ছাব্বিশে জুলাই আন্দোলন

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
ছাব্বিশে জুলাই আন্দোলন
Movimiento 26 de Julio
নেতাফিদেল কাস্ত্রো (প্রধান)
রাউল কাস্ত্রো
চে গেভারা
ক্যামিলো সিয়েনফুয়েগোস
জুয়ান আলমেইডা বস্ক
অপারেশনের তারিখ১৯৫৫-১৯৬৫
সদরদপ্তরটুক্সপান, ভেরাক্রুজ, মেক্সিকো (প্রথম)
হাভানা, কিউবা (দ্বিতীয়)
সক্রিয়তার অঞ্চলক্যারিবীয় সাগর
মতাদর্শসাম্যবাদ
বামপন্থী জাতীয়তাবাদ
সাম্রাজ্যবাদ বিরোধী
অগ্ৰগামিতা
বিপ্লবী সমাজতন্ত্র
বিপক্ষফুলগেনসিও বাতিস্তার সরকার, কিউবান সেনাবাহিনী
খণ্ডযুদ্ধ ও যুদ্ধঅপারেশন ভেরানো, লা প্লাতার যুদ্ধ, লাস মার্সিডিজের যুদ্ধ, ইয়াগুয়াজয়ের যুদ্ধ, সান্তা ক্লারার যুদ্ধ

ছাব্বিশে জুলাই আন্দোলন (স্পেনীয়: Movimiento 26 de Julio; এম-২৬-৭) ছিল কিউবার একটি অগ্রদূত বিপ্লবী সংগঠন এবং পরবর্তীতে ফিদেল কাস্ত্রোর নেতৃত্বে তৈরি হওয়া একটি রাজনৈতিক দল। স্বৈরশাসক ফুলজেনসিও বাতিস্তাকে উৎখাতের প্রচেষ্টায় ১৯৫৩ সালের ২৬ জুলাই সান্তিয়াগো দে কিউবার সেনা ব্যারাকে হামলার কথা স্মরণ করে এই সংগঠনের এরূপ নামকরণ করা হয়।[১]

এটিকে কিউবান বিপ্লবের অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ সংগঠন হিসেবে বিবেচনা করা হয়। ১৯৫৬ সালের শেষে, কাস্ত্রো সিয়েরা মায়েস্ত্রা একটি গেরিলা ঘাঁটি স্থাপন করেন। এই ঘাঁটি ১৯৫৮ সালের ৩১ ডিসেম্বর বাতিস্তার সৈন্যদের পরাজিত করে কিউবার বিপ্লবের গতি নির্ধারণ করে এবং ম্যানুয়েল উরুতিয়া লিওর নেতৃত্বে একটি সরকার গঠন করে। এই আন্দোলন গ্রামীণ ও শহুরে উভয় ক্ষেত্রেই বাতিস্তা সরকারের সাথে লড়াই করে। এই আন্দোলনের প্রধান উদ্দেশ্য ছিল কৃষকদের জমি বণ্টন, সরকারী সেবা জাতীয়করণ, শিল্পায়ন, সৎ নির্বাচন এবং বৃহৎ আকারের শিক্ষা সংস্কার।

১৯৬১ সালের জুলাই মাসে ছাব্বিশে জুলাই আন্দোলন ছিল সমন্বিত বিপ্লবী সংগঠন (ওআরআই), পপুলার সোশ্যালিস্ট পার্টি (পিএসপি) এবং ১৩ মার্চের বিপ্লবী অধিদপ্তরের মধ্যে অন্যতম। ১৯৬২ সালের ২৬ মার্চ দলটি কিউবার সমাজতান্ত্রিক বিপ্লবের (পুরএসসি) ইউনাইটেড পার্টি গঠনের জন্য ভেঙ্গে পড়ে এবং একটি সমাজতান্ত্রিক মতাদর্শ ধারণ করে।[২]

উৎপত্তি[সম্পাদনা]

ছাব্বিশে জুলাই আন্দোলনের নামের উৎপত্তি ১৯৫৩ সালের ২৬ জুলাই মাসে সান্তিয়াগো দে কিউবা শহরের মনকাডা ব্যারাকে ব্যর্থ হামলা থেকে উদ্ভূত হয়েছিল।[৩][৪] এই হামলার নেতৃত্বে ছিলেন তরুণ ফিদেল কাস্ত্রো, যিনি একটি নির্বাচনের একজন সংসদ প্রার্থী ছিলেন, পরবর্তীতে ফুলগেনসিও বাতিস্তা তা বাতিল করেছিলেন।[৫]

