ডেনিস কসগ্রোভ

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
ডেনিস কসগ্রোভ
ডেনিস কসগ্রোভ.jpg
জন্ম
ডেনিস এডমন্ড কসগ্রোভ

(১৯৪৮-০৫-০৩)৩ মে ১৯৪৮
মৃত্যু২১ মার্চ ২০০৮(2008-03-21) (বয়স ৫৯)
জাতীয়তাব্রিটিশ
পেশা
  • একাডেমিক
  • সাংস্কৃতিক ভূগোলবিদ
পুরস্কার
একাডেমিক পটভূমি
শিক্ষা
অভিসন্দর্ভপ্যালাডিয়ান ল্যান্ডস্কেপ: ভৌগোলিক পরিবর্তন এবং ১৬ শতাব্দীর ইতালিতে এর সাংস্কৃতিক উপস্থাপনা
একাডেমিক কর্ম
বিষয়ভূগোল
উপ-বিষয়সাংস্কৃতিক ভূগোল
প্রতিষ্ঠান
ডক্টরাল শিক্ষার্থীঅধ্যাপক ভেরোনিকা ডেলা ডোরা
উল্লেখযোগ্য কাজ
  • সামাজিক গঠন এবং প্রতীকী ল্যান্ডসক্যাপ (১৯৯৮)
  • ল্যান্ডস্কেপের আইকনোগ্রাফি: অতীতের পরিবেশগুলির প্রতীকী উপস্থাপনা, নকশা এবং ব্যবহার সম্পর্কিত প্রবন্ধ (১৯৮৮)
  • অ্যাপোলো'স আই: পশ্চিমা কল্পনায় পৃথিবীর একটি কার্টোগ্রাফিক বংশসূচি (২০০১)

ডেনিস এডমন্ড কসগ্রোভ (৩ মে ১৮৪৮, লিভারপুল - ২১ মার্চ ২০০৮, লস অ্যাঞ্জেলেস) ছিলেন একজন বিশিষ্ট ব্রিটিশ সাংস্কৃতিক ভূগোলবিদ এবং লস এঞ্জেলেসের ক্যালিফোর্নিয়া বিশ্ববিদ্যালয়ে ভূগোলের আলেকজাণ্ডার ভন হামবোল্ট অধ্যাপক। এর আগে তিনি হিউম্যান জিওগ্রাফির অধ্যাপক এবং রয়্যাল হোলোয়, লন্ডন বিশ্ববিদ্যালয়ের গ্র্যাজুয়েট স্কুলের ডিন ছিলেন। ১৯৯৮ সালে, তিনি রয়েল জিওগ্রাফিকাল সোসাইটি [১] থেকে মর্যাদাপূর্ণ ব্যাক অ্যাওয়ার্ড পেয়েছিলেন।

প্রাথমিক জীবন এবং শিক্ষা[সম্পাদনা]

কসগ্রোভ লিভারপুলে জন্মগ্রহণ করেন ও বেড়ে ওঠেন, তাঁর বাবার ছয় সন্তানের মধ্যে দ্বিতীয়। তাঁর পিতা, একজন ব্যাংকের পরিচালক এবং ধর্মপ্রাণ রোমান ক্যাথলিক ছিলেন, তিনি তার লালন-পালনে খুব যত্নবান ছিলেন এবং তাঁকে পড়াশোনার জন্য জেসুইট স্কুল, সেন্ট ফ্রান্সিস জাভিয়ার্স কলেজ, লিভারপুলে পাঠিয়েছিলেন, যেখানে তিনি নিজে পড়েছেন। ভূগোল বিষয়টি কসগ্রোভের পছন্দ ছিল, তবে বিদ্যালয়ের পক্ষ থেকে এই বিষয়টি ছেড়ে দিতে বাধ্য করা হয়েছিল। প্রধান শিক্ষকের কাছে প্রতিবাদ করা, তাঁর মাকে (যিনি ছিলেন একজন পুরোহিত) জোরালোভাবে বলা হয়েছিল "ভূগোল একটা মেয়েদের বিষয়"। [২]

তিনি ভূগোল বিষয়ে স্নাতকোত্তর পড়াশুনার জন্য অক্সফোর্ডের সেন্ট ক্যাথরিন কলেজে গিয়েছিলেন, ১৯৬৯ সালে স্নাতক পাশ করেটরন্টো বিশ্ববিদ্যালয় থেকে ভূগোল বিষয়ে এমএ করেন। নিউ ইয়র্কে তাঁর প্রথম স্ত্রীকে বিয়ে করার পরে, তিনি অক্সফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয়ে ফিরে আসেন ডক্টরেট করতে। কিন্তু একাডেমিক সহায়তায় কম থাকায় এবং চাকুরি নেবার জন্য তিনি ডক্টরেট ছেড়ে দিয়ে অক্সফোর্ড ব্রুকস বিশ্ববিদ্যালয়ে প্রভাষক হিসাবে যোগ দেন ১৯৭২ সালে। এদিকে, ভিনিসিয়ান ল্যান্ডস্কেপ সম্পর্কিত তাঁর থিসিসটি ব্যাচেলর অফ লেটারস (বিলিট) ডিগ্রির জন্য জমা দেওয়া হয়েছিল, একজন পরীক্ষক ডেভিড লোয়েথালের অনুরোধে ডক্টর অব ফিলোসফি (ডিফিল) ডিগ্রির জন্য তা পুনরায় জমা দেন, যিনি একে একটি অসামান্য কাজ হিসাবে বিবেচনা করেছিলেন। [৩]

