জলীয় রাসায়নিক বিশ্লেষণ

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে

জলীয় রাসায়নিক বিশ্লেষণ করা হয় জলের নমুনার রাসায়নিক উপাদান এবং বৈশিষ্ট্যগুলি শনাক্ত করার জন্য এবং পরিমাণ নির্ধারণের জন্য। বিশ্লেষণের ধরন এবং সংবেদনশীলতা বিশ্লেষণের উদ্দেশ্য এবং জলের প্রত্যাশিত ব্যবহারের ধরনের উপর নির্ভর করে। শিল্প প্রক্রিয়ায় ব্যবহৃত জলের উপর, বর্জ্য-জলের স্রোতে, নদীতে এবং ঝরণায়, বৃষ্টিপাত এবং সমুদ্রের জলের উপর জলীয় রাসায়নিক বিশ্লেষণ করা হয়।[১] সমস্ত ক্ষেত্রে বিশ্লেষণের ফলে যে তথ্যগুলি পাওয়া যায়, সেগুলি কাজে লাগিয়ে কোন ব্যবস্থা গ্রহণ করা যাবে বা পুনরায় আশ্বাস দেওয়া যাবে যে সবকিছু প্রত্যাশা মতো রয়েছে।

বিশ্লেষণ করার মাপদন্ডগুলি এমন নির্বাচিত করা হয় যাতে যথোপযুক্ত সিদ্ধান্ত গ্রহণ করা যেতে পারে বা গ্রহণযোগ্য স্বাভাবিকতা প্রতিষ্ঠা করা যায়। জলীয় রাসায়নিক বিশ্লেষণের ভিত্তি হল জলের গুণমান, দূষণ, জলবিদ্যা এবং ভূ-তাপীয় জলের অধ্যয়ন। নিয়মিতভাবে ব্যবহৃত বিশ্লেষণাত্মক পদ্ধতিগুলি সমস্ত প্রাকৃতিক উপাদান এবং তাদের অজৈব যৌগগুলি শনাক্ত করতে ও পরিমাপ করতে পারে। গ্যাসীয় বর্ণবীক্ষণ এবং ভর বর্ণালীমিতি ব্যবহার করে প্রচুর জৈব রাসায়নিক প্রজাতিকে শনাক্ত করা যায়। জল শোধন কেন্দ্রগুলিতে, যেখানে পানীয় জল উৎপাদিত হয় এবং কিছু শিল্প প্রক্রিয়ায় যেখানে বিশেষ ধরনের স্বাদ এবং গন্ধযুক্ত পণ্য ব্যবহার করা হয়, সেই সব জায়গায় খুব কম ঘনত্বের গন্ধ শনাক্ত করতে বিশেষ রকম অর্গনোলিপটিক পদ্ধতি ব্যবহার করা যেতে পারে।

পরিবেশগত জল[সম্পাদনা]

একজন ইপিএ বৈজ্ঞানিক ফ্লোরিডায় একটি চিরসবুজ অঞ্চলে জলের নমুনা পরীক্ষা করছেন

পরিবেশ থেকে জলের নমুনা নিয়মিতভাবে নেওয়া হয় এবং নিয়ন্ত্রক কর্তৃপক্ষ দ্বারা প্রাক-নির্ধারিত পর্যবেক্ষণ কর্মসূচির অংশ হিসাবে বিশ্লেষণ করা হয়। এর উদ্দেশ্য হল যাতে জল দূষণ না হয় বা হলেও তার মাত্রা যাতে না বাড়ে এবং নির্দিষ্ট প্রতিকার পদ্ধতির আওতার মধ্যেই থাকে। এই জাতীয় প্রকল্পের একটি উদাহরণ হল সমন্বয়পূর্ণ নিরীক্ষণ পদ্ধতি, যেটি যুক্তরাজ্যের সমস্ত বড় নদী ব্যবস্থার জন্য নেওয়া হয়েছে।[২] বিশ্লেষণ করা মাপদণ্ডগুলি স্থানীয় পরিবেশের প্রকৃতি এবং / বা ঐ অঞ্চলে দূষণকারী উৎসের উপর নির্ভর করে। অনেক ক্ষেত্রে মাপদণ্ডগুলি আইন বা অন্যান্য বিধি দ্বারা নির্ধারিত জাতীয় এবং স্থানীয় জলের প্রকৃতির মান প্রতিফলিত করে। অপরিষ্কার উপরিতলের জল যেন গ্রহণযোগ্য রাসায়নিক মানের মধ্যে থাকে, তার জন্য সাধারণ মানদণ্ডগুলি হল পি.এইচ, মুখ্য ধনাত্মক এবং ঋণাত্মক আয়নসমূহ। আয়নগুলির মধ্যে আছে অ্যামোনিয়া, নাইট্রেট, নাইট্রাইট, ফসফেট ইত্যাদির আয়ন। এছাড়াও দেখা হয় পরিবাহিতা, ফেনল, রাসায়নিক অক্সিজেনের চাহিদা (সিওডি) এবং জৈব রাসায়নিক অক্সিজেনের চাহিদা (বিওডি)।

পানীয় জলের সরবরাহ[সম্পাদনা]