এই হামলার উদ্দেশ্য ছিল বিপ্লবের জন্য একটি শোভাযাত্রা তৈরি করা। হামলার পর কাস্ত্রোকে বন্দী করা হয় এবং ১৫ বছরের কারাদণ্ড প্রদান করা হয়, কিন্তু তার দল তার পক্ষে রাজনৈতিক প্রচারণার দুই বছর পর তাকে সাধারণ ক্ষমা প্রদান করা হয়। কাস্ত্রো ১৯৫৫ সালে আরও কয়েকজন নির্বাসিত বিপ্লবীর (রাউল কাস্ত্রো, ক্যামিলো সিয়েনফুয়েগোস এবং হুয়ান আলমেইদা বোস্কে সহ) সাথে আন্দোলন পুনর্গঠনের জন্য মেক্সিকো ভ্রমণ করেন। তাদের কাজ ছিল বাতিস্তাকে উৎখাত করার জন্য একটি শৃঙ্খলাবদ্ধ গেরিলা বাহিনী গঠন করা।

এই দল মূলত মনকাডা ব্যারাকে জাতীয় বিপ্লবী আন্দোলনের নেতৃত্বাধীন রাফায়েল গার্সিয়া বারসেনাস ও অর্থডক্স সংখ্যাগরিষ্ঠ তরুণদের সাথে একত্র হয়ে মনকাডা ব্যারাকে হামলাকে ঘিরে সংগঠিত হয়েছিল। এর পরপরই ফ্র্যাঙ্ক পাইসের নেতৃত্বে জাতীয় বিপ্লবী কর্মকাণ্ডে যোগদান করে। তাদের মতাদর্শের সাধারণতা এবং বাতিস্তা সরকারকে উৎখাত করতে চাওয়ার একই লক্ষ্যের কারণে, এম-২৬-৭ এ দ্রুত বিভিন্ন রাজনৈতিক প্রেক্ষাপট থেকে আরো তরুণরা যোগদান করে।

কিউবার বিপ্লবে ভূমিকা[সম্পাদনা]

১৯৫৬ সালের ২ ডিসেম্বর ৮২ জন লোক কিউবায় অবতরণ করে, ভেরাক্রুজের টুক্সপান থেকে গ্রানমা নৌকায় যাত্রা শুরু করে একটি বিপ্লবের নেতৃত্ব দেবার জন্য প্রস্তুত হয়। প্রাথমিক কাজগুলো তাদের আন্দোলনের পক্ষে সঠিক ছিল না। তারা দিনের বেলায় অবতরণ করে কিউবার বিমান বাহিনীর আক্রমণের শিকার হয়, এইসময় তাদের অসংখ্য সদস্য গুরুতরভাবে আহত হয়েছিল। অবতরণকারীরা দুই ভাগে বিভক্ত হয় এবং দুই দিনের জন্য হারিয়ে যায়, তাদের বেশিরভাগ খাদ্য সরবরাহ শেষ হয়ে যায়। এছাড়াও তাদের পথপ্রদর্শক তাদের সাথে বিশ্বাসঘাতকতা করে, যার ফলে অবতরণকারীদের বেশীরভাগই হত্যাকাণ্ডের শিকার হয়। বাতিস্তা ভুল করে এই মুহূর্তে ফিদেল কাস্ত্রোর মৃত্যুর কথা ঘোষণা করেন। যে ৮২ জন গ্রানমা জাহাজে উঠেছিল, তাদের মধ্যে মাত্র ২২ জন অবশেষে সিয়েরা মায়েস্ত্রা পর্বতমালায় পুনরায় একত্রিত হয়।[৬] সিয়েরা মায়েস্ত্রা পর্বতমালায় যখন বিপ্লবীরা শিবির স্থাপন করে, তখন "নাগরিক প্রতিরোধ" দলগুলো শহরে একত্রিত হচ্ছিল যারা বাতিস্তা সরকারের উপর চাপ সৃষ্টি করছিল। অনেক মধ্যবিত্ত এবং পেশাদার ব্যক্তি কাস্ত্রো এবং তার আন্দোলনের দিকে এইসময় ঝুঁকে পড়েছিল।[৭] সিয়েরা মায়েস্ত্রা পর্বতমালায় গেরিলা বাহিনী শত শত কিউবান স্বেচ্ছাসেবককে আকৃষ্ট করে কিউবার সেনাবাহিনীর বিরুদ্ধে বেশ কয়েকটি যুদ্ধে জয়লাভ করে। যুদ্ধের সময় আর্নেস্টো 'চে' গুয়েভারার গলায় ও বুকে গুলি করা হয় তিনি গুরুতরভাবে আহত হন তবে নিহত হননি। গুয়েভারা (যিনি ঔষধ নিয়ে পড়াশোনা করেছিলেন,) তিনি অন্যান্য আহত গেরিলাদের প্রাথমিক চিকিৎসা দিতে থাকেন। এটি ছিল কিউবার বিপ্লবের যুদ্ধের প্রথম পর্যায়, যা পরবর্তী দুই বছর ধরে চলতে থাকে। নববর্ষের শুরুতে ১৯৫৯ সালের জানুয়ারি মাসে বাতিস্তা কিউবা থেকে ডোমিনিকান প্রজাতন্ত্রের উদ্দেশ্যে রওনা হওয়ার পর, বিদ্রোহী বাহিনী হাভানায় আনন্দ মিছিল করে।

