চন্দ্রগুপ্ত মৌর্য্য

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
চন্দ্রগুপ্ত মৌর্য্য
সম্রাট চক্রবর্তী
দিল্লির বিড়লা মন্দিরে চন্দ্রগুপ্ত মৌর্য্যের মূর্তি
রাজত্বকাল ৩২২ খ্রীষ্টপূর্ব-২৯৮ খ্রীষ্টপূর্ব
জন্ম ৩৪০ খ্রিস্টপূর্ব
জন্মস্থান পাটলিপুত্র
মৃত্যু ২৯৮ খ্রিস্টপূর্ব
মৃত্যুস্থান শ্রাবণবেলাগলা[১]
পূর্বসূরি নন্দ রাজবংশের ধননন্দ
উত্তরসূরি বিন্দুসার (সন্তান)
সঙ্গী দুর্ধরা
সন্তানাদি বিন্দুসার
রাজবংশ মৌর্য্য সাম্রাজ্য
মাতা মুরা

চন্দ্রগুপ্ত মৌর্য্য (সংস্কৃত: चन्द्रगुप्त मौर्य), যিনি গ্রিকদের নিকট সান্দ্রোকোত্তোস বা আন্দ্রাকোত্তাস নামে পরিচিত ছিলেন,[২] (৩৪০ খ্রিস্টপূর্ব-২৯৮ খ্রিষ্টপূর্ব) মৌর্য্য সাম্রাজ্যের প্রতিষ্ঠাতা ছিলেন। তিনি ছিলেন প্রথম সম্রাট যিনি বৃহত্তর ভারতের অধিকাংশকে এক শাসনে আনতে সক্ষম হয়েছিলেন। তিনি ৩২২ খ্রিস্টপূর্বাব্দ হতে ২৯৮ খ্রিস্টপূর্বাব্দে স্বেচ্ছা অবসর নেওয়া পর্য্যন্ত রাজত্ব করেন ও তাঁর পরে তাঁর পুত্র বিন্দুসার সিংহাসনে আরোহণ করেন।[৩][৪][৫]

ক্ষমতায় আসার পূর্বে ভারতীয় উপমহাদেশ বেশ কয়েকটি মহাজনপদে বিভক্ত ছিল এবং সিন্ধু-গাঙ্গেয় সমতলভূমি নন্দ রাজবংশ দ্বারা শাসিত হত।[৬] চন্দ্রগুপ্ত তাঁর রাজত্বের শেষ পর্য্যন্ত তামিল ও কলিঙ্গ অঞ্চল ব্যতিরেকে ভারতীয় উপমহাদেশের অধিকাংশ স্থান অধিকার করতে বা পদানত করতে সক্ষম হয়েছিলেন।[nb ১] পূর্বে বাংলা থেকে পশ্চিমে আফগানিস্তানবেলুচিস্তান, উত্তরে কাশ্মীর থেকে দক্ষিণে দাক্ষিণাত্য মালভূমি পর্যন্ত তার শাসন প্রতিষ্ঠিত ছিল। ভারতের ইতিহাসে ইতিপূর্বে এর চেয়ে বৃহৎ সাম্রাজ্য নির্মিত হয়নি।[৭][৮]

চন্দ্রগুপ্ত ও তাঁর প্রধান পরামর্শদাতা চাণক্য বেশ কিছু গুরুত্বপূর্ণ রাজনৈতিক ও অর্থনৈতিক সংস্কার সাধন করেন। চাণক্য রচিত অর্থশাস্ত্রের ওপর নির্ভর করে চন্দ্রগুপ্ত একটী শক্তিশালী কেন্দ্রীয় প্রশাসন গড়ে তোলেন। আভ্যন্তরীণ ও বৈদেশিক বাণিজ্য ও কৃষির উন্নতির সাথে সাথে এই সাম্রাজ্যের কেন্দ্রীয় শাসনব্যবস্থার ফলস্বরূপ একটি শক্রিশালী অর্থনৈতিক ব্যবস্থা গড়ে ওঠে।[৯] মেগাস্থিনিসের বর্ণনা অনুসারে, চন্দ্রগুপ্তের মৌর্য্যের বিশাল সেনাবাহিনীতে ৪ লক্ষ সৈন্য ছিল।[nb ২]

বংশ পরিচয়[সম্পাদনা]