পানীয় জলের সরবরাহের জন্য পৃষ্ঠতল বা ভূগর্ভস্থ জলের শোধনের পরে অবশ্যই রাসায়নিক মান পূরণ করতে সক্ষম হতে হবে। এর জন্য জল শোধন কর্মশালায় প্রবেশ করা জল সম্বন্ধে বিশদ জ্ঞানের প্রয়োজন। পরিবেশগত সাধারণ রাসায়নিক মানদণ্ডগুলি ছাড়াও, অন্যান্য মানদণ্ড, যেমন কঠোরতা, ফেনল, তেল এবং কিছু কিছু ক্ষেত্রে প্রবেশ করা জলের তৎক্ষণাৎ জৈবিক বিবরণ যেমন ডি নদীর নিয়ন্ত্রণ পরিকল্পনা রয়েছে।

শিল্প প্রক্রিয়াজাত জল[সম্পাদনা]

শিল্প প্রক্রিয়ায়, প্রক্রিয়াজাত জলের গুণমানের নিয়ন্ত্রণ না করা হলে, তা চূড়ান্ত পণ্যের গুণমানের জন্য সংকটপূর্ণ হতে পারে। জল প্রায়শই বিকারকের বাহক হিসাবে ব্যবহৃত হয় এবং বহমান অবস্থায় বিকারকের হ্রাসপ্রাপ্তি ঘটলে ক্রমাগত পর্যবেক্ষণ করে সঠিক মাত্রায় বিকারক প্রতিস্থাপনের হার নিশ্চিত করা উচিত। পরিমাপক মানদণ্ডগুলি, ব্যবহারের প্রক্রিয়া এবং উপজাত হিসাবে উৎপন্ন পূর্বানুমানিত দূষকের সাথে সম্পর্কিত। এর মধ্যে থাকতে পারে যন্ত্রপাতি থেকে আসা তেল এবং গ্রিজের দূষণের মাধ্যমে অজৈব রাসায়নিক প্রক্রিয়াতে অবাঞ্ছিত জৈবের উপস্থিতি। পরিবেশের দূষণ নিয়ন্ত্রণ ও হ্রাস করার মূল উপায় হল শিল্প প্রাঙ্গণ থেকে নিঃসৃত বর্জ্য জলের গুণমান পর্যবেক্ষণ করা। এই প্রয়োগ পর্যবেক্ষণ প্রকল্পে, প্রক্রিয়াটির মধ্যে উপস্থিত সমস্ত সম্ভাব্য দূষকগুলি বিশ্লেষণ করা হয় এবং তদুপরি যে সব দূষক পরিবেশের উপর বিশেষত বিরূপ প্রভাব ফেলতে পারে যেমন সায়ানাইড এবং অনেক জৈব প্রজাতি যেমন আপদনাশক,- এগুলি সম্বন্ধে খেয়াল রাখা হয় ।[৩] পারমাণবিক শিল্পে, নির্দিষ্ট কিছু সমস্থানিক বা বিশেষ কিছু মৌলিক পদার্থের ওপর বিশ্লেষণগুলি কেন্দ্রীভূত থাকে। যেখানে পারমাণবিক শিল্প থেকে বর্জ্য জল, পানীয় জল সংগ্রহ করার নদীতে গিয়ে পড়ে, সেই ক্ষেত্রে বর্জ্য জলে মিশ্রিত তেজস্ক্রিয় সমস্থানিক, অথবা যেসব মৌলিক পদার্থগুলির অর্ধায়ু বেশিদিনের, যেমন ট্রাইটিয়াম সম্ভাব্য ক্ষতিকারক হতে পারে। এইগুলি নিয়মিত পর্যবেক্ষণে রাখা হয়।

গবেষণা[সম্পাদনা]

শিক্ষাগত গবেষণা এবং শিল্প গবেষণার অনেক দিক, যেমন, ঔষধনির্মাণ, স্বাস্থ্য পণ্য এবং আরও অনেক শিল্প, সম্ভাব্য ব্যবহারের পদার্থগুলি শনাক্ত করতে এবং সেই পদার্থগুলিকে পরিমার্জন করতে সঠিক জল-বিশ্লেষণের উপর নির্ভর করে। এছাড়াও নিশ্চিত করতে হয় যে, সেগুলি যখন বিক্রির জন্য তৈরি হয়ে যাবে, তখন তাদের রাসায়নিক গঠন যেন সামঞ্জস্যপূর্ণ থাকে। এই ক্ষেত্রে ব্যবহৃত বিশ্লেষণাত্মক পদ্ধতিগুলি খুব জটিল হতে পারে এবং গবেষণা পরিচালনার প্রক্রিয়া বা ক্ষেত্রের জন্য সুনির্দিষ্ট হতে পারে। এখানে নির্দিষ্ট ধরনের বিশ্লেষণাত্মক সরঞ্জামের ব্যবহারের প্রয়োজন পড়তে পারে।


তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "Technical Guidance Note (Monitoring) M18 Monitoring of discharges to water and sewer" (PDF)। Environment Agency। নভেম্বর ২০১৪। সংগ্রহের তারিখ ৩০ জুলাই ২০১৬ 
  2. "Harmonised Monitoring Sceme"। DEFRA। ৭ ডিসেম্বর ২০০৪। ২ এপ্রিল ২০১৩ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৩০ জুলাই ২০১৬ 
  3. "Handbook for Monitoring Industrial wastewater"। Environmental Protection Agency (USA)। আগস্ট ১৯৭৩। সংগ্রহের তারিখ ৩০ জুলাই ২০১৬ 

আরও দেখুন[সম্পাদনা]