রাজনৈতিক এবং সামরিক পদক্ষেপ[সম্পাদনা]

গেরিলারা ফেব্রুয়ারি ১৯৫৮ সালে ৪০০ জন পুরুষ যুক্ত করার মাধ্যমে তাদের সংখ্যা বৃদ্ধি করে।[৮] এর তুলনায় বাতিস্তার বাহিনীতে সৈন্য সংখ্যা ছিল ৫০,০০০ কিন্তু গেরিলা মোকাবেলা করার জন্য মাত্র ১০,০০০ সৈন্য একসাথে ব্যবহার করতে সক্ষম হয়েছিল। ১৯৫৮ সালের এপ্রিল থেকে আগস্টের মধ্যে সিয়েরাতে লুকানো গেরিলাদের ঘিরে ফেলা হয় এবং ধ্বংস করার জন্য বাতিস্তা ১০,০০০ সৈন্যের স্থল ও বিমান সহয়তা সহ অভিযান শুরু করে যদিও এটি একটি ব্যর্থ অভিযান ছিল।[৯] অবশেষে দুই বছরের যুদ্ধের পর বিদ্রোহীরা বাতিস্তা বাহিনীকে পরাজিত করে, যার ফলে এরা ডোমিনিকান প্রজাতন্ত্রে পালিয়ে যায় এবং ১৯৫৯ সালের ১ জানুয়ারি ক্ষমতা দখল করে। সে সময় যুদ্ধে প্রায় ২০,০০০ থেকে ৩০,০০০ গেরিলা যোগদান করে এবং যুদ্ধে ১,০০০ থেকে ২,৫০০ লোকের প্রাণ হানি হয়।

নাগরিক ও গ্রামীণ উভয় প্রেক্ষাগৃহে এম-২৬-৭ এর পরিচালিত কৌশলগুলির মূল অংশ ছিল অন্তর্ঘাত এবং প্রসার-প্রচারণা, এটি সঙ্কটের পরিবেশ তৈরি করতে এবং বাতিস্তা শাসনের বিরুদ্ধে জনসাধারণ ও অর্থনৈতিক শৃঙ্খলা অস্থিতিশীল করতে ব্যবহৃত হয়েছিল।[১০] গ্রামাঞ্চলে গেরিলারা আখের ক্ষেত এবং তেল শোধনাগার পুড়িয়ে দেয়, সেতু ও ট্রেন অবরোধ করে বাতিস্তার সৈন্যদের আক্রমণ করেছিল। অন্যদিকে এম-২৬-৭ সদস্যরা টেলিফোন লাইন কেটে দেয়, সমন্বিত ধর্মঘট, সরকারী ভবনে বোমা হামলা এবং সরকারী কর্মকর্তাদের হত্যা করাা হয়।[১১] এম-২৬-৭ তাদের কর্মকাণ্ডের সহিংসতাকে ইতিবাচক আলোকে তুলে ধরার জন্য তার প্রচারণা চালায়। উল্লেখযোগ্য প্রচারণা প্রচেষ্টার মধ্যে ছিল ১৯৫৮ সালের ২৪ ফেব্রুয়ারি থেকে রেডিও রেবেলডে সম্প্রচার এবং বিদেশী সাংবাদিকদের আমন্ত্রণ, যেমন নিউ ইয়র্ক টাইমসের যুদ্ধ সংবাদদাতা হার্বার্ট ম্যাথিউজ এবং মার্কিন সামরিক গোয়েন্দা এজেন্ট অ্যান্ড্রু সেন্ট জর্জ।[১২][১৩] অভ্যন্তরীণ এবং আন্তর্জাতিক উভয় প্রচারণার উদ্দেশ্য ছিল এম-২৬-৭ এর লক্ষ্য এবং নীতি সম্পর্কে শ্রোতাদের অবহিত করা এবং আন্দোলনের প্রতি সহানুভূতি সৃষ্টি করতে গেরিলা যোদ্ধাদের জীবন এবং শোষণের কথা প্রচার করা।[১৪]

গ্রামীণ কার্যক্রম[সম্পাদনা]

