কোইনে গ্রিক

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
(কোইন গ্রীক থেকে পুনর্নির্দেশিত)
কোইন গ্রিক
Κοινὴ Ἑλληνική
অঞ্চল পূর্ব ভূমধ্যসাগর এবং মধ্য প্রাচ্য
যুগ ৩৩৬ খ্রীস্টপূর্ব - ৩০০ খ্রিস্টাব্দ (১৪৫৩ সাল পর্যন্ত বাইজেন্টাইনের সরকার ভাষা হিসেবে ব্যবহার); মধ্যযুগীয় গ্রীক ভাষায় বিকাশ, গ্রীক অর্থোডক্স এবং গ্রীক ক্যাথলিক চার্চের পবিত্র ভাষা হিসেবে টিকে আছে [১]
প্রারম্ভিক রূপ
গ্রিক বর্ণমালা
ভাষার কোড
ISO ৬৩৯-২ grc
ISO ৬৩৯-৩ ( ecg প্রস্তাবিত)
grc-koi
গ্লোট্টোলগ নেই

একসময় গ্রীসের প্রচলিত সাধারণ ভাষা গ্রিক ( ইউকে: /ˈkɔɪn/; [২] [৩] আধুনিক গ্রিক: Ελληνιστική Κοινή 'সাধারণ গ্রিক' , elinistiˈci ciˈni) আরও বিভিন্ন নামেও পরিচত ছিল যেমন— অ্যালেকজান্ডারিয়ান উপভাষা, সাধারণ আত্তীয়, হেলেনিস্টিক বা বাইবেলীয় গ্রিক। হেলেনিস্টিক যুগে, রোমান সাম্রাজ্যে এবং প্রারম্ভিক বাইজেনটাইন সাম্রাজ্যের কালে গ্রিক ভাষার সুপ্রা-আঞ্চলিক রূপ বলা এবং লেখা হত।

এটি খ্রিস্টপূর্ব চতুর্থ শতাব্দীতে আলেকজান্ডার দ্য গ্রেটের বিজয়ের পর গ্রীক ভাষার বিস্তার থেকে উদ্ভূত হয়েছিল এবং পরবর্তী শতাব্দীতে ভূমধ্যসাগরীয় অঞ্চল এবং মধ্যপ্রাচ্যের বেশিরভাগ অংশের যোগাযোগের ভাষা হিসেবে কাজ করেছিল।এটি মূলত আত্তীয় এবং প্রায় কাছাকাছি থাকা আইয়োনীয় বক্তৃতা ফর্মের উপর ভিত্তি করে তৈরি করা হয়েছিল, অন্যান্য রূপগুলির সাথে উপভাষা সমতলকরণের মাধ্যমে বিভিন্ন সংমিশ্রণ নিয়ে আসা হয়েছিল।[৪]


কোইন গ্রিক রক্ষণশীল সাহিত্যিক ফর্ম থেকে বেরিয়ে গিয়ে সেই সময়কার কথ্য আঞ্চলিক ভাষার শৈলী পর্যন্ত সাহিত্যে অন্তর্ভুক্ত করে।[৫]বাইজেন্টাইন সাম্রাজ্যের প্রভাবশালী ভাষা হিসাবে থাকায় এটি মধ্যযুগীয় গ্রীক থেকে আরও বিকশিত হয়েছিল, যা পরে আধুনিক গ্রীক ভাষায় পরিণত হয়েছিল।[৬]

কোইন ভাষা প্লুটার্ক এবং পলিবিয়াসের মতো পণ্ডিতদের লেখার মাধ্যমে উত্তর-ধ্রুপদী গ্রীক সাহিত্যকে সমৃদ্ধ করেছিল। [৪] কোয়েন হল খ্রিস্টান নিউ টেস্টামেন্টের ভাষা, সেপ্টুয়াজিন্টের (খ্রিস্টপূর্ব ৩য় শতাব্দীর হিব্রু বাইবেলের গ্রীক অনুবাদ) এবং চার্চ ফাদারদের প্রাথমিক খ্রিস্টীয় ধর্মতত্ত্ব লেখার ভাষা।এই কারণেই কোইন গ্রীক ভাষা "বাইবেলীয়", "নিউ টেস্টামেন্ট", "এক্লেসিয়াসটিক" বা "পেট্রিস্টিক" গ্রীক নামেও পরিচিত।[৭] রোমান সম্রাট মার্কাস অরেলিয়াসও কোইন গ্রীক ভাষায় তাঁর ব্যক্তিগত চিন্তাধারা লিখেছিলেন। সেই লেখাটি এখন দ্য মেডিটেশন নামে পরিচিত।[৮] গ্রীক অর্থোডক্স চার্চের উপাসনামূলক ভাষা হিসেবে কোইন গ্রীক ভাশা ব্যবহার করা এখনও অব্যাহত রয়েছে।[৯]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. Demetrios J. Constantelos, The Greek Orthodox Church: faith, history, and practice, Seabury Press, 1967
  2. "Koine"Collins Dictionary। n.d.। সংগ্রহের তারিখ ২৪ সেপ্টেম্বর ২০১৪ 
  3. "Koine"ডিকশনারী.কম। র‍্যান্ডম হাউজ। 
  4. Bubenik, V. (২০০৭)। "The rise of Koiné"। A history of Ancient Greek: from the beginnings to late antiquity। University Press। পৃষ্ঠা 342–345। 
  5. Horrocks, Geoffrey (১৯৯৭)। "4–6"। Greek: a history of the language and its speakers। Longman। 
  6. Horrocks, Geoffrey (২০০৯)। Greek: A History of the Language and its Speakers। Wiley। পৃষ্ঠা xiii। আইএসবিএন 978-1-4443-1892-0 
  7. A history of ancient Greek by Maria Chritē, Maria Arapopoulou, Centre for the Greek Language (Thessalonikē, Greece) pg 436 আইএসবিএন ০-৫২১-৮৩৩০৭-৮
  8. Meditations
  9. Makrides, Vasilios N; Roudometof, Victor (২০১৩)। Orthodox Christianity in 21st Century Greece: The Role of Religion in Culture, Ethnicity and Politics। Ashgate Publishing, Ltd.। পৃষ্ঠা 8। আইএসবিএন 978-1-4094-8075-4  "A proposal to introduce Modern Greek into the Divine Liturgy was rejected in 2002"