তাৎক্ষণিক আলোকচিত্রগ্রহণযন্ত্র

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
চিত্রধারক সহ একটি পোলারয়েড এবং দুটি ফুজিফিল্ম তাৎক্ষণিক আলোকচিত্রগ্রহণযন্ত্র
তাৎক্ষণিক আলোকচিত্র সহ ফুজিফিল্ম ইন্সট্যাক্স ২১০
স্যালিনাস ভিক্টোরিয়াতে একটি তাৎক্ষণিক ক্যামেরা দিয়ে তোলা একটি জলপ্রপাতের ছবি

একটি তাৎক্ষণিক আলোকচিত্রগ্রহণযন্ত্র হল একটি আলোচিত্রগ্রহণযন্ত্র যা দিয়ে ছবি তোলার পরপরই রাসায়নিকভাবে আলোকচিত্র প্রক্রিয়াকরণের মাধ্যমে তাৎক্ষণিক আলোকচিত্রধারক ব্যবহার করে মুহূর্তের মধ্যে একটি রঙিন মুদ্রিত আলোকচিত্র হাতে পাওয়া যায়। পোলারয়েড কর্পোরেশন এ অগ্রগামী ( পেটেন্ট) ভোক্তা-বান্ধব তাৎক্ষণিক আলোকচিত্রগ্রহণযন্ত্র এবং আলোকচিত্রধারকের নির্মাতা, যাদের অন্যান্য বিভিন্ন নির্মাতারা অনুসরণ করেছিল।

আমেরিকান বিজ্ঞানী এডউইন ল্যান্ডকে কৃতিত্ব দেওয়া হয় তাৎক্ষণিক আলোকচিত্রগ্রহণযন্ত্র আবিস্কারের জন্য, যিনি ১৯৪৮ সালে প্রথম বাণিজ্যিক তাৎক্ষণিক আলোকচিত্রগ্রহণযন্ত্র মডেল ৯৫ ল্যান্ড ক্যামেরা উন্মোচন করেছিলেন,যেটি বাণিজ্যিকভাবে কার্যকর তাৎক্ষণিক আলোকচিত্রগ্রহণযন্ত্র উদ্ভাবন যা ব্যবহার করা সহজ ছিল। তার এক বছর পর তিনি নিউ ইয়র্ক সিটিতে তাৎক্ষণিক আলোকচিত্রধারক উন্মোচন করেছিলেন।

ফেব্রুয়ারী ২০০৮-এ, পোলারয়েড দ্বিতীয়বার অধ্যায় ১১ দেউলিয়াত্ব সুরক্ষার জন্য আবেদন করে এবং ঘোষণা করে যে এটি তার তাৎক্ষণিক আলোকচিত্রধারক এবং আলোকচিতগ্রহণযন্ত্র উৎপাদন বন্ধ করবে, সাথে আরো তিনটি উৎপাদন সুবিধা বন্ধ করবে এবং ৪৫০ জন কর্মীকে ছাঁটাই করবে। ২১ শতকের প্রথম দশকে সমস্ত নির্মাতাদের কাছে অ্যানালগ চিত্রধারকের বিক্রয় প্রতি বছর কমপক্ষে ২৫% হ্রাস পেয়েছে। ২০০৯ সালে, পোলারইড পিএলআর আইপি হোল্ডিং এলএলসি দ্বারা অধিগৃহিত হয়, যেটি প্রায়ই তাৎক্ষণিক আলোকচিত্রগ্রহণযন্ত্র সম্পর্কিত বিভিন্ন পণ্য বাজারজাত করতে পোলারয়েড ব্র্যান্ড ব্যবহার করে। এটি বাজারজাত করা পণ্যগুলির মধ্যে একটি পোলারয়েড ব্র্যান্ডের ফুজি ইন্সট্যাক্স তাৎক্ষণিক আলোকচিত্রগ্রহণযন্ত্র এবং বিভিন্ন ডিজিটাল ক্যামেরা এবং পোর্টেবল প্রিন্টার।

আলোকচিত্রগ্রহণযন্ত্র ও আলোকচিত্রধারক[সম্পাদনা]

পোলারয়েড মডেল ৯৫, কোম্পানির প্রথম তাৎক্ষণিক আলোকচিত্রগ্রহণযন্ত্র যা ১৯৪৮ সালে চালু হয়েছিল।

পোলারয়েড এবং নন-পোলারয়েড তাৎক্ষণিক আলোকচিত্রগ্রহণযন্ত্রের বিভিন্ন মডেল ২০ শতকের মাঝামাঝি থেকে শেষের দিকে চালু করা হয়েছিল। এগুলো আলোকচিত্রধা

ধপ্রকারটাইপ দ্বারা শ্রেণীবদ্ধ করা যেতে ।ারে.