এম-২৬-৭ এর কার্যক্রম গ্রামীণ গেরিলাদের মধ্যেও প্রসার করে, যারা সিয়েরা মায়েস্ত্রা পর্বতমালার আন্দোলনের উপর ভিত্তি করে অবস্থান করেছিল এবং শহুরে পলাতকরা বেশিরভাগই মধ্যবিত্ত এবং পেশাদার কিউবান ছিল।[১৫] কাস্ত্রো বাতিস্তার সৈন্যদের সাথে লড়াই এবং বাতিস্তার নিয়ন্ত্রণ থেকে গৃহীত ক্রমবর্ধমান পরিমাণ এলাকা পরিচালনার জন্য গ্রামাঞ্চলে তার প্রচেষ্টার উপর মনোযোগ প্রদান করেন। এম-২৬-৭ বিপুল সংখ্যক কৃষক পুরুষ এবং নারীকে এম-২৬-৭ এর কার্যক্রমে অন্তর্ভুক্ত করে যেখানে তারা বাতিস্তার শাসনের বিরুদ্ধে যুদ্ধ করার জন্য সৈন্য, সহযোগী এবং সংবাদদাতা হিসেবে কাজ করে। অনেক কৃষক নেতা পিএসপির সাথেও যুক্ত ছিলেন এবং তারা এম-২৬-৭ এর সমর্থনে লোক সংগ্ৰহের জন্য কমিউনিস্ট পার্টির সদস্য এবং সহানুভূতিশীলদের সাথে যোগাযোগের জন্য তাদেরকে মাধ্যম হিসেবে ব্যবহার করেছিলেন। সবচেয়ে লক্ষণীয়, ক্যাম্পেসিনো অ্যাসোসিয়েশন, যা ১৯৩৪ সাল থেকে একটি সক্রিয় কমিউনিস্ট সংগঠন ছিল তারা এম-২৬-৭ কে কৃষক রাজনৈতিক সংগঠনের নেটওয়ার্কে প্রবেশ এবং কাজ করার অনুমতি দেয়।[১৬] প্রামাণিক পার্টি (পিএ) এবং অর্থডক্স পার্টির নেতৃবৃন্দ এবং ক্ষুদ্র, মাঝারি ও ধনী জমির মালিকেরা এম-২৬-৭ কে বাতিস্তার বাহিনীর কাছ থেকে তহবিল ও সুরক্ষা প্রদানের মাধ্যমে সমর্থন করে।

এম-২৬-৭ ক্রমবর্ধমান হারে গ্রামাঞ্চলের বৃহৎ অংশ দখল করে নেয়। তারা প্রাথমিক বিদ্যালয়, হাসপাতাল ও চিকিৎসা সেবা স্থাপন, টোল সড়ক রক্ষণাবেক্ষণ, ডাকাতদের থেকে সুরক্ষা প্রদান এবং আইন ও ফরমান প্রণয়ন থেকে শুরু করে স্থানীয় কৃষকদের সরকারী সেবা প্রদান করা শুরু করে। বিনিময়ে, এম-২৬-৭ কৃষকদের উপর নিয়ন্ত্রণের জন্য কর আরোপ করে এবং কর ফাঁকির দায়ে দোষী সাব্যস্ত ব্যক্তিদের বিরুদ্ধে কারাদণ্ড ও জরিমানাও আরোপ করে। এছাড়াও ডাকাতি, চাষ দখল এবং মারিজুয়ানা র ব্যবহারের মতো অপরাধ নিয়ন্ত্রণে আইন প্রয়োগ শুরু হয়।[১৭][১৮] কাস্ত্রো ১৯৫৮ সালের সেপ্টেম্বর মাসে অ্যাডমিনিস্ট্রেসিভেন সিভিল প্যারা লস টেরিটরিওস লিবারাদোস (অ্যাকটিএল) সহ বিদ্রোহী নিয়ন্ত্রিত অঞ্চল পরিচালনার জন্য আমলাতান্ত্রিক সংগঠন তৈরি করেন এটি সিয়েরা মায়েস্ত্রা এবং কৃষি ব্যুরোতে সক্রিয় ছিল, যা ৩ আগস্ট ১৯৫৮ সালে ওরিয়েন্ট প্রদেশের তত্ত্বাবধানের জন্য তৈরি করা হয়েছিল।

নগর কার্যক্রম[সম্পাদনা]

১৯৫৫ সালে যখন পাইস আর তার সংগঠন ওরিয়েন্ট রেভোলিউশনারি অ্যাকশন (এআরও) এম-২৬-৭ এর সাথে একত্রীকরণ‌ হয়ে যায় তখন কাস্ত্রো ফ্রাঙ্ক পাইসকে ওরিয়েন্ট প্রদেশের প্রধান হিসেবে মনোনীত করেন।[১৯] এম-২৬-৭ এর শহুরে ভূগর্ভস্থ প্রধান হিসেবে পাইস জাতীয় অধিদপ্তর নামে পরিচিত একটি মূল নেতৃত্বের অধীনে তার কার্যক্রম কেন্দ্রীভূত করেন এবং এম-২৬-৭ এর সদর দপ্তর হাভানা থেকে সান্তিয়াগোতে স্থানান্তর করেন। তিনি এম-২৬-৭ এর ছয়টি পৃথক বিভাগ তৈরি করেন যা সংগঠন, শ্রম প্রসার, মধ্যবিত্তদের মধ্যে নাগরিক প্রতিরোধ, অন্তর্ঘাতমূলক কার্যকলাপ এবং একটি শহুরে মিলিশিয়া, প্রচারণা এবং তহবিল সংগ্রহের জন্য একটি কোষাগারের ব্যবস্থা করেন।[২০]