চন্দ্রগুপ্তের পূর্বপুরুষ ও কৈশোর সম্বন্ধে খুব কম তথ্যই পাওয়া যায়। বিভিন্ন ধ্রুপদী সংস্কৃত, গ্রিকলাতিন সাহিত্য ও ঐতিহাসিক রচনা থেকে কিছু তথ্য সংগ্রহ করা সম্ভব হয়েছে।[২] চন্দ্রগুপ্তের জীবনকালের ৭০০ বছর পরে রচিত সংস্কৃত নাটক মুদ্রারাক্ষসে তাঁকে নন্দন্বয় বা নন্দের বংশধর হিসেবে বর্ণনা করা হয়েছে। বৌদ্ধ গ্রন্থ মহাবংশে চন্দ্রগুপ্তকে মোরিয় নামক একটি ক্ষত্রিয় গোষ্ঠীর সন্তান বলে উল্লেখ করা হয়েছে। মহাপরিনিব্বাণ সুত্ত অনুসারে, মোরিয়রা উত্তর ভারতের পিপ্পলিবনের ক্ষত্রিয় গোষ্ঠী ছিলেন। মহাবংশটীকা অনুসারে, তাঁকে শাক্য ক্ষত্রিয় গোষ্ঠীর সঙ্গে সম্পর্কিত বলে বর্ণনা করা হয়েছে।[১১][১২]

মৌর্য্য সাম্রাজ্য প্রতিষ্ঠা[সম্পাদনা]

৩২১ খ্রিস্টপূর্বাব্দে প্রতিষ্ঠার সময়ে মৌর্য্য সাম্রাজ্যের বিস্তার

চাণক্য নামক তক্ষশিলার এক কূটনৈতিক ব্রাহ্মণের নিকট শিক্ষালাভ করেন ও দুইজনে মিলে নন্দ সম্রাট ধননন্দকে সিংহাসনচ্যুত করয়ার পরিকল্পনা করেন। বিশাখদত্ত রচিত মুদ্রারাক্ষস নাটকে ও জৈন গ্রন্থ পরিশিষ্টপার্বণ গ্রন্থে হিমালয়ের একটি পার্বত্য রাজ্যের রাজা পর্বতেশ্বর বা পর্বতকের সঙ্গে চন্দ্রগুপ্তের মিত্রতার কথা উল্লিখিত রয়েছে। এই রাজা এবং পুরুষোত্তম একই ব্যক্তি বলে অনেক ঐতিহাসিক মত দিয়েছেন।

প্লুতার্কের বর্ণনানুসারে, বিতস্তা নদীর যুদ্ধের সময়, নন্দ সাম্রাজ্যের ২,০০,০০০ পদাতিক, ৮০,০০০ অশ্বারোহী, ৮,০০০ রথারোহী এবং ৬,০০০ যুদ্ধহস্তী ছিল। এই বিপুল সংখ্যক সেনাবাহিনীর কথা শুনে মহান আলেকজান্ডারের সেনাবাহিনী ভারতে অগ্রসর না হওয়ার সিদ্ধান্ত নেয়।[nb ৩]

চন্দ্রগুপ্তকথা নামক গ্রন্থানুসারে, চন্দ্রগুপ্ত ও চাণক্যের সেনাবাহিনী প্রথমদিকে নন্দ সাম্রাজ্যের কর্তৃক পরাজিত হয়। কিন্তু চন্দ্রগুপ্ত এরপর বেশ কয়েকটি যুদ্ধে ধননন্দ ও তাঁর সেনাপতি ভদ্রশালাকে পরাজিত করতে সক্ষম হন এবং অবশেষে পাটলিপুত্র নগরী অবরোধ করে ৩২১ খ্রিটপূর্বাব্দে মাত্র কুড়ি বছর বয়সে নন্দ সাম্রাজ্য অধিকার করেন।[১]

ম্যাসিডনীয় সত্রপ রাজ্যগুলি অধিকার[সম্পাদনা]

৩২৩ খ্রিস্টপূর্বাব্দে মহান আলেকজান্ডারের মৃত্যুর পরে চন্দ্রগুপ্ত তাঁর সাম্রাজ্যের উত্তর পশ্চিম সীমান্তে অবস্থিত ম্যাসিডনীয় সত্রপ রাজ্যগুলির দিকে নজর দেন। তিনি পশ্চিম পাঞ্জাব ও সিন্ধু নদ উপত্যকা অঞ্চলের শাসক ইউদেমোসপাইথনের সঙ্গে সংঘর্ষে লিপ্ত হন বলে মনে করা হয়। রোমান ঐতিহাসিক মার্কাস জুনিয়ানিয়াস জাস্টিনাস তাঁর বর্ণনায় চন্দ্রগুপ্ত মৌর্য্যের উত্তর-পশ্চিম সীমান্তে ম্যাসিডনীয় সত্রপগুলি অধিকার করার ঘটনা উল্লেখ করেছেন।[nb ৪]

