চৈতন্যচরিতামৃত

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন

চৈতন্যচরিতামৃত কৃষ্ণদাস কবিরাজ কর্তৃক প্রণীত। এটি শ্রীকৃষ্ণচৈতন্যদেবের (১৪৭৮-১৫৩৩) প্রতি নিবেদিত চরিত সাহিত্য ধারার চূড়ান্ত প্রামাণ্য রচনা হিসেবে মর্যাদাময় আসনে অধিষ্ঠিত। গ্রন্থটিকে গৌড়ীয় বৈষ্ণব মতবাদের সংক্ষিপ্তসার বলা হয় যার মধ্যে আছে চৈতন্য জীবনের অনুপুঙ্খ বর্ণনা, বিশেষ করে তাঁর সন্ন্যাস জীবনের বছরগুলি এবং কিভাবে সেই জীবন ভক্তির আদর্শ হিসেবে উদাহরণে পরিণত হলো তাঁর বৃত্তান্ত। গ্রন্থটির মূল পাঠ ষড় গোস্বামীদের দ্বারা বিকশিত অধিবিদ্যা, তত্ত্ববিদ্যা ও নন্দনতত্ত্বের মৌলিক তত্ত্বীয় অবস্থানের রূপরেখা দান করে এবং ভক্তজনোচিত ধর্মীয় কৃত্যের সারবস্তু ব্যক্ত করে। এটি যেহেতু বিশ্বকোষের মতো, সেকারণে এটি ঐতিহ্যের ধারায় সবচেয়ে পুনর্গঠিত পাঠ এবং অন্যসব রচনার মাপকাঠিতে বলা যায় যে, এটি ধর্মতাত্ত্বিক রচনার যথার্থ মান সৃষ্টি করেছে। এটিই সেই গ্রন্থ যার মধ্যে চৈতন্যভক্তরা সুসঙ্গত ও সুশৃঙ্খল রচনা হিসেবে গোম্বামীদের শাস্ত্রীয় গ্রন্থাদি ও চৈতন্যজীবনীর সম্পর্ক প্রথম অনুধাবন করতে পেরেছিলেন। এটিও তারা বুঝেছিলেন, কৃষ্ণদাস ছিলেন মুষ্টিমেয় ভক্তদের মধ্যে বয়োজ্যেষ্ঠ যিনি এগুলি ভালোভাবে অধ্যয়ন করেছেন।

বিষয়বস্তু[সম্পাদনা]

চৈতন্যচরিতামৃত তিনটি খন্ডে বিভক্ত; যথা - আদি লীলা, মধ্য লীলা ও অন্ত্য লীলা। প্রতিটি বিভাগ শ্রী চৈতন্য মহাপ্রভুর জীবনে একটি নির্দিষ্ট পর্যায়ে উল্লেখ করে:

আদি-লীলা[সম্পাদনা]

আদি-লীলা রাধারাণীর (উভয় ব্যক্তিত্বের একটি যৌথ অবতার) মেজাজে কৃষ্ণের অবতার হিসেবে চৈতন্যের অনন্য ধর্মীয় পরিচয় প্রকাশ করেছেন, তাঁর ব্যক্তিগত বংশ, তাঁর নিকটতম শৈশব সহচর এবং তাদের পরম্পরা (অনুষঙ্গী উত্তরাধিকার) এবং তার ভক্তিমূলক সহযোগীদের বর্ণনা রয়েছে। এই অধ্যায় চৈতন্যের জীবনের একটি সংক্ষিপ্ত সারাংশ দিয়ে সন্ন্যাস গ্রহণের উদ্দেশ্যে শেষ হয় (জীবনের উদ্ধৃত আদেশ)।

চাঁদ কাজীর সঙ্গে কথোপকথনে 'হিন্দু' শব্দটি নবদ্বীপের বাসিন্দাদের মধ্যে যারা মুসলমান নয় তাদের জন্য বারবার ব্যবহার করা হয়েছে।[১]

মধ্য-লীলা[সম্পাদনা]

মধ্য-লীলা চৈতন্য মহাপ্রভুর সন্ন্যাস গ্রহণের বিশদ বিবরণ; মাধবেন্দ্র পুরীর আখ্যান; অদ্বৈতবাদের পণ্ডিত সর্বভূমা ভট্টাচার্যের সঙ্গে একটি দার্শনিক কথোপকথন (যেখানে অহংকারী আতাতে আর্গুমেন্টের বিরুদ্ধে মহাপ্রভু কর্তৃক ভক্তের আধিপত্য বিস্তার করা হয়); দক্ষিণ ভারতে চৈতন্যের তীর্থযাত্রা; উড়িষ্যার পুরী জগন্নাথ মন্দিরের কাছে জগন্নাথের রথ যাত্রার উৎসবের সময় চৈতন্য ও তার ভক্তদের দৈনন্দিন ও বার্ষিক কার্যক্রমের উদাহরণ; অন্যান্য উত্সব পালন; এবং গোস্বামীর এবং সনাতন গোস্বামী উভয় থেকে ভক্তি রূপ যোগ প্রক্রিয়া ও তার বিস্তারিত নির্দেশাবলীর রয়েছে মধ্য-লীলা খণ্ডে।