১৯৫৬ সালের ৩০ নভেম্বর সান্তিয়াগোতে ব্যর্থ সশস্ত্র বিদ্রোহের মাধ্যমে প্যানস গ্রানমা থেকে ক্যাস্ত্রোর অবতরণকে সমর্থন করার চেষ্টা করেছিলেন এবং সিয়েরা মাস্ত্রায় কাস্ত্রো ও বেঁচে থাকা গেরিলারা পুনরায় গ্রুপপৃষ্ঠের পরে গেরিলারা ওষুধ, অস্ত্র, গোলাবারুদ, খাবারের জন্য তাদের শহুরে অংশের উপর নির্ভরশীল ছিল।[২১] এছাড়াও, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে কিউবান নির্বাসিতদের জন্য শহুরে গোপনে সংগঠিত সংগঠনের কর্মীরা ধর্মঘটের পাশাপাশি অস্ত্র ও গোলাবারুদ কেনার জন্য তহবিল সরবরাহ করেছিল।[২২] এম-২৬-৭ অন্যান্য শহুরে-ভিত্তিক বাতিস্তা বিরোধী গ্রুপ যেমন পিএসপি-এর সাথে সমন্বয় সাধন করে।[২৩]

১৯৫৭ সালের জুলাই মাসে সান্তিয়াগো পুলিশের হাতে ফ্রাঙ্ক পাইসের হত্যাকাণ্ডের পর শহরে ব্যাপক বিক্ষোভ এবং শ্রমিক ধর্মঘটের সূত্রপাত ঘটে যা দ্রুত দ্বীপ জুড়ে ছড়িয়ে পড়ে, যার ফলে ১৯৫৭ সালের ৫ আগস্ট দেশব্যাপী সাধারণ ধর্মঘট পালিত হয়।[২৪] যদিও এই ধর্মঘট সীমিত সাফল্য দেখেছে, এম-২৬-৭ বিশ্বাস করে যে যে গতিতে ধর্মঘট ছড়িয়ে পড়েছে এবং এর জনপ্রিয়তা মানে ভবিষ্যতে দেশব্যাপী ধর্মঘট বাতিস্তার সরকারকে অস্থিতিশীল করে তুলতে পারে। পরে, ১৯৫৮ সালের ৯ এপ্রিল অনুষ্ঠিত পরবর্তী জাতীয় ধর্মঘট এম-২৬-৭ এর জন্য ব্যর্থ হয় এই ঘটনার জন্য বাতিস্তার বাহিনীর প্রস্তুতির কারণে এবং ধর্মঘটের সময় পর্যন্ত এম-২৬-৭ এবং শ্রমিক দলগুলোর মধ্যে দুর্বল যোগাযোগকে দায়ী করা হয়। বিশৃঙ্খলার সময় সশস্ত্র অভ্যুত্থান করার চেষ্টা করার সময় পুলিশ এবং সেনাবাহিনীর সাথে যুদ্ধে অনেক এম-২৬-৭ সদস্য নিহত হয়।[২৫]

১৯৫৯-এর পরে[সম্পাদনা]

অধিগ্রহণের পর, বাতিস্তা বিরোধী, উদারপন্থী, নগরকর্মী, কৃষক এবং আদর্শবাদীরা এম-২৬-৭ আন্দোলনের প্রভাবশালী অনুসারী হয়ে ওঠে, যা কিউবার উপর নিয়ন্ত্রণ লাভ করতে সাহায্য করে। এই আন্দোলন কিউবার সমাজতান্ত্রিক বিপ্লবের ইউনাইটেড পার্টি গঠনের জন্য অন্যান্য সংস্থার সাথে যুক্ত হয়, যার ফলে ১৯৬৫ সালে কিউবার কমিউনিস্ট পার্টির প্রতিষ্ঠা হয়। কিউবা পূর্ব ইউরোপীয় দেশগুলির পরে নিজেকে মডেল হিসেবে উপস্থাপন করে যারা ওয়ারশ চুক্তিতে সাক্ষর করেছিল। যখন জানা যায় যে কিউবা কঠোর মার্কসবাদী-লেনিনবাদী রাজনৈতিক ও অর্থনৈতিক ব্যবস্থা গ্রহণ করবে তখন বিরোধিতা কেবল ভিন্নমতাবলম্বী দলের সদস্যদের দ্বারাই নয় মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রও এর বিরোধিতা করেছে।[২৬]

