দক্ষ বাণিজ্যিক মহাকাশ সংস্থা থাকবে।”[১৫]

কার্যক্রমসমূহ চীনের বেইজিং বেইজিং বায়বাকাশ উড্ডয়ন নিয়ন্ত্রণ কেন্দ্র থেকে নিয়ন্ত্রণ করা হবে। জাহাজে থাকা মহাকাশচারীদের নিরাপত্তা নিশ্চিত করার জন্য একটি শেনচৌ মহাকাশযান সহ একটি লং মার্চ ২এফ রকেট সর্বদা একটি জরুরি উদ্ধার অভিযানের জন্য অপেক্ষমাণ থাকবে।[১৬]

গঠন[সম্পাদনা]

মহাকাশ স্টেশনটি তৃতীয় প্রজন্মের মডুলার মহাকাশ স্টেশন হবে। প্রথম প্রজন্মের মহাকাশ স্টেশন, যেমন প্রথম দিকে সালিয়ুত, আলমাজস্কাইল্যাব একক টুকরো স্টেশন ছিল এবং পুনর্নির্মাণের জন্য নকশাকৃত করা হয়নি। দ্বিতীয় প্রজন্মের সালিয়ুত ৬ ও ৭ এবং থিয়েনকুং ১ ও ২ স্টেশনসমূহ অভিযান চলাকালীন সময়ে পুনর্নির্মাণের জন্য নকশা করা হয়। তৃতীয় প্রজন্মের স্টেশনসমূহ, যেমন মিরআন্তর্জাতিক মহাকাশ স্টেশন উপাংশভিত্তিক মহাকাশ স্টেশনসমূহ পৃথকভাবে উৎক্ষেপন করা উপাংশসমূহ কক্ষপথে একত্রিত হয়। উপাংশে বিভাজিত নকশার পদ্ধতিগুলি বেশি নির্ভরযোগ্য ও অর্থসাশ্রয়ী, এগুলির নির্মাণচক্র সংক্ষিপ্ত হয়ে থাকে এবং এগুলি বিভিন্ন কাজের প্রয়োজনীয়তা পূরণ করতে পারে।[৮]

সৌর প্যানেলসৌর প্যানেল
সৌর প্যানেলসৌর প্যানেলডকিং বন্দরসৌর প্যানেলসৌর প্যানেল
ওয়েনথিয়েন
পরীক্ষাগার
থিয়েনহো
পরিষেবা মডিউল
মেংথিয়েন
পরীক্ষাগার
সৌর প্যানেলইভিএ হ্যাচডকিং বন্দরডকিং বন্দরসৌর প্যানেল

মডিউল[সম্পাদনা]

"থিয়েনহো" কোর মডিউলের ২০২১ সালে উৎক্ষেপিত হওয়ার আগের ছবি।
"ওয়েনথিয়েন" পরীক্ষাগার কেবিন মডিউলের ২০২২ সালে উৎক্ষেপিত হওয়ার আগের ছবি।

প্রাথমিক লক্ষ্য রূপরেখাটি ২০২২ সালের সমাপ্তি পর্যন্ত জন্য তিনটি মডিউল নিয়ে গঠিত, যা ভবিষ্যতে ছয়টিতে প্রসারিত হতে পারে।[১৭]

থিয়েনহো কোর কেবিন মডিউল (সিসিএম) তিনজন মহাকাশচারী সদস্যের জন্য জীবন রক্ষাকারী ব্যবস্থা ও বসবাসের কোয়ার্টার সরবরাহ করে এবং স্টেশনের জন্য নির্দেশিকা, নেভিগেশন ও ওরিয়েন্টেশন নিয়ন্ত্রণ প্রদান করে। মডিউলটি তিনটি বিভাগ নিয়ে গঠিত, যথা - বসবাসের কোয়ার্টার, পরিষেবা বিভাগ ও একটি নোঙর ঘাঁটি। বসবাসের কোয়ার্টার বা লিভিং কোয়ার্টারগুলিতে একটি রান্নাঘর ও শৌচাগার, অগ্নি নিয়ন্ত্রণ সরঞ্জাম, বায়ুমণ্ডলীয় প্রক্রিয়াকরণ ও নিয়ন্ত্রণ সরঞ্জাম, কম্পিউটার, বৈজ্ঞানিক যন্ত্রপাতি, বেইজিং-এর থেকে স্থল নিয়ন্ত্রণের মাধ্যমে যোগাযোগ প্রেরণ ও গ্রহণের জন্য যোগাযোগ সরঞ্জাম এবং অন্যান্য সরঞ্জাম রয়েছে।

