জনতা টাওয়ার মামলা

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে

জনতা টাওয়ার মামলাটি ঢাকার কারওয়ান বাজারে জনতা টাওয়ার নিয়ে বাংলাদেশে একটি দুর্নীতির মামলা ছিল। এই মামলায় সাবেক সামরিক স্বৈরশাসক এইচ এম এরশাদের সাজা হয়।

পটভূমি[সম্পাদনা]

জনতা টাওয়ার ঢাকার কারওয়ান বাজারে অবস্থিত একটি এগারো তলা ভবন।[১] এটি মূলত ১৫ তলা হওয়ার পরিকল্পনা করা হয়েছিল। ১৯৯১ সালে নির্মাণ কাজ বন্ধ হওয়ার পর জেনারেল এরশাদ পদত্যাগ করলে টাওয়ারটি স্কোয়াটারদের আবাসস্থলে পরিণত হয়।[২]

১৯৯১ সালের ১৪ এপ্রিল দুর্নীতি দমন ব্যুরো (আজ দুর্নীতি দমন কমিশন ) তেজগাঁও থানায় সাবেক রাষ্ট্রপতি ও সামরিক স্বৈরশাসক হুসেইন মোহাম্মদ এরশাদসহ ১৭ জনের বিরুদ্ধে এবং ১৯ জনের বিরুদ্ধে মামলা করে।[৩] প্রকল্পের জন্য জমি বরাদ্দের ক্ষেত্রে এমএম রহমত উল্লাহর সঙ্গে যোগসাজশের জন্য তার বিরুদ্ধে ক্ষমতার অপব্যবহারের অভিযোগ আনা হয়; এবং হিসাববিহীন অর্থের মালিক। বিচারপতি তার ৯১ পৃষ্ঠার রায়ে বলেছেন যে জেনারেল এরশাদকে প্রতিরোধ আইনে দোষী সাব্যস্ত করা হয়েছে। ২০ নভেম্বর ২০০০-এ বিচারক প্রাক্তন রাষ্ট্রপতিকে সাত বছরের কারাদণ্ড দেন।[৪][৫] ভবনটি বাংলাদেশ সরকার অধিগ্রহণ করেছে।[৬] ফলে ২০০১ সালের নির্বাচনে অংশ নিতে পারেননি এরশাদ।

এরশাদ রায়ের বিরুদ্ধে হাইকোর্ট বিভাগে আপিল করেন যা দোষী সাব্যস্ত করে, কিন্তু ২৪ আগস্ট ২০০৪-এ সাজা কমিয়ে পাঁচ বছর করে। তাকে ৫৫ কোটি টাকা জরিমানাও করা হয়।[৪][৭] তার সাজার দেড় বছর বাকি থাকতে তিনি মুক্তি পান। এরশাদের তৎকালীন স্ত্রী রওশন এরশাদকে দশ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়।[৪] মামলার অপর আসামি শুকুর আলী প্রধান সরকারের কাছ থেকে টাওয়ারটি ফেরত পেতে মামলা করেন। হাইকোর্ট তার পক্ষে রায় দিলেও সুপ্রিম কোর্ট তা বাতিল করে দেয় এবং সম্পত্তি সরকারি মালিকানায় থাকে। [৪]

বাংলাদেশের সাবেক রাষ্ট্রপতিজাতীয় পার্টির প্রধান এরশাদ ঢাকায় চার মাস কারাভোগ করার পর ২০০১ সালের ৯ এপ্রিল জামিনে মুক্তি পান।

উত্তরাধিকার[সম্পাদনা]

টাওয়ারটি বাংলাদেশ সরকার কর্তৃক একটি সফটওয়্যার পার্ক হিসাবে পুনঃপ্রতিষ্ঠা করা হয়েছিল।[৮][৯] দৈনিক মানব জমিনের সম্পাদক মতিউর রহমান চৌধুরী আদালত অবমাননার দায়ে ২০০২ সালের মে মাসে কারাগারে দণ্ডিত হন। কাগজটি এরশাদ এবং হাইকোর্টের একজন বিচারপতির মধ্যে ফোনালাপের একটি প্রতিলিপি প্রকাশ করেছিল যেখানে এরশাদ জনতা টাওয়ার মামলায় আরও অনুকূল রায় চেয়েছিলেন।[১০]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "Janata Tower to get a facelift soon"The Daily Star। সংগ্রহের তারিখ ২০১৬-০৫-০৬ 
  2. Ayon, Kausar Islam। "Janata Tower remains unutilised for long"The Daily Star। সংগ্রহের তারিখ ২০১৬-০৫-০৬ 
  3. "SC upholds HC rule in Janata Tower case"bdnews24.com। সংগ্রহের তারিখ ২০১৬-০৫-০৬ 
  4. "SC upholds HC rule in Janata Tower case"bdnews24.com। সংগ্রহের তারিখ ২০১৬-০৫-০৬ "SC upholds HC rule in Janata Tower case". bdnews24.com. Retrieved 2016-05-06.
  5. Asian News Digest: A Weekly Record on Governance, Economy, Development, Human Rights, and Environment (ইংরেজি ভাষায়)। Asian News Chroniclers। ২০০১-০১-০১। পৃষ্ঠা 1090। 
  6. "Janata Tower to get a facelift soon"The Daily Star। সংগ্রহের তারিখ ২০১৬-০৫-০৬ "Janata Tower to get a facelift soon". The Daily Star. Retrieved 2016-05-06.
  7. Ahmed, Salahuddin (২০০৪-০১-০১)। Bangladesh: Past and Present (ইংরেজি ভাষায়)। APH Publishing। পৃষ্ঠা 231। আইএসবিএন 9788176484695 
  8. "A good year for IT"The Daily Star। ২০১০-১২-৩০। সংগ্রহের তারিখ ২০১৬-০৫-০৬ 
  9. Bhuiyan, Mehdi Musharraf। "Software park in Janata Tower next year"The Daily Star। সংগ্রহের তারিখ ২০১৬-০৫-০৬ 
  10. "SC slams on contempt"The Daily Star। ২০১০-০৮-১৯। সংগ্রহের তারিখ ২০১৬-০৫-০৬ 

গ্রন্থপঞ্জি[সম্পাদনা]