ফিদেল কাস্ত্রোর সরকার ব্যক্তিগত জমি দখল করে, শত শত বেসরকারি কোম্পানিকে জাতীয়করণ করেছে- যার মধ্যে রয়েছে যুক্তরাষ্ট্রের কর্পোরেশনের বেশ কয়েকটি স্থানীয় সহযোগী প্রতিষ্ঠান ছিল। আমেরিকান পণ্যের উপর এত ভারী কর আরোপ করা হয়েছিল যে মাত্র দুই বছরে মার্কিন রপ্তানি অর্ধেকে নেমে গিয়েছিল। মার্কিন আইজেনহাওয়ার প্রশাসন এরপর খাদ্য এবং চিকিৎসা সরবরাহ ছাড়া সবকিছুর উপর বাণিজ্য বিধিনিষেধ আরোপ করে, এর ফলে কিউবা বাণিজ্যের জন্য সোভিয়েত ইউনিয়নের দিকে ঝুঁকে পড়ে। পরবর্তীতে যুক্তরাষ্ট্র কিউবার সাথে সকল কূটনৈতিক সম্পর্ক ছিন্ন করে দেয়।[২৭] ১৯৬১ সালের এপ্রিল মাসে কিউবার নির্বাসিত এবং ভিন্নমতাবলম্বীদের সাথে সিআইএ এর প্রশিক্ষিত বাহিনী কিউবার বিরুদ্ধে অসফল পিগস উপসাগর আক্রমণ শুরু করে, কাস্ত্রো বিপ্লবকে সমাজতান্ত্রিক ঘোষণা করার পর পরই। আগ্রাসনের পরই, কাস্ত্রো আনুষ্ঠানিকভাবে নিজেকে কমিউনিস্ট ঘোষণা করেন।

বাতিস্তার বিরুদ্ধে লড়াইয়ের সময় অনেক ক্যাথলিক ছাত্র এবং পুরোহিতদের কাছ থেকে এম-২৬-৭ সমর্থন পেয়েছিল। সমর্থন থাকা সত্ত্বেও ১৯৫৯ সালে বিজয়ের পর এম-২৬-৭ আন্দোলনের এবং ক্যাথলিক চার্চের মধ্যে একটি বিভাজনের সৃষ্টি হয়। কৃষি সংস্কার কর্মসূচী নিয়ে তৈরিকৃত নীতিতে ক্যাথলিক মূল্যবোধের অভাবে ১৯৫৯ সালের ১৭ জুলাই হাভানার ক্যাথিড্রালের সামনে ক্যাথলিক চার্চের প্রতিনিধি এবং কাস্ত্রো পন্থী বিক্ষোভকারীদের নিয়ে একটি দাঙ্গার বিরুদ্ধে জাতীয় ক্যাথলিক কংগ্রেসের প্রতিবাদের পর কাস্ত্রো প্রকাশ্যে রোমান ক্যাথলিক চার্চের নেতৃত্বের নিন্দা জানান।[২৮]

১৯৬০ সালের ৬ জানুয়ারি এম-২৬-৭ এর সশস্ত্র সদস্যরা কিউবা জুড়ে ক্যাথলিক সেমিনার, গির্জা এবং স্কুল দখল করে নেয় ও ইয়ং ক্যাথলিক ওয়ার্কার্স (জোসি) নেতাদের গ্রেফতার করে। পিগস উপসাগরের পর, এম-২৬-৭ আরো গির্জা বন্ধ করে দেয় এবং ১৯৬১ সালের ১৭ এপ্রিল বেশ কয়েকজন পুরোহিত ও বিশপকে আটক করে। সকল বেসরকারি কলেজ জাতীয়করণ এবং বিদেশী পুরোহিতদের বহিষ্কারের পরিপ্রেক্ষিতে ১ মে ক্যাথলিক চার্চকে কিউবা থেকে বহিষ্কার করা হয়।[২৮]

উত্তরাধিকার[সম্পাদনা]

বাতিস্তার বিরুদ্ধে সংগ্রামের সময় এম-২৬-৭ নিজেকে সকল কিউবানদের জন্য একটি ঐক্যবদ্ধ আন্দোলন হিসেবে তুলে ধরেছিল যারা বাতিস্তার উৎখাতের পর গণতন্ত্র এবং সামাজিক ন্যায়বিচার বয়ে আনবে, বিশেষ করে নারী এবং আফ্রো-কিউবা সংখ্যালঘুদের জন্য।[২৯] কিউবার কর্মী বাহিনীর কেবলমাত্র ১০% সদস্য থাকা সত্ত্বেও, নারীরা বিপ্লবের সময় এম-২৬-৭-এ আনুপাতিকভাবে অংশগ্রহণ করে, যার মধ্যে ছিল প্রচারণা এবং বিক্ষোভ এবং পিকেটিং।[৩০]

এছাড়াও, মারিয়ানা গ্রাজালেস সেপ্টেম্বর ১৯৫৮ সালে এম-২৬-৭ তে একটি অল-ফিমেল মিলিটারি ইউনিট হিসেবে প্রতিষ্ঠিত হয়।[৩১] বিপ্লবের পর এম-২৬-৭ দ্বারা পরিচালিত বিপ্লবী সরকার কিউবার রাজনৈতিক, সামাজিক ও অর্থনৈতিক জীবনে নারীদের একীভূত করতে এবং পতিতাবৃত্তি নির্মূল করতে ফেডারেশন অফ কিউবান উইমেন (বিএমসি) প্রতিষ্ঠা করে।[৩১] কাস্ত্রো এবং এম-২৬-৭ এই আন্দোলনের একটি গুরুত্বপূর্ণ প্লাটফর্ম হিসেবে জাতিগত একীকরণের উপর জোর দিয়েছেন এবং বাতিস্তার উৎখাতের পর এম-২৬-৭ দ্রুত জনস্বার্থে কিছু সংস্কারকাজ বাস্তবায়ন করে, যেমন জমি পুনর্বণ্টন এবং উন্নত সরকারী শিক্ষা এবং চিকিৎসা সেবা যাতে সবাই আনুপাতিকভাবে উপকৃত হয়।[৩২] তবে, এম-২৬-৭ এর বর্ণবাদী নীতি কৃষ্ণাঙ্গ রাজনৈতিক সংগঠনকে দমন করার এবং বিপ্লবের বক্তব্যের বর্ণবাদী চেতনাকে অবমূল্যায়ন করার উপর জোর দেয়ার জন্য সমালোচিত হয়েছে।[৩২]

