জাহাজী

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
জাহাজি
জাহাজী অ্যালবামের প্রচ্ছদ
শিরোনামহীন কর্তৃক স্টুডিও অ্যালবাম
মুক্তির তারিখ১ নভেম্বর, ২০০৪
শব্দধারণের সময়১৫-৩০ ডিসেম্বর, ২০০৩
শব্দধারণকেন্দ্রর‌্যাবিট কম্যুনিকেশন্স
ঘরানা
দৈর্ঘ্য৫২:০৮
সঙ্গীত প্রকাশনীজি-সিরিজ
শিরোনামহীন কালক্রম
জাহাজি
(২০০৪)
ইচ্ছে ঘুড়ি
(২০০৬)

জাহাজি বাংলা প্রোগ্রেসিভ রক ব্যান্ড শিরোনামহীনের অভিষেক স্টুডিও অ্যালবাম। এটি ১ জানুয়ারি ২০০৪ সালে জি-সিরিজের ব্যানারে বাংলাদেশে প্রকাশিত হয়। এটি ব্যান্ডের একমাত্র অ্যালবাম হিসেবে প্রাথমিকভাবে অধিকাংশ রেকর্ড লেবেল সংস্থা কর্তৃক প্রকাশে অস্বীকৃত এবং প্রত্যাখ্যাত হয়েছিল।[১] যদিও মুক্তির পর অ্যালবামটি প্রাথমিক সাফল্য পেয়েছিল।[২] অ্যালবামের সাইকেডালিক এবং ফোক রক ঘরানার "হাসিমুখ" গানটি ব্যপক জনপ্রিয়তা পায়।[৩] গানটি সর্বপ্রথম শিরোনামহীনকে ব্যান্ড হিসেবে পরিচিতি এনে দিয়েছিল। ব্যান্ডের প্রতিষ্ঠাতা সদস্য জিয়াউর রহমান জিয়া ১৯৯৭ সালে গানটি রচনা ও সুর করেছিলেন।[৩] পরবর্তীতে টেলিভিশন বিজ্ঞাপনেও গানটি ব্যবহৃত হয়েছিল।

জাহাজি অ্যালবামে শিরোনামহীন আধুনিক শহুরে মানুষের জীবনবোধ এবং নিত্যদিনকার সংগ্রামের চিত্র বিবৃত করার চেষ্টা করেছে। এই অ্যালবামটির টাইটেল গান জাহাজী যেখানে, একজন মধ্যবিত্ত তরূনের জীবন আর জীবিকার সন্ধ্যানে নিয়ত ছুটে চলাকে জাহাজী বা নাবিক' হিসেবে রূপক অর্থে নির্দেশ করা হয়েছে।

পটভূমি[সম্পাদনা]

প্রাথমিকভাবে নতুন লাইনআপে প্রায় তিন বছর কাজের পর এবং ব্যান্ড গঠনের প্রায় আট বছর পর শিরোনামহীন তাদের প্রথম অ্যালবাম প্রকাশ করে। সে সময়ে দলে ছিলেন জিয়া (বেস), জুয়েল (গিটার), তানযীর তুহীন এবং সদ্য যোগ দেয়া ফারহান করিম (সরোদ), ইয়াসির তুষার (গিটার) ও কাজী আহমেদ শাফিন (ড্রাম)। ২০০৩ সালের ১৫ থেকে ৩০ ডিসেম্বরের মধ্যে বিভিন্ন সেশনে র‍্যাবিট কমিউনিকেশন স্টুডিওতে শিরোনামহীন তাদের পূর্ব সংকলিত প্রায় ৫০টি[৪] গান থেকে দশটি গান রেকর্ড করে।[৫] কয়েকটি সেশনে গানগুলি রেকর্ড করা হয়েছিল। একটি সেশনে "শুভ্র রঙিন", "শহরের কথা" এবং "হাসিমুখ" গানগুলি রেকর্ড করা হয়েছিল।[১]