একটি আইএসএস কানাডীয়-শৈলীর এসএসআরএমএস যান্ত্রিক বাহু-এর অনুকরণে নির্মিত "চিনার্ম" থিয়েনহো কোর মডিউলের নীচে ভাঁজ করা হয়েছিল। অতিরিক্তভাবে, ওয়েনথিয়েনমেংথিয়েন পরীক্ষাগার মডিউলে (নীচে বর্ণিত) একই রকমের ৫ মিটার (১৬ ফুট) লম্বা (অপেক্ষাকৃত ছোট) এসএসআরএমএস যান্ত্রিক বাহু বহন করবে, যেগুলো পজিশনিংয়ে থিয়েনহো বাহু থেকে বেশি সঠিক। সিসিএম-এর পূর্ণ মাত্রায় পরীক্ষামূলক উদ্দেশ্যে ব্যবহার ২০১৮ সালে চুহাই শহরের চায়না ইন্টারন্যাশনাল এভিয়েশন অ্যান্ড অ্যারোস্পেস প্রদর্শনীতে সর্বজনীনভাবে উপস্থাপিত হয়েছিল। এই দুটি মূল মডিউল তৈরি করা হয়েছে, তা জানানোর জন্য সিএনএসএ ভিডিও প্রকাশ করেছিল। শৈল্পিক ছাপে সামগ্রিক স্টেশনকে বড় করার জন্য দুটি মূল মডিউলকে একত্রিত করে ভিডিওতে চিত্রিত করা হয়েছিল।

দুটি পরীক্ষাগার কেবিন মডিউল ওয়েনথিয়েনমেংথিয়েন মধ্যে প্রথমটি সিসিএম-এর জন্য ব্যাকআপ কার্যকলাপ হিসাবে অতিরিক্ত নেভিগেশন অ্যাভিওনিক্স, প্রপালশন ও ওরিয়েন্টেশন নিয়ন্ত্রণ প্রদান করবে। উভয় এলসিএম'ই গবেষকদের মুক্ত পতন বা মাইক্রোগ্রাভিটিতে ক্ষুদ্র মাধ্যাকর্ষণ বিজ্ঞান পরীক্ষা চালানোর জন্য একটি চাপযুক্ত পরিবেশ সরবরাহ করবে, যা পৃথিবীতে কয়েক মিনিটের বেশি সময় ধরে পরিচালিত হতে পারে না। মহাকাশের পরিবেশ, মহাজাগতিক রশ্মি, শূন্যস্থান (ভ্যাকুয়াম) ও সৌর বায়ুর সংস্পর্শে আসার জন্য মডিউলের বাইরের দিকেও পরীক্ষা করা যেতে পারে।