১৯৫৯ সাল থেকে, ২৬ জুলাই কিউবায় একটি জাতীয় ছুটি হিসেবে উদ্‌যাপন করা হয়। মনকাডা ব্যারাক আক্রমণ এবং বাতিস্তা সরকারকে উৎখাতে এম-২৬-৭ এর ভূমিকাকে সম্মান জানাতে প্রতি বছর স্থানীয় ও জাতীয় পর্যায়ে কমিউনিটি ভিত্তিক কর্মসূচী, পুনরাবৃত্তি এবং আবৃত্তির অনুষ্ঠান উদ্‌যাপন করা হয়।[৩৩] ১৯৬৭ থেকে ১৯৭৩ সাল পর্যন্ত মনকাডা ব্যারাকে হামলা এবং এম-২৬-৭ এর কর্মকাণ্ডের স্মরণে সান্তিয়াগো, ভিলা ব্লাঙ্কা এবং মনকাডাতে তিনটি জাদুঘর খোলা হয়েছে।[৩৪]

২৬শে জুলাই আন্দোলনের পতাকা কিউবার সামরিক পোশাকের কাঁধে রয়েছে এবং একে কিউবার বিপ্লবের প্রতীক হিসেবে ব্যবহার করা হচ্ছে।

সদস্য[সম্পাদনা]

এম-২৬-জে এর প্রথম জাতীয় নেতৃত্ব বিপ্লবীদের সমন্বয়ে গঠিত হয়েছিল:

  • ফিদেল কাস্ত্রো
  • মেলবা হার্নান্দেজ
  • হ্যাদি সান্তমারিয়া
  • আন্তোনিও আইকো ল্যাপেজ
  • পেড্রো মিরেট প্রিয়েটো
  • জোসে এ পেপে সুরেজ
  • পেড্রো সেলেস্তিনো আগুইলেরা
  • ফাউস্টিনো পেরেজ
  • আরমান্ডো হার্ট
  • লুইস বারেটো মিলিয়েন
  • জেসের মন্টানি
  • হুয়ান ম্যানুয়েল মার্কেজ [৩৫]

ছাব্বিশে জুলাইয়ের আন্দোলনের অংশ নেওয়া অন্যান্য রাজনৈতিক নেতারা হলেন:

  • চে গেভারা
  • কামিলো সিয়েনফুয়েগোস
  • রাউল কাস্ত্রো
  • হুয়ান আলমেইদা বোস্কে
  • সেলিয়া সানচেজ
  • হুবার মাতস
  • কার্লোস ফ্রানকি
  • রাউল চিবাস
  • আবেল সান্তামারিয়া
  • ফ্র্যাঙ্ক কান্ট্রি
  • অগাস্টিন নাভারেতে সরবাবু
  • রাউল মার্টিনেজ আরাস
  • জশুয়া দেশ
  • এফিজেনিও আমিজেইরাস
  • ওসমানি সিয়েনফুয়েগোস
  • রামিরো ভালদেস
  • রেনাটো গিটার
  • হোসে পার্দো লাদা
  • থিওডুলিও মিচেল
  • পেদ্রো লুইস বোইটেল আব্রাহাম
  • ম্যানুয়েল আরটাইম