মুক্তি[সম্পাদনা]

অ্যালবামের প্রচ্ছদে একজন স্যুট-টাই পরিহিত লোকের লাফিয়ে পড়ার ছবি রয়েছে, শিরোনামহীনের মতে লোকটি রূপক অর্থে একজন জাহাজী।[৬]

গানের তালিকা[সম্পাদনা]

অ্যালবামের এগারোটি গানের মধ্যে একভাবে জিয়াউর রহমান জিয়া ছয়টি এবং তানজির তুহিন এবং ফারহান দুইটি করে গান লিখেছেন।

নং.শিরোনামগীতিকারসুরকারশিল্পীদৈর্ঘ্য
১."জাহাজী"জিয়াউর রহমান জিয়াজিয়াতুহিন৬:০৬
২."নদী"তানজির তুহিনইয়াসির তুষার, তুহিনতুহিন৪:৩১
৩."হাসিমুখ"জিয়াজিয়াতুহিন৪:১৪
৪."শহরের কথা"জিয়াজিয়াতুহিন৩:৪৮
৫."শুভ্র রঙ্গিন"জিয়াজিয়াতুহিন৪:০৩
৬."হয় না"তুহিনতুহিনফারহান৪:০৮
৭."লাল নীল গল্প"জিয়াজিয়াফারহান করিম৪:২৬
৮."নিশ্চুপ আধার"ফারহান, জিয়াজিয়া, তুষারতুহিন৪:৩৫
৯."ঘুম"ফারহানতুষার, ফারহানতুহিন৫:১০
১০."শূন্য"জিয়াজিয়াতুহিন৪:৪২
১১."অবাক ভ্রমন" (ইন্সট্রুমেন্টাল)   ৬:২৮
মোট দৈর্ঘ্য:৫২:০৮

ব্যান্ডের সদস্যবৃন্দ[সম্পাদনা]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "'বড় বড় প্রযোজনা প্রতিষ্ঠান আমাদের ফিরিয়ে দিয়েছিল'" (সাক্ষাৎকার)। সাক্ষাত্কার গ্রহণ করেন মুসাব্বির হুসাইন। দৈনিক প্রথম আলো। ১ আগস্ট ২০১৯। সংগ্রহের তারিখ ৫ জুলাই ২০২০ 
  2. "হেঁটে হেঁটে বহুদূর শিরোনামহীন"বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম। ২৭ মার্চ ২০১২। সংগ্রহের তারিখ ৫ জুলাই ২০২০ 
  3. আজাদ, মেমী (৫ আগস্ট ২০১৫)। "হাসিমুখের অতীত"সমকাল। সংগ্রহের তারিখ ৫ জুলাই ২০২০ 
  4. "'জাহাজী' থেকে 'ক্যাফেটেরিয়া পেরিয়ে': শিরোনামহীনের ২৪ বছর"বিজয় টিভি। ১৮ এপ্রিল ২০২০। সংগ্রহের তারিখ ৫ জুলাই ২০২০ 
  5. শিরোনামহীন: তাদের ৫০টিরও অধিক গান থেকে ১০টি গান তাদের প্রথম অ্যালবাম "জাহাজি"-তে সংকলিত হয়েছে। (প্রাথমিক উৎস)।
  6. জিয়া, জিয়াউর রহমান (২৩ মে ২০১৮)। "'আমাদের বিশ্বমানের গিটারিস্ট আছে, বিশ্বমানের ভোকাল নেই'" (সাক্ষাৎকার)। সাক্ষাত্কার গ্রহণ করেন তুহিন সাইফুল। সারাবাংলা। সংগ্রহের তারিখ ৫ জুলাই ২০২০ 

উৎস[সম্পাদনা]

  • শিরোনামহীন। "সম্পর্কে" (ইংরেজি ভাষায়)। শিরোনামহীন। সংগ্রহের তারিখ ৭ জুলাই ২০২০ 

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]