রোল আলোকচিত্রধারক[সম্পাদনা]

প্রথম রোল আলোকচিত্রধারক আলোকচিত্রগ্রহণযন্ত্র ছিল পোলারয়েড মডেল ৯৫, পরবর্তী মডেলগুলি বিভিন্ন নতুন বৈশিষ্ট্য সম্বলিত। রোল আলোকচিত্রধারক দুটি রোলে এসেছিল (পজিটিভ/ডেভেলপিং এজেন্ট এবং নেগেটিভ) যা আলোকচিত্রগ্রহণযন্ত্রে ব্যবহৃত হয়েছিল এবং শেষ পর্যন্ত তিনটি আকারে (৪০, ৩০ এবং ২০ সারি) দেওয়া হয়

ফেটি আলোকচিত্রধারক[সম্পাদনা]

পোলারয়েড স্বয়ংক্রিয় ৩৫০, ১৯৬৯ থেকে ১৯৭১ সাল পর্যন্ত তৈরি হয়েছিল।

প্রথম ১০০ সারির ফেটি আলোকচিত্রধারক মডেল ছিল মডেল ১০০, তারপরে ১০০ - ৪০০ সারির বিভিন্ন মডেল এবং কাউন্টডাউন সারির মতো কয়েকটি অ্যাডহক আলোকচিত্রগ্রহণযন্ত্র।[অস্পষ্ট] [ অস্পষ্ট ] পোলারয়েড আলোকচিত্রগ্রহণযন্ত্র পরবর্তী প্রজন্মে ১০০টি সারিতে " ফেটি আলোকচিত্রধারক " ব্যবহার করেছিল, যেখানে আলোকচিত্রকর আলোকচিত্রগ্রহণযন্ত্র থেকে আলোকচিত্রধারক টেনে আনেন, তারপর প্রক্রিয়ার মাধ্যমে খারাপ গুলো থেকে ভালোটি আলাদা করেন। ফেটি প্রাথমিকভাবে প্রাথমিকভাবে একটি আয়তক্ষেত্রাকার বিন্যাসে (১০০ সারি), তারপর বর্গাকার বিন্যাসে (৮০ সারি) দেওয়া হয়েছিল।

অখন্ড আলোকচিত্রধারক[সম্পাদনা]

এসএক্স-৭০ আলোক ব্যবহার করা মডেলগুলি একটি ভাঁজ সংস্করণে প্রবর্তন করা হয়েছিল, পরবর্তী সংস্করণগুলি শক্ত প্লাস্টিক বডিযুক্ত।

জনপ্রিয় সংস্কৃতিতে[সম্পাদনা]

২০১০ সালে প্রতিষ্ঠিত সামাজিক চিত্র প্রদর্শনী মূলক সামাজিক মাধ্যম

ইন্সটাগ্রাম এর নাম এবং প্রতীক তাৎক্ষণআলোকচিত্রগ্রহণযন্ত্রেরা থেকে উদ্ভূত।

পোলারয়েড তাৎক্ষণিক চলচ্চিত্র আলোকচিত্রগ্রহণযন্ত্র[সম্পাদনা]

পোলারয়েড পোলাভিশন নামে একটি তাৎক্ষণিক চলচ্চিত্র আলোকচিত্রগ্রহণযন্ত্র পদ্ধতি আবিষ্কার ও তৈরি হয়। সরঞ্জামটিতে একটি আলোকচিত্রগ্রহণযন্ত্র, আলোকচিত্রধারক এবং একটি চলচ্চিত্র পর্যবেক্ষক অন্তর্ভুক্ত ছিল। যখন চলচ্চিত্রটি ধারণ করা হয়, তখন এটি আলোকচিত্রগ্রহণযন্ত্র থেকে বের করে তারপর পরিণতির জন্য পর্যবেক্ষকে ঢোকানো হবে, তারপর পরিণতি পরে দেখা হবে। এই রূপটি সুপার ৮ মিমি আলোকচিত্রধারকের কাছাকাছি ছিল। পোলাভিশন আলোকচিত্রধারক সাধারণ আলোকচিত্রধারক থেকে ভিন্ন ছিল কারণ এটি একটি সংযোজনকারী

আলোকচিত্রধারক, যা প্রাথমিক রংগুলিকে (লাল, সবুজ, নীল) মিশ্রিত করে রঙিন চিত্র তৈরি করে।

পোলাভিশন পদ্ধতির সবচেয়ে বড় অসুবিধা ছিল কম আলোকচিত্রধারকের গতি (এএসএ ৪০), যার ফলে চলচ্চিত্রটি ধারণের সময় খুব উজ্জ্বল আলো ব্যবহার করতে হয়, সেইসাথে উন্নত চলচ্চিত্রটি দেখার জন্য একটি বিশেষ প্রদর্শকের প্রয়োজন হয়। এটিতে শব্দ ধারণ ক্ষমতারও অভাব ছিল। এই কারণে ভিএইচএস ভিডিও রেকর্ডারগুলির আবির্ভাবের সাথে মিলিত, পোলাভিশনের একটি সংক্ষিপ্ত ইতিহাস ছিল।

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]