চৈতন্যচরিতামৃতের গঠন[সম্পাদনা]

যদিও লেখক কৃষ্ণদাস কবিরাজ ব্যক্তিগতভাবে চৈতন্যের সাথে সাক্ষাত করেন নি, তবে তাঁর গুরু রঘুনাথদাস গোস্বামী (১৪৯৪-১৫৮৬ খ্রিস্টাব্দ) চৈতন্যের একজন সহযোগী ছিলেন এবং চৈতন্যের নিকটবর্তী ছিলেন এমন ব্যক্তিদের নিকটবর্তী ছিলেন কৃষ্ণদাস কবিরাজ। তাঁর রচনায় কৃষ্ণদাস কবিরাজ মুরারি গুপ্তের শিবচন্দ্রনমর  এবং স্বরূপ দামোদরের গ্রন্থেরও উল্লেখ করেছেন, উভয়ই চৈতন্য মহাপ্রভুকে জানতেন।

কৃষ্ণদাস কবিরাজ চৈতন্যের জীবন সম্পর্কে একটি গ্রন্থ রচনা করার জন্য বৃন্দাবনের বৈষ্ণবদের অনুরোধের পর তাঁর বৃদ্ধ বয়সে চৈতন্যচরিতামৃত রচনা করেন। যদিও ইতিমধ্যে একটি জীবনী বৃন্দাবন দাসের দ্বারা লিখিত হয়, যা চৈতন্য ভাগবত নামে পরিচিত, চৈতন্যদেবের জীবনের পরের বছরগুলি সেই গ্রন্থে  বিস্তারিত ছিল না। কৃষ্ণদাসের চৈতন্যচরিতামৃত গ্রন্থে চৈতন্যদেবের পরবর্তী বছরগুলির এবং এছাড়াও রাস দর্শনের যে চৈতন্য এবং তার অনুসারীদের বিস্তারিত ব্যাখ্যা রয়েছে। চৈতন্য চরিতামৃতটি গৌড়ীয় বৈষ্ণব প্রথাগুলির সমাধিসৌধ হিসেবে কাজ করে এবং গৌড়ীয় ধর্মতত্ত্বকে গোত্রবিজ্ঞান, তাত্ত্বিক ও নৃত্যবিজ্ঞানে গোস্বামী দ্বারা বিকশিত করে।

চৈতন্যচরিতামৃত প্রায়শই অনুলিপি করা হয়েছিল এবং প্রায় ১৭ শতকের প্রথম দিকে বাংলায় ও ওড়িশায় বৈষ্ণব সম্প্রদায়ের মধ্যে ব্যাপকভাবে প্রচারিত হয়েছিল। সেই সময়ে জীবিত গোস্বামীদের ও কৃষ্ণদাসের তিনজন প্রশিক্ষিত শিষ্য শ্রীনিবাস, নরোত্তম দাস ও শ্যামানন্দ দ্বারা বৈষ্ণব ধর্মের প্রচারকের দ্বারা প্রচার চলতে থাকে।

আধুনিক প্রকাশনা[সম্পাদনা]

১৯৭০-এর দশকে ভক্তিসিদ্ধান্ত সরস্বতীর শিষ্য এ. সি. ভক্তিবেদান্ত স্বামী প্রভুপাদ তথা ইস্কন-এর প্রতিষ্ঠাতা আচার্য (এছাড়াও হরে কৃষ্ণ আন্দোলনের নামে পরিচিত), পাশ্চাত্যে চৈতন্যচরিতামৃত গ্রন্থকে জনপ্রিয় করে তোলেন। তিনি তাঁর ভক্তিবেদান্ত বুক ট্রাস্টের মাধ্যমে ১৭-টি ভলিউম ইংরেজি সংস্করণে প্রকাশিত করেন তার নিজের ভাষ্য সঙ্গে ভক্তিবিন্দ ঠাকুর এবং শ্রীল ভক্তিসিদ্ধান্ত-এর অমৃত প্রভাব এবং অনুভাসের আলোচনার উপর ভিত্তি করে। এই সংস্করণ বিশ্বব্যাপী গণ  বিতরণ করা হয়েছে এবং আজকাল চৈতন্য চরিতামৃত সবচেয়ে পরিচিত এবং সবচেয়ে প্রভাবশালী ইংরেজি ভাষা সংস্করণ।

আরও দেখুন[সম্পাদনা]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. Caitanya Caritamrta 1.17.174-215

গ্রন্থ-পঁজী[সম্পাদনা]

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]