খারান (দেশীয় রাজ্য)

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
খারান
خاران
পাকিস্তান অধিরাজ্য দেশীয় রাজ্য
১৬৯৭–১৯৫৫
খারানের পতাকা
পতাকা
Kharan Map.gif
খারানের মানচিত্র উজ্জল ভাবে দেখানো
রাজধানীখারান
আয়তন 
• ১৬৯৭
৪৮,০৫১ বর্গকিলোমিটার (১৮,৫৫৩ বর্গমাইল)
ইতিহাস 
• প্রতিষ্ঠিত
১৬৯৭
• বিলুপ্তি
১৪ অক্টোবর ১৯৫৫
পূর্বসূরী
উত্তরসূরী
State of Kharan
West Pakistan
বর্তমানে যার অংশবেলুচিস্তান, পাকিস্তান
বেলুচিস্তান সরকার
বেলুচিস্তান এজেন্সি এর মানচিত্র।

খারান রাজ্য ( উর্দু : ریاست خاران ) ১৯৪৭ সালের আগস্টে উপমহাদেশ থেকে ব্রিটিশদের চলে যাওয়ার আগ পর্যন্ত ব্রিটিশ ভারতের সাথে একটি সহায়ক জোটে একটি স্বায়ত্তশাসিত দেশীয় রাজ্য ছিল। ১৯৪৮ সালের মার্চ অবধি এটি সম্পূর্ণ স্বাধীন ছিল, এর শাসক রাষ্ট্রের অভ্যন্তরীণ স্ব-সরকারকে ধরে রেখে পাকিস্তান অধিরাজ্যে প্রবেশের স্বাক্ষর করেন । ১৯৫৫ সালে খারানকে পাকিস্তানে অন্তর্ভুক্ত করা হয়।[১][২][৩][৪]

খড়ান অঞ্চলটি আজ পাকিস্তানের দক্ষিণ-পশ্চিমে বেলুচিস্তান প্রদেশের অন্তর্ভুক্ত।

ইতিহাস[সম্পাদনা]

খারান রাজ্যে কালাতের সামন্ত রাষ্ট্র হিসেবে ১৬৯৭ সালে স্থাপিত হয়, যা ১৯৪০ সাল পর্যন্ত ছিল। এটি ১৯৪০ সালে কালাত থেকে স্বাধীন হয়। ১৯৪৮ সালের ১ মার্চ খারান পাকিস্তানে প্রবেশ করেন এবং ১৯৫২ সালের ৩ অক্টোবর এটি বালুচিস্তান স্টেটস ইউনিয়নে যোগদান করেন। মীর হাবিবুল্লাহ নওশারওয়ানি পাকিস্তানকে এই বলে উল্লেখ করেছিলেন: হরান ১৮ তম শতাব্দীর শেষদিকে নাসির খান দ্বারা বিজয় লাভ করেছিলেন, কিন্তু সেখানে তাঁর ক্ষমতা স্থির হয়নি। তিনি আরও বলেছিলেন: খড়ানের ভাগ্য নির্ধারণের বৈধতা নেই কালাতের। আমরা পাকিস্তানের সাথে আমাদের একীকরণের ঘোষণা দিচ্ছি এবং আমরা কালাতের শাসকগোষ্ঠীর দ্বারা আরও হস্তক্ষেপ সহ্য করব না।[৫]

খারানের শাসক আব্বাস খান নুশেরভানি কালাত খানাত তাঁর আয়ের অংশ দিতেন, কিন্তু তিনি নিজের দেশেই রাজত্ব করেছিলেন।

হারানের শাসনকর্তারা তাদের সম্পত্তির প্রত্যন্ততার জন্য কালাত থেকে নয়, কাবুল এবং তেহরান থেকেও আপেক্ষিক স্বাধীনতা অর্জন করেছিল। ইরান থেকে ভারতে বাণিজ্য পথ রক্ষার জন্য আফগান আমিররা (এবং তাদের আগে ইরানী শাহরা) যদিও তারা খড়ানের খাঁনদেরকে ভেসেল মনে করতো তাদের কাছ থেকে শ্রদ্ধামূল্য নিত না, বরং তাদের নিয়মিত আর্থিক ও অন্যান্য সরবরাহ করতো।[৫]

১৯৫৫ সালের ১৪ ই অক্টোবর পাকিস্তানের পশ্চিম শাখার বেশিরভাগ অঞ্চলকে পশ্চিম পাকিস্তান প্রদেশ গঠনের জন্য এই রাজ্যটি মিশে গিয়ে ছিল। ১৯৭০ সালে যখন এই প্রদেশটি বিলুপ্ত হয়েছিল, তখন খড়ান প্রদেশের পূর্ব অঞ্চলটি বেলুচিস্তান প্রদেশের খারান জেলা হিসাবে সংগঠিত হয়েছিল।

