বিষয়বস্তুতে চলুন

তুর্কিস্তান ইসলামী দল

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে

তুর্কিস্তান ইসলামিক পার্টি (টিআইপি) বা তুর্কিস্তান ইসলামিক মুভমেন্ট (টিআইএম ) হল পশ্চিম চীনে সক্রিয় একটি উইঘুর স্বাধীনতাকামী ও চীনা আধিপত্য বিরোধী জিহাদি সংগঠন। এটি আগে পূর্ব তুর্কিস্তান ইসলামিক মুভমেন্ট (ইটিআইএম) নামে পরিচিত ছিল। এর লক্ষ্য হল, শিনচিয়াং অঞ্চলে পূর্ব তুর্কিস্তান নামে একটি স্বাধীন রাষ্ট্র প্রতিষ্ঠা করা।[১] ২০০২ সালে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র এটিকে জঙ্গি সংগঠনের তালিকা থেকে সরিয়ে দেয় এবং দাবি করে যে, এটির কার্যক্রম এখন বন্ধ হয়ে গেছে। [২]

তুর্কিস্তান ইসলামিক পার্টি
تۈركىستان ئىسلام پارتىيىسى
প্রতিষ্ঠাতাজাইদিন ইউসুপ
প্রতিষ্ঠাতা নেতাজাইদিন ইউসুপ
নেতা
অপারেশনের তারিখ১৯৮৮- বর্তমান
সদরদপ্তরশিনচিয়াং
মতাদর্শ
মিত্রআল কায়েদা
বিপক্ষচীন
খণ্ডযুদ্ধ ও যুদ্ধ

মতাদর্শ

[সম্পাদনা]

মার্কিন ফাউন্ডেশন এনইএফএ টিআইপির জিহাদ প্রসঙ্গে একটি নিবন্ধ অনুবাদ ও প্রকাশ করে। এতে বলা হয় যে, দলটির সদস্য পদগুলি প্রাথমিকভাবে পশ্চিম চীন থেকে আসা উইঘুর মুসলমানদের নিয়ে গঠিত। টিআইপির প্রাথমিক লক্ষ্য হল চীনা আধিপত্য দূর করে পূর্ব তুর্কিস্তানের স্বাধীনতা[৩] ২০০৮ সালে একটি ছয় মিনিটের ভিডিওতে টিআইপি মুসলিমদের ২০০৮ গ্রীষ্মকালীন অলিম্পিকে না আসার ব্যাপারে সতর্ক করে।[৪]


তথ্যসূত্র

[সম্পাদনা]
  1. "Wayback Machine" (পিডিএফ)web.archive.org। ২০১২-০৬-০৯। Archived from the original on ২০১২-০৬-০৯। সংগ্রহের তারিখ ২০২২-১১-১৬ 
  2. "US removes China-condemned group from terror list – DW – 11/07/2020"dw.com (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০২২-১১-১৬ 
  3. Bashir, Shaykh (১ জুলাই ২০০৮)। "Why Are We Fighting China?" (পিডিএফ)NEFA Foundation। ৯ জুন ২০১২ তারিখে মূল (পিডিএফ) থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৭ আগস্ট ২০১০...We are fighting China... China is an enemy who has invaded Muslim countries and occupies Muslim East Turkestan. There is no greater obligation, aside from belief in Allah, than expelling the enemies of Muslims from our countries.... We are fighting China to make them testify that 'there is no God but Allah, Mohammed is the Messenger of Allah' and make them convert to Islam.... 
  4. "Chinese Islamists threaten Olympics: US group"Agence France-Presse। ৭ আগস্ট ২০০৮। ১২ ডিসেম্বর ২০১১ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৭ আগস্ট ২০১০