কর্মজীবন এবং পরবর্তী জীবন[সম্পাদনা]

কসগ্রোভ ১৯৮০ সাল পর্যন্ত অক্সফোর্ড পলিটেকনিকে ছিলেন, তিনি প্রিন্সিপাল প্রভাষক হয়ে উঠেছিলেন। এরপর তিনি লফবারো বিশ্ববিদ্যালয়ে চলে আসেন এবং ১৯৮৮ সালে রিডার হন। তারপরে ১৯৯৪ সালে লন্ডনের রয়্যাল হোলওয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ে অধ্যাপক হিসাবে যোগ দেন এবং শেষে স্নাতক বিদ্যালয়ের ডিনের দায়িত্ব পালন করেন। ২০০০ সালে ক্যালিফোর্নিয়া, লস অ্যাঞ্জেলস বিশ্ববিদ্যালয়ের (ইউসিএলএ) ভূগোলের আলেকজান্ডার ভন হাম্বোল্ট অধ্যাপক হিসাবে নিযুক্ত হন এবং তাঁর মৃত্যুর আগ পর্যন্ত লন্ডনের বিশ্ববিদ্যালয়ের রয়্যাল হোলোয় এ ভিজিটিং প্রফেসর ছিলেন।

সম্মান ও পুরস্কার[সম্পাদনা]

১৯৮৮ সালে রয়্যাল জিওগ্রাফিকাল সোসাইটি থেকে সম্মানজনক ব্যাক অ্যাওয়ার্ড পেয়েছিলেন। ২০০৮ সালের ফেব্রুয়ারিতে কসগ্রোভকে টালিন বিশ্ববিদ্যালয় থেকে সম্মানসূচক ডক্টরেট ডিগ্রি প্রদান করা হয়। [৪] তিনি ২০০৫ সালে প্রভাবশালী হিটনার বক্তৃতা প্রদান করেছিলেন। [১] তাঁর মৃত্যুর পরে, তাঁর কর্মজীবন এবং এ ক্ষেত্রে তাঁর অবদান কালচারাল জিওগ্রাফি জার্নালে ব্যাপকভাবে তুলে ধরা হয় এবং স্বীকৃতি প্রদান করা হয়। [১] লন্ডন বিশ্ববিদ্যালয়ের রয়্যাল হোলোয়ে জিওহিউম্যানিটিস সেন্টারে তাঁর সম্মানে বার্ষিক বক্তৃতা আয়োজন করা হয়। [৫]

গবেষণা[সম্পাদনা]

কোসগ্রোভের গবেষণামূলক আগ্রহ ১৫ শতাব্দীর পর থেকে মানবীয়সাংস্কৃতিক ভূগোলের ভূদৃশ্যের অর্থের উপর দৃষ্টি নিবদ্ধ করে, বিশেষত পশ্চিম ইউরোপে জ্ঞান তৈরি এবং যোগাযোগের ক্ষেত্রে স্থানিক চিত্র এবং উপস্থাপনার ভূমিকার একটি বিস্তৃত উদ্বেগের নিয়ে বিকশিত হয়েছিল। তাঁর কাজের মধ্যে অন্তর্ভুক্ত রয়েছে ছিল কিভাবে ভৌগোলিক চিত্রগুলিকে ইতিহাসের জন্য ভৌগোলিক কল্পনার আকার দেওয়ার যায় এবং ভৌগোলিকতাকে একটি আনুষ্ঠানিক শৃঙ্খলা প্রদান, ভৌগোলিক জ্ঞানের কল্পনাপ্রসূত প্রকাশ এবং ভিজ্যুয়াল আর্টের (কার্টোগ্রাফি সহ) অভিজ্ঞতায় কিভাবে ভিজ্যুয়াল ইমেজগুলি ব্যবহার করা যায়। এই গবেষণাটি মাধ্যম এবং যোগাযোগের ভূগোলের উন্নয়নে প্রয়োজনীয় অবদান রেখেছে। [১][৬]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. Smith, Catherine Delano; Pepper, David (২০০৯)। "Reflections on the career of Denis Cosgrove 1948–2008": 5–28। জেস্টোর 44251251 
  2. "Denis Cosgrove"The Daily Telegraph। ২৪ এপ্রিল ২০০৮। সংগ্রহের তারিখ ১৩ এপ্রিল ২০১৯ 
  3. "Denis Cosgrove"The Independent। ৮ এপ্রিল ২০০৮। সংগ্রহের তারিখ ১৩ এপ্রিল ২০১৯ 
  4. "Audoktorid: Dennis Cosgrove" 
  5. "Denis Cosgrove Annual Lecture"Progressive Geographies। ১৮ ফেব্রুয়ারি ২০১৯। সংগ্রহের তারিখ ১৪ এপ্রিল ২০১৯ 
  6. Lilley, Keith D. (২০০৯)। "Denis Cosgrove (1948 - 2008)"। Taylor & Francis: 219–224। ডিওআই:10.1080/14649360802666400