মিরআইএসএস-এর রুশ কক্ষপথীয় খণ্ডের মতো থিয়েনকুং মডিউলগুলিকে সম্পূর্ণরূপে একত্রিত করে কক্ষপথে উৎক্ষেপণ করা হয়, বিপরীতে আইএসএস-এর মার্কিন কক্ষপথীয় খণ্ডের জন্য তার, পাইপের কাজ ও কাঠামোগত উপাদানগুলিকে হাতে করে আন্তঃসংযোগ করতে মহাকাশ হাঁটার প্রয়োজন হয়। এলসিএমগুলির অক্ষীয় বন্দরটি মিলিত সরঞ্জামের সঙ্গে স্থাপন করা হবে এবং প্রথমে সিসিএম-এর অক্ষীয় বন্দরে নোঙর করবে। একটি যান্ত্রিক বাহু, যাকে ইন্ডেক্সিং রোবোটিক আর্ম নামে ডাকা হয়, মডিউলটিকে সিসিএম-এর রেডিয়াল পোর্টে নিয়ে যাবে। এটি মির মহাকাশ স্টেশনে ব্যবহৃত লিয়াপ্পা বাহুর মত দেখতে।[১৮] এটি লিয়াপ্পা থেকে ভিন্ন কারণ এটি একটি ভিন্ন প্রক্রিয়ার মাধ্যমে কাজ করে। মহাকাশযানের পিচ ও একটি ভিন্ন সমতলে পুনরায় নোঙর নিয়ন্ত্রণের জন্য লিয়াপ্পা বাহু প্রয়োজন। কিন্তু ইন্ডেক্সিং রোবট আর্মটি একই সমতলে নোঙরের করতে প্রয়োজন। নোঙর স্থানান্তর জন্য ব্যবহৃত এই আর্মটি ছাড়াও, থিয়েনহো মডিউলের চিনার্ম ব্যাকআপ হিসাবেও ব্যবহার করা যেতে পারে।[১৯][২০]

নির্মাণ[সম্পাদনা]

পরিকল্পনা[সম্পাদনা]

এটি ২০১১ সালে ঘোষণা করা হয়েছিল, যে ভবিষ্যতের মহাকাশ স্টেশনটি ২০২০ সাল থেকে ২০২২ সালের মধ্যে একত্রিত করার পরিকল্পনা করা হয়েছিল।[২১] ২০১৩ সালের তথ্যমতে, মহাকাশ স্টেশনের মূল মডিউলটি ২০১৮ সালে উৎক্ষেপণ করার পরিকল্পনা করা হয়েছিল, তারপরে ২০২০ সালে প্রথম পরীক্ষাগার মডিউল ও ২০২২ সালে দ্বিতীয়টি উৎক্ষেপণ করার পরিকল্পনা করা হয়েছিল।[২২] বিলম্বের কারণে ২০১৮ সাল নাগাদ উৎক্ষেপণের সময়সীমা ২০২০-২০২৩ সালকে নির্ধারণ করা হয়েছিল।[২৩][২৪] সম্পূর্ণ নির্মাণ পর্বের জন্য মোট ১১ টি উৎক্ষেপণের পরিকল্পনা করা হয়েছে, যা ২০২১ সাল থেকে শুরু করা হয়েছে।[২৫][২৬]

সংযোজন[সম্পাদনা]

উপাংশসমূহের জন্য উৎক্ষেপণের একটি মডেল, লং মার্চ ৫

স্টেশনটির একত্রীকরণের পদ্ধতিটি সোভিয়েত-রুশ মির মহাকাশ স্টেশন এবং আন্তর্জাতিক মহাকাশ স্টেশনটির রুশ অরবিটাল বিভাগের সাথে তুলনা করা যেতে পারে। স্টেশনটি নির্মিত হলে, চীন বিশ্বের দ্বিতীয় দেশ হয়ে উঠবে, যে উপাংশভিত্তিক মহাকাশ স্টেশন নির্মাণের জন্য স্বয়ংক্রিয়ভাবে উপস্থাপন ও ডকিং ব্যবহার করবে। শেনচৌ মহাকাশযান ও মহাকাশ স্টেশন রাশিয়া দ্বারা নকশাকৃত এপিএএস ডকিং অ্যাডাপ্টারের অনুরূপ বা তার সাথে সামঞ্জস্যপূর্ণ একটি ঘরোয়াভাবে তৈরি ডকিং প্রক্রিয়া ব্যবহার করে।

