কোজাতেপে মসজিদ

স্থানাঙ্ক: ৩৯°৫৫′০০″ উত্তর ৩২°৫১′৩৯″ পূর্ব / ৩৯.৯১৬৬৭° উত্তর ৩২.৮৬০৮৩° পূর্ব / 39.91667; 32.86083
উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
কোজাতেপে মসজিদ
Kocatepe Camii ve Külliyesi
ANKARA KOCATEPE CAMİİ.jpg
ধর্ম
অন্তর্ভুক্তিইসলাম
নেতৃত্বঈমামগণ:
মেহমেত আতিসি
অবস্থান
অবস্থানআংকারা, তুরস্ক[১]
কোজাতেপে মসজিদ তুরস্ক-এ অবস্থিত
কোজাতেপে মসজিদ
তুরস্কে অবস্থান
প্রশাসনতুরস্ক সরকার
স্থানাঙ্ক৩৯°৫৫′০০″ উত্তর ৩২°৫১′৩৯″ পূর্ব / ৩৯.৯১৬৬৭° উত্তর ৩২.৮৬০৮৩° পূর্ব / 39.91667; 32.86083
স্থাপত্য
ধরনমসজিদ
প্রতিষ্ঠার তারিখপ্রাক-ইসলামী যুগ
নির্দিষ্টকরণ
ধারণক্ষমতা২৪,০০০ মুসল্লি
দৈর্ঘ্য৬৭ মি.
প্রস্থ৬৪ মি.
মিনার
মিনারের উচ্চতা৮৮ মি (২৮৯ ফু)
ওয়েবসাইট
www.ankara.bel.tr

কোজাতেপে মসজিদ (তুর্কি: Kocatepe Camii) তুরস্কের রাজধানী আংকারার একটি বড় মসজিদ। এটি ১৯৬৭ থেকে ১৯৮৭ সালের মধ্যবর্তীকালে আংকারার কোজাতেপে কোয়ার্টারে নির্মিত হয় এবং এর আকার বৈশিষ্ট্য এটিকে একটি ল্যান্ডমার্ক করে তুলেছে যা মধ্য আংকারার প্রায় যেকোনো জায়গা থেকে দেখা যায়।

ইতিহাস[সম্পাদনা]

কোজাতেপে মসজিদ নির্মাণের ধারণা ১৯৪০-দশকের। ৮ ডিসেম্বর, ১৯৪৪ সালে তুরস্কের ধর্মীয় বিষয়ক ভাইস-প্রেসিডেন্ট আহমেদ হামদি আকসেকি বাহাত্তর জন প্রতিষ্ঠাতা সদস্যের সাথে আঙ্কারায় "ইয়েনিশেহির" নামক একটি মসজিদ নির্মাতা সমিতি প্রতিষ্ঠা করেন।১৯৪৭ সালে এই সোসাইটি স্থপতিদের দ্বারা প্রকল্প তৈরি করার আহ্বান জানায় কিন্তু জমা দেওয়া প্রকল্পগুলির একটিও গ্রহণ করা হয়নি।১৯৫৬ সালে তৎকালীন প্রধানমন্ত্রী প্রয়াত আদনান মেন্ডারেসের প্রচেষ্টায় আঙ্কারায় একটি মসজিদ নির্মাণের প্রকল্পের জন্য জমি বরাদ্দ করা হয়েছিল এবং ১৯৫৭ সালে আবারও প্রকল্পের জন্য অনুরোধ করা হয়।তখন ছত্রিশটি প্রকল্পের মূল্যায়ন করা হয় যার মধ্যে ভেদাত দালোকে এবং নেজাত তেকেলিওলু-এর যৌথ প্রকল্প বাস্তবায়নের জন্য বেছে নেওয়া হয়।[২]

স্থাপত্য[সম্পাদনা]

গৃহীত প্রকল্পটি একটি উদ্ভাবনী এবং আধুনিক নকশা হওয়ায় নির্মাণ শুরুর পর আধুনিকতাবাদী চেহারার জন্য রক্ষণশীলদের কাছ থেকে ব্যাপক সমালোচনার কারণে ভিত্তি স্তরে নির্মাণ কাজ বন্ধ হয়ে যায়। বেদাত দালোকে ১৯৬৯ সালে ইসলামাবাদ, পাকিস্তান-এ শাহ ফয়সাল মসজিদ-এর জন্য আন্তর্জাতিকভাবে পুরস্কৃত হবার পর কোজাতেপে মসজিদের একটি পরিবর্তিত সংস্করণ তৈরি করে।২৪,০০০ মুসল্লি ধারণক্ষম এ মসজিদটি বিশ্বের বৃহত্তম মসজিদগুলির মধ্যে একটি এবং আধুনিক ইসলামিক স্থাপত্য সূচনা হিসাবে গৃহীত।

১৯৬৭ সালে একটি তৃতীয় স্থাপত্য প্রতিযোগিতার পর হুসরেভ টেইলা এবং এম. ফাতিন উলুয়েনগিনের আরও রক্ষণশীল বা নস্টালজিক নকশা নির্মাণ শৈলী বেছে নেয়।১৯৮৭ সালে সম্পূর্ণ এই প্রকল্পটি একটি নিও-ক্লাসিক্যাল অটোমান স্থাপত্য শৈলীতে নির্মিত এবং এটি একটি সারগ্রাহী বিল্ডিং যা এদিরনে অবস্থিত সেলিমিয়ে মসজিদ এবং ইস্তাম্বুলের সেহজাদে এবং সুলতান আহমেত মসজিদগুলোর মত হাগিয়া সোফিয়া বা পূর্ব রোমান স্থাপত্য দ্বারা প্রভাবিত হয়েছিল।

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "Location of Masjid al-Haram"Google Maps। সংগ্রহের তারিখ ২ ফেব্রুয়ারি ২০১৭ 
  2. "Brochure by the Turkish Ministry of Religious Affairs" (PDF)। ২০০৮-০৫-২৮ তারিখে মূল (PDF) থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০০৭-১১-০৭ 

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]