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "২৬শে জুলাই আন্দোলন | কিউবার ইতিহাস"এনসাইক্লোপিডিয়া ব্রিটানিকা (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০১৯-১২-০১ 
  2. "২৬শে জুলাই আন্দোলন | কিউবার ইতিহাস"এনসাইক্লোপিডিয়া ব্রিটানিকা (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০১৯-১২-০১ 
  3. "নিউজম্যাক্স আর্কাইভ"www.newsmax.com। সংগ্রহের তারিখ ২০২১-০২-২২ 
  4. "ফিদেল কাস্ত্রো এবং ২৬শে জুলাই আন্দোলন"web.archive.org। ২০০৮-১০-১১। সংগ্রহের তারিখ ২০২১-০২-২২ 
  5. "কিউবা প্রজাতন্ত্র | ইতিহাস – ভূগোল"এনসাইক্লোপিডিয়া ব্রিটানিকা। সংগ্রহের তারিখ ২২ নভেম্বর ২০১৬ 
  6. অ্যান্ডারসন (১৯৯৭)। ২৬শে জুলাই আন্দোলন। পৃষ্ঠা ২৬৯-২৭০। 
  7. "২৬শে জুলাই আন্দোলন | কিউবার ইতিহাস"এনসাইক্লোপিডিয়া ব্রিটানিকা। সংগ্রহের তারিখ ২২ নভেম্বর ২০১৬ 
  8. Schmid, Alex; Jongman (১৯৮৮)। Political Terrorism: A new guide to actors, authors, concepts, data bases, theories and literature। Transaction Books। পৃষ্ঠা 528। 
  9. "La Fuerza Aérea de Cuba contra la guerrilla de Fidel Castro • Rubén Urribarres"Aviación Cubana • Rubén Urribarres। সংগ্রহের তারিখ ২১ নভেম্বর ২০১৯ 
  10. Sweig 2002, p. 120.
  11. Sweig 2002, p. 100; Cushion 2016, p. 106.
  12. Sweig 2002, p. 104.
  13. Guerra, Lillian (২০১৯)। "Searching for the Messiah: Staging Revolution in the Sierra Maestra, 1956-1959": 68–69। 
  14. Guerra, Lillian (২০১৯)। "Searching for the Messiah: Staging Revolution in the Sierra Maestra, 1956-1959": 71। 
  15. Sweig, Julia. (২০০২)। Inside the Cuban Revolution : Fidel Castro and the urban underground। Harvard University Press। পৃষ্ঠা 14। আইএসবিএন 0-674-04419-3ওসিএলসি 433551015 
  16. Kozameh, Sara (অক্টোবর ২০১৯)। "Guerrillas, Peasants, and Communists: Agrarian Reform in Cuba's 1958 Liberated Territories": 641–673। ডিওআই:10.1017/tam.2019.69 – Cambridge Core-এর মাধ্যমে। 
  17. Kozameh, Sara (অক্টোবর ২০১৯)। "Guerrillas, Peasants, and Communists: Agrarian Reform in Cuba's 1958 Liberated Territories": 641–673। ডিওআই:10.1017/tam.2019.69 – Cambridge Core-এর মাধ্যমে। 
  18. Guerra, Lillian (২০১৯)। "Searching for the Messiah: Staging Revolution in the Sierra Maestra, 1956-1959": 79–80। 
  19. Cushion, Stephen (২০১৬)। A Hidden History of the Cuban Revolution: How the Working Class Shaped the Guerillas' Victory। New York University Press। পৃষ্ঠা 108। আইএসবিএন 978-1-58367-584-7 
  20. Sweig 2002, p. 15; Cushion 2016, p. 154.
  21. Sweig 2002, p. 14; Cushion 2016, p. 125.
  22. Sweig 2002, p. 17, 60.
  23. Sweig 2002, p. 20.
  24. Cushion 2016, p. 152-160.
  25. Sweig 2002, p. 136; Cushion 2016, p. 161-172.
  26. DeFronzo, James. Revolutions and Revolutionary Movements. (University of Connecticut. 2007) pp. 207–08
  27. Suddath, Claire (১৫ এপ্রিল ২০০৯)। "U.S.-Cuba Relations"Timeআইএসএসএন 0040-781X। সংগ্রহের তারিখ ২২ নভেম্বর ২০১৬ 
  28. Holbrook, Joseph (২০১০)। "The Catholic Church in Cuba:, 1959-1962: The Clash of Ideologies": 264–275। আইএসএসএন 1756-3461জেস্টোর 41945906 
  29. Cushion 2016, p. 111.
  30. Cushion 2016, p. 60-69.
  31. Salim Lamrani; Translated by Larry R. Oberg (২০১৬)। "Women in Cuba: The Emancipatory Revolution": 109। জেস্টোর 10.13169/intejcubastud.8.1.0109ডিওআই:10.13169/intejcubastud.8.1.0109 
  32. Benson, Devyn Spence (২৫ এপ্রিল ২০১৬), "Cuba Calls!", Antiracism in Cuba, University of North Carolina Press, পৃষ্ঠা 153–197, আইএসবিএন 978-1-4696-2672-7, ডিওআই:10.5149/northcarolina/9781469626727.003.0005, সংগ্রহের তারিখ ২৫ নভেম্বর ২০২০ 
  33. Waters, Anita; Fernandes, Luci (২০১২)। "Representing the Revolution: Public History and the Moncada Barracks in Santiago de Cuba": 125–154। আইএসএসএন 0826-3663জেস্টোর 41800548ডিওআই:10.1080/08263663.2012.10817030 
  34. Waters, Anita; Fernandes, Luci (২০১২)। "Representing the Revolution: Public History and the Moncada Barracks in Santiago de Cuba": 135। আইএসএসএন 0826-3663জেস্টোর 41800548ডিওআই:10.1080/08263663.2012.10817030 
  35. "Librínsula: La Isla de los libros"। ২৮ সেপ্টেম্বর ২০০৭। ২৮ সেপ্টেম্বর ২০০৭ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৮ আগস্ট ২০২০ 

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]