ঠাকুরণ নদ

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
(ঠাকুরান নদী থেকে পুনর্নির্দেশিত)
ঠাকুরণ নদ
অন্য নামজামিরা নদী
রাষ্ট্রভারত
রাজ্যপশ্চিমবঙ্গ
প্রাকৃতিক বৈশিষ্ট্য
নিষ্কাশন


ঠাকুরণ নদ (জামিরা নদী নামেও পরিচিত) ভারতের পূর্বদিকে অবস্থিত পশ্চিমবঙ্গ রাজ্যের দক্ষিণ পূর্ব প্রান্তে সুন্দরবনাঞ্চলে প্রবাহিত একটি জোয়ারের জলে পুষ্ট নদী৷

উৎপত্তি ও প্রবাহ[সম্পাদনা]

নদীটি দক্ষিণ চব্বিশ পরগনা জেলার জয়নগরের নিকট উৎপত্তি লাভ করেছে৷ নদীটির সাথে শাখাপথে ও খালপথে সংযোগ রয়েছে সুন্দরবনের বৃহৎ নদীগুলির অন্যতম সপ্তমুখী নদীর সাথে৷ এটি জয়নগর ১মথুরাপুর ১ সমষ্টি উন্নয়ন ব্লকের মধ্যে সীমানা নির্ধারণ করেছে৷[১]

প্রবাহপথের বর্ণনা[সম্পাদনা]

ঠাকুরণ নদীব্যবস্থা উৎপত্তিস্থল থেকে বঙ্গোপসাগরের নিকট অধিক প্রশস্ত৷ ঠাকুরণ নদীর পশ্চিমতীরে অবস্থিত পার্শ্বীয় শাখাগুলি হলো; কদ্রুখালি খাল, দমদমা খাল, মণি নদী, পুকছড়া, রায়দিঘী, শিবুয়া নদী, পাখিরালি খাল এবং রসের খাঁড়ি৷ আবার পূর্বতীরে অবস্থিত পার্শ্বীয় শাখাগুলি মূলত বিসর্প পথে গতিমান যেমন; বৈঁচাপি খাল, গুরা খাল, কাইকলমারি-আজমলমারি-সুইয়া নদী, দুলিভাসানী নদী এবং চুলকাটি নদী৷ প্রতিটি বিসর্পপথই জোয়ারের ফলে একে অপরের সাথে অন্তর্যুক্ত হয়ে পড়ে নদীজালিকা গঠন করে৷ [২]

ঠাকুরণ নদীর দুইতীরে অবস্থিত বনাঞ্চল আইনের আওতায় সংরক্ষিত৷ এগুলি মূলত লবণাম্বুজ জাতীয়৷ নদীর পূর্বতীরের অংশ সুন্দরবনের ব্যাঘ্র অভয়ারণ্য অঞ্চলের কেন্দ্রীয় অঞ্চলের অন্তর্গত হওয়ায় এখানে পশু ও পক্ষীবিশারদ এবং পর্যটক ছাড়া সাধারণ মানুষের প্রবেশ নিষেধ৷[৩]

নদীর তীরে বেশির্ভাগ স্থানে পরিকল্পিতভাবে উঁচু নদীবাঁধ দেওয়া হলেও প্রায় সময়েই জলস্তর বৃদ্ধির কারণে নদীর দুকুল উপচে বন্যা পরিস্থিতির সৃষ্টি হয়৷ [৪]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. Environment, population, and human settlements of Sundarban Delta By Anuradha Banerjee। সংগ্রহের তারিখ ২০০৯-১১-১৪ 
  2. The Sundarbans of India: a development analysis By Asim Kumar Mandal। সংগ্রহের তারিখ ২০০৯-১১-১৪ 
  3. "Birds of India: West Bengal Coast, India"। ২০০৯-০২-০৯ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০০৯-১১-১৪ 
  4. "Race against raging river"। The Telegraph, 26 May 2009। সংগ্রহের তারিখ ২০০৯-১১-১৪