১৯৫০-এর দশকের আন্তরিক চীন-সোভিয়েত সম্পর্কের সময়, সোভিয়েত ইউনিয়ন (ইউএসএসআর) পিআরসি-র সাথে একটি সমবায় প্রযুক্তি স্থানান্তর কর্মসূচিতে জড়িত হয়, যার অধীনে তারা চীনা শিক্ষার্থীদের প্রশিক্ষণ প্রদান করে এবং সজ্জিত কর্মসূচিকে একটি নমুনা আর-২ রকেট সরবরাহ করে। প্রথম চীনা ক্ষেপণাস্ত্রটি ১৯৫৮ সালে সোভিয়েত আর-২ থেকে বিপরীত প্রকৌশলের মাধ্যমে নির্মিত হয়, এটি নিজেই জার্মান ভি-২ রকেটের একটি উন্নত সংস্করণ।[২৭] কিন্তু যখন সোভিয়েত প্রধানমন্ত্রী নিকিতা ক্রুশ্চেভকে মাও কর্তৃক সংশোধনবাদী হিসাবে নিন্দা করা হয়, তখন দু'দেশের বন্ধুত্বপূর্ণ সম্পর্কটি দ্বন্দ্বে পরিণত হয়। ফলস্বরূপ, ১৯৬০ সালে চীন-সোভিয়েত বিভক্তি হওয়ার পরে হঠাৎ করে সমস্ত সোভিয়েত প্রযুক্তিগত সহায়তা প্রত্যাহার করা হয়।

মূলত ইউরোপীয় ও এশীয় স্বার্থে ৩০ টিরও বেশি বিদেশি উপগ্রহ উৎক্ষেপণকারী দীর্ঘ অভিযাত্রা রকেট পরিবারের উন্নয়নের ফলে চীন ১৯৮৫ সালে বাণিজ্যিকভাবে উৎক্ষেপণ কার্যক্রম শুরু করতে সক্ষম হয়।

রাশিয়া ১৯৯৪ সালে কিছু উন্নত বিমান চলাচল ও মহাকাশ প্রযুক্তি চীনাদের কাছে বিক্রি করে। দুই দেশের মধ্যে ১৯৯৫ সালে রুশ সয়ুজ মহাকাশযানের প্রযুক্তি চীনকে স্থানান্তরের জন্য একটি চুক্তি স্বাক্ষরিত হয়। চুক্তিতে প্রশিক্ষণ, সয়ুজ ক্যাপসুলের বিধান, জীবন সহায়ক ব্যবস্থা (লাইফ সাপোর্ট), ঘাটে ভেড়ার (ডকিং) ব্যবস্থা ও মহাকাশ পোশাক (স্পেস স্যুট) অন্তর্ভুক্ত ছিল।