আলেকজান্ডারের মৃত্যুর পর ব্যাক্ট্রিয়াসিন্ধু নদ পর্য্যন্ত তাঁর সাম্রাজ্যের পূর্বদিকের অংশ সেনাপতি প্রথম সেলেউকোস নিকাতোরের অধিকারে আসে। ৩০৫ খ্রিস্টপূর্বাব্দে তিনি চন্দ্রগুপ্ত মৌর্য্যের সঙ্গে সংঘর্ষে লিপ্ত হন। এই সংঘর্ষের সঠিক বর্ণনা পাওয়া যায় না, কিন্তু যুদ্ধে পরাজিত হয়ে প্রথম সেলেউকোস নিকাতোর তাঁকে আরাকোশিয়া, গেদ্রোসিয়াপারোপামিসাদাই ইত্যাদি সিন্ধু নদের পশ্চিমদিকের বিশাল অঞ্চল[১৫][১৬] অঞ্চল সমর্পণ করতে[১৭] এবং নিজ কন্যাকে তাঁর সাথে বিবাহ দিতে বাধ্য হন।[nb ৫] চন্দ্রগুপ্ত মৌর্য্যের সঙ্গে মৈত্রী চুক্তির পর প্রথম সেলেউকোস নিকাতোর পশ্চিমদিকে প্রথম আন্তিগোনোস মোনোফথালমোসের সঙ্গে যুদ্ধে লিপ্ত হন।[nb ৬] চন্দ্রগুপ্ত প্রথম সেলেউকোস নিকাতোরকে ৫০০টি যুদ্ধ-হস্তী দিয়ে সহায়তা করেন।[১৭][১৯][২০], যা ইপসাসের যুদ্ধে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা গ্রহণ করে তাঁকে জয়লাভে সহায়তা করে।

দাক্ষিণাত্য অভিযান[সম্পাদনা]

এরপর চন্দ্রগুপ্ত দক্ষিণ ভারতের দিকে অগ্রসর হন। তিনি বিন্ধ্য পর্বত পেরিয়ে দাক্ষিণাত্য মালভূমির সিংহভাগ দখল করতে সক্ষম হন। এর ফলে কলিঙ্গ ও দাক্ষিণাত্যের অল্পকিছু অংশ বাদে সমগ্র ভারত মৌর্য্য সাম্রাজ্যের অন্তর্গত হয়।[১] সঙ্গম সাহিত্যের বিখ্যাত তামিল কবি মমুলনার মৌর্য্য সেনাবাহিনী দ্বারা দাক্ষিণাত্য আক্রমণের ঘটনার বর্ণনা দিয়েছেন।

মৃত্যু[সম্পাদনা]

শ্রাবণবেলগোলায় এই পদচিহ্ন চন্দ্রগুপ্ত মৌর্য্যের বলে মনে করা হয়।

জৈন আচার্য্য ভদ্রবাহুর নিকট চন্দ্রগুপ্ত মৌর্য্য আধ্যাত্মিক শিক্ষা লাভ করেন ও পরবর্তীকালে বিয়াল্লিশ বছর বয়সে সিংহাসন ত্যাগ করে জৈন ধর্ম গ্রহণ করে তাঁর সাথে দাক্ষিণাত্য যাত্রা করেন। জৈন প্রবাদানুসারে, চন্দ্রগুপ্ত শ্রবণবেলগোলায় জৈন আচার সল্লেখনা বা স্বেচ্ছা-উপবাস করে দেহত্যাগ করেন।[২১]

পরবর্তী যুগে[সম্পাদনা]

পাদটীকা[সম্পাদনা]

