চিহ্ন চতুষ্টয়

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
চিহ্ন চতুষ্টয়
"The Sign of the Four" in Lippincott’s Monthly Magazine (1890).jpg
লেখকআর্থার কোনান ডয়েল
মূল শিরোনামThe Sign of the Four
অনুবাদককুলদারঞ্জন রায়
দেশযুক্তরাজ্য
ভাষাইংরেজি
ধারাবাহিকশার্লক হোমস
ধরনগোয়েন্দা কাহিনী, উপন্যাস
প্রকাশনার তারিখ
ফেব্রুয়ারি, ১৮৯০
পূর্ববর্তী বইরক্ত সমীক্ষা
পরবর্তী বইশার্লক হোমসের হোমসের অভিযান

চিহ্ন চতুষ্টয় (দ্য সাইন অব দ্য ফোর) হলো স্যার আর্থার কোনান ডয়েলের রচিত বিখ্যাত ধারাবাহিক উপন্যাস শার্লক হোমস সিরিজের দ্বিতীয় উপন্যাস; যা ১৮৯০ সালে প্রকাশিত হয়। শার্লক হোমসকে নিয়ে সব মিলিয়ে ৪টি উপন্যাস, আর ৫৬টি ছোট গল্প লিখেন ডয়েল।

গল্পটি শুরু হয় ১৮৮৮ সালে।[১] চিহ্ন চতুষ্টয় লেখা হয় একটি হারানো গুপ্তধন এবং ৪জন ভারতীয় কয়েদি ও দুই জন কারারক্ষির মধ্যে হওয়া একটি চুক্তিকে কেন্দ্র করে। ১৮৫৭ সালের সিপাহী বিদ্রোহও এই উপন্যাসের গুরুত্বপূর্ণ ভুমিকা রাখে। এই উপন্যাসেই প্রথম শার্লক হোমসের মাদকের প্রতি আসক্ততা প্রকাশ পায়। তার সহযোগী ড. জন ওয়াটসনের স্ত্রী ম্যারী মরস্ট্যানের পরিচয় করিয়ে দেয়া হয় এই উপন্যাসে।

সার-সংক্ষেপ[সম্পাদনা]

১৯৮৮ সালে ওয়াটসনের স্ত্রী ম্যারী মরস্তান শার্লকের কাছে কিছু রহস্য নিয়ে আসেন। প্রথম, তার পিতা ক্যাপ্টেন আর্থার মরস্ট্যানের অজ্ঞাত হওয়া, যিনি ছিলেন ব্রিটিস ভারতীয় সেনাবাহিনীর অফিসার। ম্যারী হোমসকে বলেন যে তিনি তাঁর পিতার একটি টেলিগ্রাফ পেয়েছেন, যেখানে তিনি বলেছেন যে তিনি ভারত থেকে ইংল্যান্ডে ফিরে এসেছেন এবং ম্যারীকে লন্ডনের ল্যাংহাম হোটেলে দেখা করার জন্য বলেন। যখন ম্যারী পিতার সাথে দেখা করতে ল্যাংহাম হোটেলে উপস্থিত হন তখন তিনি জানতে পারেন যে তার পিতা গত রাতে বেরিয়ে গেছেন এবং আর ফিরে আসেন নি। অনেক প্রচেষ্টা সত্ত্বেও তার পিতার কোনো সন্ধার লাভ করা সম্ভব হচ্ছিল না। তখন ম্যারী তার পিতার বন্ধু মেজর জন সলতো (অবসরপ্রাপ্ত অফিসার ব্রিটিশ ভারতীয় সেনাবাহিনী) এর সাথে যোগাযোগ করেন। কিন্তু তিনিও তাঁর পিতার ইংল্যান্ডে ফিরে আসার সত্যতা অস্বীকার করেন।

২য় রহস্য ছিল যে ম্যারী মরস্তান, অজ্ঞাত কারো কাছ থেকে চিঠির মাধ্যমে ৬টি মুল্যবান মুক্তা উপহার পান। যে মুক্তাগুলো তিনি ১৮৮২ সাল থেকে প্রতি বছর একটি করে পাচ্ছিলেন। ম্যারী যখন ১৮৮৮ সালে এই অজ্ঞাত লোকের সাথে দেখা করার জন্য পত্রিকায় বিজ্ঞাপন দেন। তার পরের দিন তিনি আরো একটি মুক্তা ও একটি চিঠি পান। যেখানে লেখা ছিল যে, পত্রিকায় বিজ্ঞাপন দেওয়া তার জন্য একটি বিরাট ভুল ছিল। এই নিয়ে মূলত গল্পটি শুরু হয় এবং পরবর্তীতে আরো নতুন রহস্যের সৃষ্টি এবং রহস্যের উন্মোচন করে।

প্রকাশনা[সম্পাদনা]

১৮৮২ সালে প্রকাশিত দ্য সাইন অব দ্য ফোর এর প্রচ্ছদ।

উপন্যাসটি প্রথম প্রকাশিত হয় ১৮৯০ এর ফেব্রুয়ারি মাসে। লিপিকর্টসের মাসিক ম্যাগাজিনে "দ্য প্রোবলেম অব দ্য সলতোস" নামে ধারাবাহিকভাবে প্রকাশিত হয়। প্রকাশের পরপরই ব্যাপক জনপ্রিয়তা অর্জন করে বইটি। তারপর ইংল্যান্ডের বিভিন্ন পত্রিকায় জনপ্রিয়তার সাথে প্রকাশিত হতে থাকে উপন্যাসটি। ১৮৯০ সালের অক্টোবরে এটি দ্য সাইন অব দ্য ফোর নামে প্রথম বই আকারে প্রকাশিত হয়; যার সম্পাদক ছিলেন স্যানসার ব্ল্যাকেট। দুই বছর পূর্বে প্রকাশিত তার প্রথম উপন্যাস আ স্টাডি ইন স্কারলেট-এর মত দ্য সাইন অব দ্য ফোর ততটা ব্যবসা সফল হতে পারেনি।

চলচ্চিত্রায়ন[সম্পাদনা]

এই উপন্যাসটিকে কেন্দ্র করে প্রায় ১৪ টি চলচ্চিত্র (১৯০৫ - ২০১৪) ও বিবিসি প্রযোজিত বেতার নাটকও তৈরি করা হয়েছে।[২]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. Conan Doyle, A. The Sign of the Four, "Chapter 2: The Statement of the Case", in which characters state: "He disappeared upon the 3d of December, 1878,—nearly ten years ago."
  2. the BBC complete audio SHERLOCK HOLMES। "THE SIGN OF THE FOUR"merrisonholmes.com। সংগ্রহের তারিখ ২৭ ফেব্রুয়ারি ২০১৭