জনসংখ্যার উপাত্ত[সম্পাদনা]

নওশেরওয়ানি (نوشیروانی) খারান এবং ওয়াশুকের নবাব হিসাবে বিবেচিত হয়। বেলুচিস্তানের সর্বাধিক সম্মানিত পরিবার, নওশেরওয়ানীরা দুটি উপ উপজাতিতে বিভক্ত: প্রথম খারানের নবাব এবং দ্বিতীয়টি মাকরানের সরদার। রাজ্যের জনসংখ্যা ছিল মূলত বালুচ উপজাতি, কিছু ব্রহুই অঞ্চল জুড়ে ছড়িয়ে ছিটিয়ে ছিল। ।

সরকার[সম্পাদনা]

খারানের বংশগত শাসকরা মীরের ১৬৮০–১৮০০, খান ১৮৫০-১৯০৯, খান সাহেব ১৯০৯-১৯১১, সরদার ১৯১১–১৯১৯, সরদার বাহাদুর ১৯১৯-১৯২১ এবং ১৯২১ পরবর্তী পোস্ট থেকে নবাব উপাধি রেখেছিলেন।

রাজত্বের তারিখ খারানের শাসকগণ [৬]
১৬৫০-? মীর মুহাম্মদ খান নওশেরওয়ানি
? - মীর আব্বাস খান নওশেরওয়ানি আই
? - মীর দোস্তেন খান নওশেরওয়ানি
? - মীর দিনার খান নওশেরওয়ানি আই
? - মীর লাল্লা খান নওশেরওয়ানি
? - মীর ফিরোজ খান নওশেরওয়ানি
? - মীর দোস্তেন খান নওশেরওয়ানি দ্বিতীয়
? - মীর দিনার খান নওশেরওয়ানি দ্বিতীয়
? - মীর শাহদাদ খান নওশেরওয়ানি আই
১৭১১-১৭১১ মীর রহমত খান নওশেরওয়ানি
১৭১১-১৭৪৭ মীর পুরিল খান নওশেরওয়ানি
১৭৪৭-১৭৪৭ মীর আব্বাস খান নওশেরওয়ানি দ্বিতীয়
১৭৪৭-১৭৫৯ মীর শাহদাদ খান নওশেরওয়ানি দ্বিতীয়
১৭৯৬-১৮০৪ মীর জাহাঙ্গীর খান নওশেরওয়ানি
১৮১০-১৮৩৩ মীর আব্বাস খান নোশেরওয়ানি তৃতীয় [৭]
১৮৩৩-১৮৮৫ মীর আজাদ খান নওশেরওয়ানি
১৮৮৫-১৯০৯ খান সাহেব মীর নওরোজ খান নওশেরওয়ানি ( কেসিআইই )
১৯০৯-১৯১১ খান সাহেব মীর মোহাম্মদ ইয়াকুব খান নওশেরওয়ানি
১৯১১-১৯৫৫ সরদার বাহাদুর নবাব মীর হাবিবুল্লাহ খান নওশেরওয়ানি
১৪ অক্টোবর ১৯৫৫ রাজ্যটি পশ্চিম পাকিস্তানে একীভূত হয়েছিল
১৯৫৫-১৯৫৮ নবাব মীর হাবিবুল্লাহ খান নওশেরওয়ানি (খারানের নবাব )

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. Cheema, Pervaiz I.; Riemer, Manuel (১৯৯০-০৮-২২)। Pakistan's Defence Policy 1947-58 (ইংরেজি ভাষায়)। Springer। পৃষ্ঠা ৬০। আইএসবিএন 978-1-349-20942-2 
  2. Siddiqi, Farhan Hanif (২০১২)। The Politics of Ethnicity in Pakistan: The Baloch, Sindhi and Mohajir Ethnic Movements (ইংরেজি ভাষায়)। Routledge। পৃষ্ঠা ৭১। আইএসবিএন 978-0-415-68614-3 
  3. Paul, T. V. (২০১৪)। The Warrior State: Pakistan in the Contemporary World (ইংরেজি ভাষায়)। OUP USA। আইএসবিএন 978-0-19-932223-7 
  4. Long, Roger D.; Singh, Gurharpal; Samad, Yunas; Talbot, Ian (২০১৫-১০-০৮)। State and Nation-Building in Pakistan: Beyond Islam and Security (ইংরেজি ভাষায়)। Routledge। পৃষ্ঠা ৮১–। আইএসবিএন 978-1-317-44820-4 
  5. Пикулин, Михаил Григорьевич (১৯৫৯)। Белуджи (রুশ ভাষায়)। Изд-во восточной лит-ры। 
  6. Ben Cahoon, WorldStatesmen.org। "Pakistan Princely States"। সংগ্রহের তারিখ ২০০৭-১০-০৩ 
  7. http://balochistannationalparty.com/index.php/culture/198-nousherwani-baloch-of-kharan