  1. The conquest of the Deccan is a matter of conjecture. Either Chandragupta or his son and successor Bindusara established Maurya rule over southern parts of India, except the Tamil regions. Old Jaina tets report that Chandragupta was a follower of that religion and ended his life in Karnataka by fasting unto death. If this report is true, Chandragupta may have started the conquest of the Deccan.[৩]
  2. Megasthenes was in the camp of Sandrocottus, which consisted of 400,000 men.[১০]
  3. As for the Macedonians, however, their struggle with Porus blunted their courage and stayed their further advance into India. For having had all they could do to repulse an enemy who mustered only twenty thousand infantry and two thousand horse, they violently opposed Alexander when he insisted on crossing the river Ganges also, the width of which, as they learned, was thirty-two furlongs, its depth a hundred fathoms, while its banks on the further side were covered with multitudes of men-at‑arms and horsemen and elephants. For they were told that the kings of the Ganderites and Praesii were awaiting them with eighty thousand horsemen, two hundred thousand footmen, eight thousand chariots, and six thousand fighting elephants. And there was no boasting in these reports. For Androcottus, who reigned there not long afterwards, made a present to Seleucus of five hundred elephants, and with an army of six hundred thousand men overran and subdued all India. [১৩]
  4. India, after the death of Alexander, had assassinated his prefects, as if shaking the burden of servitude. The author of this liberation was Sandracottos, but he had transformed liberation in servitude after victory, since, after taking the throne, he himself oppressed the very people he has liberated from foreign domination[১৪]
  5. Always lying in wait for the neighboring nations, strong in arms and persuasive in council, he acquired Mesopotamia, Armenia, 'Seleucid' Cappadocia, Persis, Parthia, Bactria, Arabia, Tapouria, Sogdia, Arachosia, Hyrcania, and other adjacent peoples that had been subdued by Alexander, as far as the river Indus, so that the boundaries of his empire were the most extensive in Asia after that of Alexander. The whole region from Phrygia to the Indus was subject to Seleucus. He crossed the Indus and waged war with Sandrocottus [Maurya], king of the Indians, who dwelt on the banks of that stream, until they came to an understanding with each other and contracted a marriage relationship. Some of these exploits were performed before the death of Antigonus and some afterward.[১৮]
  6. After having made a treaty with him [Sandrakotos] and put in order the Orient situation, Seleucos went to war against Antigonus[১৪]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. ১.০ ১.১ ১.২ Mookerji, Radha Kumud (১৯৮৮) [১৯৬৬]। Chandragupta Maurya and his times Chandragupta Maurya and His Times (4th সংস্করণ)। Motilal Banarsidass। আইএসবিএন 81-208-0405-8 
  2. ২.০ ২.১ Romila Thapar; Early India: From the Origins to Ad 1300. University of California Press. 2004. ISBN 978-0520242258. p. 177.
  3. ৩.০ ৩.১ Kulke, Hermann; Rothermund, Dietmar (১৯৯৮) [১৯৮৬]। A History of India (Third সংস্করণ)। London: Routledge। পৃ: 59–64। আইএসবিএন 0-415-15481-2 
  4. Boesche, Roger (জানুয়ারি ২০০৩)। "Kautilya's Arthaśāstra on War and Diplomacy in Ancient India"The Journal of Military History 67 (1): 9–37। আইএসএসএন 0899-3718ডিওআই:10.1353/jmh.2003.0006 
  5. William Smith (ed), Dictionary of Greek and Roman Biography and Mythology, 1870, Vol 3 p. 705-6
  6. Shastri, Nilakantha (১৯৬৭)। Age of the Nandas and Mauryas (Second সংস্করণ)। Delhi: Motilal Banarsidass। পৃ: ২৬। আইএসবিএন 81-208-0465-1 
  7. Vaughn, Bruce (২০০৪)। "Indian Geopolitics, the United States and Evolving Correlates of Power in Asia"। Geopolitics 9 (2): 440–459 [442]। ডিওআই:10.1080/14650040490442944 
  8. Goetz, H. (১৯৫৫)। "Early Indian Sculptures from Nepal"। Artibus Asiae 18 (1): 61–74। ডিওআই:10.2307/3248838 
  9. Sen, S. N. (১৯৯৯)। Ancient Indian History And Civilization। New Age International। পৃ: ১৬৫। আইএসবিএন 978-8122411980 
  10. Strabo"15.1.53"Geographica 
  11. "optional indian history ancient india"google.co.in 
  12. "Chandragupta Maurya"india-religion.net 
  13. Plutarch""Life of Alexander" 62.1-4"Parallel Lives। পৃ: ১৬৫। 
  14. ১৪.০ ১৪.১ Justin"XV.4.19"। Historiarum Philippicarum libri XLIV। 
  15. Vincent A. Smith (1998). Ashoka. Asian Educational Services. ISBN 81-206-1303-1.
  16. Walter Eugene, Clark (১৯১৯)। "The Importance of Hellenism from the Point of View of Indic-Philology"। Classical Philology 14 (4): 297–313। ডিওআই:10.1086/360246 
  17. ১৭.০ ১৭.১ Ramesh Chandra Majumdar; Ancient India. Motilal Banarsidass Publ. 1977. ISBN 81-208-0436-8.
  18. Appian"The Syrian Wars"। History of Rome, 
  19. Tarn, W. W. (১৯৪০)। "Two Notes on Seleucid History: 1. Seleucus' 500 Elephants, 2. Tarmita"। The Journal of Hellenic Studies 60: 84–94। ডিওআই:10.2307/626263 
  20. Partha Sarathi Bose (2003). Alexander the Great's Art of Strategy. Gotham Books. ISBN 1-59240-053-1.
  21. Vilas Adinath Sangave (২০০৬)। Aspects of Jaina religion। Bharatiya Jnanpith। পৃ: 99–। আইএসবিএন 978-81-263-1273-3। সংগৃহীত ৫ জুন ২০১৩ 
  22. Manohar Laxman Varadpande (১ সেপ্টেম্বর ২০০৫)। History Of Indian Theatre। Abhinav Publications। পৃ: 223–। আইএসবিএন 978-81-7017-430-1। সংগৃহীত ৬ জুন ২০১২ 
  23. Upinder Singh (১ সেপ্টেম্বর ২০০৮)। A History of Ancient and Early Medieval India: From the Stone Age to the 12th Century। Pearson Education India। পৃ: 30–। আইএসবিএন 978-81-317-1120-0। সংগৃহীত ৬ জুন ২০১২ 
  24. Ghosh, Ajit Kumar (২০০১)। Dwijendralal Ray। Makers of Indian Literature (1st সংস্করণ)। New Delhi: Sahitya Academy। পৃ: 44–46। আইএসবিএন 81-260-1227-7 
  25. Raha, Kironmoy (২০০১) [১৯৭৮]। Bengali Theatre (3rd সংস্করণ)। New Delhi: National Book Trust, India। পৃ: ৮১। আইএসবিএন 978-81-237-0649-8 
  26. "Chanakya Chandragupta (1977)"IMDb 
  27. Commemorative postage stamp on Chandragupta Maurya, Press Information Bureau, Govt. of India
  28. "Ashoka the Great (2001)"IMDB। সংগৃহীত ডিসেম্বর ১৫, ২০১২ 
  29. "Chandragupta Maurya comes to small screen"Zee News 
  30. "Chandragupta Maurya on Sony TV?"The Times of India 
  31. TV, Imagine। "Channel"TV Channel 