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. উদ্ধৃতি ত্রুটি: <ref> ট্যাগ বৈধ নয়; cmse201311 নামের সূত্রটির জন্য কোন লেখা প্রদান করা হয়নি
  2. "China's space station to host 6 astronauts by end of 2022-Xinhua" 
  3. "The orbital parameters of the core module assembly"China Manned Space। ২০ সেপ্টেম্বর ২০২১। ২৭ জুলাই ২০২১ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২৭ জুলাই ২০২২ 
  4. "To infinity and beyond: After Space Station, China has plans for a kilometer-long mega spaceship"India Today। ৮ সেপ্টেম্বর ২০২১। সংগ্রহের তারিখ ২৭ জুলাই ২০২২ 
  5. "China launches first Tiangong space station module"। সংগ্রহের তারিখ ১ মে ২০২১ 
  6. "China launches first section of its massive space station"China Daily। ২০২১-০৪-২৯। ২০২১-০৪-২৯ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। China's most adventurous space endeavor, the multimodule space station, named Tiangong, or Heavenly Palace, will be mainly composed of three components 
  7. "China launches space station core module Tianhe"। Xinhua। ২০২১-০৪-২৯। The Tianhe module will act as the management and control hub of the space station Tiangong, meaning Heavenly Palace 
  8. Barbosa, Rui (১ মার্চ ২০২১)। "China preparing to build Tiangong station in 2021, complete by 2022"NASASpaceFlight.com। সংগ্রহের তারিখ ২ মার্চ ২০২১ 
  9. "中国载人航天工程标识及空间站、货运飞船名称正式公布" [CMSE logo and space station and cargo ship name officially announced] (চীনা ভাষায়)। China Manned Space Engineering Office। ৩১ অক্টোবর ২০১৩। ৪ ডিসেম্বর ২০১৩ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২৭ জুলাই ২০২২ 
  10. Ping, Wu (জুন ২০১৬)। "China Manned Space Programme: Its Achievements and Future Developments" (PDF)China Manned Space Engineering Office। সংগ্রহের তারিখ ২৭ জুলাই ২০২২ 
  11. ChinaPower (৭ ডিসেম্বর ২০১৬)। "What's driving China's race to build a space station?"Center for Strategic and International Studies। সংগ্রহের তারিখ ২৭ জুলাই ২০২২ 
  12. "空间实验室任务"China Manned Space। ২০১১-১১-২৪ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২৭ জুলাই ২০২২ 
  13. J. Kiger, Patrick (২৫ জুন ২০২১)। "What Does China's New 'Heavenly Palace' in Space Mean for the ISS?"howstuffworks 
  14. Goswami, Namrata (১ মে ২০২১)। "China Moves Toward a Permanent Space Presence"The Diplomat 
  15. "China to open space station to commercial activity"SpaceNews (ইংরেজি ভাষায়)। ২০২২-০৩-১১। সংগ্রহের তারিখ ২৭ জুলাই ২০২২ 
  16. "China rolls out rocket for Tianzhou-2 space station supply mission"। ১৭ মে ২০২১। সংগ্রহের তারিখ ২৭ জুলাই ২০২২ 
  17. "Astronauts conduct second Chinese space station spacewalk"SpaceNews। ২০ আগস্ট ২০২১। 
  18. Graham, William; Gebhardt, Chris (এপ্রিল ২৮, ২০২১)। "China readies launch of Tianhe module, start of ambitious two-year station construction effort"NASASpaceflight.comThis means the two future science modules, Wentian (“Quest for the heavens”) and Mengtian (“Dreaming of the heavens”), cannot dock directly to their planned radial port locations. [...] To account for this, each module will carry a Russian Lyappa robotic arm — like the ones used on Mir for the same purpose — to move the module from the forward port to its respective permanent location on a radial port of Tianhe's docking hub. 
  19. Hong Yang (২০২০)। Manned Spacecraft Technologies। China: Springer। পৃষ্ঠা 355। আইএসবিএন 978-9811548970 
  20. Graham, William; Gebhardt, Chris (এপ্রিল ২৮, ২০২১)। "China readies launch of Tianhe module, start of ambitious two-year station construction effort"NASASpaceflight.com 
  21. "China Details Ambitious Space Station Goals"Space.com। ৭ মার্চ ২০১১। সংগ্রহের তারিখ ২৭ জুলাই ২০২২ 
  22. Klotz, Irene (১২ নভেম্বর ২০১৩)। "China Unveils Space Station Research Plans"SpaceNews। ২৫ নভেম্বর ২০১৩ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২৭ জুলাই ২০২২ 
  23. David, Leonard (২১ এপ্রিল ২০২১)। "China to Loft Key Space Station Module"। SpaceRef। সংগ্রহের তারিখ ২২ এপ্রিল ২০২১ 
  24. "Chinese space program insights emerge from National People's Congress"SpaceNews। ২ এপ্রিল ২০১৮। সংগ্রহের তারিখ ২৭ জুলাই ২০২২ 
  25. Howell, Elizabeth। "China wants to build a new space station. A planned launch in April will set the stage."Space.com (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২৭ জুলাই ২০২২ 
  26. Clark, Stephen (১০ জানুয়ারি ২০২১)। "China to begin construction of space station this year"Spaceflight Now। সংগ্রহের তারিখ ১১ জানুয়ারি ২০২১ 
  27. "中国第一枚自行设计制造的试验 探空火箭T-7M发射场遗址"। 南汇医保信息网। ২০০৬-০৬-১৯। ফেব্রুয়ারি ১৪, ২০০৯ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ মে ৮, ২০০৮ 

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]