আরো পড়ুন[সম্পাদনা]

  • Kosambi, D.D. An Introduction to the Study of Indian History, Bombay: Popular Prakashan, 1985
  • Bhargava, P.L. Chandragupta Maurya, New Delhi:D.K. Printworld, 160 pp., 2002.
  • Habib, Irfan. and Jha, Vivekanand. Mauryan India: A People's History of India,New Delhi:Tulika Books, 2004; 189pp
  • Swearer, Donald. Buddhism and Society in Southeast Asia (Chambersburg, Pennsylvania: Anima Books, 1981) ISBN 0-89012-023-4
  • Nilakanta Sastri, K. A. Age of the Nandas and Mauryas (Delhi : Motilal Banarsidass, [1967] c1952) ISBN 0-89684-167-7
  • Bongard-Levin, G. M. Mauryan India (Stosius Inc/Advent Books Division May 1986) ISBN 0-86590-826-5
  • Chand Chauhan, Gian. Origin and Growth of Feudalism in Early India: From the Mauryas to AD 650 (Munshiram Manoharlal January 2004) ISBN 81-215-1028-7
  • Keay, John. India: A History (Grove Press; 1 Grove Pr edition May 10, 2001) ISBN 0-8021-3797-0
চন্দ্রগুপ্ত মৌর্য্য
রাজত্বকাল শিরোনাম
পূর্বসূরী
নন্দ রাজবংশ
মৌর্য্য সম্রাট
খ্রিস্টপূর্ব ৩২২- খ্রিস্টপূর্ব ২৯৮
উত্তরসূরী
বিন্দুসার